কেনিয়া পর্বত

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Jump to navigation Jump to search
Mount Kenya
Mount Kenya.jpg
উচ্চতা৫,১৯৯ মিটার (১৭,০৫৭ ফুট)[১]
সুপ্রত্যক্ষতা৩,৮২৫ মিটার (১২,৫৪৯ ফুট)[১]
Ranked 32nd
তালিকাসমূহSeven Second Summits
Country high point
Ultra
অবস্থান
Kenya
স্থানাঙ্ক০°৯′০৩″ দক্ষিণ ৩৭°১৮′২৭″ পূর্ব / ০.১৫০৮৩° দক্ষিণ ৩৭.৩০৭৫০° পূর্ব / -0.15083; 37.30750স্থানাঙ্ক: ০°৯′০৩″ দক্ষিণ ৩৭°১৮′২৭″ পূর্ব / ০.১৫০৮৩° দক্ষিণ ৩৭.৩০৭৫০° পূর্ব / -0.15083; 37.30750[১]
তোপ মানচিত্রMt Kenya by Wielochowski and Savage[২][৩]
ভূবিদ্যা
ধরনStratovolcano (extinct)
সর্বশেষ অগ্ন্যুত্পাত2.6–3.1 MYA
আরোহণ
প্রথম আরোহণ1899 by Halford Mackinder, with guides César Ollier and Joseph Brocherel
সহজ পথRock climb

মাউন্ট কেনিয়া কেনিয়ার সর্বোচ্চ পর্বত,  , এবং আফ্রিকার দ্বিতীয়-সর্বোচ্চ পর্বত, কিলিমাঞ্জারো র পরেই  । পর্বতটির সর্বোচ্চ শিখরগুলি হল  বাতিয়ান (৫,১৯৯ মিটার (১৭,০৫৭ ফু)), নেলিওন (৫,১৮৮ মিটার (১৭,০২১ ফু)) এবং পয়েন্ট লেনানা (৪,৯৮৫ মিটার (১৬,৩৫৫ ফু))।মাউন্ট কেনিয়া, কেনিয়ার প্রাক্তন পূর্ব প্রদেশ, অধুনা পূর্ব অঞ্চলে, নিরক্ষরেখার  ১৬.৫ কিলোমিটার (১০.৩ মা) দক্ষিণে, রাজধানী নাইরোবি থেকে প্রায়  ১৫০ কিলোমিটার (৯৩ মা) উত্তর-উত্তরপূর্ব অবস্থিত। কেনিয়া পর্বতের নাম থেকেই কেনিয়া প্রজাতন্ত্রের নামটি এসেছে। 

মাউন্ট কেনিয়া একটি স্ট্র্যাটোভলক্যানো বা মিশ্র আগ্নেয়গিরি যা গঠিত হয়েছিল প্রায় ৩ মিলিয়ন বছর পূর্বে  ইস্ট আফ্রিকান রিফট.[৪] খোলার পরে। হিমবাহীকরণের আগে এটা ছিল ৭,০০০ মি (২৩,০০০ ফু) উঁচু। এর পরে এই অঞ্চল হাজার হাজার বছর ধরে একটি বরফ ক্যাপ দ্বারা আবৃত ছিল। এর ফলশ্রুতিতে, মূলকেন্দ্র থেকে বহু সংখ্যক ক্ষয়প্রাপ্ত ঢাল এবং অসংখ্য উপত্যকা বেরিয়ে এসেছে । বর্তমানে মোট ১১টি ছোট হিমবাহ রয়েছে। বনভূমি যুক্ত ঢালগুলি কেনিয়ার অধিকাংশ অঞ্চলের জলের একটি গুরুত্বপূর্ণ উৎস।

বেস থেকে চূড়ান্ত পর্যায় (সামিট) পর্যন্ত বিভিন্ন বায়োম (ভেজিটেশন ব্যান্ড) আছে[৫]। অপেক্ষাকৃত নিচু ঢালগুলি  বিভিন্ন রকম বনভূমি দ্বারা আচ্ছাদিত । অনেক আলপাইন প্রজাতির গাছপালাগুলি কেনিয়া পর্বতেই পাওয়া যায়, যেমন দৈত্যাকার লোবেলিয়াস এবং সেনেসিওস এবং রক হাইর‍্যাক্সের একটি স্থানীয় উপজাতি এর[৬] । কেন্দ্রস্থলে প্রায় ৭১৫ কিমি (২৭৬ মা) এলাকা জুড়ে একটি ন্যাশনাল পার্ক গঠিত হয়েছে যেটি ১৯৯৭ সালে ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট হিসেবে তালিকাভুক্ত হয়েছে ।প্রতি বছর পার্কটি প্রায় ১৬,০০০ দর্শক দর্শন করেন[৭]

মাউন্ট কেনিয়া জাতীয় পার্ক[সম্পাদনা]

১৯৪৯ সালে প্রতিষ্ঠিত মাউন্ট কেনিয়া জাতীয় পার্ক পর্বতের পার্শ্ববর্তী অঞ্চলের রক্ষা করে। বর্তমানে ন্যাশনাল পার্কটি  সংরক্ষিত বনের আওতায় পরে, যা এটিকে ঘিরে রয়েছ[৮] । ১৯৭৮ সালে, এপ্রিল মাসে,  এলাকাটিকে একটি ইউনেস্কো জীবমণ্ডল রিজার্ভ বলে মনোনীত করা হয় [৯] । জাতীয় পার্ক ও সংরক্ষিত বনাঞ্চল মিলিত হয়ে একটি ইউনেস্কো ওয়ার্ল্ড হেরিটেজ সাইট ঘোষিত হয় ১৯৯৭ সালে.[১০]

কেনিয়া সরকারের চারটি কারণ ছিল পার্কটি তৈরি করার জন্য। কারণগুলি হল পর্যটনের মাধ্যমে স্থানীয় এবং জাতীয় অর্থনীতির উন্নতি, অতুলনীয় প্রাকৃতিক সৌন্দর্যের এই এলাকা সংরক্ষণ, এই অঞ্চলে জীব বৈচিত্র্যের রক্ষা এবং পার্শ্ববর্তী এলাকার জলের প্রয়োজন মেটানোর জন্যে ক্যাচমেন্ট এলাকার সংরক্ষণ।[১১]

কেনিয়ার সরকার একটি প্রকল্প ঘোষণা করেছেন, প্রাণিদের আশেপাশের অঞ্চলে ফসল নষ্ট করার থেকে বিরত করার জন্যে। পার্কটিকে  ঘিরে থাকবে একটি বৈদ্যুতিক বেড়া এবং পাঁচটি বিদ্যুতায়িত স্ট্র্যান্ড যা স্পর্শ করলে অল্প বৈদ্যুতিক শক দেবে কিন্তু তা মানুষ বা প্রাণীর জন্যে বিপজ্জনক নয়[১২]। 

Local culture[সম্পাদনা]

আশেপাশে বসবাসী সমস্ত উপজাতির মানুষদের জন্যে কেনিয়া পর্বত অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ

মাউন্ট কেনিয়ার কাছাকাছি যে সমস্ত প্রধান জাতিগোষ্ঠীর বাস, তারা হল কিকুয়ু, আমেরু, এম্বু এবং মাসাই। প্রথম তিনটি ঘনিষ্ঠভাবে সম্পর্কিত।তারা সবাই কেনিয়া পর্বতকে তাদের সংস্কৃতির একটি গুরুত্বপূর্ণ অংশ মনে করে।গত কয়েক শত বছর ধরে, এই সব সংস্কৃতির আগমন হয়েছে মাউন্ট কেনিয়া এলাকায়।

কিকুয়ু[সম্পাদনা]

মাউন্ট কেনিয়ার কাছাকাছি বসবাস করে যে বেশ কিছু জাতিগত সম্প্রদায়, তাদের বিশ্বাস পর্বতটি অত্যন্ত পবিত্র। তারা তাদের ঘর নির্মাণ করে পাহাড়ের দিকে মুখ করে। 

এম্বু [সম্পাদনা]

আমেরু[সম্পাদনা]

মাসাই[সম্পাদনা]

মাউন্ট কেনিয়া এই ব্যবস্থার সবচেয়ে গুরত্বপূর্ণ, কেনিয়ার পার্বত্য ১৫০ কিলোমিটার (৯৩ মা) উত্তর-পূর্ব এর নাইরোবি, শুধু উত্তর-পূর্ব Nyeri.[১৩]

ভূতত্ত্ব[সম্পাদনা]

মাউন্ট কেনিয়া ছিল একটি stratovolcano এবং সম্ভবত এমটি. ফুজি (উপরে দেখানো হয়েছে)র অনুরূপ।  নিচের ঢালে এখনও এই আকৃতি বর্তমান যা থেকে আগের উচ্চতা অনুমান করা হয়
মাউন্ট কেনিয়ার কেন্দ্রীয় অঞ্চল হল আগ্নেয় প্লাগ যা হিমবাহের ক্ষয় রোধ করে.[১৪]

শৃঙ্গ[সম্পাদনা]

প্রধান পীক এবং হিমবাহ মাউন্ট কেনিয়া কাছাকাছি হয় centre of the mountain.

অফ পীক মাউন্ট কেনিয়া করা হয়, প্রায় সব একটি আগ্নেয়গিরির উৎপত্তি হয়. সংখ্যাগরিষ্ঠ পীক কাছাকাছি অবস্থিত হয় centre of the mountain. এই পীক আছে একটি আলপাইন চেহারা কারণে তাদের বন্ধুর প্রকৃতির. সাধারণত এর আলপাইন ভূখণ্ড সর্বোচ্চ পীক এবং সশস্ত্র পুলিস ঘটতে ছেদ এ ঢালের.উদ্ধৃতি ত্রুটি: শুরুর <ref> ট্যাগ সঠিক নয় বা ভুল নামে রয়েছে কেন্দ্রীয় পীক মাত্র কয়েক আছে জলাভূমি, শৈবাল এবং ছোট আলপাইন গাছপালা জন্মানোর শিলা crevices মধ্যে.উদ্ধৃতি ত্রুটি: শুরুর <ref> ট্যাগ সঠিক নয় বা ভুল নামে রয়েছে আরও দূরে থেকে কেন্দ্রীয় পীক, আগ্নেয় প্লাগ মধ্যে আবৃত করা হয় আগ্নেয় ছাই এবং মাটি.উদ্ধৃতি ত্রুটি: শুরুর <ref> ট্যাগ সঠিক নয় বা ভুল নামে রয়েছে গাছপালা জন্মানোর এই পীক জন্য আদর্শ তাদের গাছপালা ব্যান্ড.

সর্বোচ্চ শৃঙ্গগুলি হল বাতিয়ান (৫,১৯৯ মিটার (১৭,০৫৭ ফু)), ্নেলিওন (৫,১৮৮ মি (১৭,০২১ ফু)) এবং পয়েন্ট লেনানা (৪,৯৮৫ মি (১৬,৩৫৫ ফু))। বাতিয়ান এবং নেলিওন পরস্পরের ২৫০ মি (২৭০ গজ) -এর মধ্যে রয়েছে, মধ্যিখানে রয়েছে 'গেট অফ মিস্টস' বা 'কুয়াশার দরজা' (৫,১৪৪ মি (১৬,৮৭৭ ফু)).[১৫] । করিন্ডন শিখর  ("Mount Kenya Climbing guide"। Ewpnet.com। ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৩ ) পরবর্তী সর্বোচ্চ, কিন্তু অন্যগুলোর মত এটি সেন্ট্রাল প্লাগের অংশ নয়.

কেন্দ্রীয় প্লাগের অন্তর্ভুক্ত অন্যন্য শীর্ষগুলি হল পয়েন্ট পিগট (৪,৯৫৭ মি (১৬,২৬৩ ফু)), পয়েন্ট দাটন (৪,৮৮৫ মি (১৬,০২৭ ফু)), পয়েন্ট জন (৪,৮৮৩ মি (১৬,০২০ ফু)),পয়েন্ট জন ্মাইনর (৪,৮৭৫ মি (১৫,৯৯৪ ফু)), ক্র্যাপ রগ্নং (৪,৮০০ মি (১৫,৭৪৮ ফু)), পয়েন্ট পিটার (৪,৭৫৭ মি (১৫,৬০৭ ফু)), পয়েন্ট স্লেড (৪,৭৫০ মি (১৫,৫৮৪ ফু)) এবং মিগেট পিক (৪,৭০০ মি (১৫,৪২০ ফু))। এই সবগুলিই রয়েছে একটি খাড়া শিখরাকার রূপে।

  • Terere and Sendeyo are two craggy outlying peaks

  • Mugi hill and the Giant's Billiards Table offers some of the best hillwalking in Kenya.[১৬]

  • Nelion from Batian in Dec 1974

  • Looking down the Diamond Glacier to Pt John

  • Point Thompson (4955m), Batian (5199m) and Nelion (5188m) on Mt Kenya

  • হিমবাহ[সম্পাদনা]

    মাউন্ট কেনিয়ার বৃহত্তম হিমবাহ দ্য লুইস
    তুষারপাত heaving কারণ patterned solifluction লোব নীচের Mugi Hill.

    Periglacial ভূমিরূপের[সম্পাদনা]

    নদী[সম্পাদনা]

    মাউন্ট কেনিয়া থেকে প্রবাহিত জল, প্রায় ২ মিলিয়ন মানুষের কাছে পৌঁছয়উদ্ধৃতি ত্রুটি: শুরুর <ref> ট্যাগ সঠিক নয় বা ভুল নামে রয়েছে

    প্রাকৃতিক ইতিহাস[সম্পাদনা]

    অঞ্চল[সম্পাদনা]

    সেখানে স্বতন্ত্র গাছপালা অঞ্চল কাছাকাছি মাউন্ট কেনিয়া, যা অনুযায়ী পরিবর্তিত হতে উচ্চতায় এবং দৃষ্টিভঙ্গি.
    এই timberline বন সাধারণত মেঘ. গাছ অপেক্ষাকৃত ছোট এবং আচ্ছাদিত শৈবাল এবং জলাভূমি.

    ফ্লোরা[সম্পাদনা]

    অনেক গাছপালা যে লাইভ মাউন্ট কেনিয়া, এই মত Senecio keniodendronহতে হবে বিশেষভাবে অভিযোজিত extremes তাপমাত্রা.
    Hyrax সঙ্গে মানিয়ে নিতে সক্ষম হয়, আরো একটি চরম জলবায়ু এবং এখানে পাওয়া পর্যন্ত সর্বোচ্চ টিলা.

    ঋতু[সম্পাদনা]

    এ বছরের জানুয়ারি মাসে Intertropical অভিসৃতি জোন এ হয় তার দক্ষিণ চরম ধরে ভারত মহাসাগর. জুলাই মাসে এটি তার উত্তর চরম ধরে তিব্বত এবং আরব. হিসাবে এটি পাস ওভার, বিষুবরেখা, মাউন্ট কেনিয়া অভিজ্ঞতা একটি ভেজা মৌসুমে.উদ্ধৃতি ত্রুটি: শুরুর <ref> ট্যাগ সঠিক নয় বা ভুল নামে রয়েছে

    দৈনিক প্যাটার্ন[সম্পাদনা]

    শুষ্ক মৌসুমে সকাল হয়, সাধারণত পরিষ্কার এবং শান্ত, কিন্তু পাহাড়ের মধ্যে লুকানো হয় মেঘ দ্বারা মিড-ডে.

    ইতিহাস[সম্পাদনা]

    ইউরোপীয় sighting[সম্পাদনা]

    জোসেফ থমসন মাউন্ট কেনিয়ার পাদদেশে পৌঁছে নিশ্চিত করেন ক্র্যাপের আবিষ্কার.

    পর্বত থেকে ১৬০ কিলোমিটার দূরে (১০০ মাইল) একটি শহর, কিতুই থেকে একজন জার্মান ধর্মপ্রচারক, ডাঃ জোহান লুডউইগ ক্র্যাপ, প্রথম ইউরোপীয় হিসেবে মাউন্ট কেনিয়া দর্শন করেন। ১৮৪৯ সালের ৩রা ডিসেম্বর কিলিমানজারোর আবির্ভাবের এক বছর পর দেখা যায় প্রথমবার। [১৭] [১৮]

    গণনা স্যামুয়েল Teleki ছিল প্রথম ইউরোপীয় উপর পাদদেশ সেট করার মাউন্ট কেনিয়া. তার অভিযানে পৌঁছেছেন ৪,৩৫০ মি (১৪,২৭০ ফু).

    1900-1930[সম্পাদনা]

    Shipton এবং রাসেল প্রথম চড়াই পয়েন্ট জন পর্যন্ত দক্ষিণ-পূর্ব গালিতে 1929

    পর্বতারোহণ[সম্পাদনা]

    হাঁটা রুট[সম্পাদনা]

    মানচিত্র দেখাচ্ছে, হাঁটা রুট এবং huts কাছাকাছি মাউন্ট কেনিয়া

    সাম্প্রতিক উন্নয়ন[সম্পাদনা]

    উন্নয়ন বর্তমানে চলছে এর জন্য একটি নতুন রুট পর্বত থেকে শুরু Ragati সংরক্ষণ এবং আপ চলমান ridge মধ্যে Naro Moru রুট এবং পুরানো Kamweti লেজ.

    ব্যাকরণ[সম্পাদনা]

    শৃঙ্গের নামকরণ[সম্পাদনা]

    মাউন্ট কেনিয়ার শৃঙ্গগুলির নাম দেওয়া হয়েছে তিনটি ভিন্ন সূত্র থেকে।প্রথমত, বিভিন্ন মাসাই মহাপুরুষদের স্মরণ করে যেমন বাতিয়ান, নেওলিন এবং লেনানা।  তারা স্মরণ করে এম্বাতিয়ান, যিনি একজন মাসাই লাইবোন(চিকিতসক)ছিলেন, নেলিএং, তার ভাই, এবং লেনানা এবং সেন্ডেও, তার দুই পুত্রের নাম । তেরেরে, নামকরণ করা হয় আর একজন মাসাই মহাপুরুষের নামে। 

    দ্বিতীয় ধরনের নাম দেওয়া হয়েছে যে ইউরোপীয় অভিযাত্রী এবং পর্বতারোহীরা প্রথম বিভিন্ন শৃঙ্গ জয় করেছেন তাদের নামে। এর কিছু উদাহরণ শিপটন, সমারফেল্ট, টিলম্যান, ডাটন এবং আর্থার.

    অবশিষ্ট নামসকল সুপরিচিত কেনিয়ান ব্যক্তিত্বদের নামে, ব্যাতিক্রমঃ জন এবং পিটার, যা ধর্মপ্রচারক আর্থার তার দুই শিষ্যদের নামে রেখেছিলেন। পূর্বদিকে চারটি শৃঙ্গের একটি গ্রুপ আছে্ যার নামকরণ করা হয় ইউরোপীয় ঔপনিবেশিকদের নামে; করিন্ডন, গ্রিগ, ডেলামিয়ার এবং ম্যাকমিলান

    আরও দেখুন[সম্পাদনা]

    • List of volcanoes in Kenya
    • Volcanic Seven Summits

    তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

    1. "Africa Ultra-Prominences" Peaklist.org. Retrieved 2012-02-06.
    2. "Mount Kenya Map Sample"। Ewpnet.com। ২১ আগস্ট ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ এপ্রিল ২০১০ 
    3. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; map নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
    4. Philippe Nonnotte। "Étude volcano-tectonique de la zone de divergence Nord-Tanzanienne (terminaison sud du rift kenyan) – Caractérisation pétrologique et géochimique du volcanisme récent (8 Ma – Actuel) et du manteau source – Contraintes de mise en place thèse de doctorat de l'université de Bretagne occidentale, spécialité : géosciences marines" (PDF) 
    5. Resnick, Mike (১৯৯৮)। Kirinyaga: a fable of Utopia। Ballantine। পৃষ্ঠা 293। আইএসবিএন 0-345-41701-1 
    6. Coe, Malcolm James (১৯৬৭)। The Ecology of the Alpine Zone of Mount Kenya। The Hague: Dr W. Junk। 
    7. "World Heritage Nomination – IUCN Technical Evaluation Mount Kenya (Kenya)" (PDF) 
    8. Kenya Wildlife Service"Mount Kenya National Park"। ২৫ জানুয়ারি ২০১০ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ ডিসেম্বর ২০০৯ 
    9. UNESCO (১৯৯৮)। "Biosphere Reserve Information – Mount Kenya"। সংগ্রহের তারিখ ৬ নভেম্বর ২০১৬ 
    10. United Nations (২০০৮)। "Mount Kenya National Park/Natural Forest"। ৩০ ডিসেম্বর ২০০৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ ফেব্রুয়ারি ২০০৮ 
    11. Gichuki, Francis Ndegwa (আগস্ট ১৯৯৯)। "Threats and Opportunities for Mountain Area Development in Kenya"Ambio। Royal Swedish Academy of Sciences। 28 (5): 430–435। ৩১ ডিসেম্বর ২০০৫ তারিখে মূল (subscription required) থেকে আর্কাইভ করা। 
    12. "Mt Kenya to get electric fence to stop wildlife straying"। Bbc.co.uk। ৭ সেপ্টেম্বর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
    13. (মানচিত্র)।  |শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)|শিরোনাম= অনুপস্থিত বা খালি (সাহায্য)
    14. Baker, B. H. (১৯৬৭)। Geology of the Mount Kenya area। Geological Survey of Kenya। 
    15. "Mount Kenya Climbing guide"। Ewpnet.com। ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৩ 
    16. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; guide নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
    17. Krapf, Johann Ludwig (১৮৬০)। Travels, Researches, and Missionary Labours in Eastern Africa। London: Frank Cass & Co. Ltd। 
    18. Mackinder, Halford (১৯০০)। "A Journey to the Summit of Mount Kenya, British East Africa"। The Geographical Journal15 (5): 453–476। জেস্টোর 1774261It was the missionary Rebmann of Mombasa who, in 1848, first reported the existence of Kilimanjaro. In the following year his colleague, Krapf, saw Kenya from Kitui, a spot 90 miles south-east of the peak. 

    অতিরিক্ত পড়ার[সম্পাদনা]

    বাহ্যিক লিঙ্ক[সম্পাদনা]