কেএ ব্যান্ড

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
আইইইই কে ব্যান্ড
ফ্রিকোয়েন্সি রেঞ্জ
২৬.৫ – ৪০ GHz
তরঙ্গদৈর্ঘ্য রেঞ্জ
১.১১[Meter
সম্পর্কিত ব্যান্ডসমূহ

তড়িৎচম্বুক বর্ণালী, অনুতরঙ্গের ২৬.৫–৪০ গিগাহার্জ কে কে ব্যান্ড হিসাবে সংজ্ঞায়িত করা হয়ে থাকে। [১] এর তরঙ্গদৈর্ঘ্যের এক সেন্টিমিটার থেকে ৭.৫ মিলিমিটার পর্যন্ত।[২] কে ব্যান্ড হচ্ছে "কে-এবোভ" এর সংক্ষিপ্ত রুপ, যার অর্থ কে এর ঊর্ধ্বস্থিত যা কিনা ন্যাটো কে ব্যান্ড ঊর্ধ্বস্থিত একটি ব্যান্ড। বায়ুমণ্ডলে উপস্থিত জলীয় বাষ্পের দ্বারা অনুরণনের ফলে ন্যাটো কে ব্যান্ড মূলত তিনটি ব্যান্ডে বিভক্ত হয়ে যায়। এর ২০–৩০ গিগাহার্জ কম্পাংকের তরঙ্গ ব্যান্ড যোগাযোগ উপগ্রহ ব্যবহার করা হয়। এর মধ্যে ২৭.৫ বা ৩১ গিগাহার্জে ব্যান্ড স্যাটেলাইটের আপলিংক [৩] এবং সামরিক বিমান অবস্থিত স্বল্প দূরত্বের উচ্চ রেজল্যুশন রাডারে ব্যবহার করা হয়। এছাড়াও এই রেডিও ব্যান্ডের কিছু ফ্রিকোয়েন্সি আইন প্রয়োগকারী সংস্থার দ্বারা গাড়ির গতি সনাক্তকরণ জন্য ব্যবহার করা হয়। কেপলার মিশনে স্পেস টেলিস্কোপ দ্বারা সংগৃহীত বৈজ্ঞানিক তথ্য সংগ্রহের জন্য ডাউনলিংকে এই ফ্রিকোয়েন্সি রেঞ্জ ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

"কে-ব্যান্ড" হচ্ছে কার্জ এবোভ (ইংরেজী: Kurz-above) এর সংক্ষিপ্ত রুপ, যা মূলত জার্মান শব্দ "কার্জ" থেকে আগত, যার অর্থ ছোট.[৪]

এ উপগ্রহ যোগাযোগ মাধমের ক্ষেত্রে কে ব্যান্ড উচ্চ ব্যান্ডউইথের যোগাযোগ সম্পন্ন করতে কার্যকরী। এটা Inmarsat আই-৫ সিস্টেমে[৫],  Iridium পরবর্তী স্যাটেলাইট সিরিজ এবং জেমস ওয়েব স্পেস টেলিস্কোপ ব্যবহৃত হয়। সি ব্যান্ড ও কেইউ ব্যান্ডের তুলনায় কএ ব্যান্ডটি রেইন ফেইডে দ্বারা বেশি ক্ষতিগ্রস্থ হয়।[৬]

সাধারণত এই ফ্রিকোয়েন্সি দ্বারা মহাজাগতিক মাইক্রোওয়েভ ব্যাকগ্রাউন্ড  পরীক্ষায় সমূহ সম্পন্ন করা হয়ে থাকে।

৫ম প্রজন্মের মোবাইল নেটওয়ার্ক আংশিকভাবে কে ব্যান্ডকে (28, 38, এবং 60 গিগাহার্জ) সমাপতিত করবে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. R. Ludwig, P. Bretchko, RF Circuit Design, Theory and Applications, Prentice Hall NJ, 2000.
  2. "Basics of Space Flight Section I. The Environment of Space" 
  3. "Ka Band" 
  4. http://www.itwissen.info/definition/lexikon/K-Band-K-band.html (german)
  5. "Archived copy"। মে ১১, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ আগস্ট ৬, ২০১৩ 
  6. Miller, Peter। "Ka-Band – the future of satellite communication?" (pdf)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০৭-০৬