কালভারি-শ্রেণির ডুবোজাহাজ (২০১৫)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
First torpedo firing trials of INS Kalvari (S50) - 1.jpg
আইএনএস কালভারি পরীক্ষামূলক সমুদ্র যাত্রার সময়
শ্রেণি'র সারাংশ
নাম: কালভারি শ্রেনি
নির্মাতা: মাজাগাঁও ডক শিপবিল্ডার্স লিমিটেড
ব্যবহারকারী:  ভারতীয় নৌবাহিনী
পূর্বসূরী: সিন্ধুঘোষ শ্রেণী
উত্তরসূরী অনুযায়ী: প্রকল্প ৭৫আই-শ্রেণির ডুবোজাহাজ
অনুমোদন লাভ: ২০১৭ – বর্তমান
পরিকল্পিত:[১]
নির্মাণ:
সম্পন্ন:
সক্রিয়:
সাধারণ বৈশিষ্ট্য
প্রকার: আক্রমণকারী ডুবোজাহাজ
ওজন:
  • ভাসিয়া ত্তঠা: ১,৬১৫ টন (১,৭৮০ শর্ট টন)
  • নিমজ্জিত: ১,৭৭৫ টন (১,৯৫৭ শর্ট টন)
দৈর্ঘ্য: ৬৭.৫ মি (২২১ ফু)[২]
প্রস্থ: ৬.২ মি (২০ ফু)[৩]
উচ্চতা: ১২.৩ মি (৪০ ফু)[২]
Draught: ৫.৮ মি (১৯ ফু)[৩]
প্রচালনশক্তি:
  • ৪ x এমটিইউ ১২ভি ৩৯৬ এসই ডিজেল ইঞ্জিন[৩]
  • ৩৬০ x ব্যাটারি কোষ
গতিবেগ:
  • ভাসিয়া ত্তঠা: ১১ নট (২০ কিমি/ঘ)
  • নিমজ্জিত: ২০ নট (৩৭ কিমি/ঘ)
সীমা:
  • ৬,৫০০ নটিক্যাল মাইল (১২,০০০ কিমি) ৮ নট (১৫ কিমি/ঘ) গতিতে (ভাসিয়া ত্তঠা)
  • ৫৫০ নটিক্যাল মাইল (১,০২০ কিমি) ৪ নট (৭.৪ কিমি/ঘ) গতিতে (নিমজ্জিত)[৪]
সহনশীলতা: ৫০ দিন[৫]
পরীক্ষিত গভীরতা: ৩৫০ মিটার (১,১৫০ ফু) [৬]
লোকবল:
  • ৮ জন কর্মকর্তা
  • ৩৫ জন নাবিক
যান্ত্রিক যুদ্ধাস্ত্র
ও ফাঁদ:
সি ৩০৩/এস অ্যান্টি-টর্পেডো কাউন্টারমেজার সিস্টেম[৭]
রণসজ্জা:

কালভারি'-শ্রেণিরটি ভারতীয় নৌবাহিনীর জন্য নির্মিত স্করপিন-শ্রেণির ডুবোজাহাজের উপর ভিত্তি করে ডিজেল-বৈদ্যুতিক শক্তি চালিত আক্রমণকারী ডুবোজাহাজগুলির একটি শ্রেণি। শ্রেণি এবং ডুবোজাহাজগুলি ভারতীয় নৌবাহিনীতে অন্তর্ভুক্ত প্রথম ডুবোজাহাজগুলির নাম গ্রহণ করে। ডুবোজাহাজ ফরাসি নৌ প্রতিরক্ষা এবং শক্তি কোম্পানী ডিসিএনএস দ্বারা নকশা করা হয় এবং মুম্বইয়ের মাজাগাঁও ডক শিপবিল্ডার্স লিমিটেড দ্বারা উৎপাদিত হচ্ছে।

প্রকল্পের ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৯৯৭ সালে, ভারতের প্রতিরক্ষা মন্ত্রক প্রকল্প-৭৫ এর অধীনে ২৪ টি সাবমেরিন অধিগ্রহণের পরিকল্পনা অনুমোদন করে। ১৯৯৯ সালে ভারত চারটি স্করপিন-শ্রেণির ডুবোজাহাজের জন্য সাথে আলোচনা শুরু করে, যার মধ্যে দুটি ডুবোজাহাজ মাজাগাঁও ডক শিপবিল্ডার্স লিমিটেডে নির্মাণের কথা বলা হয়।[৮] ১৯৯৯ সালে কার্গিল যুদ্ধের পরে, সুরক্ষা বিষয়ক মন্ত্রিপরিষদ কমিটি একটি ৩০ বছরের ডুবোজাহাজ নির্মাণ পরিকল্পনা অনুমোদন করে, যাতে দুটি সমান্তরাল উৎপাদন লাইন তৈরি করার আহ্বান জানানো হয়; প্রতিটি ছয়টি সাবমেরিন নির্মাণ করে। বিভিন্ন বিদেশী নির্মাতাদের কাছ থেকে প্রযুক্তির স্থানান্তর ব্যবহার করে প্রকল্প-৭৫ এবং প্রকল্প ৭৫আই'য়ের অধীনে দুটি উৎপাদন লাইন দিয়ে পুরানো "প্রকল্প ৭৫"কে নতুন পরিকল্পনার আওতায় আনা হয়।[৯] পরবর্তী সময়ে ডিসিএন ও থ্যালসের যৌথ উদ্যোগে আরমারিস'কে অন্তর্ভুক্ত করার জন্য মাজাগাঁও ডক শিপবিল্ডার্স লিমিটেডে ছয়টি ডুবোজাহাজ তৈরি করার জন্য আলোচনার প্রসার ঘটানো হয়।[৮]

৬ অক্টোবর ২০০৫-তে ভারত আরমারিসের সাথে মজাগন ডক লিমিটেডে ছয়টি সাবমেরিন নির্মাণ, ফ্রান্স সরকারের সাথে সরঞ্জাম ও পরিষেবাদি সরবরাহ এবং এমবিডিএর সাথে এসএম ৩৯ এক্সোসেট মিসাইল সরবরাহের জন্য প্রযুক্তি হস্তান্তর করার জন্য একাধিক চুক্তি স্বাক্ষর করে। ডিসিএন ইন্টারন্যাশনালকে নাভন্তিয়ার সাথে অংশীদারিত্বের ভিত্তিতে প্রধান ঠিকাদার হিসাবে মনোনীত করা হয়। এমডিএলে সাবমেরিন নির্মাণের জন্য যুদ্ধের ব্যবস্থা এবং প্রযুক্তিগত পরামর্শদাতাদের সরবরাহের জন্য আর্মারিস দায়বদ্ধ ছিলেন। পুরো প্রকল্পের মূল্য নির্ধারণ করা হয় ২.৪ বিলিয়ন ডলার।[১০] এই চুক্তিতে একটি ৩০% অফসেট ধারা অন্তর্ভুক্ত ছিল এবং সাবমেরিনগুলি ২০১২ সাল থেকে পাঁচ বছরের মধ্যে সরবরাহ করা হবে।[১০][১১] স্কোর্পিন ডিজাইনটি এক্সোসেট অ্যান্টি-শিপ ক্ষেপণাস্ত্র চালানোর ক্ষমতা এবং বায়ু-স্বতন্ত্র প্রবর্তনের বিষয়ে একটি চুক্তির কারণে এই চুক্তিটি জিতেছিল।[১২] ভারত তার বিকাশের বিলম্বের কারণে নির্মিত দুটি সাবমেরিনে ডিআরডিও-বিকাশযুক্ত বায়ু-স্বতন্ত্র প্রপালশন সিস্টেমকে অন্তর্ভুক্ত করার পরিকল্পনা বাতিল করে।[১৩] বিকল্প ধারার (অপশন ক্লজের) অধীনে আরও তিনটি সাবমেরিন কেনার পরিকল্পনা সেপ্টেম্বর ২০১৬ সালে বাতিল করা হয়।[১৪]

প্রথম সাবমেরিনের জন্য ইস্পাত কাটার কাজ শুরু হয়েছিল ১৪ ই ডিসেম্বর ২০০৬ থেকে এবং ২০০৭ সালের ২৩ শে মে হুল নির্মাণ শুরু হয়।[২][১৫] আগস্ট ২০১৪ সাল পর্যন্ত, প্রকল্পটি সময়সূচীর চার বছর পিছনে চলছিল।[১৬] বিলম্বের কারণ হিসাবে ম্যাজাগন ডক লিমিটেড এবং ডিসিএনএস দ্বারা সেন্সর এবং প্রোপালশন সিস্টেম উপাদান সংগ্রহের জন্য চুক্তিগুলিকে ধীরে ধীরে চূড়ান্তকরণকে দায়ী করা হয়।[১৭] প্রথম সাবমেরিন, আইএনএস কালওয়ারি (মালায়ালাম: টাইগার হাঙ্গর), ২৮ অক্টোবর ২০১৫ সালে চালু হয় এবং ১ মে ২০১৬ সালে সমুদ্রের পরীক্ষা শুরু কর।[২]

জুন ২০১৬ সালে ডাব্লুএএসএস-এর সহযোগী সংস্থা আগুস্তা ওয়েস্টল্যান্ডের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগের প্রতিক্রিয়ায় ডাব্লুএএসএস থেকে ৯৮ টি ব্ল্যাক শার্ক টর্পেডো দিয়ে কালভারি-শ্রেণীর সাবমেরিনগুলিকে আর্মড করার পরিকল্পনা বাতিল করা হয়েছিল।[১৮][১৯] এনডিএ সরকারের অধীনে প্রতিরক্ষামন্ত্রী মনোহর পরিক্কার বলেছিলেন যে সাবমেরিনের জন্য টর্পেডো অন্যান্য সংস্থার কাছ থেকে সংগ্রহ করা হবে।[২০] জার্মানির অ্যাটলাস ইলেকট্রনিক এবং ফ্রান্সের এফ ২১ টর্পেডোর সি হেক টর্পেডো বিবেচনা করা যেতে পারে।[২১] ডিআরডিও দ্বারা উন্নয়ন ঘটানো দেশীয় টর্পেডোগুলি প্রতিস্থাপন হিসাবেও ব্যবহার করা যেতে পারে।[২২] সাবমেরিনগুলি আপাতত সারফেস এবং আন্ডারওয়াটার টার্গেট (এসইউটি) টর্পেডো গুলি চালানোর জন্য উপযুক্ত করা হয়েছে।[২৩]

শ্রেণির জাহাজ[সম্পাদনা]

ছয়টি ডুবোজাহাজের কাঠামর ফ্যাব্রিকেশন সম্পূর্ণ। প্রথম ডুবোজাহাজ ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭ কমিশন লাভ করে এবং অবশিষ্ট ডুবোজাহাজ ২০২২ সালে সরবরাহ করার আশা করা যায়।[২৪][২৫]

নাম ধ্বজা ইয়ার্ড নির্মাতা উদ্বোধন অনুমোদিত হোমপোর্ট অবস্থা
আইএনএস কালভারি এস২১ ১১৮৭৫ মাজাগাঁও ডক শিপবিল্ডার্স লিমিটেড ২৭ অক্টোবর ২০১৫[২] ১৪ ডিসেম্বর ২০১৭[২৬] সক্রিয়
আইএনএস খান্দেরি ১১৮৭৬ ১২ জানুয়ারী ২০১৭[২৭] ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ (প্রত্যাশিত) সরবরাহ করা হয়েছে[২৮]
আইএনএস করনজ ১৮৭৭[২৯] ৩১ জানুয়ারী ২০১৮[৩০] ২০১৯ (প্রত্যাশিত)[৩১] সমুদ্রে পরীক্ষা[৩১][৩২][৩৩][৩৪]
আইএনএস ভেলা[৩৫] ১১৮৭৮[৩৬] ৬ মে ২০১৯[৩৪] ২০২০ (প্রত্যাশিত)[২৫]
আইএনএস ভাগির[৩৫] ২০২১ (প্রত্যাশিত)[২৫] নির্মানাধীন[৩২]
আইএনএস ভ্যাগশীর[৩৫] ২০২২ (প্রত্যাশিত)[২৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "India Drops Plans to Add 3 More French Stealth Attack Submarines"The Diplomat। ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬। ৮ সেপ্টেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  2. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; pib-13dec17 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  3. Rahmat, Ridzwan (৭ জুন ২০১৭)। "India's second Scorpène submarine begins sea trials"Jane's Defence Weekly। ২৮ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  4. Commodore Stephen Saunders, সম্পাদক (২০০৫)। "India"। Jane's Fighting Ships 2005-2006 (108th সংস্করণ)। Coulsdon: Jane's Information Group। পৃষ্ঠা 308। আইএসবিএন 0710626924 
  5. "India, France to ink Scorpene deal"The Times of India। PTI। ২৭ সেপ্টেম্বর ২০০৫। ৩০ এপ্রিল ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  6. "Scorpene 1000"। DCNS। ১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০১৫ 
  7. Bedi, Rahul (৩১ জানুয়ারি ২০১৮)। "India launches third Scorpène-class submarine"Jane's Defence Weekly। ২ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  8. Saw, David (২০০৫)। "The World Submarine Situation"। Armada International। খণ্ড 29 নং 6। Gurgaon: Media Transasia India Ltd। পৃষ্ঠা 52–58। আইএসএসএন 0252-9793 
  9. Singh, Sushant (১৩ নভেম্বর ২০১৫)। "Explained: India's submarine story in deep waters, long way to go"The Indian Express। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  10. Mohanty, Deba (২০০৬)। "India and France Ink SCORPÈNE Deal"। Military Technology। খণ্ড 30 নং 2। Bonne: Mönch Publishing Group। পৃষ্ঠা 34–36। আইএসএসএন 0722-3226 
  11. "Envisaging more defence ties"The Hindu Business Line (ইংরেজি ভাষায়)। ২০ ফেব্রুয়ারি ২০০৬। ৩০ এপ্রিল ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  12. "Exocet Missiles, AIP Swing India Submarine Order"। defense-aerospace.com। ১৩ সেপ্টেম্বর ২০০৫। ১২ এপ্রিল ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০১৫ 
  13. Peri, Dinakar (১৯ জুন ২০১৭)। "Last two Scorpene submarines from Mazgaon Docks to join Navy without AIP system"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। ২৪ জুন ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  14. Miglani, Sanjeev (২২ সেপ্টেম্বর ২০১৬)। "India shelves plan to expand French submarine order after data breach"Reuters। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  15. Bhatt, Arunkumar (২৪ মে ২০০৭)। "Scorpene construction work begins in Mumbai"The Hindu (ইংরেজি ভাষায়)। ৩০ এপ্রিল ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  16. Pandit, Ranjat (২৮ আগস্ট ২০১৪)। "Defence minister Arun Jaitley reviews delayed Scorpene submarine project"The Times of India। ২৯ আগস্ট ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ এপ্রিল ২০১৪ 
  17. Bedi, Rahul (১৯ জুন ২০১৩)। "Indian Scorpene delivery faces further delays"। IHS Jane's Defence Weekly। Coulsdon: Jane's Information Group50 (28): 16। আইএসএসএন 2048-3430 
  18. Unnithan, Sandeep (১ জুন ২০১৬)। "Contract for 98 Black Shark torpedoes scrapped, Indian nuclear submarine programme further delayed"India Today। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  19. Bedi, Rahul (৩ মে ২০১৬)। "India's first Scorpene boat begins sea trials without primary weapons"IHS Jane's Defence Weekly। ৪ মে ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৫ মে ২০১৬ 
  20. "Manohar Parrikar interview: 'I believe in performance, not dressing up'"The Indian Express। ৭ নভেম্বর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৭ 
  21. "India Has Alternative For Finmeccanica Torpedoes Says Parrikar"Businessworld.in। ২৯ মে ২০১৬। ৮ অক্টোবর ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৭ 
  22. "DRDO gets nod to make torpedoes for Indian submarines"Deccan Herald। ৩ জুলাই ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৮ জুলাই ২০১৬ 
  23. উদ্ধৃতি ত্রুটি: অবৈধ <ref> ট্যাগ; jdw-14dec17 নামের সূত্রের জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  24. "We see a bright future for defence ship construction"The Financial Express। ২ জানুয়ারি ২০১৬। ৫ জানুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২ জানুয়ারি ২০১৬ 
  25. "Mazagon Dock to deliver second Scorpene class submarine by year end"। The Indian Express। ৭ সেপ্টেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১২ সেপ্টেম্বর ২০১৮ 
  26. Shukla, Tarun (১৪ ডিসেম্বর ২০১৭)। "INS Kalvari, India's first Scorpene submarine, commissioned by Narendra Modi"Livemint। ২ মার্চ ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  27. "Second Scorpene class submarine Khanderi to be launched on Jan 12"The Economic Times। ১২ জানুয়ারি ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ জানুয়ারি ২০১৭ 
  28. Rahmat, Ridzwan (১৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯)। "MDL delivers second Scorpène submarine to Indian Navy"Jane's Navy International 
  29. "Third Scorpene-class submarine to be launched"Deccan Herald (ইংরেজি ভাষায়)। ২৯ জানুয়ারি ২০১৮। 
  30. "Third Scorpene submarine 'Karanj' Launched at Mazagon Docks"pib.nic.in। ৩১ জানুয়ারি ২০১৮। ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০১৮ 
  31. "India's second Scorpene-class sub INS Khanderi's induction delayed"The Week (ইংরেজি ভাষায়)। ১৬ মে ২০১৯। 
  32. "Second, third Scorpene-class submarines undergoing sea trials, says Indian Navy official"The Financial Express (ইংরেজি ভাষায়)। ১৭ মার্চ ২০১৮। ১৬ মার্চ ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৭ মার্চ ২০১৮ 
  33. Pandit, Rajat (৩১ মে ২০১৭)। "First new conventional submarine to be commissioned in July–August"Times of India। ৪ জুন ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  34. "INS Vela: Indian Navy's 4th Scorpene-class made in India submarine launched"। Financial Express। সংগ্রহের তারিখ ৬ মে ২০১৯ 
  35. Mahale, Ajeet (৩১ জানুয়ারি ২০১৮)। "INS Karanj boosts Navy's firepower"The Hindu। ১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩১ জানুয়ারি ২০১৮ 
  36. "Launch of Fourth Scorpene Class Submarine - Vela"। ৬ মে ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ১৫ জুলাই ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]