কলিঙ্গের যুদ্ধ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
কলিঙ্গ যুদ্ধ
তারিখ আনুমানিক ২৬১ – আনু. ২৬০ খ্রিস্টপূর্ব
অবস্থান কলিঙ্গ, ভারত
ফলাফল নিষ্পত্তিমূলক মৌর্য বিজয়
অধিকৃত
এলাকার
পরিবর্তন
মৌর্য সাম্রাজ্য দ্বারা কলিঙ্গের সংযুক্তি
বিবদমান পক্ষ
মৌর্য সাম্রাজ্য কলিঙ্গ
নেতৃত্ব প্রদানকারী
অশোক রাজা অনন্ত পদ্মনাভন
শক্তিমত্তা
মোট ৭০,৭০০

৬,০০০ পদাতিক সৈন্যবাহিনী,[১]
১০,০০০ অশ্বারোহী সৈন্য[২]

৭০০ যুদ্ধের হাতি[১]
প্রাণহানি ও ক্ষয়ক্ষতি
১০,০০০ ৫০,০০০ (অশোকের পরিসংখ্যান)[৩][৪]
(সহ বেসামরিক)

কলিঙ্গ যুদ্ধ খ্রিস্টপূর্ব ২৬১ সালে সংগঠিত হয়, যখন সম্রাট অশোক কলিঙ্গ আক্রমণ করেন। অশোক সিংহাসনে আরহনের বারো বছর পরে এই অভিযান পরিচালনা করেন।[৫] কলিঙ্গ যুদ্ধে অসংখ্য জীবনহানির ঘটনায় অশোক মর্মাহত হন এবং বৌদ্ধ ধর্ম গ্রহণ করে অহিংস নীতি প্রচারে মনোনিবেশ করেন।

কলিঙ্গের যুদ্ধের সঠিক কারণ জানা যায় না। তবে ধারণা করা হয়, মৌর্য্য সম্রাট অশোকের কোন ভাই কলিঙ্গ রাজ্যে আশ্রয় নেন। তার প্রতিশোধ নেবার জন্য অশোক কলিঙ্গ আক্রমণ করেন। খ্রিষ্টপূর্ব ২৬৫ অব্দে দয়া নদীর নিকটবর্তী ধৌলি পাহাড়ের কাছে মৌর্য্য ও কলিঙ্গ বাহিনীর মধ্যে ভীষণ রক্তক্ষয়ী যুদ্ধ হয়। দু'দলের প্রচুর হতাহতের মাধ্যমে অশোক কলিঙ্গ জয় করতে সক্ষম হন। এই যুদ্ধে কলিঙ্গ বাহিনীর ১,০০,০০০ সেনা ও মৌর্য বাহিনীর ১০,০০০ সেনা নিহত হয় ও অসংখ্য নর-নারী আহত হয়। যুদ্ধের বীভত্সতা সম্রাট অশোককে বিষাদগ্রস্থ করে তোলে এবং তিনি যুদ্ধের পথত্যাগ করে বৌদ্ধধর্ম গ্রহণ করে অহিংসার পথে সাম্রাজ্য পরিচালনের নীতি গ্রহণ করেন।

পেক্ষাপট[সম্পাদনা]

কলিঙ্গ (বঙ্গোপসাগর সংলগ্ন) এবং মৌর্য সাম্রাজ্য (নীল)। অশোকের দ্বারা আগ্রাসনের আগে।

সম্রাট অশোকের দ্বারা কলিঙ্গ আক্রমণের কারণগুলি রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক উভয়ই ছিল। কলিঙ্গ একটি সমৃদ্ধ অঞ্চলের অন্তর্ভুক্ত ছিল যা শান্তিপূর্ণ এবং দক্ষ শিল্পী ব্যক্তিদের স্থান ছিল। উৎকল নামে পরিচিত,[৬] সেই অঞ্চলের জনগন ভারতবর্ষের মধ্যে প্রথম বাণিজ্যের জন্য দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার উপকূলবর্তী অঞ্চলের দেশগুলিতে ভ্রমণ করতেন। এই কারণে, কলিঙ্গে গুরুত্বপূর্ণ বন্দর এবং একটি শক্তিশালী নৌবাহিনী ছিল। তাদের একটি উন্মুক্ত সংস্কৃতি ছিল এবং তার অভিন্ন নাগরিক কোর্ড ব্যবহার করত।[৭]

৩২১ খ্রিষ্টপূর্বাব্দে সাম্রাজ্যের পতন না হওয়া পর্যন্ত কলিঙ্গ নন্দ সাম্রাজ্যের শাসন অধীন ছিল।[৮] অশোকের পিতামহ চন্দ্রগুপ্ত মৌর্য পূর্বে কলিঙ্গ জয় করার চেষ্টা করেছিলেন, কিন্তু তিনি সেক্ষেত্র ব্যর্থ হয়েছিলেন। অশোক স্বাধীন সাম্রাজ্য জয় করার জন্য নিজেই নিজেকে প্রস্তুত করেছিলেন বলে অনুমান করেছিলেন যে তিনি সিংহাসনে সুরক্ষিতভাবে প্রতিষ্ঠিত আছেন।[৭] কলিঙ্গ হল উপকূলীয় ওড়িশার একটি প্রাচীন নাম।

যুদ্ধের গতিপথ[সম্পাদনা]

ওড়িশা রাজ্যের ভুবনেশ্বরের নিকট দয়া নদীর তীরের প্রচলিত কলিঙ্গ যুদ্ধক্ষেত্রের একটি দৃশ্য, ধৌলি পাহাড়ের চূড়া থেকে।

অশোকের কলিঙ্গ যুদ্ধ তীব্রতার জন্য বা এর ফলাফলের হিসাবে ভারতের ইতিহাসে কোন যুদ্ধই কলিঙ্গ যুদ্ধে থেকে বেশি গুরুত্বপূর্ণ নয়। মানব ইতিহাসে কোন যুদ্ধে বিজয়ী ব্যক্তির হৃদয়কে এক নির্মম নিষ্ঠুরতা ও অহংকারী মনভাব থেকে দৃষ্টান্তমূলক ধার্মিকতায় পরিবর্তিত করেছে। বিশ্বের ইতিহাসে শুধুমাত্র কয়েকটি যুদ্ধে খুঁজে পেতে পারে যা এই যুদ্ধের সমতুল্য হতে পারে, তবে ওই যুদ্ধ গুলি কক্ষনই কলিঙ্গ যুদ্ধের থেকে বড় বা বেশি গুরুত্বপূর্ণ হতে পারে না। মানবজাতির রাজনৈতিক ইতিহাস সত্যিই যুদ্ধের একটি ইতিহাস এবং যুদ্ধ শেষে মানবতার ও শান্তি রক্ষার জন্য কলিংয়ের যুদ্ধের মত অন্য কোন যুদ্ধ সফল হতে পাড়েনি।

— রমেশ প্রসাদ মহাপাত্র, ওড়িশার সামরিক ইতিহাস[৯]

২৬১ খ্রিস্টপূর্বাব্দে অশোকের রাজত্বের নবম বছরে কলিঙ্গ যুদ্ধ সম্ভবত শুরু হয়। তার পিতার মৃত্যুর পর সিংহাসনের জন্য রক্তাক্ত যুদ্ধের পর, অশোক কলিঙ্গ জয় লাভে সফল হন - কিন্তু যুদ্ধের বর্বরতার পরিণতিটি অশোকের যুদ্ধ সম্পর্কিত মতামত পাল্টে দেয় যুদ্ধের পর এবং কলিঙ্গ যুদ্ধে জয় লাভ করেও তিনি কোন নতুন যুদ্ধে সম্মতি দেননি।

ফলাফল[সম্পাদনা]

অশোক যুদ্ধে রক্তপাত দেখেছেন এবং অনুভব করেছেন যে তিনি ধ্বংসের কারণ। কুলিঙ্গের সমগ্র এলাকা লুঠ করা হয় এবং কলিঙ্গ ধ্বংস হয়ে যায়। অশোকের পরবর্তী কতিপয় শাস্ত্র বলে যে, কলিঙ্গের যুদ্ধে প্রায় ১০০,০০০ মানুষ মারা গিয়েছিল এবং প্রায় সমান সংখ্যক অশোকের সেনাবাহিনী ছিল, যদিও ওড়িয়া জনগণের মধ্যে পৌরাণি কাহিনী অনুযায়ী এবং কলিঙ্গের বংশধরদের দাবি অনুযায়ী এই সংখ্যাগুলি অশোকের দ্বারা অত্যন্ত বেশি অতিরঞ্জিত করা হয়ে ছিল। পৌরাণিক কাহিনী অনুযায়ী, কলিঙ্গ সৈন্যবাহিনী দুইবার ধ্বংস হয়েছিল। হাজার হাজার পুরুষ ও নারীকে নির্বাসিত করা হয়।

ঈশ্বরের প্রিয়তম রাজা, রাজা প্রিয়ারদর্শি, তাঁর রাজত্বের আট বছর পর কলিঙ্গ জয় করেছিলেন। একশত পঞ্চাশ হাজার জনকে নির্বাসিত করা হয়েছিল, এক লাখ মানুষ মারা গিয়েছিল এবং আরো অনেকের মৃত্যু হয়েছিল (অন্য কারনে)। কলিঙ্গ জয় করার পর, দয়াময়-দীন-দেবীদের ধর্মের প্রতি একটি দৃঢ় ঝোঁক, ধর্মের প্রতি ভালবাসা এবং ধর্মের শিক্ষার অনুভূতি অনুভব করলো। এখন কলিঙ্গ জয়লাভ করার জন্য ঈশ্বরের প্রিয় রাজা গভীরভাবে অনুতাপ করে।

— অশোক, অশোক স্তম্ভ ক্রম-১৩

অশোকের কলিঙ্গ যুদ্ধের প্রতিক্রিয়াটি অশোকের শিলা লিপিতে লিপিবদ্ধ করা হয়েছে। কলিঙ্গের যুদ্ধ অশোককে বৌদ্ধ ধর্মবিরোধী থেকে অহিংস (অহিংস) এবং ধার্মিক-বিজয় (ধর্মের মাধ্যমে বিজয়) দ্বারা বাকি জীবনকে উৎসর্গ করতে অনুপ্রানিত করে। কলিঙ্গ বিজয়ী হওয়ার পর, অশোক সাম্রাজ্যের সামরিক সম্প্রসারণ শেষ করেন এবং ৪০ বছরেরও বেশি সময় ধরে শান্তি, সাদৃশ্য ও সমৃদ্ধির যুগ শুরু করেন। অঞ্চলের মৌখিক ইতিহাস থেকে জানা যায় যুদ্ধের পর বৌদ্ধের প্রতি তাঁর নিষ্ঠা তৈরি করেছে একটি মহিলা যিনি তার কাছে গিয়ে বলেন, "আপনার যুদ্ধের কারণে আমার বাবা, স্বামী, এবং পুত্রকে আমি হারিয়েছি। এখন আমি কি জন্য জীবিত থাকব?

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Pliny the Elder (77 CE), Natural History VI, 22.1, quoting Megasthenes (3rd century BCE), Indika, Fragm. LVI.
  2. Roy, Kaushik। Military Manpower, Armies and Warfare in South AsiaGoogle Books। Routledge, 2015। সংগ্রহের তারিখ ১৭ আগস্ট ২০১৫ 
  3. Ashoka (টেমপ্লেট:Reign BCE), Edicts of Ashoka, Major Rock Edict 13.
  4. Radhakumud Mookerji (1988). Chandragupta Maurya and His Times. Motilal Banarsidass Publ. আইএসবিএন ৮১-২০৮-০৪০৫-৮.
  5. Asoka and the Decline of the Mauryas, 1961 (revision 1998); Oxford University Press
  6. Das, Manmatha Nath (১৯৪৯)। Glimpses of Kalinga History। Calcutta: Century Publishers। পৃষ্ঠা VII; 271। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মে ২০১৬ 
  7. Ramesh Prasad Mohapatra(1986) Page 10. Military History of Orissa. Cosmo Publications, New Delhi আইএসবিএন ৮১-৭০২০-২৮২-৫
  8. (Raychaudhuri & Mukherjee 1996, pp. 204-209, pp. 270–271)
  9. Ramesh Prasad Mohapatra (1986) Page 12. Military History of Orissa. Cosmo Publications, New Delhi আইএসবিএন ৮১-৭০২০-২৮২-৫