কম্বোডিয়ার ইতিহাস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

দক্ষিণ পূর্ব এশিয়ার একটি দেশ কম্বোডিয়ার কমপক্ষে ৫ হাজার বছরের ইতিহাস রয়েছে। বর্তমান সময়ের কম্বোডিয়া কে চায়নার পর্যায়ক্রমিক ইতিহাসে ফুনান নামের অঞ্চল হিসেবে চিনহিত করা যায় যেটিকে প্রথম থেকে ষষ্ট শতাব্দীতে ইন্দোচিন উপদ্বীপের দক্ষিণতম অংশকে বিবেচনা করা হয়। ফুনান কে প্রাচীন আঞ্চলিক হিন্দু সংস্কৃতি হিসাবে চিহ্নিত করা হয় যা পশ্চিমে ইন্দোস্ফিয়ারের সামুদ্রিক ব্যবসায়িক অংশীদারদের সাথে দীর্ঘায়িত আর্থ-সামাজিক যোগাযোগের সাক্ষ্য দেয়। চীনের ইতিহাসে ষষ্ঠ শতাব্দীর মধ্যে চেনলা বা ঝেনলা নামের একটি সভ্যতা পরবর্তীতে ফুনান হিসেবে পরিচিতি লাভ করে এবং পরবর্তীতে আরো বিস্তৃতি লাভ করে।


নবম শতাব্দীর গোড়ার দিকে এখানে খেমার নামের সাম্রাজ্যটি প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। বিভিন্ন সূত্রমতে পাওয়া তথ্যমতে এখানে ৮০২ খ্রিস্টাব্দে মাউন্ট কুলেন ( মহেন্দ্র পর্বত) এর প্রতিষ্ঠাতা জয়বর্মণ দ্বিতীয় রাজনৈতিক বৈধতা দাবি করার জন্য একটি পৌরাণিক দীক্ষা এবং পবিত্র অনুষ্ঠানের কথা উল্লেখ করেছেন। একাদশ শতাব্দী পর্যন্ত খেমার সভ্যতার ধ্রুপদী যুগে ঐতিহ্যবাহী হিন্দু দেবরাজ সম্প্রদায়ের শক্তিশালী সার্বভৌমদের এক উত্তরাধিকার এখানে রাজত্ব করেছিলেন। প্রাদেশিক বংশোদ্ভূত এক নতুন রাজবংশ বৌদ্ধধর্মের সূচনা করেছিল, যা কিছু পণ্ডিতের মতে রাজকীয় ধর্মীয় বিচ্ছিন্নতা এবং সাধারণ পতন এর কারনে ঘটেছিল। রাজকীয় কালানুক্রমিক ধারা চৌদ্দ শতকে শেষ হয়। এর প্রশাসন, কৃষি, আর্কিটেকচার, হাইড্রোলজি, লজিস্টিকস, নগর পরিকল্পনা এবং চারুকলার দুর্দান্ত অর্জনগুলি একটি সৃজনশীল এবং প্রগতিশীল সভ্যতার সাক্ষ্য - একই সাথে এটি দক্ষিণ-পূর্ব এশীয় সাংস্কৃতিক উত্তরাধিকারের ভিত্তি।

১৫ শতাব্দীর মধ্যভাগে শুরু হওয়া কম্বোডিয়ান ইতিহাসের মধ্যযুগ, প্রায় কম্বোডিয়ার অন্ধকার যুগ নামে অভিহিত, প্রায় ১৫ শতকের ক্রান্তিকাল ধরে এই পতন অব্যাহত ছিল। যদিও তৎকালীন সময়ের হিন্দু সম্প্রদায়ের সমস্ত কিছু প্রতিস্থাপন করা হয়েছিল, তারপরেও পুরাতন রাজধানীর স্মৃতিস্তম্ভগুলি একটি গুরুত্বপূর্ণ আধ্যাত্মিক কেন্দ্র হিসাবে রয়ে গেছে। তবুও পঞ্চদশ শতাব্দীর মাঝামাঝি থেকে মূল জনগোষ্ঠী অবিচ্ছিন্নভাবে পূর্ব দিকে চলে গিয়েছিল এবং কিছুট ব্যতিক্রম ছাড়া, এরা বসতি গড়ে চক্টোমুক, লংভেক এবং ওডংয়ের মেকং এবং টোনলে স্যাপ নদীর সংযোগস্থলে।

ষোড়শ শতাব্দীতে এখানে সামুদ্রিক বাণিজ্যের খুব সমৃদ্ধশালী ভিত্তি ছিল। কিন্তু, ফলস্বরূপ বিদেশী, যেমন মালয়েশিয়া্ন মুসলিম এবং চাম, খ্রিস্টান ইউরোপীয় অভিযাত্রী এবং মিশনারিরা - সরকারী বিষয়গুলিকে ক্রমবর্ধমান ভাবে প্রভাবিত করেছিল। দ্ব্যর্থহীন ভাগ্য, একদিকে এক শক্তিশালী অর্থনীতি এবং অন্যদিকে সংস্কৃতি এবং বিশৃঙ্খলা রয়্যালটি লংভেক যুগের চলমান বৈশিষ্ট্য ছিল।

১৫ তম শতাব্দীর মধ্যে, খেমের ঐতিহ্যবাহী প্রতিবেশী, পশ্চিমে সোম মানুষ এবং পূর্বে চাম জনগণকে ধীরে ধীরে একদিকে ঠেলে সিয়াম বা থাই এবং নাম বা ভিয়েতনামী দ্বারা পরিবর্তিত হয়। এই শক্তিগুলি সমস্ত ইন্দোচিনা নিয়ন্ত্রণের মূল হিসাবে নীচু মেকং বেসিনকে নিয়ন্ত্রণ করার প্রয়োজনীয়তাটি বুঝতে পেরেছিল, এবং ক্রমবর্ধমানভাবে অনুসরণ করেছিল। একটি দুর্বল খেমার রাজ্য কেবলমাত্র আয়ুথায়া (পরে ব্যাংককে) এবং হুতে কৌশলবিদদের উত্সাহ দিয়েছিল। খেমারের রাজকীয় আবাসগুলিতে হামলা এবং বিজয় কোনও আনুষ্ঠানিক ও বৈধ শক্তি ভিত্তি ছাড়াই সার্বভৌমত্ব ছেড়ে দিয়েছিল। উত্তরসূরি ও বিবাহ নীতিগুলিতে হস্তক্ষেপ রাজকীয় মর্যাদার ক্ষয়কে ত্বরান্বিত করেছিল। ওউডং মধ্যযুগের শেষ রাজকীয় আবাস হিসাবে ১৬০১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।


উনবিংশ শতাব্দীর শুরুতে প্রযুক্তিগতভাবে আরও উন্নত এবং উচ্চাভিলাষী ইউরোপীয় উপনিবেশিক শক্তিগুলির বিশ্বব্যাপী নিয়ন্ত্রণের নীতিনির্ধারণী নীতি দ্বারা আঞ্চলিক বিরোধের অবসান ঘটে এবং থাইল্যান্ড একটি বাফার স্টেট হিসেবে বজায় থাকে উপনিবেশ এর হাত থেকে মুক্ত থাকে যদিও ভিয়েতনাম থাকে ফ্রান্সের উপনিবেশ চিন্তাভাবনার কেন্দ্রবিন্দুতে। কম্বোডিয়া যদিও বেশিরভাগ ক্ষেত্রে অবহেলিত,একটি অনুভূত সত্তা হিসাবে ইন্দোচিন ইউনিয়নে প্রবেশ করেছিল এবং আধুনিকতাতে তার পরিচয় এবং অখণ্ডতা বহন এবং পুনরায় দাবি করতে সক্ষম ছিল। ৮০ বছরের উপনিবেশিক হাইবারনেশনের পরে, দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় জাপানিদের সংক্ষিপ্ত সময়ের দখল, যা রাজা সিহানুকের বিনিয়োগের সাথে মিলেছিল তা ছিল পুনঃমুক্তি এবং আধুনিক কম্বোডিয়ান ইতিহাসের অপরিবর্তনীয় প্রক্রিয়া। ১৯৫৩ সাল থেকে স্বাধীন, কিংডম অব কম্বোডিয়া, পারমাণবিক শক্তিধর রাষ্ট্র যুক্তরাষ্ট্র এবং সোভিয়েত ইউনিয়নের পোলারাইজেশনে নিরপেক্ষ থাকার জন্য বিভিন্ন পলিসি প্রণয়ন করে। ইন্দোচিনের যুদ্ধ বাড়ার সাথে সাথে কম্বোডিয়া ধীরে ধীরে এতে জড়িয়ে পড়ে যার ফলে ১৯৭০ এর খেমার প্রজাতন্ত্র আবির্ভাব এবং গৃহযুদ্ধ দেখা দেয়। তারপর এটি ১৯৭৫ সালে খেমাররুজ শাসনের অধীনে পড়ে গনতান্ত্রিক কম্পুচিয়ায় পরিণত হয় যা কম্বোডিয়ার ইতিহাসে অন্ধকার যুগ হিসেবে বিবেচিত হয়। এরপর ভিয়েতনামের দখল ও জাতিসংঘের হস্তক্ষেপে ১৯৯৩ সালে আধুনিক কম্বোডিয়া আত্নপ্রকাশ করে।


{{toc}}

প্রাক ইতিহাস

উত্তর-পশ্চিম কম্বোডিয়া বটম্বাং প্রদেশের লাআং স্পানে একটি গুহার সাথে রেডিও কার্বন ডেটিংয়ের মাধ্যমে (৬০০০০-–৭০০০) খ্রিস্টপূর্বাব্দে হোবাইনহিয়ান পাথরের সরঞ্জাম এবং ৪২০০ খ্রিস্টপূর্বাব্দ থেকে মৃৎশিল্পের উপস্থিতি পাওয়া যায়। ২০০৯ সালে ফরাঙ্কো-কম্বোডিয়ান প্রাগৈতিহাসিক মিশনের প্রত্নতাত্ত্বিক গবেষণাটি গুহায় নিওলিথিক পিরিয়ডের ৭১.০০০ বছরের বিপি থেকে সম্পূর্ণ সাংস্কৃতিক অনুক্রমে নথিভুক্ত করেছে। ২০১২ সালের পাওয়া তথ্যমতে এখানের একটি পাহারের গুহায় প্রাচীন গুহাবাসীর প্রত্নতাত্নিক নিদর্শন পাওয়া গিয়েছে। এই গুহাবসীরা মূলত নিওলিথিক যুগের এবং তাদের মধ্যে উন্নত শিকারের কৌশল, শিকারের সরঞ্জাম এবং মাটির পাত্রের নিদর্শন পাওয়া যায়। একই সাথে তাদের মধ্যে সামাজিক, সাংস্কৃতিক চেতনার ও নিদর্শন পাওয়া যায়।

কেমপং চেনাং প্রদেশের সামরং সেন এ খ্রিষ্টপূর্ব ১৫০০ সালের মানুষের হাড় এবং মাথার খুলি পাওয়া গিয়েছে।২০০৭ সালে হেং সোপাডি নামের একজন পূর্ব কম্বোডিয়ায়র সার্কুলার আর্থ সাইট এবং সামরং সেনের মধ্যে তুলনা করেছিলেন। ধারনা করা হয় এই অঞ্চলের মানুষগুলো সম্ভবত দক্ষিন - পূর্ব চীন থেকে ইন্দোচীন উপদ্বীপের দিকে এসেছিল। বিজ্ঞানীদের মতে দক্ষিন পূর্ব এশিয়ায় এরাই প্রথম ধান চাষ এবং ব্রোঞ্জের ব্যাবহার করে।

২০১০ সালে উত্তর পশ্চিম কম্বোডিয়ার ফুম স্নে নামক এক সমাধিক্ষেত্র থেকে পাওয়া কঙ্কালে পরীক্ষা চালিয়ে যে তথ্য পাওয়া যায় তা হল সেখানে আন্ত ব্যক্তিগত দ্বন্দের ফলে মানুষের আহত হওয়ার প্রমান পাওয়া যায়। এর মধ্যে মাথায় আহত হওয়ার প্রমান উল্লেখযোগ্য। অই সমধিক্ষেত্রে আরো পাওয়া যায় সংঘর্ষ ব্যবহার হওয়া তরবারি এবং বিভিন্ন ধরনের প্রানঘাতী অস্ত্র।


দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার লৌহযুগ ৫০০ খ্রিস্টপূর্বের দিকে শুরু হয় এবং ফুনান যুগের শেষ অবধি - প্রায় ৫০০ এডি অবধি স্থায়ী হয়। এটি ভারত ও দক্ষিণ এশিয়ার সাথে টেকসই সামুদ্রিক বাণিজ্য এবং আর্থ-রাজনৈতিক মিথস্ক্রিয়ার দৃঢ় প্রমাণ সরবরাহ করে। ১ ম শতাব্দীর মধ্যে জনগোষ্ঠী জটিল, সংগঠিত সমিতি এবং একটি বিচিত্র ধর্মীয় বিশ্বজগতের বিকাশ করেছে, যা বর্তমান সময়ের ভাষার সাথে সম্পর্কিত। সর্বাধিক উন্নত গোষ্ঠী উপকূল এবং নিম্ন মেকং নদী উপত্যকা এবং ব-দ্বীপ অঞ্চলে বাস করত যেখানে তারা ধান ও মাছ চাষ করত,এবং গৃহপালিত পশুপালন করতো।


ফানান কিংডম (১ম শতাব্দী - ৫৫০)

চীনাদের রেকর্ডে ফুনান সম্পর্কে এদের প্রথম বিন্যস্ত রাজনীতি সম্পর্কে বর্ণনা পাওয়া যায়।