কমান্ডো

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
"কমান্ডো" শব্দের প্রথম ব্যবহার দেখা যায় ডাচ আফ্রিকানার গেরিলা দল "Kommandos" এর মধ্যমে যারা দ্বিতীয় বোর যুদ্ধে(১৮৯৯-১৯০২) লড়াই করেছিল।
"commando" শব্দটি প্রতিষ্ঠিত হয় ১৯৪২ সালে দ্বিতীয় মহাযুদ্ধ এর সময় ব্রিটিশ কমান্ডোদের মাধ্যমে যারা ব্রিটিশ সেনাবাহিনী এর একটি বিশেষ বাহিনী ছিল।
কুচকাওয়াজরত শ্রীলঙ্কান কমান্ডোরা।

একজন কমান্ডো হল সুপ্রশিক্ষিত হালকা অস্ত্র সজ্জিত পদাতিক বা বিশেষ বাহিনীর সৈনিক যারা জল হতে স্থলে, পারাস্যুটিং এর মাধ্যমে অথবা দুর্গম পথ পাড়ি দিয়ে শত্রুপক্ষ এর উপর আক্রমণ চালাতে সক্ষম সৈনিক।

এরা বিশেষ ধরনের সামরিক দল যারা অন্যান্য সামরিক দল থেকে আলাদা। অন্যন্য ভাষায়, commandokommando শব্দটি command শব্দটির সাথে সম্পর্কযুক্ত।

বিশ্বের অধিকাংশ সামরিক বাহিনিতে, কমান্ডোদেরকে আলাদা করা হয় যুদ্ধক্ষেত্রের গুরুত্বপূর্ণ লক্ষস্থলে হামলা চালাতে বিশেষজ্ঞ দল হিসাবে। তথাপি, সামরিক সংজ্ঞানুসারে, কমান্ডরা আইনশৃঙ্খলা রক্ষা, যুদ্ধক্ষেত্রে রেকি করা, চোরাগোপ্তা হামলা চালানোয় সক্ষম কিন্তু এরা গোয়েন্দাগিরি, দীর্ঘ সময় ধরে শত্রুপক্ষের উপর নজরদারি চালানোর মত কাজ করে না ও অপ্রচলিত যুদ্ধকৌশল অব্লম্বন করে না।

ব্যুৎপত্তি[সম্পাদনা]

Commando শব্দটির উৎপত্তি আফ্রিকানাস শব্দ kommando হতে যার আক্ষরিক অনুবাদ "আদেশ", এবং ভাবানুবাদ করলে দারায় "ধ্রুত মতায়নযগ্য সৈন্যদল"। এটি মুলত বুঝায় তৎকালীন বোর যুদ্ধগুলতে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে অংশ নেওয়া হালকা পদাতিক ইউনিটসমুহদেরকে।মুলত পূর্তগিজ আফ্রিকান কলনিগুলোতে এ শব্দের জন্ম হয়।[১][২]

অক্সফোর্ড ইংলিশ ডিকশনারিটি ইংরেজী ব্যবহারিক অর্থ "বাছাই করা পুরুষদের একটি দলের সদস্য ..." ,এর অর্থ সরাসরি আফ্রিকানার উৎসের সাথে যুক্ত : [৩]

1943 Combined Operations (Min. of Information) i. Lt. Lieutenant-Colonel D. W. Clarke... produced the outline of a scheme.... The men for this type of irregular warfare should, he suggested, be formed into units to be known as Commandos.... Nor was the historical parallel far-fetched. After the victories of Roberts and Kitchener had scattered the Boer army, the guerrilla tactics of its individual units (which were styled ‘Commandos’)... prevented decisive victory.... His [sc. Lt.-Col. D. W. Clarke's] ideas were accepted; so also, with some hesitation, was the name Commando.

বঙ্গানুবাদঃ১৯৪৩এ সম্মিলিত অপারেশনস (তথ্য মন্ত্রণালয়) এর  লেফটেন্যান্ট-কর্নেল ডি ডাব্লু ক্লার্ক ... একটি পরিকল্পনার রূপরেখা তৈরি করেছিলেন .... এই ধরনের অনিয়মিত যুদ্ধের পুরুষদের কমান্ডোতে অন্তর্ভুক্ত করা উচিত .... বা ঐতিহাসিক অ। রবার্টস এবং কিচেনারের বিজয় বোর সেনাবাহিনীকে ছড়িয়ে ছিটিয়ে দেওয়ার পরে, তার নিজস্ব ইউনিটগুলির গেরিলা কৌশলগুলি (যেগুলি 'কমান্ডোস "রীতিযুক্ত ছিল) .... তার [লেফটেন্যান্ট-কর্নেল ডি ডাব্লু ক্লার্ক] ধারণা গ্রহণ করা হয়েছিল; সুতরাং, কিছুটা দ্বিধায়, নাম কমান্ডো।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

১৬৫২ সালে ডাচ কেপ কলনি প্রতিষ্ঠার পরবর্তী সময়ে কমান্ডো শব্দটি দ্বারা একদল মিলিশিয়াদের বুঝানো হত।পরবর্তীতে ডাচ ইস্ট ইন্ডিয়ান কম্পানি "কমান্ডো আইন" নামক আইন জারি করে যা দ্বারা সেখানের সাদা বুর্জোয়া শ্রেণীর নাগরিক দের আত্মরক্ষার জন্যে অস্ত্র হাতে তুলে নেওয়া অনুমতি প্রদান করা হয়।সেখানে এটি "কমান্ডো প্রথা" নামে পরিচিত ছিল।এরা নিজেদের মধ্যে সশস্ত্র দল প্রতিষ্ঠা করে যার নাম দেয়া হয় কমান্ডো যা্দের দলপতিকে বলা হত কমান্ড্যান্ট।দক্ষিণ আফ্রিকার নানা আদিবাসীদের বিরুদ্ধে এরা নানা সংঘাতে লিপ্ত ছিল। পরে বোর যুদ্ধে ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে এরা লড়াই করে।পরে ব্রিটিশদের মধ্যমে "কমান্ডো" শব্দের সারা বিশ্বে প্রসার ঘটে।

"গ্রেট ট্রেক" এর সময়, জোসা এবং জুলুর মতো দক্ষিণ আফ্রিকার জনগণের সাথে দ্বন্দ্বের কারণে বোররা ঔপনিবেশিক আইনমুক্ত থাকা সত্ত্বেও কমান্ডো ব্যবস্থা বজায় রাখে। এছাড়াও, শব্দটি কোনও সশস্ত্র অভিযানের বর্ণনা দিতে ব্যবহৃত হয়েছিল। এই সময়কালে, বোররা সংখ্যাগরিষ্ঠভাবে উন্নত হলেও কম, স্থানীয় জুলুদের মতো কম মোবাইল ব্যান্ডের বিরুদ্ধে ব্যবহারের জন্য গেরিলা কৌশলগুলিও বিকাশ করেছিল যেগুলি বৃহত, জটিল গঠনে লড়াই করেছিল।

প্রথম বোর যুদ্ধে, বোর কমান্ডোরা ট্রান্সওয়াল থেকে দখলদার ব্রিটিশ বাহিনীকে বহিষ্কারের জন্য উন্নততর চিহ্নিতকারী, ফিল্ডক্র্যাফট, ছদ্মবেশ এবং গতিশীলতা ব্যবহার করতে সক্ষম হয়েছিল। এই কৌশলগুলি দ্বিতীয় বোয়ার যুদ্ধজুড়ে অব্যাহত ছিল। যুদ্ধের চূড়ান্ত পর্যায়ে, ব্রিটিশরা দুটি বোর প্রজাতন্ত্রের রাজধানী শহর দখল করার পর থেকে ৫,০০০ বোর দুই বছরের জন্য ৪৫০,০০০-শক্তিশালী ব্রিটিশ সাম্রাজ্যের বিরুদ্ধে অসম যুদ্ধ পরিচালনা করেছিল। এই দ্বন্দ্বের সময় শব্দটি ইংরেজিতে প্রবেশ করেছিল, এর "মিলিশিয়া ইউনিট" বা "রেইড" এর সাধারণ আফ্রিকানার অর্থ ধরে রেখেছিল। রবার্ট বাডেন-পাওয়েল field-craft এর গুরুত্বকে স্বীকৃতি দিতে স্কাউটিং আন্দোলন গঠনে অনুপ্রাণিত হয়েছিলেন।

১৯৪১ সালে, ব্রিটিশ ইম্পেরিয়াল জেনারেল স্টাফের লেফটেন্যান্ট-কর্নেল ডি ডাব্লু। ক্লার্ক, বোয়ার কমান্ডোসের কার্যকারিতা এবং কৌশলগুলি উচ্ছেদ করতে ব্রিটিশ আর্মি স্পেশাল সার্ভিসের বিশেষায়িত অভিযানকারী ইউনিটগুলির জন্য কমান্ডো নামটি প্রস্তাব করেছিলেন। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়, আমেরিকান এবং ব্রিটিশ প্রকাশনা, এই জাতীয় ব্রিটিশ সামরিক ইউনিটের বহুবচন "কমান্ডো" ব্যবহারের বিষয়ে বিভ্রান্ত হয়েছিল, এই জাতীয় ইউনিটের একজন সদস্যকে বোঝাতে "কমান্ডো" ব্যবহার করার আধুনিক প্রচলিত অভ্যাসের জন্ম দিয়েছিল, বা একজন ব্যক্তি একটি চোররাগপ্তা হামলায় নিযুক্ত। .[২][৪]

গ্রীন ব্যারেট ও অন্যন্য প্রশিক্ষনের উৎপত্তি[সম্পাদনা]

বিশ শতকের এবং বিশেষত দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর থেকে কমান্ডোগুলি তাদের চরম প্রশিক্ষণ ব্যবস্থার কারণে অন্যান্য সামরিক ইউনিট থেকে পৃথক করা হয়েছে; এগুলি সাধারণত সবুজ বেরেটের পুরষ্কারের সাথে সম্পর্কিত যা ব্রিটিশ কমান্ডো থেকে উদ্ভূত হয়েছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় আরও অনেক আন্তর্জাতিক কমান্ডো ইউনিট প্রতিষ্ঠা করার ক্ষেত্রে ব্রিটিশ কমান্ডোদের ভূমিকা ছিল। কিছু আন্তর্জাতিক কমান্ডো ইউনিট গঠিত হয়েছিল যারা ব্রিটিশ কমান্ডোসের অংশ বা তার সাথে অংশ নিয়েছিলেন, যেমন ডাচ করপস কমান্ডোট্রোপেন (যারা এখনও ব্রিটিশ ফেয়ারবায়ার্ন-সাইকস ফাইটিং নাইফের স্বীকৃতি ফ্ল্যাশ প্রতীক পরে), বেলজিয়ামের ৫ম বিশেষ বিমান পরিষেবা, বা গ্রীক স্যাক্রেড ব্যান্ড (দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ)। ১৯৪৪ সালে এসএএস ব্রিগেড ব্রিটিশ ১ম এবং ২য় এসএএস, ফরাসী তৃতীয় এবং চতুর্থ এসএএস এবং বেলজিয়ামের ৫ম এসএএস থেকে গঠিত হয়েছিল। ফরাসী সেনাবাহিনীর বিশেষ বাহিনী (১ম আরপিআইএমএ) এখনও "Who Dares Wins"(সাহসিরা সর্বদা বিজয়ী) এসএএসের মূলমন্ত্রটির অনুবাদ "Qui Ose Gagne" নীতিবাক্যটি ব্যবহার করে।

এছাড়াও, অনেক কমনওয়েলথ দেশগুলি মূল ব্রিটিশ কমান্ডো ইউনিটের অংশ ছিল। অস্ট্রেলিয়ান স্পেশাল এয়ার সার্ভিস রেজিমেন্ট, নিউজিল্যান্ড স্পেশাল এয়ার সার্ভিস, এবং দক্ষিণ রোডেসিয়ান স্পেশাল এয়ার সার্ভিস সহ তারা তাদের নিজস্ব জাতীয় ঐতিহ্য গড়ে তুলেছিল, যাদের প্রত্যেকে তাদের ব্রিটিশ অংশীদারদের মতো একই চিহ্ন এবং নীতি ভাগ করে দেয় (বা অভ্যস্ত ছিল)। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময়, ব্রিটিশ এসএএস দ্রুত বালি রঙের বেরেট গ্রহণ করেছিল, যেহেতু তারা প্রায় পুরোপুরি উত্তর আফ্রিকার নাটকের উপর ভিত্তি করে ছিল; তারা অন্যান্য ব্রিটিশ কমান্ডো ইউনিট থেকে আলাদা করার জন্য সবুজ বেরেটের চেয়ে এগুলি ব্যবহার করে। (বিশেষ এয়ার সার্ভিসের ইতিহাস দেখুন)। অন্যান্য কমনওয়েলথ কমান্ডো ইউনিটগুলি দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে সরাসরি ব্রিটিশ কমান্ডো ইউনিটগুলির উপর ভিত্তি করে গঠিত হয়েছিল, যেমন অস্ট্রেলিয়ান আর্মি রিজার্ভ ১ম কমান্ডো রেজিমেন্ট (অস্ট্রেলিয়া), ৪র্থ ব্যাটালিয়ন থেকে উদ্ভূত নিয়মিত সেনা ২য় কমান্ডো রেজিমেন্ট (অস্ট্রেলিয়া) থেকে আলাদা। , রয়্যাল অস্ট্রেলিয়ান রেজিমেন্ট ১৯৯৭ সালে।

মার্কিন সেনাবাহিনীর মেজর জেনারেল লুসিয়ান ট্রাসকট ইউ এস রেঞ্জার্স প্রতিষ্ঠা করেছিলেন, ব্রিটিশ জেনারেল স্টাফের সাথে যোগাযোগকারী কর্মকর্তা। ১৯৪২ সালে, তিনি জেনারেল জর্জ মার্শালের কাছে একটি প্রস্তাব জমা দিয়েছিলেন যে "ব্রিটিশ কমান্ডোদের ধারায়" আমেরিকান ইউনিট স্থাপন করা উচিত। প্রথমদিকের ইউএস রেঞ্জার্স অচনাচারি ক্যাসলে ব্রিটিশ কমান্ডো সেন্টারে প্রশিক্ষিত। ইউএস নেভি সিলস এর মূল গঠন, পর্যবেক্ষক দল, ব্রিটিশ কমান্ডো দ্বারা প্রশিক্ষিত ও প্রভাবিত হয়েছিল। ইউএস স্পেশাল ফোর্সের উদ্ভব ব্রিটিশ সম্মিলিত অপারেশনের অধীনে গঠিত প্রথম বিশেষ পরিষেবা বাহিনী দিয়ে হয়েছিল।

মালয়েশিয়ার গ্রিন বেরেট স্পেশাল ফোর্স PASKAL এবং Grup Gerak Khas (যারা এখনও রয়েল মেরিনসের নীল ল্যানার্ড পরেন) মূলত ব্রিটিশ কমান্ডো প্রশিক্ষণ নিয়েছিলেন। ব্রাজিলের মেরিন স্পেশাল অপারেশনস COMANF এর উদ্ভবও রয়েল মেরিনদের পরামর্শের মাধ্যমে। অন্যান্য ব্রিটিশ ইউনিট, যেমন এসএএস, অনেকগুলি আন্তর্জাতিক বিশেষ অপারেশন ইউনিটগুলির বিকাশের দিকে পরিচালিত করে যাদের এখন সাধারণত কমান্ডো হিসাবে অভিহিত করা হয়, যার মধ্যে,বাংলাদেশের প্যারা কমান্ডো বিগ্রেড, পাকিস্তানি স্পেশাল সার্ভিসেস গ্রুপ, ভারতীয় MARCOS এবং জর্দানীয় বিশেষ বাহিনী অন্তর্ভুক্ত রয়েছে।

প্রথম বিশ্বযুদ্ধ[সম্পাদনা]

অস্ট্র-হাঙ্গেরিও স্ম্রজ্য[সম্পাদনা]

১৯১৮-১৫ এর শীতকালে পূর্ব রণাঙ্গন এর অধিকাংশ অংশে পরিখা যুদ্ধের সুচনা হয়। এ সময় তারা Jagdkommandos নামক বিশেষ বাহিনী গঠন করে। ১৯১৮-১৫ এর শীতকালে পূর্ব রণাঙ্গন বড় অংশগুলি যুদ্ধের যুদ্ধে পাল্টে যায়। নতুন পরিস্থিতি মোকাবেলায় অনেক অস্ট্রো-হাঙ্গেরিয়ান রেজিমেন্ট স্বতঃস্ফূর্তভাবে Jagdkommandos নামে পদাতিক দল তৈরি করেছিল। এই দল্গুলির নামকরণ করা হয়েছিল রাশিয়ান সেনাবাহিনীর বিশেষ প্রশিক্ষিত বাহিনীগুলির নাম অনুসারে যা ১৮৮৬ সালে গঠিত হয়েছিল এবং সেগুলি অ্যাম্বুশগুলির বিরুদ্ধে রক্ষা করতে, পুনর্বিবেচনা করতে এবং কোনও লোকের জমিতে কম তীব্র লড়াইয়ের জন্য ব্যবহৃত হয়েছিল।

অস্ট্রো-হাঙ্গেরিয়ান হাই আর্মি কমান্ড (Armeeoberkommando, AOK) বিশেষ বাহিনীর প্রয়োজনীয়তা উপলব্ধি করে এবং জার্মান অভিজ্ঞতা আঁকতে সিদ্ধান্ত নিয়েছে। ১৯১৬ সালের সেপ্টেম্বর-অক্টোবরে শুরু হওয়া সদ্য উত্থাপিত অস্ট্রো-হাঙ্গেরিয়ান সেনাবাহিনী আক্রমণ ব্যাটালিয়নের মূল ক্যাডার হওয়ার জন্য প্রায় 120 কর্মকর্তা এবং 300 জন এনসিওকে বেউভিলিতে (ডোনকোর্টের নিকটবর্তী) জার্মান প্রশিক্ষণ অঞ্চলে প্রশিক্ষণ দেওয়া হয়েছিল। প্রাক্তন কমন্ডোদেরকে এই ব্যাটালিয়নে অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছিল।

ইতালি[সম্পাদনা]

ইতালি হল প্রথম দেশ যারা কমান্ডো বাহিনী গঠন করে।এটি Arditi(আরদিতি) নামে সুপরিচিত ছিল। ইতালি প্রথম বিশ্বযুদ্ধের আলপাইন যুদ্ধে অস্ট্রিয়া-হাঙ্গেরির বিরুদ্ধে স্থির লড়াইয়ের অচলাবস্থা ভাঙার জন্য বিশেষজ্ঞ ট্রেঞ্চ-রাইডিং দলগুলি ব্যবহার করেছিল। এই দলগুলিকে "আরডিটি" (যার অর্থ "সাহসী, সাহসী") বলা হত; তারা সাধারণত বলিষ্ঠ দেহের ২৫ বছরের কম বয়সী পুরুষ এবং সম্ভবত অবিবাহিত ছিল। আসলে আর্দিতি (যারা হামলার মাত্র কয়েক ঘন্টা আগে লাইনের দিকে পরিচালিত হয়েছিল, তারা ফটো-রিকেনেসেন্সের মাধ্যমে ভূখণ্ডের সাথে পরিচিত ছিল এবং তাদের জন্য পুনরায় তৈরি করা পরিখা ব্যবস্থাগুলির প্রশিক্ষণ দিয়েছিল) নিয়মিত লাইন পদাতিকের চেয়ে কম হতাহতের শিকার হয়েছিল এবং তারা ছিল তাদের কাজগুলিতে অত্যন্ত সফল। তাদের মধ্যে অনেকে যুদ্ধের উত্তাল বছরগুলিতে চূড়ান্ত-ডান গঠনের জন্য স্বেচ্ছাসেবীর কাজ করেছিলেন এবং (ফ্যাসিস্ট পার্টি এ নিয়ে গর্ববোধ করেছিল এবং শৈলী এবং আরদিতির পদ্ধতি গ্রহণ করেছিল), তবে বামপন্থী রাজনৈতিক অনুপ্রেরণার কিছু লোক "আরডিতি দেল পপোলো "(জনগনের আরডিতি) নামক এক গোষ্ঠী প্রতিষ্ঠা করে এবং কয়েক বছর ধরে সমাজতান্ত্রিক এবং কমিউনিস্ট পার্টির বিভাগ, ভবন, সমাবেশ এবং সভা সমাবেশগুলির সুরক্ষা দিয়ে ফ্যাসিবাদী অভিযান চালিয়েছিল।এ বাহিনীকে ইতালিয় জাতিয়তাবাদ এর প্রতিক বলা হয়।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ[সম্পাদনা]

ফিনল্যান্ড[সম্পাদনা]

১৯৪১ সালের গ্রীষ্মে ১৫০ জন সদস্য নিয়ে যাত্রা শুরু করে Erillinen Pataljoona 4। প্রথমদিকে ইউনিটগুলিতে মাত্র ১৫ জন পুরুষ ছিল, তবে যুদ্ধের সময় এটি ৬০০ জন পর্যন্ত উন্নীত হয়েছিল। পহেলা জুলাই, ১৯৪৩এ ইউনিটগুলি চতুর্থ বিচ্ছিন্ন ব্যাটালিয়নে সংগঠিত করা হয়েছিল। ১৯৪৪ সালে মিত্র বাহিনীর একটি বিশেষ ইউনিট ব্যাটালিয়নের সমর্থনের জন্য প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল ১১৫ টি বিমান। যুদ্ধ্বের শেষে এর সদস্য সংখ্যা হয় ৬৭৮ জন, যাদের মধ্যে ৭৬ জন নারী।

ইলোমন্তসীর যুদ্ধে, চতুর্থ সৈন্যরা কার্যকরভাবে আগুনের সমর্থন রোধ করে সোভিয়েত আর্টিলারি সরবরাহের লাইন ব্যাহত করে। ব্যাটালিয়ন ১৯৪৪ সালে ৫০ টিরও বেশি অভিযান পরিচালনা করেছিল এবং ১৯৪৪ সালে মাত্র ১০০ এর নিচে, এবং একই বছরের 30 নভেম্বর তা ভেঙে দেওয়া হয়েছিল।

Sissiosasto/5.D হল দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের আরেকটি ফিনিশ কমান্ডো ইউনিট। এই দলটি Lynx ডিভিশন অধীনে (১৯৪ তম ডিভিশন, ফিনিশ ষষ্ঠ কর্পস) ২০ আগস্ট ১৯৪১ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল। এটি শত্রু লাইনের পিছনে পুনর্বার টহল, চোরাগপ্তা হামলা এবং গেরিলা যুদ্ধ পরিচালনার জন্য একটি স্বয়ংসম্পূর্ণ ইউনিট ছিল।

জার্মানি[সম্পাদনা]

৫০০তম এস এস প্যারাস্যুট ব্যাটালিয়নের সৈন্যদের সাথে ওটো স্ক্রজনি(১৯৪৫)

১৯৩৯ সালের ডিসেম্বরে পোল্যান্ডে বিভিন্ন সফল চোরাগপ্তা হামলার পরিপ্রেক্ষিতে জার্মান পররাষ্ট্র ও কাউন্টার-ইন্টেলিজেন্স দপ্তর, Brandenburger Regiment প্রতিষ্ঠা করে(যা পরিচিত ছিল ৮০০তম স্পেশাল পারপজ ট্রেনিং অ্যান্ড কন্সট্রাক্টশন কোম্পানি নামে অধিক পরিচিত ছিল)।এ দলটি প্রথাগত ও চোরাগপ্তা উভয় যুদ্ধকৌশল একসাথে ব্যবহার করত।মুসলিনি এর উদ্ধার অভিযান পরিচালনার জন্য সুপরিচিত ওটো স্ক্রজনি হিটলার এর নির্দেশে নানা বিশেষ অভিযান পরিচালনা করত।তার অধীনস্ত ইউনিট সমূহ- Sonderlehrgang z.b.V. Oranienburg, Sonderverband z.b.V. Friedenthal,SS-Jäger-Bataillon 502,৫০০তম এস এস প্যারাস্যুট ব্যাটালিয়ন, SS-Jagdverband Mitte এবং অন্যন্য এস এস কমান্ডো দল। Fallschirmjäger(ফলশুমইয়্যাগার) ছিল আরেকটি জার্মান বিশেষ বাহিনী যারা মুলত ছিল ছত্রিসেনা।এরা কমান্ডো স্টাইলে অভিযান পরিচালনার জন্য সুপরিচিত ছিল।[৫] [৬][৭]

জাপান[সম্পাদনা]

১৯৪৪-৪৫ সালে মিত্র বাহিনিদের বিমান ঘাটিতে হামলা চালানর জন্য তেইসিন শুদান(আক্রমণদল),গিরেতসু(বীর) নামক বিশেষ ছত্রিসেনা ইউনিট গঠন করে। গোয়েন্দাগিরি,চোরাগোপ্তা হামলা ও গেরিলা স্টাইলে যুদ্ধ প্রশিক্ষন এর জন্য নাকানো নামক প্রশিক্ষণ একাডেমী প্রতিষ্ঠা করে। এছাড়া সো-তকু নামক নৌকমান্ডো ইউনিট ছিল, যারা ছোট সাবমেরিন এর মধ্যমে হামলায় পারদর্শী ছিল।

ইটালি[সম্পাদনা]

Decima Flottiglia MAS ছিল ইটালির অত্যন্ত্য সুপরিচিত কমান্ডো ইউনিট যেটি ১৯৪০ এর মাঝের সময়ে ভূমধ্যসাগরে ব্রিটিশ নৌবাহিনির বহু ক্ষয়-ক্ষতির কারন ছিল। ১৯৪৩ সালে মিত্র বাহিনীর কাছে আত্মসমর্পন করার পর এরা মিত্রপক্ষের পক্ষে যুদ্ধ করে। এ সময় তারা নাম পরিবর্তন করে নাম দেয় Mariassalto। অনেকে জার্মান পক্ষে লড়াই করেছিল এবং তাদের আসল নাম ধরে রেখেছিল তবে ১৯৪৩ সালের পরে কোন সামুদ্রিক অভিযান পরিচালনা করে নাই। ইতালীয় মুক্তিযুদ্ধাদের বিরুদ্ধে এরা মুলত যুদ্ধ করেছিল এবং এদের কিছু লোক মানবতা বিরোধী অপরাধে জড়িত ছিল। যুদ্ধোত্তর বছরগুলিতে ইতালীয় সামুদ্রিক কমান্ডোগুলি "কমসুবিন" (কোমন্ডো সুবাক্কিও ইনসোসোরি বা আন্ডারওয়াটার রেইডারস কমান্ডের একটি সংক্ষেপণ) হিসাবে পুনরায় সংগঠিত হয়েছিল। তারা সবুজ কমান্ডো বেরেট পরেন।

সোভিয়েত ইউনিয়ন[সম্পাদনা]

ভয়েয়েনায়া রাজেভিদেকা (রাজেভেদিকি স্কাউটস) হল পদাতিক, ছত্রীসেনা এবং মেরিন সেনাদের দলগুলোর মধ্যে নিয়ে গঠিত "সামরিক গোয়েন্দা" কর্মী / ইউনিট। ডিভিশনে একটি গোয়েন্দা ব্যাটালিয়ন, ব্রিগেডে একটি রেকনসেন্স কোম্পানি, রেজিমেন্টে একটি রেকনসেন্স প্লাটুন, এভাবে এটি গঠিত ছিল।[৮] কিংবদন্তি সোভিয়েত নেভাল স্কাউট ভিক্টর লিওনভ নেভাল কমান্ডোসের একটি অভিজাত ইউনিটের অধিনায়ক ছিলেন।৪র্থ স্পেশাল ভলেন্টিয়ার ডিটাচমেন্ট ছিল ৭০ জন অভিজ্ঞ নৌকমান্ডো উনিত।প্রাথমিকভাবে তারা সমুদ্রের মাধ্যমে প্লাটুন আকারের ফিনল্যান্ড এবং পরে নরওয়ে অবতরণ করে ছোট আকারের রেকি অভিযান সম্পাদন করতে সীমাবদ্ধ ছিল।[৮] পরে এর নামকরন হয় ৮০১তম স্পেশাল রেকনসেন্স ডিটাচম্যান্ট।তারা জিজ্ঞাসাবাদের জন্য বন্দী ছিনতাই ও নাশকতা অভিযান পরিচালনা শুরু করে।[৮] এরা ফিনল্যান্ড, নরওয়েতে বিভিন্ন অভিযান পরিচালনা করে। জার্মানির পতনের পর এরা জাপানিদের বিরুদ্ধে প্রসান্ত মহাসাগর এ যুদ্ধ করে। এরা ফিনিশ ও রুশ উপকূলজুড়ে জার্মানদের বিরুদ্ধে চোরাগোপ্তা হামলা চালায় ও জার্মানদের রসদ ও যোগাযোগব্যবস্থা ধ্বংস করে।[৯] ইউরোপীয় সংঘাতের অবসান হওয়ার পরে লিওনোভ এবং তার অধিনস্তদের জাপানিদের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনার জন্য প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলে প্রেরণ করা হয়েছিল।

যুক্তরাজ্য[সম্পাদনা]

Men wading ashore from a landing craft
নরমান্ডি-তে ব্রিটিশ কমান্ডোগন।

১৯৪০ সালে ব্রিটিশ সেনাবাহিনী পরীক্ষামূলকভাবে স্বাধীন কোম্পানি ও পরবর্তিতে ব্যাটালিয়ন আকারে কমান্ডো ইউনিট গঠন করে যেখান থেকে এ শব্দের প্রসার হয়।

যুদ্ধকালীন সময়ে ব্রিটিশ কমান্ডো থেকে আরো বিখ্যাত ইউনিট এর জন্ম হয় যেমন, স্পেশাল এয়ার সার্ভিস, স্পেশাল বোট সার্ভিস,পারাস্যুট রেজিমেন্ট।

এছাড়া যুদ্ধকালীন সময় ইউরোপ থেকে পালিয়ে আসা সৈন্যদের নিয়ে স্পেশাল অপারাশন এক্সেকিউটিভ গঠিত হয়। এরা যুদ্ধে নানা ভুমিকা রাখে। এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য, ১ম নরওয়েজিয়ান ইডিপেন্ডেন্ট কোম্পানি,যারা জার্মানির ভারি পানি সরবরাহ বন্ধ করেছিল।

দ্বিতীয় মহাযুদ্ধে অংশগ্রহনকারি ব্রিটিশ কমান্ডোদের স্মরণে ১৯৫২ সালে স্কটল্যান্ডে স্থাপিত ভাস্কর্য।

১৯৪০ সালে ডানকার্ক হতে সৈন্য প্রত্যাহার এর সময় সেনাদের সহায়তার জন্য ব্রিটিশ রাজকীয় নৌবাহিনী একটি বিশেষ দল গঠন করে।[১০]।এরা আর এন কমান্ডো নামে পরিচিতি পায়,যুদ্ধের প্রথমদিকে এ দলটি খুব সফল না হলেও পরবর্তীতে নরমান্ডিতে আক্রমনের সময় এ দল মুখ্য ভুমিকা রাখে।

১৯৪২ সালে ব্রিটিশ রাজকীয় নৌবাহিনীর নবম পদাতিক ব্যাটালিয়ন যার লোকবল ছিল ৪০ থেকে ৪৮ এর মত, কমান্ডো বাহিনীর অন্তর্ভুক্ত হয়।যুদ্ধের পরে সেনা কমান্ডোদলগুলি ভেঙে দেওয়া হয় এবং ব্রিটিশ রাজকীয় মেরিন বাহিনীর ৪র্থ কমান্ডো ব্রিগেড হিসাবে গঠন করা হয়।[১১]

এছাড়া ১৯৪২ সালে বিমান বাহিনী ১৫০ জন এর ১৫টি কমান্ডো দল গঠন করেছিল।এ দলে প্রশিক্ষিত টেকনেশিয়ান, স্যাপার এবং রক্ষণাবেক্ষণকারীরা সমন্বিত ছিলেন যারা কমান্ডো বাহিনীতে স্বেচ্ছায় যোগ দান করে।এ দলের প্রধান কাজ ছিল দখল করা বিমান ঘাঁটিগুলোকে পুনরায় ব্যাবহার যোগ্য করে তোলা এবং শত্রুপক্ষের পাল্টা আক্রমণ প্রতিহিত করা ।[১২]

অস্ট্রেলিয়া[সম্পাদনা]

অস্ট্রেলিয় সেনাবাহিনী যুদ্ধের প্রথম দিকে একটি কমান্ডো দল গঠন করেছিল যা অস্ট্রেলিয়ান ইন্ডিপেন্ডেন্ট কোম্পানি নামে পরিচিত । তাদের প্রথম অভিযান ছিল ১৯৪২ সালের প্রথম দিকে সংঘটিত হওয়া নিউ আয়ারল্যান্ডে জাপানিদের আক্রমন ও তিমুরের যুদ্ধ।নিউ আয়ারল্যান্ডের যুধ্যে অংশগ্রহণকারী ২/১ম ইন্ডিপেন্ডেন্ট কোম্পানির সকল সদস্য নিহত হয়। কিন্তু তিমুরের যুদ্ধে অংশ নেওয়া ২/২য় ইন্ডিপেন্ডেন্ট কোম্পানি টিকে থাকে ও জাপানিদের বিরুদ্ধে গেরিলা কায়দায় যুদ্ধ করতে থাকে।তৎকালীন জাপানী বাহিনীর অধিনায়ক একে বোর যুদ্ধ এর সাথে তুলনা করে ও সিধান্ত নেয় এদের বিরুদ্ধে প্রতি ১ জন কমান্ডোর বিরুদ্ধে দশ জন সেনা প্রেরনের।এই অভিযানটি প্রায় এক বছর ধরে পুরো জাপানি ডিভিশন এর মনযোগ ধরে রাখে।ইন্ডিপেন্ডেন্ট কোম্পানি গুলোর নামান্তর হয় কমান্ডো স্কোয়াড্রনস। দলটি দিক্ষিন-পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চল , বিশেষত নিউ গিনিবোর্নিও তে নানা অভিযান পরিচালনা করে। ১৯৪৩ সালে ২/২য় ও ২/৮তম বাদে সকল ইউনিট ২/৬, ২/৭ ও ২/৯বম ক্যাভ্যালরি কমান্ডো রেগিমেন্ট এ স্থানান্তরিত হয়।

যুদ্ধের পরবর্তী সময়ে রাজকীয় অস্ট্রেলিয় নৌবাহিনী জল হতে স্থলে আক্রমণ ও নৌ আক্রমণ পরিচালনার জন্য নৌ-কমান্ডো গঠন করে। এরা আরএএন কমান্ডোস নামে পরিচিত ছিল। ব্রিটিশদের মত এটি 'এ','বি','সি' ও 'ডি' এই চারটি দলে বিভক্ত ছিল।

অস্ট্রেলিয়ান সার্ভিস রেকোনসেন্স ডিভিশন দ্বারা গঠিত অস্ট্রেলিয়ান-ব্রিটিশ-নিউজিল্যান্ড সামরিক গোয়েন্দা কমান্ডো ইউনিট জেড ফোর্স দক্ষিণ পশ্চিম প্রশান্ত মহাসাগরীয় থিয়েটারে বেশ কয়েকটি অভিযান এবং রেকি করেছিল, বিশেষত অপারেশন জাইউইক, যাতে তারা একাধিক জাপানি যুদ্ধযাহাজ ও রসদ ধ্বংস করেছিল সিঙ্গাপুর বন্দরে। অপারেশন রিমাউয়ের সাথে পূর্বের সাফল্যের প্রতিরূপ করার চেষ্টা বিফলে যায়, যার ফলে জড়িত প্রায় সকলেরই মৃত্যু হয়েছিল। তবে জেড ফোর্স এবং অন্যান্য এসআরডি ইউনিট যুদ্ধ শেষ হওয়া অবধি অভিযান অব্যাহত রেখেছিল।

নিউজিল্যান্ড[সম্পাদনা]

১৯৪২ সালে নিউ জিল্যান্ড ফিজিতে সাউদারন ইন্ডিপেন্ডেন্ট কোম্পানি গঠন করে। এ দলটির প্রাথমিক কাজ ছিল কোনও সময় জাপানী বাহিনী কৌশলগতভাবে গুরুত্বপূর্ণ ফিজি দ্বীপগুলি দখলের চেষ্টা করলে তাদের বিরুদ্ধে গেরিলা যুদ্ধ করা।এটি ২০০ ফিজির আদিবাসী ও ৪৪ জন নিউ জিল্যান্ডার নিয়ে গঠিত হয়।এদের প্রশিক্ষণে জঙ্গলে যুদ্ধের উপর গুরুত্ব দেওয়া হয়েছিল এবং মার্কিন ঘাঁটিগুলিতে প্রচুর সফল মহড়া অভিযান চালানো হয়েছিল যারা তাদের গোলাবারুদ ডাম্পগুলিতে রাখা ডামি টাইম বোমা বা তাদের রক্ষীদের সরঞ্জামের উপর টানা চক ক্রসগুলি সন্ধান করতে জেগেছিল। যখন স্পষ্ট হয়ে উঠল যে ফিজির উপর জাপানি আক্রমণ আর সম্ভাবনা নেই তখন কমান্ডোটি গুয়াদালকানাল এবং নিউ জর্জিয়ার আশেপাশের মার্কিন বাহিনীর জন্য স্কাউটিংয়ের কাজ করার জন্য মোতায়েন করা হয়েছিল। সলমনস এবং টঙ্গার মতো প্রশান্ত দ্বীপপুঞ্জের পুরুষদের অন্তর্ভুক্ত করার জন্য নিয়োগ আরও প্রসারিত করা হয়েছিল এবং মাঝে মধ্যে ব্রিটিশ বা আমেরিকান কর্মীরা প্রশিক্ষণে অংশ নিয়েছিলেন বা মিশনে কমান্ডোদের সাথে ছিলেন। অনেক সফল অপারেশন এবং ব্যস্ততার পরে, বর্ধিত জঙ্গলের জীবনযাপনের কঠোর পরিস্থিতি তাদের ক্ষতিগ্রস্থ করে তুলেছিল এবং অনেক পুরুষ অসুস্থ হয়ে পড়তে শুরু করেছিলেন। ফলস্বরূপ, কমান্ডোটি আরও পরিষেবাতে অযোগ্য ঘোষণা না করা পর্যন্ত শক্তি হ্রাস করা হয়েছিল এবং 1944 সালের মে মাসে তা ভেঙে দেওয়া হয়েছিল। এ দলটি প্রশান্ত মহাসাগরে জাপানিদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করেছিল। সোলোমোন দ্বীপপুঞ্জের যুদ্ধ এদের সাহসিকতার জন্য এরা বিখ্যাত।উর্ধতন মার্কিন কর্মকর্তারা দলটির বেশ প্রসংসা করে।[১৩] লং রেঞ্জ ডেজার্ট গ্রুপ-এর উল্লেখযোগ্য সংখ্যক সদস্য ছিল নিউ জিল্যান্ড এর অধিবাসী। যারা উত্তর আফ্রিকার অভিযান গুলতে চোরাগোপ্তা হামলা ও রেকি করার কাজ করত।

কানাডা[সম্পাদনা]

আমেরিকানদের সাথে কানাডা একটি যৌথ কমান্ডো ইউনিট গঠন করে যার নাম 1st Special Service Force, এর ডাকনাম ছিল Devil's Brigade।এটি ১৯৪২ সালে কর্নেল রবার্ট ফ্রেড্রিখ এর অধীনে গঠিত হয়। এটির প্রথম অভিযান ১৯৪৩ সালের অগাস্ট মাসে প্রশান্ত মহাসাগরের কিস্কা দ্বীপ ও আলেউটিয়ান দ্বীপপুঞ্জ-এ জাপানিদের বিরুদ্ধে অভিযান, পরে এরা দক্ষিণ ফ্রান্স ও ইতালিতে বেশি কার্যকর ছিল। মন্টে লা ডিফেন্সার যুদ্ধ ছিল সবচেয়ে বিখ্যাত অভিযান, যা ডেভিলস ব্রিগেড সিনেমায় দেখানো হয়েছিল। ১৯৪৫ সালে এ দল্টি ভেঙ্গে দেওয়া হয়। দলটির কানাডীয় সদস্যদের ১ম কানাডীয় প্যারাসুট ব্যাটালিয়ন ও মার্কিন সদস্যদের ১০১তম এয়ারবর্ন ডিভিশন অথবা ৮২তম এয়ারবর্ন ডিভিশনে স্থানন্তর করা হয়।

গ্রীস[সম্পাদনা]

গ্রীকঃΙερός Λόχος(পবিত্র দল) ছিল মধ্যপ্রাচ্যে প্রতিষ্ঠিত সম্পূর্ণ গ্রীকদের নিয়ে ১৯৪২ সালে গঠিত বিশেষ বাহিনী।কর্নেল ক্রিস্টোডোলস সিগান্তেস এর অধীনে গ্রীক অফিসার ও ক্যাডেটদের নিয়ে এ বাহিনী গঠিত। এরা লিবিয়ায় স্পেশাল এয়ার সার্ভিস এর সাথে ,এজিয়ান সাগরে স্পেশাল বোট সার্ভিস এর সাথে এবং জেনারাল লেকার্ক এর অধীনে ফরাসী মুক্তিবাহিনী তিউনিসিয়ায় বিভিন্ন যৌথ অভিযান পরিচালনা করে। ১৯৪৫ সালের অগাস্ট এ দলটিকে ভেঙে দেওয়া হয়।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র[সম্পাদনা]

মার্কিন মেরিন বাহিনী ১৯৪১ সালে একটি কমান্ডো বাহিনী গঠন করে।এটি মেরিন রেইডারস নামে পরিচিত ছিল।তৎকালীন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ফ্রাঙ্কলিন ডি. রুজভেল্ট এর নির্দেশে ও তৎকালীন ওএসএস এর পরিচালক উইলিয়াম জে ডোনভান এবং তৎকালীন মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মেরিন ডিটচমেন্টের প্রাক্তন কমান্ডার মেজর ইভান্স এফ কার্লসন এর অনুরোধ এর প্রেক্ষিতে এ বাহিনী গঠিত হয়।প্রথমদিকে এই ইউনিটটিকে মেরিন কমান্ডোস বলা হত এবং ব্রিটিশ কমান্ডোদের সাথে তুলনীয় ছিল। এ বাহিনির গঠনের ব্যাপারে মেরিন বাহিনীর ভিতর অনেকের অসন্তস ছিল, এর মধ্যে উল্লেখযোগ্য তৎকালীন মেরিন বাহিনীর অধিনায়ক টমাস জে হলকম্ব এর উক্তি "মেরিন শব্দটি যে কোনও সময় দায়িত্বের জন্য প্রস্তুত একজন ব্যক্তিকে নির্দেশ করতে যথেষ্ট এবং কমান্ডো হিসাবে একটি বিশেষ নামের ইনজেকশনটি অনাকাঙ্ক্ষিত এবং অতিরিক্ত।" রাষ্ট্রপতি রুজভেল্টের ছেলে জেমস রুজভেল্ট মেরিন রেইডারদের সাথে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।এই "মেরিন রেইডারস" বাহিনীর প্রথম উপস্থিতি দেখা যায় তুলাগীর যুদ্ধ এবং মাকিনের যুদ্ধে। এছাড়া গুয়াদালকানালের যুদ্ধ, সম্রাজ্ঞী অগাস্টা উপসাগর এর যুদ্ধ এবং প্রশান্ত মহাসাগরীয় অঞ্চলের অন্যান্য অংশগুলিতে অভিযান গুলিতে অংশ নেয়। ব্রিটিশ কমান্ডোদের অনুরূপে এ বাহিনী গঠিত হয়।১৯৪৪ সালের ফেব্রুয়ারি মাসে মেরিন রেইডারস এর চারটি ব্যাটালিয়নকে মেরিন বাহিনীর নিয়মিত ইউনিট এ রূপান্তর করা হয়। এছাড়া মেরিন বাহিনীর "প্যারামারিনস" বাহিনী কমান্ডো বাহিনী হিসেবে স্বীকৃতি লাভ করেছিল।[১৪] এটিকেও মেরিন বাহিনীর নিয়মিত ইউনিট এ রূপান্তর করা হয়।

১৯৪২ এর মাঝে মার্কিন সেনাবাহিনী উইলিয়াম ও ডার্বি এর নেতৃত্বে উত্তর আয়ারল্যান্ডে "আর্মি রেঞ্জার্স" গঠন করে।১৯৪২ সালের অগাস্টে ফ্রান্সের ডিয়েপে আক্রমণ এ বাহিনীর প্রথম অভিযান ,যাতে ১ম রেঞ্জার ব্যাটালিয়নের ৫০ জন সদস্য কানাডীয় নিয়মিত বাহিনী ও ব্রিটিশ কমান্ডোদের সাথে যৌথ ভাবে অংশগ্রহণ করে।এছাড়া এ বাহিনীর প্রথম একক অভিযান হল ১৯৪২ এর নভেম্বর মাসে উত্তর-পশ্চিম আফ্রিকায় "অপারেশন টর্চ" এর অংশ হিসেবে আলজিয়ার্সে আক্রমণ, যাতে অংশ নেয় ১ম রেঞ্জার ব্যাটালিয়ন।[১৫]

পোল্যান্ড[সম্পাদনা]

গ্রেট ব্রিটেন এর সহায়তায় পোল্যান্ড এর মুক্তিবাহিনী Cichociemni গঠন করে পোল্যান্ডের অভ্যন্তরে অভিযান পরিচালনার জন্যে।

১৯৪৫ এর পরবর্তী সময়[সম্পাদনা]

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পরে "কমান্ডো" এর কাজ সম্পর্কে প্রচুর প্রচার রয়েছে; অনেক বেসামরিক লোকেরা এই বিবরণগুলি পড়েন, প্রসঙ্গে একটি অর্থ অনুমান করে ভুল করে ভেবেছিলেন যে সিঙ্গুলার "কমান্ডো" বলতে একজন মানুষ বোঝায় এবং সে ব্যবহারটি সাধারণত হয়ে যায়।

জনপ্রিয় সংষ্কৃতিতে কমান্ডো[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Encyclopædia Britannica (14th ed.), Vol. 6, p. 106
  2. "The Word 'Commando'", Dobbie, Elliott V. K., American Speech, 19 2 Apr. 1944, 81-90, https://www.jstor.org/stable/487007
  3. "Commado"Oxford English Dictionary (online সংস্করণ)। 
  4. "Commandeer – Definition and More from the Free Merriam-Webster Dictionary"। Mw4.merriam-webster.com। 2012-03-03 তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ 2012-04- 19  line feed character in |সংগ্রহের-তারিখ= at position 9 (সাহায্য); এখানে তারিখের মান পরীক্ষা করুন: |সংগ্রহের-তারিখ= (সাহায্য)
  5. McNab P.50
  6. Commando Country, Stuart Allan, National Museums Scotland 2007, আইএসবিএন ৯৭৮-১-৯০৫২৬৭-১৪-৯
  7. Raids in the Late War and their Lessons, R. Laycock, Journal of the Royal United Service Institution November 1947 pp 534-535
  8. Spetsnaz:Russia's Special Forces by Mark Galeotti
  9. Heroes of the Soviet Union 1941-45 by Henry Sakaida
  10. "World War II | Royal Naval Commandos in World War II"। TheHistoryNet। ২০০৬-০৬-১২। সংগ্রহের তারিখ ২০১২-০৪-১৯ 
  11. Neillands, Robin। The Raiders — the Army Commandos 1940-46। Weidenfeld & Nicolson। আইএসবিএন 978-0-297-79426-4 
  12. "সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি"। সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ অক্টোবর ৪, ২০১৯ 
  13. Colin R. Larsen। "Pacific Commandos: New Zealanders and Fijians in Action. A history of Southern Independent Commando and First Commando Fiji Guerrillas"। NZETC। 
  14. Thompson, Leroy (১১ ফেব্রুয়ারি ২০০১)। America's Commandos: U.S. Special Operations Forces of World War II and Korea। Frontline Books। আইএসবিএন 9781853674587। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মে ২০১৭ – Google Books-এর মাধ্যমে। 
  15. Thomson, W.R., "Massacre at Dieppe," History of the Second World War, BPC Publishing, LTD, London, GB, 2nd ed., 1972.
  16. "Commando: War Comic For Action and Adventure"Commando Comics। সংগ্রহের তারিখ ২ মে ২০১৮ 
  17. "Tiny Commando home page"yahoo.com। ২৩ আগস্ট ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ মে ২০১৭