এস এম নজরুল ইসলাম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
এস এম নজরুল ইসলাম
বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়-এর উপাচার্য
কাজের মেয়াদ
১৩ সেপ্টেম্বর ২০০৪ – ৩০ আগসট ২০১০
পূর্বসূরীএ এম এম সফিউল্লাহ
উত্তরসূরীখালেদা একরাম
ব্যক্তিগত বিবরণ
জাতীয়তাবাংলাদেশী
শিক্ষাপিএইচডি (ম্যাকানিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং)
প্রাক্তন শিক্ষার্থীবাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়
উইন্ডসর বিশ্ববিদ্যালয়
পেশাবিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক ও অধ্যাপক

অধ্যাপক ড. এস এম নজরুল ইসলাম একজন বাংলাদেশী শিক্ষাবিদ। [১] তিনি বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) -এর একাদশ উপাচার্য হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছেন।

জীবনী[সম্পাদনা]

শিক্ষা[সম্পাদনা]

নজরুল ইসলাম ১৯৬৯ সালে পূর্ব পাকিস্তান প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতকোত্তর অর্জন করেন। এরপরে তিনি মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে প্রভাষক হিসাবে যোগদান করেন এবং পরে তিনি বুয়েট থেকে স্নাতকোত্তর শেষ করেন। তিনি উইন্ডসর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। [২]

শিক্ষকতা[সম্পাদনা]

ইসলাম নাইজেরিয়ার মাইদুগুড়ি বিশ্ববিদ্যালয়ের ইঞ্জিনিয়ারিংয়ের ডিন এবং লিবিয়ার আল ফতেহ বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ছিলেন। তিনি বুয়েটে মেকানিকাল ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের প্রধান ও ডিন ছিলেন। এছাড়াও তিনি ছাত্র কল্যাণ অধিদফতরের পরিচালক (ডিএসডাব্লু) এবং এনার্জি স্টাডিজ কেন্দ্র হিসাবে দায়িত্ব পালন করেছিলেন।

নজরুল ইসলাম ইনস্টিটিউট অফ ইঞ্জিনিয়ার্স বাংলাদেশের (আইইবি) সভাপতি ছিলেন। [৩] তিনি হিসেবে উপাচার্য হিসেবে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৯৯০ সালের শেষ দিকে [৪] এবং বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে ২০১০ থেকে ২০১৪ পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করেন।

বিতর্ক[সম্পাদনা]

২০১০ সালের ৩০ আগস্ট বুয়েটের ভাইস-চ্যান্সেলর পদে দায়িত্ব গ্রহণের পরে ইসলাম বিতর্ক সৃষ্টি করেছিল। তিনি অতিরিক্ত দায়িত্বে নিবন্ধকের দায়িত্বে থাকা বিধিবদ্ধ উপ-নিবন্ধক কামাল আহমেদকে দায়িত্ব অর্পণ করেছিলেন। [৫] ২০১২ সালের এপ্রিলে বুয়েট শিক্ষক সমিতি নজরুল ইসলাম ও প্রো-উপাচার্য এম হাবিবুর রহমানের বিরুদ্ধে ১৬ টি অভিযোগ আনে আন্দোলন শুরু করে। [৬] সমিতির পক্ষ থেকে অভিযোগ করা হয়েছে যে প্রো-ভিসি পদে রহমানের নিয়োগের বিষয়টি কেবল তার রাজনৈতিক সহযোগিতার ভিত্তিতে ছিল। [৭] ২০১২ সালের ৩ সেপ্টেম্বর বুয়েটের শিক্ষার্থীরা তাদের পদত্যাগের দাবিতে ক্যাম্পাসে নজরুল ইসলাম ও হাবিবুর রহমানের কুশপুত্তলিকা পোড়ায়। [৮] ১০ সেপ্টেম্বর হাবিবুর রহমানের অধীনে প্রো-ভিসি পদটি চ্যান্সেলর এবং বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমান দ্বারা সরানো হয়। [৯]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Prof. Dr. Nazrul Islam takes over the charges as new BUET VC"। buet.ac.bd। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৩, ২০১৬ 
  2. "Prof Nazrul new Buet VC"The Daily Star। আগস্ট ৩০, ২০১০। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৩, ২০১৬ 
  3. "Faculty & It's People"। buet.ac.bd। অক্টোবর ২০, ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৩, ২০১৬ 
  4. Nizamuddin Ahmed (জুলাই ১৫, ২০১২)। "Inconsistency, thy name is BUET"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৪, ২০১৬ 
  5. Tawfique Ali (মার্চ ১৬, ২০১১)। "Uproar over appointment"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৪, ২০১৬ 
  6. "Teachers seek govt intervention"The Daily Star। আগস্ট ৩০, ২০১২। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৪, ২০১৬ 
  7. Palash Rahman (এপ্রিল ১৮, ২০১২)। "Buet students bear the brunt"The Daily Star। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৪, ২০১৬ 
  8. "BUET students burnt effigies of the VC and Pro-VC"The Daily Star। সেপ্টেম্বর ৩, ২০১২। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৪, ২০১৬ 
  9. "Buet pro-VC finally removed"The Daily Star। সেপ্টেম্বর ১০, ২০১২। সংগ্রহের তারিখ জুলাই ৪, ২০১৬