এলে মিলস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
এলে মিলস
Elle Mills 2018.png
ব্যক্তিগত তথ্য
জন্ম (1998-07-17) ১৭ জুলাই ১৯৯৮ (বয়স ২৩)
জাতীয়তাকানাডীয়
দাম্পত্য সঙ্গীমিচ আজেভেদো
ইউটিউব তথ্য
চ্যানেল
ধারাকমেডি, ভ্লগ
নেটওয়ার্কফুলস্ক্রিন
YouTube Silver Play Button 2.svg ১,০০,০০০ সদস্য ২০১৭
YouTube Gold Play Button 2.svg ১০,০০,০০০ সদস্য ২০১৮

এলে মিলস (জন্ম ১৭ জুলাই ১৯৯৮)[১] হলেন একজন কানাডীয় ইউটিউব ভ্লগার। তিনি ২০১৮ সালে দশম শর্টি অ্যাওয়ার্ডে ব্রেকআউট ইউটিউবার বিভাগে পুরস্কার জিতেছিলেন।[২] তার ভিডিওগুলোকে চলচ্চিত্রনির্মাতা জন হিউজেসের চলচ্চিত্রের সাথে তুলনা করা হয়।[৩][৪]

জীবনী[সম্পাদনা]

মিলস জন্মেছেন ফিলিপাইনে এবং বেড়ে উঠেছেন কানাডায়[৫] ৮ বছর বয়স থেকে তিনি হোম ভিডিও বানানো শুরু করেন।[৬] হাইস্কুলে থাকাকালে তিনি গ্রেস হেলবিগ ও ক্যাসে নেইস্টাটের ভিডিও দেখে ইউটিউবার হতে উৎসাহিত হন।[৭] ২০১৭ সালের জুনে তিনি ফুলস্ক্রিনের সাথে চুক্তিবদ্ধ হন।[৮] ২০১৮ সালে তিনি ও ফুলস্ক্রিন ২০১৮ সালের বসন্তে প্রথম টুর করেন।[৫] ২০১৭ সালের শেষে তার সাবস্ক্রাইবার দাঁড়ায় ৯,১৫,০০০।[২] ২০১৮ সালের ফেব্রুয়ারিতে তার সাবস্ক্রাইবার দশ লাখ অতিক্রম করে।[৯] ২০১৮ সালের মে মাস্র তিনি ইউটিউবে সাময়িক বিরতির ঘোষণা দেন এবং এক মাস পর ফিরে আসেন।[১০][১১] ২০১৮ সালের ডিসেম্বরে তিনি ইউনাইটেড ট্যালেন্ট এজেন্সির সাথে চুক্তিবদ্ধ হন।[৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Elle Mills (@millselle)"Twitter (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-২৮ 
  2. "Elle Mills"The Shorty Awards। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-২৮ 
  3. Ohlheiser, Abby (২০১৮-১০-২৩)। "Elle Mills is the celebrity every YouTuber wants to be. But her fame came at a price."The Washington Post (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-২৮ 
  4. "'It's addicting': Elle Mills on YouTube and the pressure to get views"CBC Radio (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-১০-০২। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-২৮ 
  5. Spangler, Todd (২০১৮-০৩-১৫)। "YouTube Rising Star Elle Mills Sets First Live Tour With Fullscreen"Variety (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-২৮ 
  6. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; hr নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  7. Lanning, Carly (২০১৮-০৩-২৭)। "The cinematic storytelling of Elle Mills' vlogs"The Daily Dot (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-২৮ 
  8. Lorenz, Taylor (২০১৮-০২-০১)। "The Teen Taking Back Practical Jokes From YouTube's Bros"The Daily Beast (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-২৮ 
  9. Gutelle, Sam (২০১৮-০৫-২১)। "In New Video, Elle Mills Talks Mental Health, A Break From Social Media, And Being "Burnt Out At 19""Tubefilter (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-২৮ 
  10. "YouTube sensation Elle Mills opens up about suffering a breakdown due to pressure"Women in the World (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-১০-২৫। ২০১৮-১২-২৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-২৮ 
  11. Sydell, Laura (২০১৮-০৮-১৩)। "The Relentless Pace Of Satisfying Fans Is Burning Out Some YouTube Stars"NPR (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৮-১২-২৮