উলাগাম সুটরুম ভালিভান

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
উলাগাম সুটরুম ভালিভান
উলাগাম সুটরুম ভালিভান চলচ্চিত্রের পোস্টার.jpeg
চলচ্চিত্র পোস্টার
পরিচালকএমজিআর
প্রযোজকএমজি রামচন্দ্রন
আরএম বীরাপ্পান
রচয়িতাসোর্নাম
কাহিনীকারআরএম বীরাপ্পান
এস কে টি স্বামী
ভি লক্ষণ
শ্রেষ্ঠাংশেএমজিআর
নাগেশ
লতা
সুরকারএম এস বিশ্বনাথান
চিত্রগ্রাহকভি রামমূর্তি
সম্পাদকএম উমানাথ
প্রযোজনা
কোম্পানি
ইমগইয়ার পিকচার্স লিমিটেড
পরিবেশকইমগইয়ার পিকচার্স লিমিটেড
মুক্তি
  • ১১ মে ১৯৭৩ (1973-05-11)
দৈর্ঘ্য১৭৮ মিনিট
দেশভারত
ভাষাতামিল
আয়৪.৫৫ কোটি (US$০.৬৩ মিলিয়ন)

উলাগাম সুটরুম ভালিভান (তামিল: உலகம் சுற்றும் வாலிபன்; বাংলা: বিশ্বজয়ী তরুণ) হচ্ছে ১৯৭৩ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত একটি তামিল চলচ্চিত্র। এটি ছিলো একটি বিজ্ঞান-কল্পকাহিনী ভিত্তিক চলচ্চিত্র[১], চলচ্চিত্রটির পরিচালক ছিলেন তামিল চলচ্চিত্রের গুরু এমজিআর যিনি প্রযোজনাও করেছিলেন, তার সঙ্গে সহ-প্রযোজক ছিলেন আরএম বীরাপ্পান।[২] চলচ্চিত্রটিতে মুখ্য ভূমিকায় অভিনয় করেছিলেন এমজিআর নিজেই এবং নায়িকা হিসেবে ছিলেন লতা যিনি তামিল চলচ্চিত্র জগতে একেবারেই নতুন পদচারণা রেখেছিলেন (এটিই ছিলো লতা অভিনীত প্রথম চলচ্চিত্র), এছাড়াও ছিলেন নাগেশ, মঞ্জুলা, এমএন নম্বিয়ার এবং থাই অভিনেত্রী মেত্তা রুংরাত। চলচ্চিত্রটির আবহ সঙ্গীত এবং গানগুলোর সুরারোপ করেছিলেন সেই সময়কার খ্যাতিমান তামিল সঙ্গীতকার এম এস বিশ্বনাথান

মঞ্জুলার চরিত্রে প্রথমে জয়ললিতা জয়রামকে নেওয়ার কথা ভাবা হলেও পরে মঞ্জুলাই চূড়ান্ত হন।[৩]

কাহিনী[সম্পাদনা]

মুরুগান (এমজিআর) একজন ভারতীয় বিজ্ঞানী যিনি বজ্রপাত হতে না চালিত শক্তির একটি অংশ কীভাবে সংরক্ষণ করবেন তা সম্প্রতি আবিষ্কার করেছেন। তিনি হংকংয়ের বিজ্ঞানীদের সম্মেলনে এ কথা জানিয়েছেন। পরবর্তীকালে তিনি ঘোষণা করেছিলেন যে তিনি তৃতীয় বিশ্বযুদ্ধের দ্বারপ্রান্তে যেহেতু তাঁর আবিষ্কার প্রকাশ করবেন না এবং তাঁর গবেষণাটি ধ্বংসাত্মক উদ্দেশ্যে ব্যবহার করা যেতে পারে।

বিজ্ঞানী বৈরাভান (এস. এ. আসকান) দাবি করেছেন যে মুরুগান মিথ্যা দাবি করছেন যে তাঁর গবেষণা সফল। মুরুগান এইভাবে একটি বিক্ষোভ পরিচালনা করেন এবং অত্যাবশ্যক গবেষণা নোটগুলি নষ্ট করে দেয় যা অন্যান্য বিজ্ঞানীদের মন খারাপ করে দেয়। বৈরাওয়ান তাকে বিদেশের কাছে গবেষণা বিক্রি করতে প্ররোচিত করার জন্য ১০০ মিলিয়ন ডলার অফার করে, যা মুরুগান অস্বীকার করেন।

তারপরে মুরুগান তার বান্ধবী, বিমালা (মঞ্জুলা) এর সাথে বিশ্ব ভ্রমণে রওনা হন। তিনি বিমালাকে প্রকাশ করেছেন যে তিনি গবেষণা নোট ধ্বংস করার মতো ভান করেছিলেন এবং সেগুলি তিনি কোনও নিরাপদ স্থানে রেখেছেন। প্রকৃতপক্ষে সেগুলি আরও ব্যবহারের পরিকল্পনা ছিল যাতে তাঁর গবেষণাটি উত্পাদনশীল উদ্দেশ্যে ব্যবহৃত হয়। বৈরাভান, যারা তাদের অনুসরণ করে চলেছেন তারা তা শুনে থাকেন। বৈরাওয়ান গবেষণা নোট চুরি করার পরিকল্পনা করেছে। সিঙ্গাপুরে থাকাকালীন বৈরাভান মুরুগানকে একটি বিশেষ বন্দুক দিয়ে হত্যা করেছিল (তাকে হত্যা করে না)। বিমলা এই দেখে অজ্ঞান হয়ে যায়।

মুরুগান যিনি আপাতদৃষ্টিতে মানসিক ব্যাধি ভুগছেন, পরবর্তীকালে তাকে বৈরাভানের হেফাজতে নেওয়া হয়েছে।

শীঘ্রই, বিমালাকেও বৈরাওয়ান অপহরণ করেছিলেন, এই প্রত্যাশা করে যে প্রাক্তন মুরুগানকে নিরাময় করবেন, যাতে তিনি গবেষণামূলক নথির সন্ধানের বিষয়ে তথ্য পেতে পারেন।

রাজু (এমজিআর), একজন সিবিসিআইডি অফিসার এবং মুরুগানের ছোট ভাই তার ভাইয়ের সন্ধানে সিঙ্গাপুরে পৌঁছেছেন। কীভাবে সে তার ভাইকে খুঁজে পায় এবং অন্যের সাথে কী ঘটে সে গল্পের বাকী রূপ দেয়।

অভিনয়ে[সম্পাদনা]

  • এমজিআর - মুরুগান এবং রাজু (দ্বৈত চরিত্র)
  • মঞ্জুলা - মুরুগানের প্রেমিকা
  • এম জি চক্রপানি - চলচ্চিত্রটির কাহিনী বর্ণনাকারী
  • এম এন নম্বিয়ার - করাতেকা
  • এস. এ. অশোক - ভৈরব
  • লতা - লিলি, রাজুর প্রেমিকা
  • আর এস মনোহর - লিলির ভাই
  • নাগেশ - মরকেন্দান
  • চন্দ্রলেখা - রাজুর স্ত্রী

মুক্তি[সম্পাদনা]

চলচ্চিত্রটি ছিলো এমজিআরের অভিনয় করা অন্যতম সেরা চলচ্চিত্র, তামিলনাড়ু প্রদেশের মানুষ চলচ্চিত্রটিকে খুবই পছন্দ করেছিলো; চলচ্চিত্রটি তামিলনাড়ু রাজ্যের বিভিন্ন প্রেক্ষাগৃহে তিন মাসের মত চলেছিলো। চলচ্চিত্রটি মোট সাড়ে চার কোটি রূপী আয় করেছিলো। তৎকালীন মাদ্রাজ শহরের দেবী প্যারাডাইজ এবং অগাস্তিয়া চলচ্চিত্র প্রেক্ষাগৃহে চলচ্চিত্রটির টিকিট সহজে পাওয়া যেতোনা, আগেই অনেক দর্শক টিকিট বুকিং করে রেখেছিলেন, ঠিক একই রকম হয়েছিলো মাদুরাই শহরেরও বেশ কয়েকটি চলচ্চিত্র প্রেক্ষাগৃহে, মাদুরাইয়ের 'মীনাক্ষী' প্রেক্ষাগৃহে চলচ্চিত্রটি চলেছিলো ২০১৭ দিন, ট্রিচি প্যালেসে ২০৩ দিন এবং কোভাই রাজাতে ১৯৯ দিন। ৩৩টি চলচ্চিত্র প্রেক্ষাগৃহে ১০০ দিন চলেছিলো।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "TAMIL SCIENCE FICTION CINEMA AND THE CULTURAL UNCONSCIOUS: A 'VISIONARY' JUNGIAN READING OF 7AUM ARIVU (2011) AND 24 (2016)"Journal of Advanced Research in Dynamical and Control Systems। ২০১৭। ৭ জানুয়ারি ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। Elements of science fiction are, by no means, new to Tamil cinema, with films as early as Kaadu (1952), Kalai Arasi (1958) and Ulagam Sutrum Valiban (1973) utilizing science fiction tropes and premises. 
  2. Guy, Randor (৩০ এপ্রিল ২০১৬)। "Blast from the Past: Ulagam Sutrum Vaaliban (1973)"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ৩ মে ২০১৬ 
  3. https://blogs.timesofindia.indiatimes.com/chennaitalkies/jayalalithaa-her-hero-s-rival/

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]