উমাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
উমাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়
জন্ম(১৯০২-১০-১২)১২ অক্টোবর ১৯০২
ভবানীপুর, কলকাতা, পশ্চিমবঙ্গ ভারত
মৃত্যু১২ অক্টোবর ১৯৯৭(1997-10-12) (বয়স ৯৪)
কলকাতা, ভারত
পেশাঅধ্যাপনা, ওকালতি, লেখক
জাতীয়তাভারতীয়
নাগরিকত্বভারত
ধরনভ্রমণসাহিত্য
উল্লেখযোগ্য রচনাবলিমণিমহেশ, হিমালয়ের পথে পথে
উল্লেখযোগ্য পুরস্কারসাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার (১৯৭১)

উমাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় (১২ই অক্টোবর,১৯০২ - ১৯৯৭), একজন বিশিষ্ট ভারতীয় বাঙ্গালি সাহিত্যিক, যাঁর প্রধান বিচরণক্ষেত্রটি হল বাংলা সাহিত্যের অপেক্ষাকৃত উপেক্ষিত একটি ধারা, ভ্রমণ-কাহিনী। তার রচিত মণিমহেশ নামক ভ্রমণকাহিনীর জন্যে, ১৯৭১ সালে, তিনি সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার জয় করেন।

জন্ম ও প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

উমাপ্রসাদের জন্ম ইংরাজি ১৯০২ সালের ১২ই অক্টোবর (বাংলা ১৩০৯ সালের ২৬শে আশ্বিন) বিজয়াদশমীর দিন; কলকাতার ভবানীপুর অঞ্চলের রসা রোডের বিখ্যাত মুখোপাধ্যায় বাড়ির দোতলার একটি ঘরে। তার পিতা ছিলেন প্রখ্যাত শিক্ষাবিদ বাংলার বাঘ আশুতোষ মুখোপাধ্যায় এবং মাতা ছিলেন যোগমায়া দেবী। আশুতোষ এবং যোগমায়ার সাতটি সন্তানের মধ্যে তিনি ছিলেন তৃতীয়। বিজয়াদশ্মীর দিন জন্ম বলে, তার ডাকনাম ছিল বিজু। মা যোগমায়া দেবী ছিলেন অত্যন্ত সুন্দরী এবং সুরুচি সম্পন্না প্রগতিশীলা নারী, যাঁর প্রভাব অবধারিতভাবেই পড়েছিল সমস্ত সন্তানদের উপরে।[১]। শৈশবে উমাপ্রসাদ অত্যন্ত সুশ্রী দেখতে হলেও, তার শরীর স্বাস্থ্য ভালো ছিল না; ৫ বছর বয়সে টাইফয়েডে আক্রান্ত হন তিনি। শিশুকাল থেকেই লেখক ছিলেন মেধাবী, অন্তর্মুখী, পশুপ্রেমী এবং দরদী মনের মানুষ। তা৬র ছেলেবেলার বিবরণ পাওয়া যায় তার রচিত প্রবন্ধ "আমার ছেলেবেলা" তে। হাতেখড়ির পরে, বাড়ির বিশাল লাইব্রেরীতেই শুরু হয় উমাপ্রসাদের প্রথম পাঠ। তার প্রথম শিক্ষক ছিলেন প্রিয়নাথ বসু এবং মহেন্দ্রনাথ মুখোপাধ্যায়।

শিক্ষা এবং পেশা[সম্পাদনা]

সাত বছর বয়সে ভবানীপুর মিত্র ইন্স্টিটিউশনে শুরু হয় তার প্রথাগত শিক্ষাজীবন। ১৯১৯ সালে উমাপ্রসাদ এন্ট্রান্স পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন প্রথম বিভাগে দ্বিতীয় সর্বোচ্চ নাম্বার পেয়ে। এরপর ১৯২১ সালে প্রেসিডেন্সী কলেজ থেকে আই এ পরীক্ষায় প্রথম স্থান লাভ করেন। এই পরীক্ষায় বাংলা রচনায় দক্ষতার জন্যে বঙ্কিমচন্দ্র রৌপ্য পদক এবং দ্বিজেন্দ্রলাল রায় বৃত্তি ও পারিতোষিক, ভাষা ও অঙ্কে ভালো নম্বরের জন্যে ডাফ বৃত্তি, ইংরাজি ও অঙ্কের জন্যে সারদাপ্রসাদ পুরস্কার এবং পরীক্ষায় প্রথম হওয়ার জন্যে স্টিফেন বিনে পদকপ্রাপ্ত হন। এরপর ঐ কলেজ থেকেই ১৯২৩ সালে ইংরাজিতে অনার্স সহ বি এ পাশ করেন প্রথম বিভাগে প্রথম স্থান অর্জন করে। এরপরে ১৯২৫ সালে "প্রাচীন ভারতীয় ইতিহাস ও সংস্কৃতি" বিষয়ে প্রথম শ্রেণীতে দ্বিতীয় স্থান অধিকার করে এম এ পাশ করেন কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে। এরপর আইন পড়া শুরু করেন এবং ১৯২৮ সালে বি এল পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে সপ্তম স্থান অধিকার করেন।

এরপর আইন কলেজে অধ্যপনা শুরু করেন। অত্যন্ত আত্মগম্ভীর কিন্তু রসবোধে পূর্ণ লেখক্ আজীবন ছিলেন কর্তব্যনিষ্ঠায় অবিচল এবং অত্যন্ত নিয়মানুবর্তি ব্যাক্তিত্ব। তার প্রখ্যাত ছাত্রদের মধ্যে অন্যতম প্রাক্তন ভারতীয় শিক্ষামন্ত্রী প্রতাপ চন্দ্র চন্দ্র এবং সাংবাদিক অরুণ বাগচী। অধ্যাপনা ছাড়াও আইনজ্ঞ হিসেবেও বেশ কয়েকটি প্রতিষ্ঠানে কাজ করেছেন তিনি। আলিপুর কোর্ট, বিড়লা কোম্পানীর লিগ্যাল আডভাইসার, বেঙ্গল লাইব্রেরির অর্থ দপ্তরের কাউন্সিল মেম্বার, চেয়ারম্যান, লিকুইডেটার এবং কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের ম্যট্রিকুলেশন পরীক্ষার ট্যাবুলেটর হিসেবেও দীর্ঘদিন কর্মরত ছিলেন তিনি।

খেলাধুলা[সম্পাদনা]

ভ্রমণ এবং পড়াশোনার পাশাপাশি খেলাধূলা নিয়েও তার উতসাহ ছিল দেখার মত। তিনি বেঙ্গল লন টেনিস আসোশিয়েশনের সাথে যুক্ত ছিলেন এবং নিজে একজন টেনিস খেলোয়াড় ছিলেন। এছাড়াও ১৯৩২ সালে রেফারি ট্রেনিং নিয়ে পাশ করেন আই এফ এ থেকে এবং পরবর্তীকালে রেফারি আসোশিয়েশনের সদস্য ছিলেন তিনি। এছাড়াও কলকাতা বিশ্ববিদ্যালয়ের রোয়িং ক্লাবের প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন তিনি।

সাহিত্যকর্ম[সম্পাদনা]

সম্পাদনা[সম্পাদনা]

প্রকাশিত বই-এর তালিকা[সম্পাদনা]

গ্রন্থনাম প্রকাশকাল এবং প্রকাশক বিষয়
গঙ্গাবতরণ ১৩৬২, রঞ্জন পাব্লিশিং হাউস গঙ্গোত্রী ও গোমুখ
কালিন্দী খাল ১৩৬১, মিত্র ও ঘোষ গঙ্গোত্রী ও গোমুখ ছাড়িয়ে
হিমালয়ের পথে পথে ১৩৬১, মিত্র ও ঘোষ বিরোহী, লোকপাল নন্দনকানন, স্বর্গারোহিণী
সেই যে আমার নানা রঙের দিনগুলি ১৩৬১, মিত্র ও ঘোষ দেরাদুন, হরিদ্বার
আফ্রিদি মুলুকে ১৩৮৫, মিত্র ও ঘোষ পাকিস্তান, পেশোয়ার, লাহোর, রাওয়ালপিন্ডি

পুরস্কার[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Mukhopadhyay, Umaprasad। Album punasca / Umaprasad Mukhopadhyay ; edited by Anathbandhu Chattopadhyay.। কলকাতা: আনন্দ পাবলিশার্স।