উন্নয়নশীল দেশে জল সরবরাহ ও নারী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
পাত্রে পানি ভরতে নারীদের লাইন, লাবুজে শরণার্থী শিবির, কিটগুম জেলা, উগান্ডার উত্তরাঞ্চল

উন্নয়নশীল দেশগুলিতে জল সরবরাহ ও নারী একটি জটিল বিষয়, কারণ সুপেয়, পর্যাপ্ত, পরিচ্ছন্ন এবং সাশ্রয়ী জল সরবরাহের অভাব উন্নয়নশীল দেশগুলিতে বিশেষভাবে মহিলাদের উপর প্রতিকূল প্রভাব ফেলে। বেশিরভাগ দেশে, গার্হস্থ্য কাজে ব্যবহারের পানি সরবরাহের জন্য পরিবারের নারী সদস্যরাই দায়িত্বশীল থাকেন।[১] গার্হস্থ্য কাজে ব্যবহারের পানি সংগ্রহের জন্য প্রতিদিন প্রায় ছয় ঘণ্টা সময় লেগে যায়, এই দায়িত্ব অধিকাংশ সময়ই নারী ও শিশুকে ন্যস্ত করা করা হয়। এই সময়টি অপব্যবহারের ফলে শিশুদের, বিশেষ করে মেয়েদের বিদ্যালয়ে উপস্থিত হতে এবং মহিলাদের ছোট ব্যবসার সুযোগ থেকে বঞ্চিত করে।[২]

২০০০ সালে, হেগের দ্বিতীয় বিশ্ব পানি সম্মেলনে সবাই উপসংহারে পৌঁছে যে, গার্হস্থ্য জলের প্রাথমিক ব্যবহারকারী হচ্ছে নারী, তারা তাদের প্রধান খাবার তৈরি করতে পানি ব্যবহার করে এবং নারী ও শিশুরা জল সম্পর্কিত দুর্যোগগুলোতে সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিপূর্ণ।[৩] ১৯৯২ সালের পানি এবং পরিবেশ বিষয়ক আন্তর্জাতিক সম্মেলনে, পানি ও উন্নয়ন বিষয়ক ডাবলিন নীতিমালার ৪টি নীতির মধ্যে একটি হচ্ছে "নারীরা সংস্থান ব্যবস্থাপনা এবং জল সুরক্ষার ব্যবস্থায় কেন্দ্রীয় ভুমিকা পালন করে থাকে"। নারী অধিকার ও পানি প্রতিরক্ষা নিয়ে কাজ করা অনেক সংস্থা পানি বেসরকারীকরণকে উদ্বেগজনক হিসাবে উল্লেখ করেছে কারণ এটি কখনও কখনও নেতিবাচক প্রভাব ফেলে যাতে বিশেষভাবে নারীরা ক্ষতিগ্রস্থ হন।[৪][৫]

নারীদের অন্তর্ভুক্তি এবং পানি সরবরাহের কার্যকারিতা[সম্পাদনা]

ভারতে পানি সংগ্রহের জন্য একটি দীর্ঘ দূরত্বের পথ হাঁটছেন একজন মহিলা

উন্নয়নশীল দেশগুলিতে পানি সরবরাহ প্রকল্পগুলি যখন প্রভাবিত সম্প্রদায়গুলিতে নারীর পূর্ণ অংশগ্রহণের সাথে পরিকল্পিত এবং চালিত হয় তখন এটি উচ্চতর সাফল্য দেখায়।[৬] ১৪ টি দেশের ৮৮ টি সম্প্রদায়কে নিয়ে একটি গবেষণায় দেখা গেছে যে বাইরের এজেন্সী বা স্থানীয় নেতাদের পরিবর্তে যেসব প্রকল্পগুলির মধ্যে ব্যবহারকারীদের দ্বারা নির্ধারিত পরিবারের পুরুষ এবং মহিলাদের অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে এবং যেখানে পানি প্রকল্পগুলি ব্যবহারকারীদের দ্বারা শুরু করা হয়েছিল, বাইরের এজেন্সী বা স্থানীয় নেতাদের থেকে তাদের সাফল্যের হার বেশি।[৭]

উদাহরণ[সম্পাদনা]

চিলি[সম্পাদনা]

চিলির আইন জল প্রকল্পের সাথে সম্পর্কিত জায়গাগুলিতে লিঙ্গ উপাদান অন্তর্ভুক্ত করেনা, কিন্তু উল্লেখ করে যে সকল জল প্রকল্প অবশ্যই "মানবগোষ্ঠীর জীবন ও প্রথার" উপর প্রভাব ফেলবে।[৮] ২০০০ সালে লিঙ্গ এবং জল সম্পদ চ্যালেঞ্জ সম্পর্কিত কমিশনে ডিরেক্কন জেনারেল ডি অগাস বলে যেঃ

পানির সম্পদের সাথে জড়িত সমস্ত সরকারী প্রতিষ্ঠানে পরিকল্পনা ও সিদ্ধান্ত গ্রহণের পর্যায়ে নারীর সংখ্যা খুবই কম। স্টেকহোল্ডার সমিতিগুলিতে, সিদ্ধান্ত গ্রহণের জায়গাগুলিতে তাদের খুবই কম শতাংশ উপস্থিত থাকে কারণ নারীরা এই ধরনের সংস্থায় কদাচিৎ অংশগ্রহণ করে।পানির অধিকারবিষয়ক একটি নমুনা গবেষণায় দেখা গেছে যে ১৬% অধিকার এই মহিলাদের অধিকারভুক্ত। গ্রামীণ এলাকায়, পানি ব্যবস্থাপনায় লিঙ্গ ভারসাম্য কিছুটা উন্নত, বিশেষ করে ভারতীয় অঞ্চলগুলিতে। গ্রামীণ পাড়াগুলিতে নারী সভাপতির বর্তমান গড় প্রায় ২০ শতাংশ।[৯]

উগান্ডা[সম্পাদনা]

১৯৯৫ সালের উগান্ডা প্রজাতন্ত্রের সংবিধান, আর্টিকেল ৩৩[২] অনুসারে "রাজ্যগুলি নারীদের কল্যাণ বৃদ্ধির জন্য প্রয়োজনীয় সুবিধা এবং সুযোগ সরবরাহ করবে তাদের পূর্ণ সম্ভাবনা এবং অগ্রগতি বুঝতে সক্ষম করার জন্য"।[১০] সরকারী জল আইন থেকে বাদ দেওয়া হলেও এই সরলীকৃত দায়িত্ব প্রমাণিত, কারণ জাতীয় বর্ণ নীতি, জাতীয় পানি নীতি, এবং স্থানীয় সরকার আইনের মধ্যে এই বিষয়টি উল্লেখ করা হয়েছে। জাতীয় লিঙ্গ নীতি উন্নয়ন ক্ষেত্রে লিঙ্গ ভিত্তিক ক্ষেত্রবিশেষ নীতির জন্য একটি কাঠামো গঠন করে। ন্যাশনাল ওয়াটার পলিসি, বাস্তবায়নের সব পর্যায়ে নারীদের অন্তর্ভুক্ত করার আহবান জানিয়ে বলে, "সম্প্রদায় ব্যবস্থাপনায়ের সকল দিকগুলিতে নারী ও পুরুষের সম্পূর্ণ অংশগ্রহণের সমান সুযোগ থাকা উচিত"।[৮] স্থানীয় সরকার আইন অনুযায়ী স্থানীয় কাউন্সিলগুলির ৩০% প্রতিনিধিত্ব মহিলাদের জন্য, যা বর্তমানে প্রায় ১০%।[৮]

কেনিয়া[সম্পাদনা]

কেনিয়া এর "সমন্বিত পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনায় দেশের কৌশল" এ লিঙ্গ ও জলের উৎসের বিষয়টি তুলে ধরেছে:

যেহেতু নারীরা ব্যবস্থাপনা ও পানি সংরক্ষণ সংস্থানে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে, পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনায় পর্যাপ্তরূপে জড়িত এবং লিঙ্গ বিবেচনার ভিত্তিতে বিশেষ মনোযোগ দেওয়া হবে। বিষয়টী দুটি দৃষ্টিভঙ্গি থেকে সমাধান করা হবে: পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনা উভয় লিঙ্গের অংশগ্রহণ এবং জড়িত হওয়া সহজতর করা; এবং পানি প্রাপ্যতা উভয় লিঙ্গের প্রাপ্যতা (উপকারিতা)

— পানি ব্যবস্থাপনা বিভাগ, সমন্বিত পানি সম্পদ ব্যবস্থাপনায় দেশের কৌশল, চতুর্থ অধ্যায়, সেক্টরাল বিশ্লেষণ এবং সুপারিশকৃত নীতি, দারিদ্র্য ও স্থায়ী জীবনযাত্রার মান।

উপরের উদ্ধৃতিটি সমান অংশগ্রহণ এবং কাজের শ্রম বিভাগের সাথে সাথে সুবিধাগুলি উল্লেখ করেনি বলে সমালোচকদের দ্বারা আপত্তিকর বলে প্রতীয়মান হয়েছে। তবে কেনিয়ান উইমেন ব্যুরো পরিবেশগত ব্যবস্থাপনা, দারিদ্র্য বিমোচন ও লিঙ্গ সম্পর্কিত প্রাধান্যের মাধ্যমে এই বিষয়ে জল বিভাগের সাথে সহযোগিতা শুরু করেছে।[৮]

মালাউই[সম্পাদনা]

মালাউইতে, সম্প্রদায়ের পানির উৎস পরিচালনাকারী পুরুষের একটি দল প্রায়শই কর্মক্ষেত্রের সময় অনুপস্থিত থাকার কারণে তাদের অকার্যকর বলে মনে করা হয়। পুরুষদের প্রতিস্থাপন করার জন্য শুধুমাত্র নারীদের অন্তর্ভুক্ত করে একটি ব্যবস্থাপনা দল গঠন করা হয়েছিল এবং পানি সরবরাহের উন্নতি হয়েছে বলে জানা গেছে। যাইহোক, নারীর দলটির জন্য এই কাজটির বোঝা খুব বেশি ছিল এবং সম্প্রদায়গুলি এখন কর্তব্যের ন্যায়সঙ্গত অংশ নিয়ে কাজটিকে দুই দলের মধ্যে বিভক্ত করে।[১১] মালাউইতে নারীরা উন্নত পানির উৎস রক্ষণাবেক্ষণেও উদ্যোগ নিয়েছে, বেশিরভাগ জল পাম্প কমিটি নারীদের দ্বারা গঠন হচ্ছে এবং তারা পাইপলাইনগুলি ফুটপাত হিসাবে ব্যবহার করছে, পাইপলাইনের ফুটোগুলোর বিষয়ে গ্রামের তত্ত্বাবধায়ককে জানাচ্ছে।[১২]

ব্যক্তি এবং ক্ষমতা উন্নয়ন[সম্পাদনা]

স্বতন্ত্র পর্যায়ের পানি প্রকল্প আনুপাতিক হারে কমিয়ে দেওয়ার ক্ষেত্রে, নারীরা গার্হস্থ্য পর্যায়ে কার্যকর শিক্ষক হিসাবে পাওয়া গেছে, এবং জল ও স্বাস্থ্যব্যবস্থায় ব্যক্তি সংবেদনশীল পদ্ধতিগুলিতে সাশ্রয়ী বলে প্রমাণিত হয়েছে।[১৩] নেপালের পূর্ব উন্নয়ন অঞ্চলের একটি ছোট জল ব্যবস্থাপনা প্রকল্প "কমিউনিটি ওয়াটার অ্যান্ড স্যানিটেশন প্রোগ্রাম" এ নারী নেতৃত্বাধীন দল সফলতা দেখিয়েছে, যারা ঝাপা জেলার একটি গ্রামে ২৩ টি ট্যাপ স্টান্ড পরিচালনা করেছে, এবং এর বাইরে প্রাপ্তবয়স্ক সাক্ষরতা প্রোগ্রাম এবং শৌচাগার নির্মাণেও অংশ নিয়েছে।[১৪] এল সালভাদোরে, "ওয়াটারশেডস অ্যান্ড জেন্ডার প্রজেক্ট" এ নারীদের কারিগরি কৃষি সম্পর্কে শেখানো হয়েছে, তাদের প্রশিক্ষক হিসেবে পদোন্নতি দেয়া হয়েছে, এবং পূর্বে শুধুমাত্র পুরুষদের দ্বারা দখলকৃত পদগুলিতে নারীদের অংশগ্রহণকে উৎসাহিত করেছে।[১৫]

প্রাপ্যতা[সম্পাদনা]

পানি প্রাপ্যতা সাথে সম্পর্কিত সমস্যাগুলি হল, পানির উৎস থেকে দীর্ঘ হাঁটাপথের দূরত্ব,পানির নিম্ন গুণগত মান, পর্যাপ্ত মানসম্মত পানির অভাব, পানির উচ্চ মুল্য এবং দুর্বল ব্যবস্থা পরিকল্পনা। নারীরা প্রায়ই সামঞ্জস্যহীনভাবে এই সমস্যাগুলি ভোগ করে থাকে। অসফল জল সরবরাহ প্রকল্পের কারণে ঘানার নারী ও শিশুদের ভোগান্তিতে পড়তে হয়েছে, যেখানে নারীরা অর্থ বাচাতে তাদের শিশুদেরকে নোংরা পানি পান করায়।[১৬] পূর্ব নেপালে রাস্তার পাশে ট্যাপ স্টান্ড এবং নলকূপ অবস্থিত ছিল, তার ফলে মহিলারা স্বাধীনভাবে স্নান বা কাপড় ধোয়ার সময় পুরুষদের দ্বারা দেখা হওয়া এড়ানোর জন্য দীর্ঘ দূরত্ব অতিক্রম করতে বা রাত্রি পর্যন্ত অপেক্ষা করতে হয়েছিল।[১৭]

স্বাস্থ্যগত প্রভাব[সম্পাদনা]

একটি সিসটোসোমায়োসিস আক্রান্ত ব্যক্তির হাত

স্বাস্থ্য এবং প্রাপ্যতা প্রায়শই জলের উৎসের সাথে লিঙ্গ সম্পর্কিত বিষয়গুলির সাথে সম্পৃক্ত। তানজানিয়ায়, নারী ও মেয়েদের মধ্যে মূত্রাশয়ের স্কিস্টোসোমিয়াসিস রোগের অন্যতম কারণ ছিল ক্ষতিকারক জলে কাপড় ধোয়ার স্থানীয় অভ্যাসে। টিউবওয়েল স্থাপন করার একটি প্রকল্পের অংশ হিসেবে হস্তচালিত পাম্পে কাপড় পরিষ্কার করা নিষিদ্ধ করা হয়েছিল, যার কারণে মহিলারা খোলা, দুষিত জলে কাপড় ধোয়াতে বাধ্য হয়।[১৮] দক্ষিণ আফ্রিকার আলেকজান্দ্রা ও কোয়াজুলুতে দূষিত পানির ব্যবহার হওয়ার কারণ হিসাবে কিছু পর্যবেক্ষক খেয়াল করেন যে কিছু এলাকাতে জল সরবরাহ বেসরকারীকরণের সাথে যুক্ত হওয়া যা কিনা কলেরার প্রাদুর্ভাবেরও কারণ।[৪] এছাড়া, এইচআইভি পজিটিভ পরিবারের সদস্যদের চিকিৎসার জন্য দায়িত্বশীল মহিলাদের পরিষ্কার পানি প্রয়োজন, এর অভাবে বিদ্যমান প্রভাবগুলি আরও জটিল আকার ধারণ করতে পারে।[৪]

আন্তর্জাতিক সংস্থায় পানি ও জেন্ডার বিষয়ক[সম্পাদনা]

নারী ও লিঙ্গ সমতাতে জাতিসংঘের আন্তঃসংস্থা নেটওয়ার্ক(আইএএনডাব্লিউজি) ২০০৩ সালে জেন্ডার অ্যান্ড ওয়াটার টাস্ক ফোর্স প্রতিষ্ঠা করেছিল। টাস্ক ফোর্স তখন থেকেই জাতিসংঘের পানি কর্মশালায় পরিণত হয়েছে এবং আন্তর্জাতিক জলসীমায় জীবনযাত্রার লিঙ্গ প্রতিযোগিতা দশক(২০০৫-২০১৫) এর দায়িত্ব গ্রহণ করছে।[১৯] টাস্ক ফোর্স এই বিষয়ে সংশ্লিষ্ট অতিরিক্ত অভিজ্ঞতার তথ্য আহ্বান জানিয়েছে, "বর্তমানে সংগৃহীত সংগৃহীত তথ্য বা নমুনা তথ্য লিঙ্গভিত্তিক জল এবং স্যানিটেশনে সহস্রাব্দ উন্নয়ন লক্ষ্যগুলিকে সমর্থন করার জন্য পর্যাপ্ত নয়"।[২০]

বিশ্বব্যাংকের জেন্ডার ও উন্নয়ন ডেভেলপমেন্ট গ্রুপও তার পানি সরবরাহ ও স্যানিটেশন প্রকল্পের সফল "লিঙ্গ-প্রধানধারার" প্রচেষ্টার উদ্ধৃতি দিয়ে একটি প্রাতিষ্ঠানিক পর্যায়ে এ বিষয়ে বক্তব্য রাখে।[২১]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Gender-Disaggregated Data on Water and Sanitation[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ], UN-DESA and UN-DCP, 2008.
  2. "Water and Sanitization in Developing Countries: Including Health in the Equation"[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ], Maggie A Montgomery and Menachem Elimelech, Yale University, 2007.
  3. "Women and Water", UN Division for the Advancement of Women, 2005.
  4. "Diverting the Flow: A Resource Guide to Gender, Rights and Water Privatization", Women's Environment and Development Organization.
  5. "Gender, Water, and Sanitization", UN Water Policy Brief, 2006
  6. , Van Wijk-Sijbesma, Christine, 1998.
  7. "Linking Sustainability with Demand,Gender and Poverty"[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ], International Water and Sanitation Centre, 2001
  8. "The Gender and Water Development Report 2003" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে, The Gender and Water Alliance.
  9. Direccion General de Aguas, Maria Angelica Algeria, Ingeniera Jefa Area de Evaluacion de Recursos Hidricos, Chile
  10. The Constitution of the Republic of Uganda[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ], 1995.
  11. Deda, P., Rubian, R., 2004.
  12. World Bank, 1996.
  13. "A Gender Perspective on Water Resources and Sanitation"[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ], Interagency Task Force on Gender and Water, United Nations Department of Economic and Social Affairs
  14. Mahapatra, K., 1996.
  15. Agua Project Report, 2002.
  16. "Water Privatization in Ghana: Womens Rights Under Siege"[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ], Rudolf Amenga-Etego, Coordinator, Advocacy And Campaign Programmes, Integrated Social Development Centre, Accra-Ghana.
  17. Regmi, S.C., Fawcett, B., 1999.
  18. "Untapped Connections: Gender, Water, and Poverty" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৪ মার্চ ২০১৬ তারিখে, Women's Environment and Development organization.
  19. UN Water Activities[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  20. Summary Report on Gender-Disaggregated Data on Water and Sanitation[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ], 2009
  21. "Water, Sanitation and Gender"[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]