উজ্জ্বল প্যারাবন সাপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

উজ্জ্বল প্যারাবন সাপ
Gerarda prevostiana
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ: Animalia
পর্ব: কর্ডাটা
উপপর্ব: Vertebrata
শ্রেণী: Reptilia
বর্গ: Squamata
উপবর্গ: Serpentes
পরিবার: Colubridae
উপপরিবার: Homalopsinae
গণ: Gerarda
Gray, 1849
প্রজাতি: G. prevostiana
দ্বিপদী নাম
Gerarda prevostiana
(Eydoux & Gervais, 1822)[১]
প্রতিশব্দ

উজ্জ্বল প্যারাবন সাপ বা প্যারাবন সাপ[৪] বা মনোহারী জলঢোঁরা[৫] (ইংরেজি: Gerard's water snake বা cat-eyed water snake) বৈজ্ঞানিক নাম: Gerarda prevostiana) হচ্ছে এশিয়ার স্থানীয় এক প্রজাতির জলজ সাপ। এটি জেরারডা গণের একমাত্র প্রজাতি।

বর্ণনা[সম্পাদনা]

উজ্জ্বল প্যারাবন সাপের দেহ নলাকার, ছোট, লেজ সুচালো; দেহের সর্বোচ্চ দৈর্ঘ্য ৫২.২ সেমি এবং লেজের দৈর্ঘ্য ৬.২ সেমি।[৪]

স্বভাব[সম্পাদনা]

উজ্জ্বল প্যারাবন সাপ জোয়ার ভাটার নদীতে, উপকূলীয় এলাকায় এবং ম্যানগ্রোভ অঞ্চলে বাস করে। এরা খাদ্য হিসেবে চিংড়ি মাছ এবং নরম খোলসবিশিষ্ট কাঁকড়া গ্রহণ করে। মৃদু বিষ ধারণ করে।[৪]

বিস্তৃতি[সম্পাদনা]

উজ্জ্বল প্যারাবন সাপ বাংলাদেশের দুর্লভ আবাসিক সাপ। বাংলাদেশে এই প্রজাতির তথ্য অপ্রতুল। সুন্দরবনে পাওয়া যায়। বাংলাদেশ, ভারত, শ্রীলংকা, থাইল্যান্ড ও মালয়েশিয়াসহ দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার দ্বীপে পাওয়া যায়।[৪]

অবস্থা[সম্পাদনা]

আইইউসিএন এটিকে বাংলাদেশে এবং বিশ্বে বিপদমুক্ত বলে বিবেচনা করে।[৪] বাংলাদেশের ২০১২ সালের বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনে এ প্রজাতিটি সংরক্ষিত।[৫]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Eydoux F, Gervais P. 1822. "Voyage de la Favourite. Reptiles ". Mag. Zool. Guérin, Paris 111: 1-10. (Coluber prevostianus, new species, p. 5).
  2. Boulenger GA. 1896. Catalogue of the Snakes in the British Museum (Natural History). Volume III., Containing the Colubridæ (Opisthoglyphæ and Proteroglyphæ) ... London: Trustees of the British Museum (Natural History). (Taylor and Francis, printers). xiv + 727 pp. + Plates I-XXV. (Genus Gerardia [sic], p. 20; species G. prevostiana, pp. 20-21).
  3. "Gerarda prevostiana ". The Reptile Database.
  4. জিয়া উদ্দিন আহমেদ (সম্পা.), বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষ: উভচর প্রাণী ও সরীসৃপ, খণ্ড: ২৫ (ঢাকা: বাংলাদেশ এশিয়াটিক সোসাইটি, ২০০৯), পৃ. ১৪৫।
  5. বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, জুলাই ১০, ২০১২, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার, পৃষ্ঠা-১১৮৪৪৬

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]