বিষয়বস্তুতে চলুন

উখাইদির দুর্গ

স্থানাঙ্ক: ৩২°২৬′২৬″ উত্তর ৪৩°৩৬′০৮″ পূর্ব / ৩২.৪৪০৫৬° উত্তর ৪৩.৬০২২২° পূর্ব / 32.44056; 43.60222
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
উখাইদির দুর্গ
حصن الأخيضر
কারবালা গভর্নরেট, ইরাক
ইরাকের কারবালার নিকটবর্তী উখাইদির দুর্গ
উখাইদির দুর্গ ইরাক-এ অবস্থিত
উখাইদির দুর্গ
উখাইদির দুর্গ
স্থানাঙ্ক৩২°২৬′২৬″ উত্তর ৪৩°৩৬′০৮″ পূর্ব / ৩২.৪৪০৫৫৬° উত্তর ৪৩.৬০২২২২° পূর্ব / 32.440556; 43.602222
ধরনদুর্গ
উখাইদির দুর্গের ভিতরে

উখাইদির দুর্গ ( আরবি: حصن الأخيضر ) বা উখাইদিরের আব্বাসীয় প্রাসাদ ইরাকের কারবালা থেকে প্রায় ৫০ কিমি দক্ষিণে অবস্থিত। এটি একটি অনন্য প্রতিরক্ষামূলক শৈলীসহ ৭৭৫ খ্রিস্টাব্দে নির্মিত একটি বড় আয়তাকার দুর্গ। এটি আব্বাসীয় খলিফা আস-সাফফাহর ভাগ্নে ইসা ইবনে মুসা দ্বারা নির্মিত।[১][২] উখাইদিরের আঙ্গিনা, বাসস্থান এবং মসজিদের কাঠামোতে আব্বাসীয় স্থাপত্যের উদ্ভাবনের প্রতিনিধিত্ব করে। উখাইদিরে খননকাজ ২০ শতকের গোড়ার দিকে গার্ট্রুড বেল দ্বারা পরিচালিত হয়েছিল, যিনি ধ্বংসাবশেষ নিয়ে প্রথম বড় প্রতিবেদন লিখেছিলেন।[৩] আতশান এবং মুজদাহ এর মতো আঞ্চলিক বাণিজ্য রুটে উখাইদির ছিল একটি গুরুত্বপূর্ণ।[৪] কমপ্লেক্সে একটি প্রাথমিক হল, একটি বড় ইওয়ান, একটি অভ্যর্থনা হল এবং ভৃত্যদের কোয়ার্টার রয়েছে।[৪] দুর্গটি ইরাকের আব্বাসীয় স্থাপত্যের উদাহরণ দেয় "রাজবংশের স্বৈরাচারী এবং আনন্দ-প্রেমময় চরিত্র" এর বিশাল আকারের কিন্তু সঙ্কুচিত বাসস্থানে প্রদর্শন করে।[৫]

বর্তমান নামটি বনু উখাইদিরের ইসমাইল ইবনে ইউসুফ উখাইদিরের সাথে সম্পর্কিত হতে পারে যিনি আব্বাসীয়দের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ শুরু করেছিলেন, পরে তিনি কারমাতিয়ানদের সমর্থনে কুফার গভর্নর হন।[৬]

বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকায়[সম্পাদনা]

এই স্থাপনাটি ২০০০ সালের ৭ জুলাই ইউনেস্কোর বিশ্ব ঐতিহ্যের তালিকার সাংস্কৃতিক বিভাগে যোগ করা হয়েছিল।[৪]

চিত্রশালা[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Creswell, Keppel Archibald Cameron (১৯৫৮)। A short account of early Muslim Architecture। Penguin Books। পৃষ্ঠা 201–203। 
  2. "Stepping back 1,300 years into Iraq's Ukhaidir palace - Al-Monitor: The Pulse of the Middle East" 
  3. Bell, Gertrude (১৯১৪)। Palace and Mosque at Ukhaidir: A Study in Early Mohammadan Architecture। Clarendon Press। 
  4. The Fortress of Al-Ukhaidar - UNESCO World Heritage Centre
  5. Hillenbrand (1999).
  6. Houtsma, M. Th. (১৯৯৩)। E.J. Brill's first encyclopaedia of Islam, 1913-1936। Leiden ; New York : E.J. Brill। পৃষ্ঠা 994। আইএসবিএন 9004097961 

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]