ইলিশ চত্বর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

চাঁদপুর স্টেডিয়াম, পৌর বাস স্ট্যান্ড এবং সরকারি অফিসার্স কোয়াটারের ত্রিমূখী রাস্তার মিলন স্থলে চাঁদপুরের এই ঐতিহ্যকে প্রতীকী উপস্থাপনের নিমিত্ত চাঁদপুর পৌরসভার পক্ষ থেকে একটি দৃষ্টিনন্দন ও চমৎকার ভাস্কর্য স্থাপন করা হয়েছে। যা ইলিশ চত্বর নামে পরিচিত।[১]

চাঁদপুর মূল শহরের প্রবেশ মুখে অবস্থিত এই ভাস্কর্যটি ।

চত্বর[সম্পাদনা]

ইলিশের নগরী খ্যাত চাঁদপুর জেলা সারা দেশে মিঠা পানির সুস্বাদু ইলিশের অভয়াশ্রম হিসাবে সুপরিচিত। পদ্মা, মেঘনা ও ডাকাতিয়ার মিলনস্থল ইলিশ মাছ প্রজননের সবচেয়ে বড় প্রাকৃতিক ক্ষেত্র হিসাবে প্রাচীন কাল থেকেই সুপরিচিত। এখানে রয়েছে মাৎস্য ও নদী গবেষণা কেন্দ্র। যেখানে নদী. মাৎস্য ও বিশেষ করে পুকুরে ইলিশ চাষের সম্ভাবনা নিয়ে গবেষণা করা হচ্ছে। অত্যন্তসুস্বাদু এই মাছের ব্যাপক জনপ্রিয়তার ফলে দেশে ও বিদেশে ‘‘চাঁদপুরের ইলিশ’’ একটি বিশ্বস্তব্রান্ডে পরিণত হয়েছে। দেশের চাহিদা মিটানোর পাশাপাশি প্রতি বছর হাজার হাজার টন মিঠা পানির ইলিশ বিদেশে রপ্তানীর মাধ্যমে দেশে ব্যাপক বৈদেশিক মুদ্রা আনয়নে ইলিশ বিশেষ ভূমিকা রাখছে। বিশেষ করে পাশ্ববর্তী দেশ সমূহে রয়েছে চাঁদপুরের ইলিশের বিশাল বাজার। তাই বর্ষা মৌসুমে চাঁদপুরের ইলিশ খাওয়ার জন্য এবং তাজা রূপালী ইলিশ একনজর দেখার জন্য দেশি বিদেশী পর্যটকদের ভিড় জমে। আপনিও আমন্ত্রিত। চাঁদপুর জেলার প্রাণ কেন্দ্র তালতলা এলাকায় চাঁদপুর স্টেডিয়াম, পৌর বাস স্ট্যান্ড এবং সরকারি অফিসার্স কোয়াটারের ত্রিমূখী রাস্তার মিলন স্থলে চাঁদপুরের এই ঐতিহ্যকে প্রতীকী উপস্থাপনের নিমিত্ত চাঁদপুর পৌরসভার পক্ষ থেকে একটি দৃষ্টিনন্দন ও চমৎকার ভাস্কর্য স্থাপন করা হয়েছে। যা ইলিশ চত্বর নামে পরিচিত। মূল শহরের প্রবেশ মুখে অবস্থিত এই ভাস্কর্যটি যে কোন দর্শনার্থীর চোখ জুড়াবে।

কিভাবে যাওয়া যায়:[সম্পাদনা]

চাঁদপুর জেলার বাস স্ট্যান্ড এর পাসে এবং স্টেডিয়াম সামনে অবস্থিত। শপথ চত্তর মোড় থেকে রিক্সা, অটোরিক্সা, বা নিজস্ব গাড়ি নিয়ে যাওয়া যায়। শপথ চত্তর থেকে এর দূরত্ব মাত্র ১ কিলোমিটার। [২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "চাঁদপুর জেলা" |ইউআরএল= এর মান পরীক্ষা করুন (সাহায্য)http (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-২৯ 
  2. "চাঁদপুর জেলা" |ইউআরএল= এর মান পরীক্ষা করুন (সাহায্য)http (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০২০-০৯-২৯