ইরাকে পতিতাবৃত্তি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

ইরাকে পতিতাবৃত্তি অবৈধ,[১][২] কারণ ইরাকী দণ্ডবিধি অনুযায়ী পতিতাবৃত্তি, পতিতা দালাল, পতিতা এবং ক্লায়েন্ট সবাই ফৌজদারি শাস্তির জন্য দায়ী, তাদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ডসহ শাস্তি কঠিন হতে পারে। [১]

ইরাক যুদ্ধ[সম্পাদনা]

ইরাক যুদ্ধ থেকে পালিয়ে আসা অনেক নারীকে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করা হয়। কিছু সূত্র দাবি করে সিরিয়ায় ৫০ হাজার ইরাকি শরণার্থী নারী, তাদের মধ্যে অনেকেই বিধবা বা এতিম, তাদেরকে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য হয়েছে।[৩] সূত্রের দাবি, উপসাগরীয় আরবরা নারীদের শোষণ করে।[৪] ২০০৩ সালে ইরাকে আমেরিকান আক্রমণের পর, বেসরকারি ঠিকাদারি সংস্থাগুলি বিদেশি পতিতাদেরকে ঘাঁটিতে পাচার করে এবং অন্যান্য চুক্তির জন্য গ্রিন জোনকে ঘুষ হিসাবে ব্যবহার করে।[৫][৬]

ইরাকি কুর্দিস্তান[সম্পাদনা]

ইরাকের কুর্দিস্তান অঞ্চল "পতিতাবৃত্তির জন্য ইরাকের বাকি অংশ থেকে পাচার করা নারী ও শিশু" পায় বলে জানা যায়। [৭] ইরাকি কুর্দিস্তান অঞ্চলের বাইরে থেকে ইরবিল, ডাহুক এবং সুলায়মানিয়া প্রদেশে অপরাধী চক্র মেয়েদের পতিতাবৃত্তি করতে বাধ্য করে।[৮] এনজিওগুলি অভিযোগ করে, কুর্দিস্তান আঞ্চলিক সরকারের আসাইশ অভ্যন্তরীণ নিরাপত্তা বাহিনীর কিছু কর্মী ইরাকি কুর্দিস্তানের সিরিয়ান শরণার্থী শিবিরে পতিতাবৃত্তিতে সহায়তা করে।[৯] ইরাকি নারীদের মুতা বা "অস্থায়ী বিবাহ" এবং ইরাকি কুর্দিস্তানের শরণার্থী শিবিরের সিরিয়ান মেয়েদেরকে তাড়াতাড়ি বা "অস্থায়ী বিবাহ" করতে বাধ্য করা হয় এবং কেআরজি কর্তৃপক্ষ এই ধরনের ঘটনাকে উপেক্ষা করে বলে অভিযোগ করা হয়।[৯][১০]

পতিতারা কিরকুকে পতিতাদের জয়[সম্পাদনা]

লিভিন ম্যাগাজিনের তরুণ প্রতিবেদক সোরান মামা হামা "পতিতারা কিরকুক আক্রমণ করে" শিরোনামে একটি নিবন্ধ লিখেন, যা ১৫ জুন ২০০৮ এ প্রকাশিত হয়।[১১] হামা বলেন, তার কাছে প্রমাণ আছে পুলিশ, ব্রিগেডিয়ার, অনেক লেফটেন্যান্ট, কর্নেল কিরকুকের একটি পতিতাবৃত্তির নেটওয়ার্কের সাথে জড়িত। তিনি বলেন তার কাছে অনেক পুলিশ এবং নিরাপত্তা কর্মকর্তার নাম রয়েছে।[১২][১৩][১৪] এই নেটওয়ার্কে শহরের ২০০টি পতিতালয় জড়িত, যার প্রত্যেকটিতে ২-৬ জন পতিতা আছে। [১১] কুর্দিস্তান জার্নালিস্টস সিন্ডিকেট (কেজেএস) জানায়, মামা ১৫ মে একটি অজ্ঞাত ব্যক্তির কাছ থেকে হুমকি বার্তা পেয়েছে। হামা গুলিবিদ্ধ হয়ে কিরকুকে তার বাড়ির সামনে মারা যায়। হামা যে মোবাইল ফোনটি ব্যবহার করছিল, সেখানে পিউইকে রাজনীতিকের কাছ থেকে বার্তা পাওয়া গিয়েছিল, যিনি তাকে হত্যার আগে হত্যার হুমকি দিয়েছিলেন।

অন্য ধরনের পতিতাবৃত্তি[সম্পাদনা]

কোনো কোনো ক্ষেত্রে ইরাকি কিশোর বালক ও যুবকরা পতিতা হয়। এই ক্ষেত্রে পতিতারা সাধারণত দারিদ্র্যের দ্বারা অনুপ্রাণিত হয় এবং বেশিরভাগই বিষমকামী বা বিপরীত লিঙ্গ ব্যক্তির প্রতি আসক্ত যৌন কর্মী।

যৌন পাচার[সম্পাদনা]

ইরাক নারী ও শিশুদের যৌন পাচারের শিকার একটি উৎস ও গন্তব্য দেশ। আইএসআইএসের সাথে সহিংস সংঘাত জনসাধারণের পাচারের ঝুঁকিকে বাড়িয়ে তোলে। বিশেষ করে নারী ও শিশুদের। শরণার্থী এবং আইডিপিরা তাদের অর্থনৈতিক ও সামাজিক দুর্বলতা, নিরাপত্তা ও সুরক্ষার অভাবের কারণে পাচারের উচ্চ ঝুঁকির সম্মুখীন হয়। এনজিওগুলি আইকেআরে শরণার্থী এবং আইডিপিতে পাচারের নেটওয়ার্কের প্রতিবেদন করে, যা স্থানীয় কর্মকর্তাদের সহায়তায় পরিচালিত হয়। যার মধ্যে রয়েছে বিচারক, আশাইশ বাহিনীর কর্মকর্তারা এবং সীমান্ত এজেন্টরা। ২০১৫ সালে, আইকেআর পার্লামেন্টের সদস্যরা এবং এনজিওরা আশায়িশ বাহিনীর কিছু কর্মচারী আইকেআরে সিরিয়ান শরণার্থী শিবিরে নারী ও মেয়েদের যৌন পাচার, বিশেষ করে ডোমিজ শরণার্থী শিবিরে, এবং শিবিরের বাইরে মেয়েদের যৌন পাচারের জন্য সহায়তা করেছিল বলে জানায়। ২০১৬ সালে, এনজিওগুলি রিপোর্ট করেছিল যে আশায়িশ গার্ডরা শরণার্থী মেয়েদের সাথে বাণিজ্যিক যৌন মিলনের জন্য পুরুষদেরকে কেবল একটি ক্যাম্পে প্রবেশের অনুমতি দেয়নি, কিন্তু রক্ষীরাও শরণার্থী মেয়েদের কাছ থেকে যৌনতার অনুরোধ করেছিল, তাদের যৌনতার বিনিময়ে ক্যাম্প ছাড়ার অনুমতি দেওয়া সহ। ২০১৫ সালের প্রতিবেদনে ইঙ্গিত করা হয়েছে যে আইডিপি এবং কিছু সিরিয়ান শরণার্থী নারীদের বাগদাদ, বসরাহ এবং দক্ষিণ ইরাকের অন্যান্য শহরে হোটেল এবং পতিতালয়ে একটি পাচার নেটওয়ার্কের দ্বারা পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য করা হয়েছিল যখন নেটওয়ার্কের এজেন্টরা তাদের আইকেআর থেকে পুনর্বাসনের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিল।[১৫] রিপোর্টগুলি প্রমাণ করে, ইরাকের আইন প্রয়োগকারী কিছু কর্মকর্তা যৌন পাচারের জন্য পরিচিত পতিতালয়গুলি বা যৌন পাচারের অনুমতি দেওয়ার জন্য ঘুষ গ্রহণ করেছেন বলে অভিযোগ করা হয়। মিডিয়া এবং অন্যান্য পর্যবেক্ষকরা ২০১৫ সালে রিপোর্ট করেছিল যে, ইরানের একটি যৌন পাচার নেটওয়ার্ক এরবিল -এ পতিতালয় পরিচালনা করে যেখানে ইরানি মেয়েরা বাণিজ্যিক যৌনতায় শোষিত হয়। সংবাদমাধ্যম জানায়, একজন কেআরজি কর্মকর্তা ইরানি যৌন পাচারের শিকার ব্যক্তিকে তিন হাজার ডলার দিয়েছেন বলে অভিযোগ পাওয়া যায়। জুন ২০১৬ এর একটি স্থানীয় টেলিভিশন স্টেশন থেকে প্রাথমিকভাবে ইরান ও সিরিয়া থেকে মেয়েদের পাচারের ঘটনার সাথে সুলাইমানিয়াযর আইকেআর জড়িত। এনজিওগুলি এমন ঘটনাগুলিও রিপোর্ট করে যেখানে অনার হত্যার ভয়ে পরিবার থেকে পালিয়ে আসা মেয়েরা অপরাধমূলক নেটওয়ার্ক দ্বারা বাণিজ্যিক যৌনতায় শোষিত হয়। এভাবে ইরান, চীন এবং ফিলিপাইনের নারীরা ইরাকে পতিতাবৃত্তিতে বাধ্য হয়।[১৬] মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের পররাষ্ট্র দপ্তর ব্যক্তি পর্যবেক্ষণ ও মোকাবিলায় ইরাককে 'টিয়ার ২ ওয়াচ লিস্ট' দেশ হিসাবে স্থান দিয়েছে.

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Sex Work Law - Countries"Sexuality, Poverty and Law (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জানুয়ারি ২০১৮ 
  2. "The Legal Status of Prostitution by Country"ChartsBin। ৩১ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ সেপ্টেম্বর ২০২১ 
  3. '50,000 Iraqi refugees' forced into prostitution ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৮ জুলাই ২০০৮ তারিখে. News.independent.co.uk (24 June 2007). Retrieved on 2011-06-04.
  4. Iraqi refugees forced into prostitution ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ১ নভেম্বর ২০০৮ তারিখে. Radionetherlands.nl. Retrieved on 4 June 2011.
  5. Schwellenbach, Nick; Sebert, Lagan (৩০ আগস্ট ২০১০)। "Military Subcontractors Bribing U.S. Personnel With Prostitutes? The Shady World of War Contracting in Afghanistan and Iraq"AlterNet। ১৬ জুন ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জানুয়ারি ২০১৮ 
  6. "US military contractors in Iraq 'employed prostitutes, smuggled booze'"Alaraby (ইংরেজি ভাষায়)। ৪ মে ২০১৭। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জানুয়ারি ২০১৮ 
  7. What Kind of Liberation?: Women and the Occupation of Iraq, Nadje Al-Ali,Nicola Pratt, p. 108ff
  8. "Iraq"। State.gov। ১ জুন ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১৬ 
  9. "Iraq"। State.gov। ২৭ জুলাই ২০১৫। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১৬ 
  10. "EXCLUSIVE: Report exposes rampant sexual violence in refugee cam"। Rudaw.net। সংগ্রহের তারিখ ১৮ এপ্রিল ২০১৬ 
  11. "Prostitutes conquer Kirkuk: a report written with blood"On Line Opinion। ৭ আগস্ট ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২৩ জানুয়ারি ২০১৮ 
  12. "Soran Mama Hama"। Committee to Protect Journalists। 
  13. Fatih, Nwenar; Mahmood, Shakhawan (জুলাই ২০১১)। "First martyr of pen murders to be revealed"Kirkuk Now। ১ নভেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ মার্চ ২০১২ 
  14. "Covering Iraq is deadliest job for reporters, again"CNN। ১৮ ডিসেম্বর ২০০৮। ২০ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  15. "Iraq 2018 Trafficking in Persons Report"U.S. Department of State। ২৯ জুলাই ২০১৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জুলাই ২০১৮  এই উৎস থেকে এই নিবন্ধে লেখা অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে, যা পাবলিক ডোমেইনে রয়েছে।
  16. "Iraq"2015 Trafficking in Persons Report। U.S. State Department.।