ইয়েরাওয়াড়া কেন্দ্রীয় কারাগার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
ইয়েরাওয়াড়া কেন্দ্রীয় কারাগার
Yerwada jail.JPG
ইয়েরাওয়াড়া কারাগারের প্রবেশ পথ
অবস্থানইয়েরাওয়াড়া, মহারাষ্ট্র, ভারত
Coordinates১৮°৩৩′৫২″ উত্তর ৭৩°৫৩′২৩″ পূর্ব / ১৮.৫৬৪৫৭৫° উত্তর ৭৩.৮৮৯৬৫১° পূর্ব / 18.564575; 73.889651
ধরনসচল
নিরাপত্তা শ্রেণিসর্বোচ্চ
বন্দীসংখ্যা৩৬,০০[১] (as of ২০০৫)
পরিচালকমহারাষ্ট্র সরকার, ভারত

ইয়েরাওয়াড়া কেন্দ্রীয় কারাগার মহারাষ্ট্রের পুনের ইয়েরাওয়াড়াতে অবস্থিত সর্বোচ্চ নিরাপত্তা বেষ্ঠিত একটি কারাগার। এটি মহারাষ্ট্রের সবচেয়ে বড় এবং একই সাথে দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম বড় কারাগার। ২০০৫ সালের হিসাব অনুসারে এই কারাগারে ৩৬০০ বন্দি রয়েছে। অনেক বিখ্যাত ব্যক্তি এই কারাগারে ছিলেন। ভারতের স্বাধীনতা অন্দোলনের সময় ১৯৩০ এর পর ও ১৯৪০ সালের পর মহাত্মা গান্ধীকে এই কারাগারে রাখা হয়েছিল।

বর্ণনা[সম্পাদনা]

ইয়েরাওয়াড়া কেন্দ্রীয় কারাগারের আয়তন ৫১২ একর[২] ও ৩৬,০০ জন এর উপর বন্দি নিয়ে এটি দক্ষিণ এশিয়ার অন্যতম বৃহত্তম কারাগার। এই কারাগারের প্রধান বন্দিশালা চারটি বড় দেওয়াল বেষ্ঠিত[২] ও পুলিশ ক্যাম্প এবং বিভিন্ন নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা।[১] সাধারণত উচ্চ পর্যায়ের বন্দিদের এই কারাগারে রাখা হয়। কিন্তু ২০০৩ সালের মহারাষ্ট্রের মানবাধিকার কমিশনের এক প্রতিবেদনে এই কারাগারকে ঘনবসতিপূর্ন ও জীবনযাত্রার মানের দিক থেকে নিম্ন বলে উল্লেখ করা হয়।[৩]

ইতিহাস[সম্পাদনা]

মহাত্মা গান্ধী ভারতের স্বাধীনতা আন্দোলনের সময় বেশ কয়েকবার এই কারাগারে ছিলেন। এরমধ্যে উল্লেখযোগ্য ১৯৩২ সালে ও ১৯৪২ সালে অসহযোগ অন্দোলনের সময়।[৪] তিনি সেখানে অন্য আরো আন্দোলনকারীদের সাথে ছিলেন। ১৯৩২ সালের ২৪ সেপ্টেম্বর তাকে এই কারাগারে রাখা হয়[৫] এবং ১৯৩৩ সালের মে মাসে তিনি মুক্তি পান।[৬] ১৯৯৮ সালে সামাজিক আন্দোলনকর্মী অন্না হজারেকে এই কারাগারে রাখা হয়েছিল।[৭] বলিউড চলচ্চিত্র তারকা সঞ্জয় দত্ত ২০০৭ সাল থেকে পরবর্তী দেড় বছর এই কারাগারে ছিলেন[৮] এবং ২০১৩ সালের ২২ মে তাকে পুনরায় তিন বছরের জন্য এই কারাগারে স্থানান্তর করা হয়।[৯][১০]

এছাড়া অনেক কুখ্যাত কয়েদিকে এই কারাগারে রাখা হয়েছে। তাদের মধ্যে, আব্দুল করিম তেলজি[১১], সাবেক মাফিয়া ডন অরুন গাউলি যিনি বর্তমানে এই কারাগারে একটি হত্যা মামলায় যাবজ্জজীবন সাজা ভোগ করছেন।[১২][১৩] ২৬/১১ মুম্বাইয়ের সন্ত্রাসী হামলার একমাত্র আসামী আজমল কাসাবকে ২০০৮ সাল থেকে এই কারাগারে রাখা হয়েছিল[১৪] ও ২০১২ সালের ২১ নভেম্বর তাকে এখানেই ফাঁসিতে ঝুলানো হয় এবং এখানেই কবর দেওয়া হয়।[১৫][১৬]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Nothing suspicious about it!"। The Times of India। ডিসে ২১, ২০০৫। 
  2. "Murder convict escapes from Yerawada prison"। The Times of India। আগস্ট ১৭, ২০১০। 
  3. "Panel takes up issue of Yerwada jail overcrowding"। The Times of India। ফেব্রু ১৮, ২০০৩। 
  4. "Freedom-fighters to hold August meet Yerwada jail"। The Times of India। জুলাই ৪, ২০০২। 
  5. "The Previous Fasts"The Indian Express। ১৯ জানুয়ারি ১৯৪৮। 
  6. M. V. Kamath (১৯৯৫)। Gandhi's Coolie: Life & Times of Ramkrishna Bajaj। Allied Publishers। পৃষ্ঠা 24। আইএসবিএন 8170234875 
  7. "Anna Hazare behind bars"। Down to Earth (magazine)। সেপ্টে ৩০, ১৯৯৮। 
  8. news.outlookindia.com | Sanjay Dutt prisoner no C-15170 in Yerawada Jail[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ] Outlook, Aug 03, 2007.
  9. "Sanjay Dutt whisked off to Yerawada, entered as prisoner no 16656"The Hindustantimes। মে ২২, ২০১৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৫-২৩ 
  10. "Sanjay Dutt moved to Pune's Yerawada jail"The Times of India। সংগ্রহের তারিখ ২০১৩-০৫-২৩ 
  11. "'Telgi won't live if sent to Yerwada'"। MiD DAY। ২০১১-০৮-১২। 
  12. "Yerawada jail — From Mahatma Gandhi to Ajmal Kasab"। DNA। নভে ২১, ২০১২। 
  13. "Painter, cook or… Gawli gets to choose a job in jail"। The Times of India। সেপ্টে ২, ২০১২। 
  14. "Ajmal Kasab to be shifted to Pune's Yerwada jail - Mumbai Terrorist Attacks - Zimbio"। ২৮ নভেম্বর ২০১২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১৬ ডিসেম্বর ২০১৮ 
  15. "Ajmal Kasab hanged and buried in Pune's Yerwada Jail"The Times of India। ২১ নভেম্বর ২০১২। 
  16. "Ajmal Kasab hanged"The Hindu। ২১ নভেম্বর ২০১২। ১৫ জানুয়ারি ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৯ নভেম্বর ২০১৮