আলাউদ্দিন সাবির কলয়রী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মখদুম আলাউদ্দিন আলি আহমদ সাবির কলয়রী[১]
অন্য নামমখদুম-উল-আলম, সাবির এ পাক, মখদুম, আলি আহমদ, বাবা সাবির, চেরাগ এ চিশত
ব্যক্তিগত
জন্ম৫৯২ হিজরি/১১৯৬ সাল ১৯ রবিউল আউয়াল
মৃত্যু৬৯০ হিজরি/১২৯১ সাল ১৩ রবিউল আউয়াল
ধর্মইসলাম
অন্য নামমখদুম-উল-আলম, সাবির এ পাক, মখদুম, আলি আহমদ, বাবা সাবির, চেরাগ এ চিশত
মুসলিম নেতা
ভিত্তিকপিরান কলয়র, রুর্কি, ভারত
পূর্বসূরীবাবা ফরিদ
উত্তরসূরীশামসুদ্দিন তুর্ক পানিপথী, হায়দার শাহ আত.পানিপাত
পদসুফিবাদ

মখদুম আলাউদ্দিন আলি আহমদ সাবির, তিনি সাবির কলয়রী (উর্দু:صابر کلیری) ("কলয়রের দরবেশ") নামেও পরিচিত, ত্রয়োদশ শতাব্দীতে দক্ষিণ এশিয়ার বিখ্যাত মুসলিম সুফি সাধক ছিলেন। তিনি বাবা ফরিদের (১১৭৮-১২৬৬) ভাগ্নে ও উত্তরসূরি ছিলেন[২]এবং চিশতী তরিকার প্রথম সাবিরিয়া শাখা। আজ তাঁর দরগাহ (সুফি মাজার) হরিদ্বারের নিকটবর্তী কলয়র গ্রামে।

জীবনী[সম্পাদনা]

খাজা সুলতান উল আরিফিন খাজা সৈয়দ সাবির পাক আলি আহমদ গাউসুল আজম হযরত সৈয়দ আবদুল কাদের জিলানীর নাতিপুত্র। তার পিতা হলেন গাউসুল আজম হযরত আবদুল কাদের জিলানীর বড় পুত্র সৈয়দ আবদুল ওয়াহাব জিলানীর পুত্র সৈয়দ আব্দুস সালাম আবদুর রহিম জিলানী। তার মাতা হলেন হযরত উমর ফারুক (রাদ্বিয়াল্লাহু আনহু)'র সরাসরি বংশধর এবং বাবা ফরিদ গঞ্জেশকারের বড় বোন সৈয়দা জামিলা খাতুন।

বাবা ফরিদ তাকে খাবার বিতরণের দায়িত্ব (লঙ্গর) অর্পণ করেছিলেন। তিনি এই দায়িত্বটি আনন্দের সাথে গ্রহণ করেছিলেন এবং নামাজের মধ্যে নিজেকে নিযুক্ত করেছিলেন। তিনি তাঁর দায়িত্বগুলি ভালভাবেই পালন করেছিলেন এবং বাবা ফরিদ গঞ্জশকারের বক্তৃতায় অংশ নিয়েছিলেন। তিনি খাবার (লঙ্গর) থেকে একটি অংশও খাননি, রোজা রেখে জঙ্গলে গিয়ে বুনো ফল এবং পাতা খেয়েছিলেন। তিনি ১২ বছর ধরে তাঁর দায়িত্ব পালন করেছিলেন। তিনি অবিরাম প্রার্থনা করেছিলেন এবং তাঁর সংযম কখনও ব্যাহত হয়নি। ঘন ও অবিরাম রোজা এবং পাতা ও বন্য খাবার খাওয়া তাকে দুর্বল করে তুলেছিল।

তার মা আবার ফিরে এসে তাকে দেখলে তিনি তার ভাইয়ের (বাবা ফরিদ) কাছে তার দুর্বলতার অভিযোগ করেছিলেন। বাবা ফরিদ তাকে ডেকে কারণ জিজ্ঞাসা করলেন। সাবির পাক জবাব দিলেন "আপনি আমাকে খাবার বিতরণ করার আদেশ দিয়েছেন এবং তা থেকে না খাওয়ার জন্য"। বাবা ফরিদ তাকে আনন্দে জড়িয়ে ধরলেন এবং মন্তব্য করলেন যে "তিনি সাবির (ধৈর্যশীল)"। সেদিন থেকেই তিনি সাবির নামে বিখ্যাত হয়েছিলেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Faizan e Hazrat Sabir Pak Kaliyar Sharif
  2. Sheikh Farid, by Dr. Harbhajan Singh. Hindi Pocket Books, 2002. আইএসবিএন ৮১-২১৬-০২৫৫-৬. Page 11.

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]