আবুল কালাম কাসেমি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
আবুল কালাম কাসেমি
আবুল কালাম কাসেমি.jpeg
জন্ম(১৯৫০-১২-২০)২০ ডিসেম্বর ১৯৫০
দ্বারভাঙা, বিহার, ভারত
মৃত্যু৮ জুলাই ২০২১(2021-07-08) (বয়স ৭০)
আলিগড়, উত্তরপ্রদেশ, ভারত
পুরস্কার
একাডেমিক পটভূমি
মাতৃ-শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান
একাডেমিক কর্ম
প্রধান আগ্রহউর্দু সাহিত্য ও সমালোচনা
উল্লেখযোগ্য কাজকবিতার সমালোচনা, নভেল কা ফান

আবুল কালাম কাসেমি (২০ ডিসেম্বর ১৯৫০ – ৮ জুলাই ২০২১) ছিলেন একজন ভারতীয় পণ্ডিত, সমালোচক এবং উর্দু কবি। তিনি আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের কলা অনুষদের ডিন এবং তেহজিবুল আখলাকের সম্পাদক ছিলেন। উর্দু সাহিত্যে অবদানের জন্য তিনি ২০০৯ সালে সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার এবং ২০১৩ সালে গালিব পুরস্কার পান। তিনি দারুল উলুম দেওবন্দ, জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়া এবং আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয় প্রাক্তন ছাত্র ছিলেন। ১৯৯৬ থেকে ১৯৯৯ পর্যন্ত তিনি আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়ের উর্দু বিভাগের প্রধান অধ্যাপক ছিলেন। তাকে উর্দু সাহিত্য সমালোচনার একটি প্রধান স্তম্ভ হিসেবে বিবেচনা করা হত।

জীবনী[সম্পাদনা]

আবুল কালাম কাসেমি ১৯৫০ সালের ২০ ডিসেম্বর বিহারের দ্বারভাঙায় জন্মগ্রহণ করেন।[১] তিনি মাদ্রাসা কাসেমুল উলুম হুসায়নিয়ায় প্রাথমিক এবং ১৯৬৭ সালে দারুল উলুম দেওবন্দ থেকে দাওরায়ে হাদিস (স্নাতক) সমাপ্ত করেন।[১] পাশাপাশি তিনি জামিয়া মিলিয়া ইসলামিয়ায় মাধ্যমিক এবং আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ১৯৭৩ এবং ১৯৭৫ সালে যথাক্রমে বিএ এবং এমএ ডিগ্রি অর্জন করেন।[১] তিনি আনজার শাহ কাশ্মীরির ছাত্র ছিলেন।[২]

তিনি ১৯৭৬ সালে এএমইউতে প্রভাষক নিযুক্ত হন। ১৯৮৪ সালে তিনি পাঠক নিযুক্ত হন এবং একই বছর তিনি পিএইচডি ডিগ্রি অর্জন করেন। তিনি ১৯৮০ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের উর্দু বিভাগের জন্য দুটি কোর্স বই সংকলন করেছিলেন।[১] ১৯৯৩ সালে তিনি তুলনামূলক সাহিত্যের অধ্যাপক নিযুক্ত হন। তিনি ১৯৭৫ ও ১৯৭৬ সালে আলিগড় ম্যাগাজিন সম্পাদনা করেন এবং ১৯৭৬ থেকে ১৯৮০ পর্যন্ত দ্বি-মাসিক ম্যাগাজিনআলফাজের প্রধান-সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন। ১৯৮৩ এবং ১৯৮৫ এর মধ্যে তিনি আলিগড়ের ইনকারের প্রধান সম্পাদক ছিলেন। ১৯৯৬ সালে তিনি তেহজিবুল আখলাকের সম্পাদক হন।[৩] তিনি ১৯৯৮ থেকে ২০০৩ পর্যন্ত জাতীয় উর্দু ভাষা প্রচার কাউন্সিলের কার্যনির্বাহী পরিষদের সদস্য ছিলেন।[৪] তিনি ১৬ জুন ১৯৯৬ থেকে ১৫ জুন ১৯৯৯ পর্যন্ত এএমইউর উর্দু বিভাগের প্রধান অধ্যাপক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।[৫] তিনি এএমইউর আর্টস অনুষদের ডিনের দায়িত্বও পালন করেছিলেন।[৬] সাহিত্যে অবদানের জন্য এলাহাবাদ বিশ্ববিদ্যালয়ের উর্দু সাহিত্যের অধ্যাপক মুজাওয়ির হোসেন রিজভী তাকে ‘কলমের জনক’ (আবুল কালাম) বলে ডাকতেন।[৭]

গোপী চাঁদ নারাং এবং শামসুর রহমান ফারুকীর পরে তিনি উর্দু সাহিত্য সমালোচনার একটি প্রধান স্তম্ভ হিসেবে বিবেচিত হত।[৮] তিনি ১৯৮০ সালে বিহার উর্দু একাডেমি পুরস্কার এবং ১৯৮৭ ও ১৯৯৩ সালে উত্তর প্রদেশ উর্দু একাডেমি পুরস্কার পান।[৪] ২০০৯ সালে তাকে সাহিত্য অকাদেমি পুরস্কার দেওয়া হয়। তিনি ২০১৩ সালে গালিব পুরস্কারও পেয়েছিলেন।[৯] তিনি ২০২১ সালের ৮ জুলাই আলিগড়ে মৃত্যুবরণ করেন।[৬]

সাহিত্যকর্ম[সম্পাদনা]

তিনি এডওয়ার্ড মরগ্যান ফরস্টারের এসপেক্টস অব দি নভেল কে উর্দু ভাষায় অনুবাদ করেছেন নভেল কা ফান হিসেবে। তিনি কাসরাতে তাবির, মাশরিকী শেরিয়াত আওর উর্দু তানকীদ কি রিওয়ায়াত, শায়িরি কি তানকিদ এবং তাখলিকি তাজরুবা প্রভৃতি বই রচনা করেছিলেন।[১০] ২০১০ সালের জানুয়ারিতে তার গবেষণা নিবন্ধ ছিল ১২৫ টি।[১১][১২] তার সংকলিত রচনার মধ্যে রয়েছে:

  • আজাদি কি বাদ উর্দু তানজ-ও-মিজাজ
  • মাশরিক কি বজায়ফত: মুহাম্মদ হাসান আশকারি কি হাওয়ালে সে
  • রাশিদ আহমদ সিদ্দিকী: শাখছিয়্যাত আওর আদাবী কদর-ও-কিমত
  • মির্জা গালিব: শাখছিয়্যাত আওর শায়েরি

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

উদ্ধৃতি[সম্পাদনা]

  1. সাদাফ ২০০৬, পৃ. ১৭।
  2. কাসেমি ২০১৩, পৃ. ২৩৮।
  3. সাদাফ ২০০৬, পৃ. ১৯।
  4. সাদাফ ২০০৬, পৃ. ২০।
  5. "এএমইউর উর্দু বিভাগের প্রাক্তন চেয়ারম্যান"অফিসিয়াল ওয়েবসাইট। সংগ্রহের তারিখ ৮ জুলাই ২০২১ 
  6. "বিখ্যাত উর্দু সমালোচক অধ্যাপক আবুল কালাম কাসেমি মারা গেছেন"বাছিরাত অনলাইন। ৮ জুলাই ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ৮ জুলাই ২০২১ 
  7. সাদাফ ২০০৬, পৃ. ১৯১।
  8. "সাহিত্য আকাদেমি পুরস্কার পেলেন অধ্যাপক আবুল কালাম কাসেমি"ভয়েস অব আমেরিকা উর্দু (উর্দু ভাষায়)। ৬ জানুয়ারি ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৮ জুলাই ২০২১ 
  9. "এএমইউর অধ্যাপক আবুল কালাম কাসেমির মৃত্যু"আলিগড় মুসলিম বিশ্ববিদ্যালয়। ৯ জুলাই ২০২১। সংগ্রহের তারিখ ৯ জুলাই ২০২১ 
  10. "আবুল কালাম কাসেমির বই"ওয়ার্ল্ডক্যাট। সংগ্রহের তারিখ ৮ জুলাই ২০২১ 
  11. "এএমইউতে পুরস্কার বিজয়ী অধ্যাপককে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়"উম্মিদ। ২ জানুয়ারি ২০১০। সংগ্রহের তারিখ ৮ জুলাই ২০২১ 
  12. সাদাফ ২০০৬, পৃ. ১৮।

গ্রন্থপঞ্জি[সম্পাদনা]

  • সাদাফ, মুশতাক আহমদ (২০০৬)। আবুল কালাম কাসেমি: শাখছিয়্যাত আওর আদাবি খিদমাত (উর্দু ভাষায়)। কিতাব নুমা। ওসিএলসি 72871627 
  • কাসেমি, নায়েব হাসান (২০১৩)। দারুল উলুম দেওবন্দ কা সাহাফাতি মানজারনামা (উর্দু ভাষায়)। ইদারা তেহকিকে ইসলামি। পৃষ্ঠা ২৩৭–২৪০। 

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

  • মুঈদুর রহমান (২০১৬)। নজর-ই আবুল কালাম কাসেমি (উর্দু ভাষায়)। শিক্ষাগত বই ঘর। আইএসবিএন 9789350738832