অ্যান্থনি জেমস লেগেট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অ্যান্থনি জেমস লেগেট
Nobel Laureate Sir Anthony James Leggett in 2007.jpg
স্যার অ্যান্টনি জেমস লেগেট
জন্ম
অ্যান্টনি জেমস লেগেট

(1938-03-26) ২৬ মার্চ ১৯৩৮ (বয়স ৮৪)[১]
চেম্বারওয়েল, লন্ডন, ইংল্যান্ড
নাগরিকত্বব্রিটিশ ও আমেরিকান
মাতৃশিক্ষায়তনঅক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয় (বিএ, ডি.ফিল)
পরিচিতির কারণ
দাম্পত্য সঙ্গীHaruko Kinase (বি. ১৯৭২)
পুরস্কার
বৈজ্ঞানিক কর্মজীবন
কর্মক্ষেত্রপদার্থবিজ্ঞান
প্রতিষ্ঠানসমূহ
  • সাসেক্স বিশ্ববিদ্যালয়
  • ওয়াটারলু বিশ্ববিদ্যালয়
  • ইন্সটিটিউট অব কোয়ান্টাম কম্পিউটিং
  • ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয়
ডক্টরাল উপদেষ্টাডির্ক টের হার[৩]
ডক্টরাল শিক্ষার্থী
  • আমির কলডেইরা[৪]
  • ম্যাথিউ পি এ ফিশার[৩]
  • মোহিত রান্দেরিয়া
ওয়েবসাইটservices.iqc.uwaterloo.ca/people/profile/aleggett

স্যার অ্যান্টনি জেমস লেগেট KBE FRS[২] (জন্ম: ২৬ শে মার্চ ১৯৩৮) ১৯৮৩ সাল থেকে উর্বানা-চ্যাম্পেইনে ইলিনয় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশ্ববিদ্যালয়ের পদার্থবিজ্ঞানের অধ্যাপক ছিলেন।[৫] লেগেট নিম্ন তাপমাত্রার পদার্থবিজ্ঞান বা ক্রায়োজেনিক্স তত্ত্বের বিশ্বনেতা হিসাবে ব্যাপকভাবে স্বীকৃত এবং তার এ অগ্রণী কাজের জন্য ২০০৩ সালের পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার দ্বারা সম্মানিত হন।[৬] তিনি সাধারণ এবং অতিমাত্রায় হিলিয়াম তরল এবং দৃঢ়ভাবে মিলিত সুপারফ্লুয়েডগুলির তাত্ত্বিক বোঝার আকার দিয়েছেন।[৭] কোয়ান্টাম মেকানিক্সের ভিত্তি পরীক্ষা করার জন্য তিনি ম্যাক্রোস্কোপিক ডিস্পেটিভ সিস্টেমের কোয়ানটাম ফিজিক্স এবং কনডেন্সড সিস্টেমের ব্যবহারের জন্য গবেষণার দিকনির্দেশনা রেখেছিলেন।[৮][৯]

শৈশব ও শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

লেগেট দক্ষিণ লন্ডনের কেম্বারওয়েলে জন্মগ্রহণ করেন এবং ক্যাথলিক হিসবে বেড়ে উঠেন।[১০] তার বাবার পূর্বপুরুষরা হ্যাম্পশায়ারের একটি ছোট্ট গ্রামে গ্রাম্য মুচি ছিল; লেগেটের দাদা এই ঐতিহ্যকে ভেঙে সবজিওয়ালা হয়ে উঠেন; তার বাবা কীভাবে লন্ডনের কভেন্ট গার্ডেনের বাজারে শাকসবজি বেচাকেনা করতেন তা লেগেটর কাছে বর্ণনা করতেন। তার নানা-নানি ছিলো আইরিশ বংশোদ্ভূত; তার বাবা ব্রিটেনে চলে এসেছিলেন এবং চাথামের নৌ ডকইয়ার্ডে ক্লার্কের কাজ করতেন।[১০] আশিবছর বেঁচে থাকা তার মাতামহী দিদিমাকে বারো বছর বয়সে গৃহকর্মীতে নিযুক্ত করা হয়েছিল। অবশেষে তিনি তার দাদাকে বিয়ে করেছিলেন এবং একটি বড় পরিবার গড়ে তোলেন। তারপরে ষাট বছর বয়সে তিনি কন্যা এবং জামাইয়ের সাথে যোগ দিতে অস্ট্রেলিয়ায় চলে যান এবং শেষ বছর তারা যুক্তরাজ্যে ফিরে আসেন।


তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "LEGGETT, Sir Anthony (James)"হু'স হুukwhoswho.com2015 (online অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি প্রেস সংস্করণ)। এ অ্যান্ড সি ব্ল্যাক, ব্লুম্‌সবারি পাবলিশিং পিএলসি মুদ্রিত।  (সাবস্ক্রিপশন বা ইউকে পাবলিক লাইব্রেরি সদস্যতা প্রয়োজন) (সদস্যতা প্রয়োজনীয়)
  2. "Fellows of the Royal Society"। London: Royal Society। ১৬ মার্চ ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  3. গণিত উদ্ভববিজ্ঞান প্রকল্পে অ্যান্থনি জেমস লেগেট
  4. Freire Jr., Olival; Pessoa Jr., Osvaldo; Bromberg, Joan Lisa (জানুয়ারি ২০১১)। Teoria quântica: estudos históricos e implicações culturais (portuguese ভাষায়)। Campina Grande, Brazil: SciELO – EDUEPB। পৃষ্ঠা 71। আইএসবিএন 978-8578791261 
  5. "Anthony Leggett UIUC Faculty page" 
  6. "Nobel Prize in Physics 2003." 
  7. A. J. Leggett. (১৯৭৫)। "A theoretical description of the new phases of liquid 3He"। Rev. Mod. Phys.47 (2): 331–414। ডিওআই:10.1103/RevModPhys.47.331বিবকোড:1975RvMP...47..331L 
  8. A. O. Caldeira and A. J. Leggett. (১৯৮৩)। "Quantum tunneling in a dissipative system" (PDF)Ann. Phys.149 (2): 374–456। ডিওআই:10.1016/0003-4916(83)90202-6বিবকোড:1983AnPhy.149..374C। ৮ জুলাই ২০১০ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। 
  9. "The Problems of Physics – A conversation with Tony Leggett" ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০১৯-০৯-১৫ তারিখে, Ideas Roadshow, 2013
  10. "Anthony J. Leggett – Autobiography"