অ্যাডেল অ্যাস্টেয়ার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অ্যাডেল অ্যাস্টেয়ার
Adele Astaire in 1919.jpg
১৯১৯ সালে অ্যাডেল
স্থানীয় নাম
Adele Astaire
জন্ম
অ্যাডেল মারি অস্টারলিৎজ

(1896-09-10) ১০ সেপ্টেম্বর ১৮৯৬ (বয়স ১২২)
মৃত্যু২৫ জানুয়ারি ১৯৮১(1981-01-25) (বয়স ৮৪)
স্কটসডেল, অ্যারিজোনা, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র
জাতীয়তামার্কিন
অন্য নামলেডি চার্লস ক্যাভেন্ডিস
জাতিসত্তাঅস্ট্রীয়, জার্মান
পেশানৃত্যশিল্পী, অভিনেত্রী, গায়িকা
দাম্পত্য সঙ্গীলর্ড চার্লস ক্যাভেন্ডিশ (বি. ১৯৩২; মৃ. ১৯৪৪)
কিংম্যান ডগলাস (বি. ১৯৪৭; মৃ. ১৯৭১)
সন্তান
আত্মীয়ফ্রেড অ্যাস্টেয়ার (ভাই)

অ্যাডেল, লেডি চার্লস ক্যাভেন্ডিস (ইংরেজি: Adele, Lady Charles Cavendish; জন্ম: অ্যাডেল মারি অস্টারলিৎজ; ১০ই মে ১৮৯৬ - ২৫ জানুয়ারি ১৯৮১)[১][২] ছিলেন একজন মার্কিন নৃত্যশিল্পী, মঞ্চ অভিনেত্রী ও গায়িকা। তিনি ফ্রেড অ্যাস্টেয়ারের বড় বোন। তার যখন আট বছর এবং ফ্রেডের পাঁচ বছর তখন থেকে তার একসাথে কাজ শুরু করেন এবং ২৭ বছর তার ভডেভিল ও মঞ্চে কাজ করেন।[৩]

জীবনী[সম্পাদনা]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

১৯০৬ সালে অ্যাডেল ও তার ভাই ফ্রেড

অ্যাডেল মারি অস্টারলিৎজ নেব্রাস্কার ওমাহায় জন্মগ্রহণ করেন। তাত পিতা ফ্রেডেরিক "ফ্রিৎজ" এমানুয়েল অস্টারলিৎজ (১৮৬৮-১৯২৪) ছিলেন একজন ভিয়েনার ইহুদি বংশোদ্ভূত অস্ট্রীয় রোমান ক্যাথলিক ও মদ কারাখানার মালিক এবং তার মাতা ইয়োহানা "আন" (প্রদত্ত নাম: গেইলুস) ছিলেন জার্মান বংশোদ্ভূত মার্কিন লুথেরান। তার ছোট ভাই ফ্রেড অ্যাস্টেয়ার

তাদের একজন শিক্ষক উপদেশ দেন যে তাদের যদি প্রশিক্ষণ দেওয়া যায় তবে তারা মঞ্চে কাজ করতে পারবে। ফলে তাদের পরিবার ওমাহা থেকে নিউ ইয়র্ক চলে যায়, কিন্তু তাদের পিতা তার কাজের জন্য ওমাহায় রয়ে যান। অ্যাডেল, ফ্রেড ও তাদের মা একটি বোর্ডিং হাউজে থাকতেন এবং তারা দুই ভাইবোন আলভিন মাস্টার স্কুল অব দ্য থিয়েটার এবং একাডেমি অব কালচারাল আর্টসে শিক্ষা লাভ করেন। তারা পারিবারিক বংশনাম অস্টারলিৎজ ত্যাগ করে কয়েকটি উচ্চারণের মধ্য থেকে মার্কিন উচ্চারণের "অ্যাস্টেয়ার" নামটি তার শেষ নাম হিসেবে গ্রহণ করেন।[৩]

১৯০৫ সালে অ্যাডেল তার ভাই ফ্রেডকে নিয়ে ভডেভিলে একটি সফল কাজ উপহার দেন। ১৯১৭ সালের পর তারা দুজনে ব্রডওয়েতে এবং ১৯২৩ সালে লন্ডন স্টেজে সফল কর্মজীবন শুরু করেন। তারা যখন একসাথে পরিবেশনা করতেন, তখন দুজনের মধ্যে অ্যাডেল বড় ও বেশি কারিশমাপূর্ণ তারকা ছিলেন। পিটার প্যানের সৃষ্টিকারী জে. এম. ব্যারি অ্যাডেলকে তার এই সৃষ্টিতে কাজ করার প্রস্তাব দিয়েছিলেন, কিন্তু চুক্তি বিষয়ক কারণে তিনি এই কাজটি করেননি।[৩]

নিউ ইয়র্কে ফিরে এই যুগল জেরোম কার্নের দ্য বাঞ্চ অ্যান্ড জুডি (১৯২২) এবং পরে গার্শউইন ভ্রাতৃদ্বয়ের প্রথম ব্রডওয়ে কাজ লেডি, বি গুড!ফানি ফেস-এ কাজ করেন। দুটি কাজই মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র ও লন্ডনে হিট তকমা লাভ করে।[৩]

১৯২১ সালে ভাই ফ্রেড অ্যাস্টেয়ারের সাথে অ্যাডেল

বিবাহ[সম্পাদনা]

১৯৩২ সালে ৯ মে ব্রডওয়েতে ফ্রেডের সাথে দ্য ব্যান্ড ওয়াগন (১৯৩১) রিভিউটি সফলতা লাভ করে এবং অ্যাডেলে লর্ড চার্লস আর্থার ফ্রান্সিস ক্যাভেন্ডিসকে বিয়ে করে মঞ্চ থেকে অবসরে যান। তারা আয়ারল্যান্ডে চলে যান এবং সেখানে লিসমোর দুর্গে বসবাস করতেন। তাদের তিন সন্তান জন্ম নেয়। ১৯৩৩ এক কন্যা এবং ১৯৩৫ সালে দুই যমজ পুত্র জন্মগ্রহণ করেন। সকলেই জন্মের পরপরই মারা যায়। এই বিয়ের ফলে তাকে ল্যাডি চার্লস ক্যাভেন্ডিস ডাকা হতো এবং সামাজিক মহলে তাকে ল্যাডি চার্লস বলে ডাকা হতো। তার স্বামী ১৯৪৪ সালে ৩৮ বছর বয়সে দীর্ঘ সময়ে মদ্যপানের কারণে মারা যান।[৪] তার মৃত্যুর পর তিনি আরভিং বার্লিনের অ্যানি গেট ইওর গান মঞ্চনাটকে অভিনয়ের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেন।[৩]

১৯৪৭ সালের ২০শে এপ্রিল অ্যাডেল কর্নেল কিংম্যান ডগলাসকে বিয়ে করেন। ডগলাস ছিলেন একজন ব্যাংক কর্মকর্তা এবং এয়ার ফোর্স কর্মকর্তা ও সেন্ট্রাল ইন্টেলিজেন্স এজেন্সির সহকারী পরিচালক। তিনি ১৯৭১ সালে মারা যান। পরবর্তীতে অ্যাডেল অ্যারিজোনার ফিনিক্সে বসবাস করেন।[৫]

পরবর্তী জীবন ও মৃত্যু[সম্পাদনা]

১৯৭২ সালে ফ্রেড ও অ্যাডেল অ্যাস্টেয়ার আমেরিকান থিয়েটার হল অব ফেমে ভূষিত হন।[৬]

অ্যাডেল স্ট্রোকে আক্রান্ত হয়ে ১৯৮১ সালের ২৫শে জানুয়ারি অ্যারিজোনার স্কটসডেল মেমোরিয়াল হাসপাতালে মৃত্যুবরণ করেন।[৭] মৃত্যুকালে তার বয়স হয়েছিল ৮৪ বছর। তাকে ক্যালিফোর্নিয়ার চ্যাটসওর্থের ওকউড মেমোরিয়াল পার্ক সমাধিতে সমাহিত করা হয়।[৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. রাইলি, ক্যাথলিন (২০১২)। The Astaires Fred & Adele। New York: Oxford University Press। পৃষ্ঠা 18। আইএসবিএন 0199921016 
  2. গাইটার, ডরোথি জে. (২৬ জানুয়ারি ১৯৮১)। "ADELE ASTAIRE, DANCER-COMEDIAN, DIES"দ্য নিউ ইয়র্ক টাইমস। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০১৮ 
  3. বেন্টলি, টনি (৩ জুন ২০১২)। "Two-Step: 'The Astaires,' by Kathleen Riley"The New York Times Book Review। পৃষ্ঠা BR32। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০১৮ 
  4. "Two-Step: The Astaires" New York Times, 31 May 2012
  5. New York Times, Adele Astaire, Dancer-Comedian by Dorothy J. Gaiter. Jan 26, 1981
  6. "Fred & Adele Astaire inducted into Theater Hall of Fame."
  7. "Sister of Fred Astaire dies in hospital at 83"Milwaukee Sentinel। United Press International। ২৬ জানুয়ারি ১৯৮১। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০১৮ 
  8. "Private Funeral For Adele Astaire"Star-BannerAssociated Press। ২৬ জানুয়ারি ১৯৮১। সংগ্রহের তারিখ ১০ মে ২০১৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]