অরুণাচল মুরুগণন্থম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
অরুণাচল মুরুগানান্থম
স্থানীয় নাম
அருணாசலம் முருகானந்தம்
জন্ম১৯৬২ (বয়স ৫৬–৫৭)
জাতীয়তাভারতীয়
অন্য নামপ্যাডম্যান,
পেশাআবিষ্কারক ও সামাজিক উদ্যোক্তা
প্রতিষ্ঠানজয়শ্রী ইন্ডাস্ট্রি
আদি নিবাসকোয়েম্বাটোর
দাম্পত্য সঙ্গীশান্তি
ওয়েবসাইটnewinventions.in

অরুণাচল মুরুগানান্থম (জন্ম ১৯৬৩[১]) হচ্ছেন ভারতের পদ্মশ্রী পদকপ্রাপ্ত যিনি প্যাডম্যান নামে পরিচিত। তিনি নারীদের জন্য সুলভে প্যাড বা স্যানিটারি ন্যাপকিন তৈরির যন্ত্র উদ্ভাবন করেন। তিনি তার উদ্ভাবিত যন্ত্র ১০৬টি দেশে উৎপাদন কাজে ব্যবহার করার পরিকল্পণা করছেন[২]

ব্যক্তিজীবন[সম্পাদনা]

১৯৬২ সালে তামিল নাড়ুর কোয়ম্বাত্তুরে অরুণাচলম মুরুগণন্থমের জন্ম। সংসারে অভাবের কারণে মাত্র ১৪ বছরেই স্কুলের পাঠ শেষ হয়|[৩] শ্রমিক‚ মজুর‚ ঝালাই নানা রকমের কাজ করে সংসারকে দাঁড় করিয়ে বিয়ে করতে দেরি হয়ে যায়| ৩৬ বছর বয়সে ১৯৯৮ সালে বিয়ে করেছিলেন|

আবিষ্কার[সম্পাদনা]

বিয়ের পরে তার জগৎ তখন শুধু বৌকে ঘিরে আবর্তিত হয় | একদিন দেখলেন তার কাছ থেকে কী যেন একটা লুকোচ্ছে স্ত্রী শান্তি | জোর করে কেড়ে নিয়ে দেখেন শান্তির হাতে একটা নোংরা ন্যাকড়া | এত নোংরা‚ ওটা দিয়ে অরুণের স্কুটার মুছতেও ইচ্ছে করবে না। অবাক হয়ে জানতে চাইলেন শান্তি কী করবে ওটা দিয়ে ! কুণ্ঠিত উত্তর এল‚ ওটা আসলে ওইসব দিনের জন্য | বুঝতে পেরে যেন আকাশ থেকে পড়লেন অরুণ | রজঃস্বলা অবস্থায় এই জিনিস ব্যবহার করে তার স্ত্রী ! শুনলেন‚ নামী কোম্পানির স্যানিটরি ন্যাপকিন কিনলে টান পড়বে সংসারে[৪][৫]| অরুণ জেনে বিস্মিত হলেন তার গ্রামের কোনও মহিলা স্যানিটরি ন্যাপকিন ব্যবহার করে না | প্রতি মাসে রক্তাক্ত হওয়ার দিনগুলোয় তাঁদের ভরসা বাতিল ন্যাকড়া‚ কাগজ| রক্তমাখা নোংরা কাপড়ও ধুতে হয়‚ শোকাতে হয় সবার আড়ালে|

সব জেনে অরুণাচলমের জিদ চেপে যায়| কিছু একটা করতেই হবে| দোকান থেকে কিনলেন স্যানিটরি প্যাড | দেখলেন‚ সামান্য তুলো আর কাপড়ের ওই জিনিস বেচে সংস্থাগুলো মুনাফা করছে ৪০ গুণ |

তাঁতির ছেলে অরুণাচলম নিজেই বাড়িতে বানালেন [৬]| বৌকে বললেন ব্যবহার করতে, ননদকে এবং গ্রামের মহিলাদের দিতে। কিন্তু মহিলারা কেউ তাকে এটা ব্যবহারের প্রতিক্রিয়া জানালো না।

শেষে অরুণাচলম ঠিক করলেন নিজেই ব্যবহার করবেন | ছোটবেলার এক বন্ধুর ছিল মাংসর দোকান | সেখান থেকে নিতেন ছাগলের রক্ত | একটা ফুটবলকে বানালেন ব্লাডার | দুটো ছিদ্র করলেন সেখানে | তাতে ভরলেন রক্ত | সেই রক্ত ভর্তি ব্লাডার কোমর থেকে ঝুলিয়ে দু পায়ের মাঝে রাখতেন অরুণাচলম | উপরে আবরণ হিসেবে তার তৈরি প্যাড | তার উপরে সাদা ধুতি পরা লুঙ্গির মতো করে|[৭]

এইভাবে দিনভর থাকতেন অরুণ | সব কাজ করতেন | চাপ পড়ত ব্লাডারে | দেখতেন কতটা রক্ত কতক্ষণ ধরে শুষতে পারছে তার তৈরি প্যাড | ওই ব্লাডারটাকে অরুণাচলম মনে করতেন তার নিজেরই দেহের ব্লাডার | যাতে একাত্ম হতে পারেন মেয়েদের সমস্যার সঙ্গে | গ্রামের পুকুরে সবার সামনে কাচতেন রক্তাক্ত ধুতি। সবাই ধরে নিল প্রেতাত্মা ভর করেছে | একঘরে হতে হল | ‘পাগলামি‘ ছাড়াতে না পেরে বাপের বাড়ি চলে গেলেন স্ত্রী | বোনের বিয়ে হয়ে গেছিল | ঘর ছাড়লেন বিধবা মা | এতেও হল না | বিদ্রূপ আর কটূক্তিতে গ্রাম ছাড়তে হল অরুণাচলমকে।[৮]

সব চলে গেল| কিন্তু নিজের সঙ্কল্প ছাড়লেন না অরুণ| কাজ নিলেন এক অধ্যাপকের বাড়িতে| তার সাহায্যে চিঠি লিখলেন বিভিন্ন সংস্থাকে। ফোনের বিল বেরিয়ে গেল ৭ হাজার টাকা | কিন্তু কেউ জানাল না কীভাবে তৈরি হয় স্যানিটরি প্যাড। প্রায় দু বছরের চেষ্টায় গাছের চালের মণ্ড থেকে ফাইবার নিয়ে কম খরচে প্যাড বানাতে সক্ষম হলেন অরুণাচল কিন্তু শুধু হাতে তো আর হবে না | একটা যন্ত্র একান্ত দরকার|

অনেক ভেবেচিন্তে বানালেন কমদামি যন্ত্র[৯]। খরচ মাত্র ৬৫ হাজার টাকা | তাতে তৈরি হল স্যানইটরি ন্যাপকিন | কোয়ম্বাত্তুরের এক কম্পানি রাজি হল তার প্রযুক্তিতে কম দামি প্যাড বানাতে |

লড়াইয়ের সাড়ে পাঁচ বছর পরে ধীরে ধীরে ফিরে পেতে লাগলেন হৃত সম্মান | ফিরে এলেন স্ত্রী, মা।

অরুণ এখন প্যাড বানানোর কম দামি যন্ত্র বানান | দেশের ২৩ টা রাজ্যের গ্রামে গ্রামে ছড়িয়ে গেছে সেই যন্ত্র | তাতে প্যাড বানান মহিলারাই। খুব অল্প দামে‚ বা বেশিরভাগ সময় বিনামূল্যে সেই প্যাড বিলি করা হয় গ্রামে|[১০]

এছাড়াও অরুণের তৈরি জয়শ্রী ইন্ডাস্ট্রিজ আছে| তাদের তৈরি স্যানিটরি প্যাড কেনে বিভিন্ন স্বেচ্ছাসেবী সংস্থা।[১১]

অর্জন[সম্পাদনা]

মাদ্রাজ আইআইটি-র মাধ্যমে অরুণের আবিষ্কার যায় জাতীয় প্রতিযোগিতায় | সৃজনশীলতার সেই মঞ্চে ৯৪৩ টি আবিষ্কারের মধ্যে অরুণাচলমের যন্ত্র প্রথম হয় |

অরুণ এখন বক্তৃতা করেন নামী শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে| হার্ভার্ড বিশ্ববিদ্যালয়েও বক্তৃতা দিয়েছেন এই স্কুলছুট | রাষ্ট্রপতির হাত থেকে গ্রহণ করেছেন পদ্মশ্রী [১২]| ২০১৪ সালে টাইম পত্রিকার বিশ্বের ১০০ জন প্রভাবশালী ব্যক্তির মধ্যে তিনি স্থান করে [১৩] |

জনপ্রিয় মাধ্যমে[সম্পাদনা]

সামাজিক উদ্যোক্তা হিসেবে অরুণাচল পরিচিত হয়ে ওঠেন।[১৪] তিনি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানে বক্তব্য দিয়েছেন যার মধ্যে আছে বোম্বের আইআইটি,[১৫] আহমেদাবাদের আইআইএম, ব্যাঙ্গালোরের আইআইএম [১] এবং হাভার্ড।[১৬] টেড টকেও তিনি অংশ নিয়েছেন।[১৭] অমিত বীরমানির পুরষ্কার প্রাপ্ত প্রামাণ্যচিত্র মেন্সট্রুয়াল ম্যান এর বিষয়বস্তু ছিলেন তিনি।[১৮][১৯] তার জীবনকাহিনী নিয়ে নির্মিত প্যাডম্যান চলচিত্রে অক্ষয় কুমার অভিনয় করেছেন।[২০]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. PC Vinoj Kumar, (২৯ আগস্ট ২০০৯)। "The Pad That Does Not Whisper"Tehelka। ২৬ এপ্রিল ২০১৪ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। 
  2. "The Indian sanitary pad revolutionary"। BBC News। সংগ্রহের তারিখ ৪ মার্চ ২০১৪ 
  3. "How Arunachalam Muruganantham – Pad Man Brought Revolutionary Change in Sanitary Pads Market of India"Dropout Dudes (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৭-১২-২৩। সংগ্রহের তারিখ ২০১৭-১২-২৭ 
  4. "India's champion for affordable feminine hygiene"। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০১৫ 
  5. Sandhana, Lakshmi। "An Indian Inventor Disrupts The Period Industry"। Fast Company। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১২ 
  6. Akila Kannadasan (১৩ ফেব্রুয়ারি ২০১২)। "A man in a woman's world"। The Hindu। 
  7. Letitia Rowlands (১৪ মার্চ ২০১৪)। "One man's mission to improve women's lives"। Ministry of External Affairs, Govt of India। 
  8. Buncombe, Andrew (২৯ জুন ২০১২)। "The 'Tampon King' who sparked a period of change for India's women"। The Independent। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১২ 
  9. Foxx-Gonzalez, Kellie (২৯ জুন ২০১২)। "Tampon King"। The Mary Sue। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১২ 
  10. Baker, Katie J.M. (২৯ জুন ২০১২)। "Meet India's 'Tampon King'"। Jezebel। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১২ 
  11. Kumar, Vikas (১৮ জানুয়ারি ২০১২)। "Blood, sweat & a few tears: Arunachalam Muruganantham's lessons for consumer product firms"। The Economic Times। সংগ্রহের তারিখ ১৮ আগস্ট ২০১২ 
  12. "Padma Awards" (PDF)। Ministry of Home Affairs, Government of India। ২০১৬। ৩ আগস্ট ২০১৭ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ জানুয়ারি ৩, ২০১৬ 
  13. "The 100 Most Influential People – Pioneers: Arunachalam Muruganantham"। TIME.com। ২৩ এপ্রিল ২০১৪। সংগ্রহের তারিখ ২৬ এপ্রিল ২০১৪ 
  14. "Dharamsala film festival"। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০১৫ 
  15. "Esummit speakers, IITB"। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০১৫ 
  16. "Harvard India Conference"। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০১৫ 
  17. "TED Bangalore talk by A. Muruganantham"। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০১৫ 
  18. "Menstrual Man"। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুন ২০১৫ 
  19. "The first man to wear a sanitary napkin"INKTalks। সংগ্রহের তারিখ ২৮ জানুয়ারি ২০১৬ 
  20. "Pad Man first look: After building toilets, Akshay Kumar takes on menstrual hygiene"