অঁতোয়ান লাভোয়াজিয়ে

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সরাসরি যাও: পরিভ্রমণ, অনুসন্ধান
অঁতোয়ান-লোরঁ দ্য লাভোয়জিয়ে
Antoine-Laurent de Lavoisier
Antoine lavoisier color.jpg
লুই জঁ দেজিরে দ্যলেস্ত্র-এর করা রৈখিক খোদাই, জুলিয়াঁ লেওপলদ বোয়ালি-র করা একটি অংকন অনুসরণে
জন্ম (১৭৪৩-০৮-২৬)২৬ আগস্ট ১৭৪৩
প্যারিস, ফ্রান্স
মৃত্যু ৮ মে ১৭৯৪(১৭৯৪-০৫-০৮) (৫০ বছর)
প্যারিস, ফ্রান্স
গিলোটিন দ্বারা মৃত্যুদন্ডপ্রাপ্ত
সমাধিস্থল পিকপুস সমাধিস্থল
কর্মক্ষেত্র জীববিজ্ঞানী, রসায়নবিদ
প্রাক্তন ছাত্র কোলেজ দে কাত্র-নাসিওঁ, প্যারিস বিশ্ববিদ্যালয়
উল্লেখযোগ্য ছাত্ররা এলোতের ইরেনে দু পোঁ
পরিচিতির কারণ
যাদের দ্বারা প্রভাবান্বিত গিইয়োম-ফ্রঁসোয়া রুয়েল, এতিয়েন কোঁদিইয়াক
স্বাক্ষর
Antoine-Laurent Lavoisier by Jules Dalou 1866

অঁতোয়ান-লোরঁ দ্য লাভোয়াজিয়ে[টীকা ১] (ফরাসি ভাষায়: Antoine-Laurent de Lavoisier, ফরাসি উচ্চরণ: ​[ɑ̃twan lɔʁɑ̃ də lavwazje]; ২৬ আগস্ট ১৭৪৩ – ৮ মে ১৭৯৪;[১]) একজন ফরাসি অভিজাত এবং রসায়নবিদ। তিনি ১৮শ শতকের রসায়ন বিপ্লবের একজন কেন্দ্রীয় ব্যক্তিত্ব ছিলেন। রসায়নের ইতিহাস ও জীববিজ্ঞানের ইতিহাসের তাঁর বড় প্রভাব আছে।[২] তাঁকে প্রায়ই "আধুনিক রসায়নের জনক" হিসেবে আখ্যা দেওয়া হয়। [৩][৪]

এটা সাধারণভাবে স্বীকৃত যে রসায়নবিদ্যায় লাভোয়াজিয়ে-র শ্রেষ্ঠ অবদানগুলির পেছনে মূল কারণ হচ্ছে তিনি রসায়নকে একটি বৈশিষ্ট্যমূলক (qualitative) বিজ্ঞান থেকে পরিমাপমূলক (quantitative) বিজ্ঞানে রূপান্তরিত করেন। লাভোয়াজিয়ে যে আবিষ্কারটির জন্য সবচেয়ে বেশি বিখ্যাত, সেটি হল দহন প্রক্রিয়াতে অক্সিজেনের ভূমিকা নির্ধারণ। তিনিই অক্সিজেন (১৭৭৮) এবং হাইড্রোজেন (১৭৮৩) শনাক্ত ও নামকরণ করেন এবং ফ্লজিস্টন তত্ত্বের বিরোধিতা করেন। তিনি পরিমাপের মেট্রিক পদ্ধতি সৃষ্টিতে সহায়তা করেন। তিনিই সর্বপ্রথম মৌলসমূহের একটি বিস্তৃত পর্যায় সারণী নির্মাণ করেন। এছাড়া তিনি রাসায়নিক পদার্থের নামকরণের নীতিগুলির সংস্কার সাধনে সাহায্য করেন। ১৭৮৭ সালে তিনি সিলিকনের অস্তিত্ব নিয়ে ভবিষ্যৎবাণী করেন।[৫] তিনিই প্রথম গন্ধক বা সালফারকে যৌগ নয়, বরং একটি মৌলিক পদার্থ হিসেবে প্রতিষ্ঠা করেন।[৬] তিনি আবিষ্কার করেন যে যদিও পদার্থ তার আকৃতি বা গঠন পরিবর্তন করতে পারে, কিন্তু তার ভর সবসময় একই থাকে

লাভোয়াজিয়ে ফ্রান্সের বেশ কিছু অভিজাত পরিষদের ক্ষমতাধর সদস্য ছিলেন। তিনি "ফের্ম জেনেরাল" নামক সংস্থার প্রশাসক ছিলেন, কিন্তু এ সংস্থাটি "অঁসিয়াঁ রেজিম" বা ফ্রান্সের তৎকালীন রাজতন্ত্রের সবচেয়ে ঘৃণ্য একটি অংশ ছিল, কেননা এটি সরকার থেকে অনেক বেশি লাভ নিত, এর চুক্তিগুলি ছিল অত্যন্ত গোপন এবং এর অস্ত্রধারী দালালরা খুবই জোরজবরদস্তি চালাত।[৭] এই সমস্ত রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক কর্মকাণ্ড লাভোয়াজিয়ের বৈজ্ঞানিক গবেষণার অর্থসংস্থানে সাহায্য করত। ফরাসি বিপ্লবের চরম পর্যায়ে জঁ-পল মারা তাঁকে ভেজাল তামাক বিক্রির দায়ে অভিযুক্ত করেন, এবং মারা-র মারা যাবার এক বছর পরেই লাভোয়াজিয়েকে বিচার করে গিলোটিনের মাধ্যমে তাঁর মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করা হয়।

টীকা[সম্পাদনা]

  1. এই ফরাসি নামটির বাংলা প্রতিবর্ণীকরণে উইকিপিডিয়া:বাংলা ভাষায় ফরাসি শব্দের প্রতিবর্ণীকরণ-এ ব্যাখ্যাকৃত নীতিমালা অনুসরণ করা হয়েছে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. (ফরাসি) Lavoisier, le parcours d'un scientifique révolutionnaire CNRS (Centre National de la Recherche Scientifique)
  2. Schwinger, Julian (১৯৮৬)। Einstein's Legacy। New York: Scientific American Library। পৃ: 93। আইএসবিএন 0-7167-5011-2 
  3. "More recently, he has been dubbed the "father of modern nutrition", as being the first to discover the metabolism that occurs inside the human body. Lavoisier, Antoine." Encyclopædia Britannica. 2007. Encyclopædia Britannica Online. 24 July 2007.
  4. Eddy, Matthew Daniel; Newman, William R.; Mauskopf, Seymour (২০১৪)। "Chemical Knowledge in the Early Modern World"Chicago: University of Chicago Press 
  5. In his table of the elements, Lavoisier listed five "salifiable earths" (i.e., ores that could be made to react with acids to produce salts (salis = salt, in Latin)): chaux (calcium oxide), magnésie (magnesia, magnesium oxide), baryte (barium sulfate), alumine (alumina, aluminum oxide), and silice (silica, silicon dioxide). About these "elements", Lavoisier speculates: "We are probably only acquainted as yet with a part of the metallic substances existing in nature, as all those which have a stronger affinity to oxygen than carbon possesses, are incapable, hitherto, of being reduced to a metallic state, and consequently, being only presented to our observation under the form of oxyds, are confounded with earths. It is extremely probable that barytes, which we have just now arranged with earths, is in this situation; for in many experiments it exhibits properties nearly approaching to those of metallic bodies. It is even possible that all the substances we call earths may be only metallic oxyds, irreducible by any hitherto known process." – from p. 218 of: Lavoisier with Robert Kerr, trans., Elements of Chemistry, ..., 4th ed. (Edinburgh, Scotland: William Creech, 1799). (The original passage appears in: Lavoisier, Traité Élémentaire de Chimie, ... (Paris, France: Cuchet, 1789), vol. 1, p. 174.)
  6. Hogan, C. Michael (2011). "Sulfur" আর্কাইভ 28 October 2012 at the Wayback Machine. in Encyclopedia of Earth, eds. A. Jorgensen and C.J. Cleveland, National Council for Science and the environment, Washington DC
  7. Schama, Simon (১৯৮৯)। Citizens: A Chronicle of the French Revolution। Alfred A Knopf। পৃ: 73।