অ!

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
অ!
পরিচালকপ্রশান্ত বর্মা
প্রযোজকনানি
প্রশান্তি তিপিরনেনি
রচয়িতাপ্রশান্ত বর্মা
শ্রেষ্ঠাংশে
সুরকারমার্ক কে রবিন
চিত্রগ্রাহককার্তিক ঘট্টামানেনি
সম্পাদকগৌতম নেরেসু
প্রযোজনা
কোম্পানি
ওয়াল পোস্টার সিনেমা
মুক্তি
  • ১৬ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ (2018-02-16)
দৈর্ঘ্য১১০ মিনিট
দেশভারত
ভাষাতেলুগু
নির্মাণব্যয়₹৫ কোটি[১]
আয়প্রা. ₹১৩.২৫–২৫ কোটি[১][২]

অ! ২০১৮ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত ভারতীয় তেলুগু ভাষার মনস্তাত্ত্বিক নাট্য চলচ্চিত্র। এটি রচনা ও পরিচালনা করেছেন প্রশান্ত বর্মা। ওয়াল পোস্টার সিনেমার ব্যানারে চলচ্চিত্রটি প্রযোজনা করেছেন নানি ও প্রশান্তি তিপিরনেনি। এতে শ্রেষ্ঠাংশে অভিনয় করেছেন কাজল আগরওয়াল, নিত্যা মেনন, রেজিনা ক্যাসান্ড্রা, এশা রেব্বা, শ্রীনিবাস অবসরল, প্রিয়দর্শী পুলিকোন্ডা, ও মুরলী শর্মা। চলচ্চিত্রটি মনস্তাত্ত্বিক বিষয়াদি ও সামাজিক সমস্যা তথা শিশু নিপীড়ন, যৌন নিপীড়ন, ও মাদকাসক্তি নিয়ে আবর্তিত। এই গল্পটি হলিউডের আইডেন্টিটি চলচ্চিত্রের ছায়া অবলম্বন রচিত। চলচ্চিত্রটি ২০১৮ সালের ১৬ই ফেব্রুয়ারি বিশ্বব্যাপী মুক্তি পায়।

অ! চলচ্চিত্রটি ৬৬তম জাতীয় চলচ্চিত্র পুরস্কারে শ্রেষ্ঠ বিশেষ দৃশ্য ও রূপসজ্জা বিভাগে পুরস্কৃত হয়।[৩]

কাহিনি সংক্ষেপ[সম্পাদনা]

শিব একজন দারোয়ান ও উচ্চাকাঙ্ক্ষী বিজ্ঞানী যে তার পিতামাতার সাথে সাক্ষাতের জন্য একটি টাইম মেশিন প্রস্তুত করছে। একদিন পার্বতী নামে এক নারী এসে জানায় সে তার ভবিষ্যৎ সত্তা যে পিতা মাতার মৃত্যুর রুখতে ভবিষ্যৎ থেকে বর্তমানে এসেছে, যা এক ঘণ্টার মধ্যে সংগঠিত হবে।

নালা নামে এক দূর্ভাগা একটি রেস্তোরাঁয় পাচক পদে আবেদন করে। রেস্তোরাঁর মালিক তাকে রান্না করতে বলে৷ কিন্তু সে আসলে রান্না করতে জানে না বরং সে ইউটিউবে রান্নার ভিডিও দেখে সেই নির্দেশনা অনুসরণ করে রেস্তোরাঁ মালিকের দেওয়া কাজ সমাপ্ত করে। রান্না করার সময় রান্নাঘরে রাখা নানি নামে একটি গোল্ডফিশ ও চান্তি নামে একটি বনসাই গাছের সাথে তার বন্ধুত্ব হয়। বিস্ময়কর ভাবে তারা দুজনেই কথা বলতে পারে এবং সে একমাত্র ব্যক্তি যে তাদের কথা শুনতে, বুঝতে ও তাদের সাথে কথা বলতে পারে।

রাধা তার পিতামাতাকে নিয়ে তার সঙ্গী কৃষের জন্য রেস্তোরাঁয় অপেক্ষা করছে। যখন কৃষ আসে তার পিতামাতা অবাক হয় যে কৃষ তথা কৃষ্ণবেণী একজন মেয়ে এবং সে ও রাধা সমকামী যুগল। রাধার পিতামাতা রাধা ও কৃষের সম্পর্ক নিয়ে আপত্তি জানায় কারণ তারা সমলৈঙ্গিক বিবাহ মেনে নিতে পারবে না। তবে মনোচিকিৎসক কৃষ যখন জানায় রাধার শিশুকালে ঘটে যাওয়া ভয়াল ঘটনার কারণে রাধা পুরুষদের ঘৃণা করে এবং এর ফলে তার যৌন অভিমুখিতা পরিবর্তিত হয়ে নারীর প্রতি আকৃষ্ট হয় তখন পিতামাতা মুষড়ে পরে।

৮ বছর বয়সী মক্ষা তার মায়ের রেস্তোরাঁয় কাজ করে এবং ক্রেতাদের জাদু দেখায়। এসময় যোগী নামে এক জাদুকর তার রেস্তোরাঁয় আসে এবং তার জাদু দেখে তাকে অপদস্ত করে, কিন্তু সে নিজেই একজন জাদুবিদ্যায় পারদর্শীর কাছে অপদস্ত হয়, যা আসলে একটি আত্মা।

মীরা একটি রেস্তোরাঁয় খাদ্য পরিবেশনকারী হিসেবে কাজ করে। সে মাদকাসক্ত। সে ও তার প্রেমিক সুগার মিলে এই রেস্তোরাঁয় আসতে যাওয়া একজন ধনী বিনিয়োগকারীকে ছিনতাই করার পরিকল্পনা করে। মীরা রেস্তোরাঁর ভিতরে একটি গাছে একটি নেকলেস পেয়ে সেটি পরিধান করে। সে রঘুরাম নামে একজন নিয়মিত ক্রেতাকে খাবার দেওয়ার সময় একজন পুরনো কর্মচারী জানায় তার স্ত্রীকে সে যেই গাছ থেকে নেকলেস পেয়েছে সেই গাছের নিচে জীবন্ত সমাহিত করা হয়েছিল। মীরা রঘুরামের স্ত্রীয়ের ভূত দেখে ভীত হয়।

কালী নিজেকে গুলি করার প্রস্তুতি নেয়। সে একটি অঙ্গ দানের ফর্মে এবং "আমি গণ হত্যাকাণ্ড ঘটাতে যাচ্ছি এবং এর জন্য নিজেকে দোষী বিবেচনা করছি না" লেখা সংবলিত একটি নোটে সাক্ষর করে।

এই ঘটনাগুলো একই রেস্তোরাঁয় সমান্তরালে ঘটে। মক্ষা, রাধা, মীরা, নালা, ও কৃষ কালীর বহুব্যক্তিত্ব। কালী বহুব্যক্তিত্ব রোগে আক্রান্ত এবং তারা তার জীবনের বিভিন্ন সময়কে উপস্থাপন করে। কালী তার মনে বয়ে বেড়ানো এই বোঝা দূর করতে নিজেকে গুলি করে। তার সাথে সাথে তার কল্পনাপ্রসূত সকল চরিত্রের একই সাথে মৃত্যু ঘটে।

কুশীলব[সম্পাদনা]

নির্মাণ[সম্পাদনা]

নানি পরিচালক প্রশান্ত বর্মা সাথে সাক্ষাৎ করেন, যে তাকে এই চলচ্চিত্রের গল্প বর্ণনা করে শুনায়। নানি এই গল্পটি পছন্দ করেন এবং নিজেই চলচ্চিত্রটি প্রযোজনার সিদ্ধান্ত নেন। ২০১৭ সালের ২৫শে নভেম্বর তিনি তারকাবহুল এক অনুষ্ঠানে চলচ্চিত্রটির শীর্ষ পোস্টার উন্মোচন করেন। চলচ্চিত্রটি নানির নব প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান ওয়ালপোস্টার সিনেমা থেকে নির্মিত হয় এবং এর সহ-প্রযোজক ছিলেন বাহুবলী চলচ্চিত্র ধারাবাহিকের পোশাক নকশাবিদ প্রশান্তি তিপিরনেনি।[৪]

তারকাবহুল চলচ্চিত্রটি অভিনয় করেন কাজল আগরওয়াল, নিত্যা মেনন, রেজিনা ক্যাসান্ড্রা, এশা রেব্বা, শ্রীনিবাস অবসরল, প্রিয়দর্শী পুল্লিকোন্ডা, মুরলী শর্মা, রোহিণীদেবদর্শিনীরবি তেজা বনসাই গাছের জন্য কণ্ঠ দেন। অন্যদিকে নানি গোল্ডফিশের জন্য কণ্ঠ দেন।

কার্তিক ঘাট্টামানেনি এর চিত্রগ্রাহক, সাহি সুরেশ এর শিল্প নির্দেশক ও গৌতম নেরুসু এর সম্পাদকের দায়িত্ব পালন করেন। নবাগত মার্ক কে রবিন চলচ্চিত্রটির সঙ্গীত ও গানের সুর করেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "2018 round-up: Six low-budget Tollywood films that grossed big at the box-office"দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-১২-২২। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০২০ 
  2. "Tollywood box office report of 2018: highest grossing Telugu movies of year; List of hits and flops"আইবিটাইমস (ইংরেজি ভাষায়)। ২৩ নভেম্বর ২০১৮। সংগ্রহের তারিখ ১৭ নভেম্বর ২০২০ 
  3. "66th National Film Awards for 2018 announced"। Press Information Bureau Government of India Ministry of Information & Broadcasting। 
  4. "The first look poster of Awe released"দ্য টাইমস অব ইন্ডিয়া (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০ নভেম্বর ২০২০ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]