সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার
Nobel2008Literature news conference1.jpg
সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার বিজয়ীর ঘোষণা
পুরস্কার দেওয়া হয় সাহিত্যে অসামান্য অবদান
দেশ সুইডেন
পুরস্কার দাতা সুইডিশ একাডেমি
প্রথম পুরস্কার প্রদান ১৯০১
অফিসিয়াল ওয়েবসাইট nobelprize.org

১৯০১ খ্রিস্টাব্দে থেকে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার (সুয়েডীয়: Nobelpriset i litteratur) প্রদান করা হয়। ঐ বৎসর থেকে সারা পৃথিবীর বিভিন্ন ব্যক্তিকে সাহিত্যের উপর অবদানের জন্য এই পুরস্কার প্রদান করা হয়। নোবেল পুরস্কারকে সাহিত্যেক্ষেত্রে বিশ্বের সবচেয়ে সম্মানজনক বা বড পদক হিসেবে বিবেচনা করা হয়। সুয়েডীয় বিজ্ঞানী আলফ্রেদ নোবেল ১৮৯৫ সালে করে যাওয়া একটি উইলের মর্মানুসারে সাহিত্য ক্ষেত্রে একটি আদর্শ পথে সবচেয়ে অসামান্য কাজের জন্য সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার প্রচলন করা হয়।[১][২] সুইডিশ একাডেমি সিদ্ধান্ত অনুসারে এই পুরস্কার প্রদান করা হয়। একাডেমী অক্টোবর নির্বাচিত বিজয়ীর নাম ঘোষণা করে।[৩] এটি 1895 সালে আলফ্রেড নোবেলের ইচ্ছা দ্বারা প্রতিষ্ঠিত পাঁচ নোবেল পুরষ্কার এর এক। অন্য গুলির পদার্থবিজ্ঞানে নোবেল পুরস্কার, রসায়নে নোবেল পুরস্কার, চিকিৎসা শাস্ত্রে নোবেল পুরস্কার, এবং শান্তিতে নোবেল পুরস্কার

পটভূমি[সম্পাদনা]

১৯০১ সালে, সুলি প্রুদোম (১৮৩৯–১৯০৭), একজন ফরাসি কবি এবং প্রাবন্ধিক, তিনি প্রথম ব্যক্তি যাকে সাহিত্যে নোবেল পুরস্কার ভূষিত করা হয়, "সুলি প্রুদোমের কবিতা চরম হতাশাগ্রস্ত মানুষকে শেথাতে পারে, আনন্দ বা সুখ আসে যন্ত্রণা, আত্মত্যাগ ও ভালবাসার পথ ধরেই।"

২১ অক্টোবর ১৮৩৩ সালে সুইডেনের স্টকহোমে জন্মনেও্যা জন্ম নেওয়া আলফ্রেদ নোবেল তার জীবদ্দশায় অনেক গুলো উইল লিখে গিয়েছিলেন। সর্বশেষটা লেখা হয়েছিল তার মৃত্যুর মাত্র এক বছর আগে ২৭ নভেম্বর ১৮৯৫ সালে প্যারিসে অবস্থিত সুইডিশ-নরওয়ে ক্লাবে।[৪][৫]। তিনি তার সর্বশেষ উইলে উল্লেখ করেন যে তার সকল সম্পদ পুরস্কার আকারে দেয়া হবে যারা পদার্থ, রসায়ন, চিকিৎসা, শান্তি ও সাহিত্যে বৃহত্তর মানবতার স্বার্থে কাজ করবেন[৬]। ২৬ এপ্রিল ১৮৯৭ এর আগ পর্যন্ত সন্দেহ প্রবনতার জন্য নরওয়ে থেকে এই উইল অনুমোদন করা হয় নি[৭]নোবেলের উইলের সমন্বয়কারী রগনার সোলম্যানরুডলফ লিলজেকুইস্ট নোবেল ফাউন্ডেশন তৈরি করেন। যার কাজ তার সম্পদের রক্ষনাবেক্ষন ও নোবেল পুরস্কার অনুষ্ঠানের আয়জন করা।[৮]

১৮৯৭ সালে নোবেলের উইল অনুমোদন হবার সাথে সাথেই নোবেল পুরস্কার প্রদানের জন্য নরওয়েজীয় নোবেল কমিটি নামক একটি সংস্থা তৈরি করা হয়। অতি শীঘ্রই নোবেল পুরস্কার দেবার অন্যান্য সংস্থাগুলো প্রতিষ্ঠিত হয়ে যায়। তাদের মধ্যে ৭ জুন ক্যারোলিংস্কা ইনিস্টিটিউট, ৯ জুন সুইডিশ একাডেমী এবং ১১ জুন রাজকীয় সুয়েডীয় বিজ্ঞান একাডেমি[৯]। নোবেল ফাউন্ডেশন কিভাবে নোবেল পুরস্কার দেয়া হয় তার একটি নীতিমালায় পৌছায় এবং ১৯০০ সালে নোবেল ফাউন্ডেশন নতুনভাবে একটি বিধি তৈরি করে যা রাজা অস্কার কর্তৃক জারি করা হয়। [৬] ১৯০৫ সালে সুইডেননরওয়ের মধ্যে বন্ধন বিলুপ্ত হয়। তার পর থেকে নরওয়ে নোবেল কমিটি শুধু মাত্র শান্তিতে নোবেল পুরস্কার এবং সুইডেনের প্রতিষ্ঠানগুলো অন্যান্য পুরস্কার গুলো প্রদানের দায়িত্ব পায়।[৭]

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Nobel Prize in Literature"nobelprize.org। সংগৃহীত 2007-10-13 
  2. John Sutherland (October 13, 2007)। "Ink and Spit"Guardian Unlimited Books (The Guardian)। সংগৃহীত 2007-10-13 
  3. "The Nobel Prize in Literature"Swedish Academy। সংগৃহীত 2007-10-13 
  4. Sohlman, Ragnar (1983). p. 7. The Legacy of Alfred Nobel – The Story Behind the Nobel Prizes
  5. von Euler, U. S. (6 June 1981)."The Nobel Foundation and its Role for Modern Day Science"
  6. ৬.০ ৬.১ a b AFP (5 October 2009). "Alfred Nobel's last will and testament". The Local. Retrieved 11 June 2010.
  7. ৭.০ ৭.১ Levinovitz, Agneta Wallin (2001) pp. 13–25.. Nils Ringertz. ed. The Nobel Prize: The First 100 Years
  8. Abrams, Irwin (2001). pp. 7–8. Abrams, Irwin (2001). The Nobel Peace Prize and the Laureates. Watson Publishing International. ISBN 0-88135-388-4
  9. Crawford, Elizabeth T. (1984). p. 1. The Beginnings of the Nobel Institution – The Science Prizes, 1901–1915

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]