পাবলো ক্যাসালস

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
Pablocasals.jpg
পাউ ক্যাসালস
সেলোবাদক
জন্ম নাম পাউ ক্যাসালস ই ডেফিলো
জন্ম (১৮৭৬-১০-২২)অক্টোবর ২২, ১৮৭৬
মৃত্যু অক্টোবর ২২, ১৯৭৩(১৯৭৩-১০-২২) (৯৭ বছর)

পাউ ক্যাসালস ই ডেফিলো (কাতালান: [ˈpaw kəˈzaɫz i dəfiˈʎo]; ২৯শে ডিসেম্বর, ১৮৭৬ – ২২শে অক্টোবর, ১৯৭৩), তাঁর পেশাগত জীবনে পাবলো ক্যাসাল নামেই পরিচিত,[১][২][৩] একজন কাতালান সেলোবাদক ও পথপ্রদর্শক। তিনি বিংশ শতকের প্রথমার্ধের প্রসিদ্ধতম সেলোবাদক এবং সর্বকালের অন্যতম সেরা সেলোবাদক। তিনি তাঁর সারা জীবন ধরে একক, চেম্বার, এবং অর্কেস্ট্রার সঙ্গীত ধারণ করেছেন। তবে সম্ভবত বাখের রেকর্ডটির জন্যই তাঁকে অধিক মনে রাখা হয় যা তিনি ১৯৩৬-১৯৩৯-এর দিকে করেছিলেন।

আত্মজীবনী[সম্পাদনা]

শৈশব এবং প্রথমকাল[সম্পাদনা]

ক্যাসাল এল ভেনড্রেল, কাতালোনিয়া, স্পেনে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা কার্লস ক্যাসালস ই রিবেস (১৮৫২-১৯০৮) একজন প্যারিশ অর্গানবাদক এবং সমবেত সংগীতগুরু ছিলেন। তিনি ক্যাসলকে পিয়ানো, গান, ভায়োলিনঅর্গান বাজানো শেখান। তিনি কঠোর শৃঙ্খলাপরায়ণ ছিলেন। যখন ক্যাসাল তরুণ ছিলেন তখন তাঁর বাবা দেয়াল থেকে পিয়ানো বের করে তাঁকে এবং তাঁর ভাই, আর্টারকে এর পিছনে দাঁড় করিয়ে একের পর এক তাল বাজাতেন এবং তাঁকে ও আর্টারকে ওগুলোর নোট বলতে হত। চার বছর বয়স থেকেই ক্যাসাল ভায়োলিন, পিয়ানোবাঁশি বাজাতে পারত এবং ছয় বছর বয়সে সে এককভাবে জনসম্মুখে ভায়োলিন বাজান। সেলোর ন্যায় একটি বাদ্যযন্ত্রের সাথে তাঁর প্রথম পরিচয় ঘটে একজন ভ্রমণকারী কাতালান সংগীতশিল্পীর হাতে উক্ত যন্ত্র বাজাতে দেখে। তাঁর অনুরোধে তাঁর পিতা ঐ যন্ত্রের ন্যায় একটি অশোধিত সেলো নির্মান করেন এবং তা বানান লাউ ব্যবহার করে। এগার বছর বয়সে ক্যাসাল সর্বপ্রথম সত্যিকার সেলো দেখে। একদল ভ্রমণকারী সংগীতশিল্পীরা যন্ত্রটি তাঁর সামনে বাজাতে বাজাতে যাচ্ছিল। তখনই সে ঐ যন্ত্রের জন্য নিজেকে নিয়োজিত করবার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন।

১৮৮৮ সালে কাতালোনিয়ার পূর্বপুরুষ মায়াগুয়েজ, পুয়ের্টা রিকোতে জন্মগ্রহণকরা তাঁর মা তাঁকে বার্সেলোনায় নিয়ে আসে। এখানে সে এসকোলা মিউনিসিপ্যাল দ্য মিউনিসায় ভর্তি হন।[৪] সেখানে তিনি সেলো, দর্শনপিয়ানো শেখেন। ১৮৯০ সালে মাত্র তের বছর বয়সে তিনি বার্সেলোনার একটি সঙ্গীত দোকানে বাখ এর ছয় বাদ্যযন্ত্রবিশেষ সংকলনের একটি ছিন্নভিন্ন কপি আবিষ্কার করেন। তিনি জনসম্মুখে অনুষ্ঠান করার আগেই পরবর্তী তের বছরের প্রতিটি দিন তা অনুশীলন করতেন।[৫] ক্যাসাল পরবর্তীতে তাঁর নিজস্ব ছয় সংকলনের ধরণবিশিষ্ট গান তৈরি করতেন।[৬] সেলোবাদক হিসেবে তিনি বিস্ময়কর উন্নতি করেন। ২৩শে ফেব্রুয়ারি, ১৮৯১ সালে তিনি চৌদ্দ বছর বয়সে বার্সেলোনাতে একক অনুষ্ঠান করেন। তিনি এসকোলা থেকে সম্মানজনক পাঁচ বছরের পর গ্র্যাজুয়েট হন।

যৌবন ও পড়াশোনা[সম্পাদনা]

র‍্যামন ক্যাসাস দর্শিত তরুণ পাই ক্যাসাল।(এমএনএসি)

১৮৯৩ সালে কাতালান সুরকার আইজ্যাক আলবেনিজ একটি কাফেতে তাঁকে ত্রয়ীর সাথে বাজাতে দেখেন এবং কাউন্ট গিলার্মো মরফি, মারিয়া ক্রিশ্চিয়ানার (রাণী শাসক) ভূমিকাপত্র দেন। প্রাসাদের অনানুষ্ঠানিক কনসার্টে তাঁকে বাজাতে বলা হয় এবং মাদ্রিদের রিয়াল কনসারভেশন দ্য মুঁসিয়ে ইয়ে ডিক্লেমেশন-এর জন্য টাকা সম্মানী দেয়া হয়। তিনি নব্য প্রতিষ্ঠিত কোয়ার্টেট সোসাইটি (চতুষ্টয় সোসাইটি) তেও বাজিয়েছিলেন।

১৮৯৫ সালে কাতালোনিয়ায় সম্মানি থেকে বঞ্চিত হয়ে তিনি প্যারিস যান। সেখানে তিনি ফোলিস ম্যারিগনি থিয়েটারের দ্বিতীয় সেলোবাদক হিসেবে কোনমতে জীবিকা অর্জন করে বেঁচে থাকেন। ১৮৯৬ সালে তিনি কাতালোনিয়ায় ফিরে আসেন এবং বার্সেলোনাএসকোলা মিউনিসিপ্যাল দ্য মুঁসিয়ে বিভাগে যোগ দেন। তিনি বার্সেলোনার অপেরা হাউজ দ্য লিকেউ-এও সেলোবাদক হিসেবে যুক্ত হন। ১৮৯৭ সালে মাদ্রিদ সিমফোনি অরচেস্ট্রায় এককশিল্পী হিসেবে যুক্ত হন এবং রাণীর কাছ থেকে তৃতীয় কার্লোসের অর্ডার পদকপ্রাপ্ত হন।

আন্তর্জাতিক কর্মজীবন[সম্পাদনা]

১৮৯৯ সালে ক্যাসালস লন্ডনের দ্য ক্রিস্টাল প্যালেস-এ অনুষ্ঠান করেন এবং পরে ওসবোর্ন হাউস, রাণী ভিক্টোরিয়ার গ্রীষ্মকালীন বাড়িতে আর্নেস্ট ওয়াকারের সাথে তাঁর সামনে। ৬ই ডিসেম্বর, ১৯৬৩ সালে তিনি প্রেসিডেনশিয়াল মেডেল অফ ফ্রিডম পুরষ্কারে ভূষিত হন।[৭]

প্রেসিডেনশিয়াল মেডেল অফ ফ্রিডম

প্রাডেস উৎসব[সম্পাদনা]

১৯৫০ সালে তিনি কনফ্লেন্ট উৎসব, প্রাডেসের সেলোবাদক ও পথপ্রদর্শক হিসেবে কাজ করেন এবং জোহান সেবাস্টিয়ান বাখের দ্বিশততমবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত অনুষ্ঠানে যোগদান করেন। "অনুষ্ঠানের সব টাকা নিকটবর্তী রিফিউজি হাসপাতাল পেরিপিগানে যাবে"-এই শর্তে অনুষ্ঠানে অংশগ্রহণের জন্য রাজি হন তিন।[৩]

১৯৫২ সালে ক্যাসাল মার্টা এঞ্জেলিকা মন্টানেজ ইয়ে মার্টিনেজ নামক এক পনের বছর বয়সী পুয়ের্টা রিকান নামক এক বালকছাত্রের সাথে পরিচিত হন যে উৎসবে যোগদানের জন্য স্পেন যাচ্ছিল। ক্যাসাল তাঁর প্রতি খুশি হন এবং নিউ ইয়র্কের ম্যানিস কলেজ অফ মিউজিক-এ চলে আসতে উৎসাহিত করেন। তিনি ১৯৬৬ সাল পর্যন্ত প্রাডেস উৎসবের নেতৃত্ব দেন।

পুয়ের্টা রিকো[সম্পাদনা]

১৯৫৫ সালে ক্যাসাল বিস্তৃতভাবে পুয়ের্টা রিকো ভ্রমণ করে এবং ক্যাসাল উৎসব উদ্ভাবন করেন। ১৯৫৫ সালে ক্যাসাল তাঁর দ্বিতীয় বিয়ে করেন ফ্রান্সেসকা বিডাল দ্য কেপডেভিলার সাথে যিনি ঐ বছরেই মারা যান। ১৯৫৭ সালে ৮০ বছর বয়সে ক্যাসার ২০ বছর বয়সী মার্টা মন্টানেজ ইয়ে মার্টিনেজকে বিয়ে করেন।[৮] তিনি বলেন যে ৬০ বছরের ছোট কাউকে বিয়ে করাটা স্বাস্থ্যের পক্ষে ভয়ানক হতে পারে। তিনি বলেন, "আমি একে দেখচি এইভাবেঃ যদি সে মারা যায়, সে মারা যায়।" ("I look at it this way: if she dies, she dies.")[৯][১০] পাবলো ও মার্টা সিইবাতে তাঁদের স্থায়ী ঠিকানা তৈরি করে এবং "এল পেসিব্রে" (ম্যানেজার) নামক বাড়িতে বসবাস করে।[১১] তিনি পুয়ের্টো রিকান সংগীতে প্রভাব রাখেন পুয়ের্টো রিকো সিম্ফোনি অরচেস্ট্রা নির্মান করে (১৯৫৮) এবং পুয়ের্তো রিকো সঙ্গীত ভাণ্ডার (১৯৫৯) তৈরি করে।

পরবর্তী জীবন[সম্পাদনা]

১৯৬০ সালের দিকে ক্যাসালস গোস্তাদ, জার্মাট, টুস্কন, বার্কেলিমার্লবোরোসহ সারা বিশ্বব্যাপী অনেক দুর্দান্ত গান উপহার দেন। এর অনেকগুলো টিভিতে সম্প্রচারিত হয়।

১৯৬১ সালে তিনি রাষ্ট্রপতি কেনেডির আমন্ত্রণে হোয়াইট হাউসে অনুষ্ঠান করেন। অনুষ্ঠানটি ধারণ করে তাঁর একটি অ্যালবামে প্রকাশ করা হয়।

ক্যাসালস একজন সুরকারও ছিলেন। সম্ভবত তাঁর সবচেয়ে কার্যকর কাজ লাঁ সারডানা। এখানে তিনি সেলোর আঁসাঁব্ল করেন এবং ১৯২৬ সালে তিনি এর সুর করেছিলেন। তাঁর ওরাটোরিও (অর্কেস্টার সঙ্গে একক বা সমবেত কণ্ঠে গাইবার জন্য রচিত সংগীত) এল পেসেব্রে সর্বপ্রথম মেক্সিকোআকাপুলসোতে ১৭ই ডিসেম্বর, ১৯৬০ সালে অনুষ্ঠিত হয়। তিনি ১৯৬৩ সালে জাতিসংঘের বার্ষিকীতে এটি উপস্থাপন করেন। তিনি ফ্লোরিডা স্টেট বিশ্ববিদ্যালয়ের সঙ্গীত সমধর্মিতা বিষয়ক ফি মু আলফা সিনফোনিয়ার এপসিলন ইওটা অধ্যায়ে একজন সম্মানী সদস্য হিসেবে সাক্ষর করে।[১২] পরবর্তীতে তাঁকে সমধর্মিতার চার্লস ই লাটন ম্যান অফ মিউজিক অ্যাওয়ার্ড দেয়া হয় (১৯৭৩)।

তাঁর শেষ সুর তিনি করেছেন "হাইম অফ দ্য ইউনাইটেড ন্যাশনস" ("জাতিসংঘের স্তবগান")[১৩] তিনি ২৪শে অক্টোবর, ১৯৭১ সালে, তাঁর ৯৫তম জন্মদিনের দুইমাস পূর্বে জাতিসংঘের এক বিশেষ কনসার্টে অনুষ্ঠান করেন এবং সেখানেই প্রথম এটি গান। ঐদিন জাতিসংঘের মহাপরিচালক, উ থান্ট পাঁউ ক্যাসালসকে তাঁর শান্তি, ন্যায়বিচার ও স্বাধীনতার জন্য অবদানের কথা মাথায় রেখে তাঁকে জাতিসংঘের শান্তি মেডেল পুরষ্কারে ভূষিত করেন।[১৪] ক্যাসালস পুরষ্কারটি গ্রহণ করেই তাঁর বিখ্যাত "আমি একজন কাতালান" ("আই অ্যাম কাতালান") ভাষণটি দেন।[১৫] এখানে তিনি বলেন কাতালোনিয়ারই প্রথম গণতান্ত্রিক পার্লামেন্ট ছিল এবং তা ইংল্যান্ডের অনেক আগেই।

আলবার্ট ই. কান ১৯৭০ সালে ক্যাসালসের স্মৃতির ভিত্তিতে জয়েস এন্ড সরোস:পাবলো ক্যাসালস, হিজ ওউন স্টোরি (দুঃখ ও বেদনা:পাবলো ক্যাসাল, তাঁর নিজের গল্প) প্রকাশ করেন।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

১৯৭৩ সালে স্যান জুয়ান, পুয়ের্টো রিকোতে ৯৬ বছর বয়সে ক্যাসাল মৃত্যুবরণ করেন এবং পুয়ের্টা রিকো জাতীয় সমাধিতেই তাঁকে সমাধিস্থ করা হয়। তিনি ফ্রাঙ্কোর একনায়কতান্ত্রিক শাসনের অবসান দেখে যেতে পারেননি তবে রাজা প্রথম কার্লোস স্প্যানিশ সরকারের তরফ থেকে মরণোত্তর সম্মান দিয়েছিলেন এবং তাঁর জন্মের শতবার্ষিকী উপলক্ষে একটি ডাকটিকিট মুদ্রণ করেন।[১৬] ১৯৭৯ সালে তাঁর ব্যবহৃত জিনিসপত্র তাঁর বাড়ি এল ভেনড্রেল, কাতালোনিয়ায় সংরক্ষণ করা হয়। ১৯৮৯ সালে তাঁর মরণোত্তর গ্র্যামি আজীবন সম্মাননা পুরষ্কার দেয়া হয়।[১৭]

তাঁর সম্মানে[সম্পাদনা]

জোসেপ ভিলাডোমাট মন্টসেরাট কর্তৃক অঙ্কিত শতবার্ষিকী মূর্তি

ক্রোনবার্গ এবং জার্মানিফ্রাঙ্কফুর্ট এম মেইনে আন্তর্জাতিক পাবলো ক্যাসালস সেলো প্রতিযোগীতা অনুষ্ঠিত হয়। ২০০০ সাল থেকে প্রতি বছরই ক্রোনবার্গ আকাদেমি এর শুভারম্ভ করে ভবিষ্যৎ অভিজাত সেলোতে কর্মজীবন তৈরির উদ্দেশ্যে এবং পাউ ক্যাসালস ফাউন্ডেশন মার্টা ক্যাসালস ইস্টোমিন-এর অধীনে এই অনুষ্ঠান পরিচালনা করে। এর একটি পুরষ্কার হল ক্যাসালস কর্তৃক বিজিত গোফ্রিলার। ২০০০ সালে এর সর্বোচ্চ পুরষ্কার ক্লডিও বোহরগুয়েজকে দেয়া হয়।

আমেরিকান কমেডিয়ান জর্জ কার্লিন আমেরিকান টেলিভিশনের আর্কাইভ-এ দেয়া এক সাক্ষাৎকারে ক্যাসালসের বিশ্রামহীন অনুশীলন সম্পর্কে বলেন, যখন ক্যাসালসকে (তাঁর তখন ৯৩ বছর বয়স) জিজ্ঞেস করা হয় কেন সে দিনে তিনবার সেলো অনুশীলক করা চালিয়ে যাচ্ছে, উত্তরে তিনি বলেন, "আমি কিছু উন্নতি দেখতে শুরু করছি...এবং সেটিই আমার কাছে মূল বিষয়। আমি আমাকে এতে আরো ভাল দেখতে চাই।"

পুয়ের্টা রিকোতে এখনও বার্ষিকভাবে ক্যাসালস উৎসব পালিত হয়। ওল্ড স্যান জুয়ানে তাঁর জীবনের প্রতি উৎসর্গুকৃত একটি জাদুঘর রয়েছে। ৩রা অক্টোবর, ২০০৯ সালে সালা সিনফোনিকা পাবলো ক্যাসালসের প্রতি সম্মান দেখিয়ে একটি ঐকতান হল খোলা হয়। ৩৪ মিলিয়ন ডলারের এই ভবনটির ডিজাইন করে রোডোলফো ফার্নানান্দেজ এবং এটি সেন্ট্রো দ্য বেলাস আর্টেস-এ অবস্থিত সর্বাধুনিক ভবন। এটি পুয়ের্টা রিকো ঐকতান অরকেস্ট্রার নতুন বাড়ি।

টোকিওতে ১৯৮৭ সালে ক্যাসালস হল খোলা হয় চেম্বার সংগীতের এক নতুন ভেন্যু হিসেবে।[১৮] তাঁর সম্মানে পাবলো ক্যাসালস প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে শিকাগো, ইলিওনয়েস, ইউএসএ প্রভৃতি অঞ্চলে।[১৯]

ক্যাসালস কর্তৃক ১৯৩২ সালে সুরারোপকৃত 'মোটেট' ('রোমান ক্যাথলিকে অনুষ্ঠিত প্রার্থনাসংগীত') ও ভস ওমনেস আজকাল প্রায়শই অনুষ্ঠিত হয়ে থাকে।

আংশিক ডিস্কোগ্রাফি[সম্পাদনা]

  • ১৯২৬-১৯২৮: ক্যাসালস, জ্যাকুয়েস থিবাডআলফ্রেড কোর্টেট – স্কুবার্টের প্রথম ত্রয়ী, Schumann and Mendelssohn, the Beethoven "Archduke," Haydn's G Major and Beethoven's "Kakadu" Variations (লন্ডনে ধারণকৃত)
    Pau Casals bust, উলফেনবাটেল, জার্মানি
  • ১৯২৯, Brahms: Double Concerto with Thibaud and Cortot conducting Casals' own orchestra.
  • ১৯২৯: Dvorak and Brahms Concerti
  • ১৯২৯: Beethoven: Fourth Symphony (বার্সেলোনায় ধারণকৃত)
  • ১৯৩০: Beethoven: Cello Sonata Op. 69, with Otto Schulhof.
  • ১৯৩৬-১৯৩৯: Bach: Cello Suites
  • ১৯৩৬: Beethoven: Cello Sonata Op. 102 No. 1; and Brahms: Cello Sonata Op. 99, both with Mieczysław Horszowski.
  • ১৯৩৬: Boccherini: Cello Concerto in B-flat; and Bruch: Kol Nidrei – London Symphony conducted by Landon Ronald.
  • ১৯৩৭: Dvořák: Cello Concerto – Czech Philharmonic conducted by George Szell.
  • ১৯৩৯: Beethoven: Cello Sonatas Nos. 1, 2, and 5, with Mieczysław Horszowski.
  • ১৯৪৫: Elgar and Haydn Cello Concertos – BBC Symphony conducted by Sir Adrian Boult.
  • ১৯৫০: The first of the Prades Festival recordings on Columbia, including:
    • Bach: Sonatas for Viola da Gamba, BWV 1027–1029, with Paul Baumgartner
    • Schumann: Fünf Stücke im Volkston, with Leopold Mannes
    • Schumann: Cello Concerto, with Casals conducting from the cello.
  • ১৯৫১: At the Perpignan Festival, including:
    • Beethoven: Cello Sonata Op. 5 No. 2, and three sets of Variations, with Rudolf Serkin
    • Beethoven: Trios, Op. 1 No. 2, Op. 70 No. 2, Op. 97, and the Clarinet Op. 11 transcription; also
    • Schubert: Trio No. 1, D.898, all with Alexander Schneider and Eugene Istomin.
  • ১৯৫২: At Prades, including:
  • ১৯৫৩: At Prades, including:
    • Beethoven: Cello Sonatas Nos. 1, 3, 4, and 5, with Rudolf Serkin
    • Beethoven: Trios Op. 1 No. 1, and Op. 70 No. 1, with Joseph Fuchs and Eugene Istomin
    • Schumann: Cello Concerto in A minor, Op. 129, with Eugene Ormandy conducting the Festival orchestra
  • ১৯৫৪: At Prades (all live performances), including:
    • Beethoven: Cello Sonata No. 5, and Op. 66 Variations, with Mieczysław Horszowski
    • Beethoven: Trios Op. 70 No. 1, and Op. 121a, with Szymon Goldberg and Rudolf Serkin
  • ১৯৫৫: At Prades (all live performances), including:
    • Brahms: Trios Nos. 1–3, with Yehudi Menuhin and Eugene Istomin
    • Brahms: Clarinet Trio Op. 114, with clarinetist David Oppenheim and Eugene Istomin
    • Beethoven: Trio Op. 70 No. 2, with Szymon Goldberg and Rudolf Serkin
  • ১৯৫৬: At Prades (all live performances), including:
    • Bach: Sonata BWV 1027 for Viola da Gamba, with Mieczysław Horszowski
    • Schumann: Trio No. 2, with Yehudi Menuhin and Mieczysław Horszowski
    • Schumann: Trio No. 3, with Sándor Végh and Rudolf Serkin
  • ১৯৫৮: At Beethoven-Haus in Bonn (all live performances), including:
    • Beethoven: Sonata Op. 5 No. 1, with Wilhelm Kempff
    • Beethoven: Sonatas Op. 5 No. 2, Op. 102 No. 2, and the Horn Op. 17 transcription, with Mieczysław Horszowski
    • Beethoven: Trios Op. 1 No. 3, and Op. 97, with Sándor Végh and Mieczysław Horszowski
    • Beethoven: Trio Op. 70 No. 1, with Sándor Végh and Karl Engel
  • ১৯৫৯: At Prades (all live performances), including:
  • ১৯৬১: Mendelssohn: Piano Trio No. 1 with Alexander Schneider and Mieczysław Horszowski (Recorded live November 13, 1961 at the White House)
  • ১৯৬৩: Beethoven: Eighth Symphony
  • ১৯৬৩: Mendelssohn: Fourth Symphony, at Marlboro
  • ১৯৬৪-৬৫: Bach: Brandenburg Concerti, at Marlboro
  • ১৯৬৬: Bach: Orchestral Suites, at Marlboro
  • ১৯৬৯: Beethoven: First, Second, Fourth, Sixth ("Pastorale"), and Seventh Symphonies
  • ১৯৭৪: El Pessebre (The Manger) oratorio

আরো দেখুন[সম্পাদনা]


তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. EMI official web site
  2. Honors To Be Conferred On English Composers: Series of Concerts Devoted to modern Englishmen to be Given in London, New York Times, 1911-04-09, retrieved 2009-08-01
  3. ৩.০ ৩.১ "Pablo Casals – the Musician and the Man"
  4. "Proyecto de Recuperación de la Casa Defilló" (Espana ভাষায়)। Instituto de Cultura Puertorriqueña। সংগৃহীত 2007-01-25 
  5. Eric Siblin,The Cello Suites: J.S. Bach, Pablo Casals, and the Search for a Baroque Masterpiece. Atlantic; 336 pages, 2010
  6. Ovation Press Editors: Pablo Casals
  7. Chronological List of Medal of Freedom, archived 2007-10-18, retrieved 2009-08-01
  8. "Master cellist Pablo Casal marries 21-year-old pupil"The News and Courier (Charleston, South Carolina)। 5 August 1957। 
  9. Gardner, Jasmine (20 March 2012)। "Julian Lloyd Webber talks music and marriage"London Evening Standard 
  10. Amis, John (6 February 1993)। "Master of the Cello: Pablo Casals"The Tablet 
  11. Festival Casals de Puerto Rico: Historia, retrieved 2009-08-01 (স্পেনীয়)
  12. The Sinfonian December 2002
  13. United Nations – Fact Sheet # 9: "Does the UN have a hymn or national anthem?"
  14. Pau Casals Foundation, United Nations Peace Medal
  15. Video of Pau Casals "I am a catalan" speech, 1971
  16. El País/Sociedad Estatal de Correos y Telegrafos 2003
  17. Lifetime Achievement Award, Grammy Award official web site, retrieved 2009-08-01.
  18. "Casals Hall"Nagata Acoustics। সংগৃহীত March 6, 2012 
  19. "Pablo Casals Elementary School" Chicago Public Schools. Retrieved 28 July 2013.

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Pablo Casals, Robert Baldock, Northeastern University Press, বোস্টন (১৯৯২), ISBN 1-55553-176-8
  • Pablo Casals, a Biography, H. L. Kirk, Holt Rinehart and Winston, নিউ ইয়র্ক (১৯৭৪), ISBN 0-03-007616-1
  • Conversations with Casals. With an Introduction by Pablo Casals. With an Appreciation by Thomas Mann, J. Ma. Corredor, E. P. Dutton, নিউ ইয়র্ক (১৯৫৭)
  • Joys and Sorrows; Reflections by Pablo Casals as Told to Albert E. Kahn, Pablo Casals, Simon and Schuster, নিউ ইয়র্ক (1973) ISBN 0-671-20485-8
  • Pablo Casals, Lillian Littlehales, W. W. Norton, নিউ ইয়র্ক (১৯২৯)
  • Song of the Birds. Sayings, Stories and Impressions of Pablo Casals, Compiled, Edited and with a Foreword by Julian Lloyd Webber, Robson Books, লন্ডন (১৯৮৫). ISBN 0-86051-305-X
  • Just Play Naturally. An Account of Her Study with Pablo Casals in the 1950s and Her Discovery of the Resonance between His Teaching and the Principles of the Alexander Technique, Vivien Mackie (in Conversation with Joe Armstrong), বোস্টন-লন্ডন ১৯৮৪-২০০০, Duende Edition (২০০৬). ISBN 1-4257-0869-2.
  • Arnold Schoenberg Correspondence. A Collection of Translated and Annotated Letters Exchanged with Guido Adler, Pablo Casals, Emanuel Feuermann, and Olin Downes, Egbert M. Ennulat, The Scarecrow Press, Metuchen (১৯৯১). ISBN 0-8108-2452-3
  • The Memoirs of Pablo Casals, Pablo Casals as Told to Thomas Dozier, Life en Espanol, নিউ ইয়র্ক (১৯৫৯).
  • Cellist in Exile. A Portrait of Pablo Casals, Bernard Taper, McGraw-Hill, নিউ ইয়র্ক (১৯৬২).
  • Casals, Photographed by Fritz Henle, American Photographic Book Publishing Co., Garden City (১৯৭৫). ISBN 0-8174-0593-3.
  • Virtuoso, Harvey Sachs, Thames and Hudson, নিউ ইয়র্ক (১৯৮২), ষষ্ঠ অধ্যায়, পৃ. ১২৯-১৫১ পাবলো ক্যাসালকে উৎসর্গকৃত। ISBN 0-500-01286-5.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]