নীতীন বসু

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

নীতীন বসু (জন্ম: ২৬ এপ্রিল ১৮৯৭ - মৃত্যু: ১৩ এপ্রিল ১৯৮৬) একজন বিখ্যাত চলচ্চিত্র পরিচালক ।

নীতীন বসুর আদি নিবাস বর্তমান বাংলাদেশের ময়মনসিংহের জয়সিদ্ধিতে । তাঁর পিতা কুন্তলীন খ্যাত সুগন্ধ ব্যবসায়ী হেমেন্দ্রমোহন বসু

প্রথম জীবন[সম্পাদনা]

নীতীন বসু ১৯২২ খ্রিস্টাব্দে ইংরেজি বিষয়ে প্রথম হয়ে ম্যাট্রিক পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হন । এরপর তিনি বিএসসি তে ভর্তি হলেও পরীক্ষায় বসেননি । তাঁর পিতা হেমেন্দ্রমোহনের ক্যামেরা প্রজেক্টরের ব্যবসা ছিল । পিতার কাছ থেকেই চলচ্চিত্র সংক্রান্ত বহু বিষয়ে বিশেষ করে ফটোগ্রাফিতে প্রথম শিক্ষালাভ করেন । ১৯২১ খ্রিস্টাব্দে পুরীর রথযাত্রার উপর তাঁর তোলা ছবি নিউইয়র্কের ইন্টারন্যাশন্যাল নিউজ রিল কর্পোরেশন ১০০ ডলারে কিনেছিল ।

চলচ্চিত্র কর্ম[সম্পাদনা]

চলচ্চিত্রে তাঁর প্রথম কাজ ইনকারণেশন ছবিতে । ১৯২৪ খ্রিস্টাব্দে নির্বাক ছবি পুনর্জন্মের তিনি ক্যামেরাম্যান ছিলেন । স্বাধীনভাবে কাজ করার তিনি প্রথম সুযোগ পান প্রফুল্ল রায়, পি.এন.রায় এবং প্রেমাঙ্কুর আতর্থীর সাথে ইন্টার‌ন্যাশনাল ফিল্ম ক্র্যাফট এর চাষার মেয়েচোরকাঁটা ছবি দুটিতে ।

নিউ থিয়েটার্স স্টুডিয়োর শুরু থেকে তিনি সেখানে প্রধান ক্যামেরাম্যান এবং তাঁর ভাই মুকুল বসু শব্দযন্ত্রী হিসাবে যুক্ত হন । এই স্টুডিও থেকে ১৯৩২ খ্রিস্টাব্দে মুক্তি পায় দেনা পাওনা এবং চণ্ডীদাস ছবি । ভাগ্যচক্র ছবিতে প্রথম প্লে-ব্যাক প্রথার প্রবর্তন হয় । নির্বাক থেকে সবাক এবং সবাক ছবিতে প্লে-ব্যাক প্রথার প্রবর্তনে তাঁর অবদান উল্লেখযোগ্য ।

ক্যামেরার কাজ করার সাথে সাথে তিনি চিত্র পরিচালনাও শুরু করেন । তাঁর পরিচালিত প্রথম ছবি যুগান্তকারী চণ্ডীদাস ছবির হিন্দি চিত্ররূপ । নিউ থিয়েটার্সে তাঁর পরিচালিত প্রায় কুড়িটি ছবির ভিতরে চণ্ডীদাস, জীবন মরণ, দেশের মাটি, দিদি, কাশীনাথ প্রভৃতি উল্লেখযোগ্য ।

১৯৪৬ খ্রিস্টাব্দে নিউ থিয়েটার্স ছেড়ে তিনি বম্বের চিত্রজগতে যান । সেখানে পরায়া ধন, দীদার, ওয়ারিশ, গঙ্গা যমুনা, প্রভৃতি প্রায় কুড়িটি ছবি করেন । এর মধ্যে বিচার এবং সমর ছবিদুটি বাংলায় হয়েছিল ।

ভারতীয় চলচ্চিত্রের অন্যতম পথিকৃৎ হিসাবে ১৯৭৮ খ্রিস্টাব্দে ভারত সরকার তাঁকে দাদাসাহেব ফালকে পুরস্কার দিয়ে সম্মানিত করে । তিনি ভাল বেহালা বাজাতে পারতেন ।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  • সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান - দ্বিতীয় খণ্ড - সাহিত্য সংসদ