ডাচ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
ডাচ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি
পূর্বের ধরন পাবলিক কোম্পানি
শিল্প ব্যবসা
অবস্থা দেওলিয়া
প্রতিষ্ঠাকাল ২০ মার্চ ১৬০২ (1602-03-20)[১]
বিলুপ্তিকাল ৩১ ডিসেম্বর ১৭৯৯ (1799-12-31)
সদর দপ্তর ইস্ট ইন্ডিয়া হাউজ, আমস্টারডাম, ডাচ প্রজাতন্ত্র

ওলন্দাজ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি (ওলন্দাজ: Vereenigde Oostindische Compagnie, VOC, "United East India Company") ১৬০২ সালে প্রতিষ্ঠিত একটি ডাচ সনদপ্রাপ্ত প্রতিষ্ঠান। প্রাচীন ওলন্দাজ ভাষায় এ সংস্থাটি ভেরিনিগদি ওস্ত-ইন্ডিস কোম্পানি (ভিওসি) নামে পরিচিত। এশিয়ায় একচেটিয়া ব্যবসা করার উদ্দেশ্যে নেদারল্যান্ডস সরকারের স্টেটস জেনারেল ২১ বছর মেয়াদে সংস্থাটিকে অনুমতি প্রদান করে। সচরাচর এ প্রতিষ্ঠানকে বিশ্বের প্রথম বহুজাতিক সংস্থারূপে বিবেচনা করা হয়[২] যা স্টক সংক্রান্ত বিষয়েও বিশ্বের প্রথম প্রতিষ্ঠান।[৩] এ প্রতিষ্ঠানের যুদ্ধ-বিগ্রহ শুরু করার,[৪] সন্ধি করার, নিজস্ব অর্থব্যবস্থা গড়ে তোলার এবং নতুন উপনিবেশ স্থাপন করার ক্ষমতা ছিল।[৪][৫][৬] প্রায় দুইশত বছর যাবৎ গুরুত্বপূর্ণ প্রতিষ্ঠান হিসেবে কাজ চালায়। ১৮০০ সালে দেওলিয়ায় এর বিলুপ্তি ঘটে।[৭] ভিওসি’র নিয়ন্ত্রণাধীন উপনিবেশগুলো ডাচ ইস্ট ইন্ডিজ নামে পরিচিতি পায় যা পরবর্তীকালে স্বাধীন ইন্দোনেশিয়ার অভ্যুদয় ঘটে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ভিওসি’র অর্থায়ণে নির্মিত জাহাজগুলোর মাধ্যমে অস্ট্রেলিয়ায় প্রারম্ভিক অভিযান পরিচালিত হয়েছিল। ইউরোপীয়দের প্রথম বসতি স্থাপন ১৬২৯ সালে ভিওসি’র অর্থায়ণে নির্মিত বাটাভিয়া জাহাজের মাধ্যমে ঘটে। জাহাজ পরিচালনায় নিযুক্ত অনেক নাবিক বিদ্রোহ করলে তাদেরকে প্রাণদণ্ডে দণ্ডিত করা হয়। ওটার লুজ নামীয় এক সৈনিক ও জ্যঁ পেলগ্রুম দ্যঁ বাই নামীয় এক কেবিন বয় ওইতিকারা গালি এলাকায় অবস্থিত মারচিজন নদীমুখ পর্যন্ত জীবিত ছিলেন। পরবর্তীতে তাদের আর দেখা যায়নি।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Dutch East India Company (VOC)"। Canon van Nederland। সংগৃহীত 19 March 2011 
  2. http://www.kb.nl/dossiers/voc/voc.html VOC at the National Library of the Netherlands (in Dutch)
  3. Mondo Visione web site: Chambers, Clem. "Who needs stock exchanges?" Exchanges Handbook. -- retrieved February 1, 2008.
  4. ৪.০ ৪.১ "Slave Ship Mutiny: Program Transcript"Secrets of the Dead। PBS। 11 November 2010। সংগৃহীত 12 November 2010 
  5. Ames, Glenn J. (2008)। The Globe Encompassed: The Age of European Discovery, 1500–1700। পৃ: 102–103। 
  6. Ames, Glenn J. (2008)। The Globe Encompassed: The Age of European Discovery, 1500-1700। পৃ: pp. 102-103। 
  7. Ricklefs, M.C. (1991)। A History of Modern Indonesia Since c.1300, 2nd Edition। London: MacMillan। পৃ: p.110। আইএসবিএন 0-333-57689-6 

আরও দেখুন[সম্পাদনা]

আরও পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Ames, Glenn J. The Globe Encompassed: The Age of European Discovery, 1500–1700. Pearson Prentice Hall, 2008.
  • Blussé, L. et al., eds. The Deshima টেমপ্লেট:Sic Dagregisters: Their Original Tables of Content. Leiden, 1995–2001.
  • Blussé, L. et al., eds. The Deshima Diaries Marginalia 1740–1800. Tokyo, 2004.
  • Boxer, Charles R. Jan Compagnie in Japan, 1600–1850: An Essay on the Cultural Artistic and Scientific Influence Exercised by the Hollanders in Japan from the Seventeenth to the Nineteenth Centuries. Den Haag, 1950.
  • Boxer, Charles R. The Dutch Seaborne Empire: 1600–1800 (London, 1965.)
  • Braam Houckgeest, Andre Everard Van (1798), An authentic account of the embassy of the Dutch East-India Company, to the court of the emperor of China, in the years 1794 and 1795, London: R. Phillips, ওসিএলসি 002094734  v.2
  • Bruijn, J.R., Femme Gaastra, and I. Schöffer, eds., Dutch-Asiatic shipping in the 17th and 18th centuries. Rijks geschiedkundige publicatiën. Grote serie, vol. 165-167. (The Hague: Nijhoff, 1979, 1987).
  • Burger, M. "The Forgotten Gold? The Importance of the Dutch opium trade in the Seventeenth Century", in Eidos. University College Utrecht Academic Magazine. (2003), Issue 2/2003 Utrecht University
  • Chaudhuri, K.N., and Israel, J.I. "The English and Dutch East India Companies and the Glorious Revolution of 1688-9", in Jonathan I. Israel, ed. The Anglo-Dutch moment. Essays on the Glorious Revolution and its world impact (Cambridge U.P. 1991), ISBN 0-521-39075-3, pp. 407–438
  • De Lange, William. Pars Japonica: the first Dutch expedition to reach the shores of Japan, (Floating World Editions 2006) . ISBN 1-891640-23-2
  • Furber, Holden, Rival Empires of Trade in the Orient 1600–1800. Minneapolis, 1976
  • Glamann, Kristof., Dutch-Asiatic Trade 1620–1740. (The Hague, 1958)
  • Israel, Jonathan I., Dutch Primacy in World Trade 1585–1740. (Oxford, 1989)
  • Prakash, Om. The Dutch East India Company and the Economy of Bengal1630-1720 (Princeton University Press, 1985)
  • Vries, Jan de, and A. van der Woude. The First Modern Economy. Success, Failure, and Perseverance of the Dutch Economy, 1500–1815, (Cambridge University Press, 1997), ISBN 978-0-521-57825-7

প্রধান ডাচ উৎস[সম্পাদনা]

  • Femme Gaastra, The Dutch East India Company: expansion and decline. Zutphen: Walburg Pers, 2003.
  • Femme Gaastra, Particuliere geldstromen binnen het VOC-bedrijf 1640–1795. Leiden: Rijksmuseum Het Koninklijk Penningkabinet, 2002.
  • On the eighteenth century as a category of Asian history: Van Leur in retrospect, edited by Leonard Blussé and Femme Gaastra. Aldershot: Ashgate, 1998.
  • Ships, sailors and spices: East India companies and their shipping in the 16th, 17th and 18th centuries, ed. by Jaap R. Bruijn and Femme Gaastra. Amsterdam: NEHA, 1993.
  • De archieven van de Verenigde Oostindische Compagnie = The archives of the Dutch East India Company: (1602–1795), M.A.P. Meilink-Roelofsz (inventaris); R. Raben en H. Spijkerman. eds. 's-Gravenhage: Sdu Uitgeverij, 1992.
  • Dutch-Asiatic shipping in the 17th and 18th centuries, by J. R. Bruijn, Femme Gaastra and I. Schöffer; with assist. from A.C.J. Vermeulen. Three Volumes. Rijks geschiedkundige publicatiën, Grote serie, 165-167. The Hague: Nijhoff, 1979–1987.
  • Companies and trade: essays on overseas trading companies during the Ancien Régime, by P. H. Boulle et al.; ed. by Leonard Blussé and Femme Gaastra. The Hague: Leiden University Press, 1981.
  • Bewind en Belied bij de VOC: De financiële politik van de bewindhebbers, 1672–1702 by Femme Gaastra. Zutphen: De Walburg Pers, 1968.

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]