কিম জং ইল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
কিম জং ইল
김정일
উত্তর কোরিয়ার প্রধান নেতা
কার্যালয়ে
৮ জুলাই, ১৯৯৪ – ১৭ ডিসেম্বর, ২০১১[১]
প্রিমিয়ার হং সং-ন্যাম
পাক পং-জু
কিম ইয়ুং-ইল
চো ইয়ুং-রিম
পূর্বসূরী কিম ইল-সাং
উত্তরসূরী কিম জং-উন
কোরিয়ার ওয়ার্কার্স পার্টির মহাসচিব
কার্যালয়ে
৮ অক্টোবর, ১৯৯৭ – ১৭ ডিসেম্বর, ২০১১
Deputy কিম ইয়ুং-ন্যাম
চো ইয়ুং-রিম
জো মাইয়ুং-রোক
রি ইয়ং-হো
পূর্বসূরী কিম ইল-সাং
উত্তর কোরিয়ার জাতীয় প্রতিরক্ষা কমিশনের সভাপতি
কার্যালয়ে
৯ এপ্রিল, ১৯৯৩ – ১৭ ডিসেম্বর, ২০১১
Deputy জো মাইয়ুং-রোক
পূর্বসূরী সৃষ্ট পদ
কোরিয়ান পিপিলস্‌ আর্মির সুপ্রিম কমান্ডার
কার্যালয়ে
২৪ ডিসেম্বর, ১৯৯১ – ১৭ ডিসেম্বর, ২০১১
পূর্বসূরী কিম ইল-সাং
কেন্দ্রীয় সামরিক সংস্থার সভাপতি
কার্যালয়ে
৮ অক্টোবর, ১৯৯৭ – ১৭ ডিসেম্বর, ২০১১
পূর্বসূরী কিম ইল-সাং
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম (১৯৪২-০২-১৬)১৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৪২
বেইকদু মাউন্টেইন, জাপান নিয়ন্ত্রণাধীন কোরিয়া(উত্তর কোরীয় দলিল)
(১৯৪১-০২-১৬)১৬ ফেব্রুয়ারি ১৯৪১
ভায়াতস্‌কোয়ে, খবরোভস্ক ক্রেই, সোভিয়েত ইউনিয়ন(সোভিয়েত দলিল)
মৃত্যু ১৭ ডিসেম্বর ২০১১(২০১১-১২-১৭)
(৬৯ কিংবা ৭০ বছর)
উত্তর কোরিয়া
রাজনৈতিক দল কোরিয়ার ওয়ার্কার্স পার্টি
দাম্পত্য সঙ্গী কিম ইয়াং-সুক
সং হাই-রিম
কো ইয়াং-হী
কিম ওক
সন্তান কিম সাল-সং
কিম জং-ন্যাম
কিম জং-চুল
কিম জং-উন
অধ্যয়নকৃত শিক্ষা
প্রতিষ্ঠান
কিম ইল-সাং ইউনিভার্সিটি
ইউনিভার্সিটি অব মাল্টা
স্বাক্ষর
সামরিক পরিষেবা
আনুগত্য  উত্তর কোরিয়া
সার্ভিস/বিভাগ কোরিয়ান পিপিলস্‌ আর্মি
চাকুরির বছর ১৯৯১-২০১১
পদ ওনসু
নেতৃত্ব সুপ্রিম কমান্ডার

কিম জং-ইল (জন্মঃ ১৬ ফেব্রুয়ারি, ১৯৪২ - মৃত্যুঃ ১৭ ডিসেম্বর, ২০১১) গণতান্ত্রিক গণপ্রজাতন্ত্রী কোরিয়া বা উত্তর কোরিয়ার শাসক ও প্রধান ব্যক্তিত্ব ছিলেন। শৈশবে তাঁর নাম ছিল ইউরি ইরসেনোভিচ কিম। তিনি সমাজতান্ত্রিক রাজনৈতিক দল ওয়ার্কার্স পার্টির মহাসচিব ছিলেন। দলটি ১৯৪৮ খ্রিস্টাব্দ থেকে অদ্যাবধি উত্তর কোরিয়ায় ক্ষমতাসীন রয়েছে। ১৯৯৪ খ্রিস্টাব্দে স্বীয় পিতা কিম ইল সাংয়ের মৃত্যুর পর ঐতিহ্যবাহী স্তালিনপন্থী সমাজতান্ত্রিক এই দেশটির নেতৃত্ব গ্রহণ করেন।

জন্ম রহস্য[সম্পাদনা]

উত্তর কোরিয়া নামে পরিচিত ডেমোক্রেটিক পিপলস রিপাবলিক অব কোরিয়ার শীর্ষ নেতা ছিলেন কিম জং ইল। তিনি দ্বিতীয় কিম জং নামেও পরিচিত। কিম জং ইলের পিতা কিম ইল সাং-কে উত্তর কোরিয়ার জনক বলা হয়। তাঁর জন্ম হয় ১৯১২ খ্রিস্টাব্দের ১৫ এপ্রিল পিয়ং ইয়ংয়ে। পৃথক রাষ্ট হিসেবে পরিচিতি পাওয়ার পর থেকে সাংয়ের জন্মদিনকে দ্য ডে অব সান হিসেবেই পালন করে আসছে উত্তর কোরিয়ার জনগণ। এই রাষ্ট্রনায়কের ঔরসেই কিম জং ইলের জন্ম। সে সময় গেরিলা যুদ্ধ চলছিল। কোরিয়ার মাউন্ট প্যাকেটু নামীয় সর্বোচ্চ পর্বত চূড়ায় একটি তাঁবুতে তাঁর জন্ম হয়। পর্বত শিখরে প্রসূত শিশুটিই পরবর্তীকালে উত্তর কোরিয়ার রাজনীতিতে মৃত্যুর শেষদিন পর্যন্ত শীর্ষ নেতৃত্বে ছিলেন। তবে তাঁর জন্ম তারিখ নিয়ে ভিন্ন ভিন্ন কাহিনী প্রচলিত রয়েছে। একটি কাহিনী অনুসারে সাইবেরিয়ার এক গ্রামে তাঁর জন্ম হয় ও নামকরণ করা হয়েছিল ইউরি ইরসেনোভিচ কিম। সাবেক সোভিয়েত ইউনিয়নের দলিলপত্র অনুযায়ী তাঁর জন্ম ১৯৪১ খ্রিস্টাব্দে ১৬ ফেব্রুয়ারি তারিখে। অন্য কাহিনী অনুসারে অর্থাৎ উত্তর কোরিয়ার দলিলপত্র অনুযায়ী তাঁর জন্ম হয়েছিল ১৯৪২ খ্রিস্টাব্দের ১৬ ফেব্রুয়ারি তারিখে।[২]

শিক্ষাজীবন[সম্পাদনা]

সরকারী নথিপত্র অনুযায়ী জানা যায় যে, কিম সেপ্টেম্বর, ১৯৫০ থেকে আগস্ট, ১৯৬০-এর মধ্যে সাধারণ শিক্ষাগ্রহণ করেন। তিনি পিয়ং ইয়াংয়ের ৪নং প্রাথমিক বিদ্যালয় এবং ১নং মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে (নামস্যান হায়ার মিডিল স্কুল) অধ্যয়ন করেন। এরফলে তার বৈদেশিক শিক্ষা বেশ বিতর্কের মধ্যে পড়ে। অনেকে বিশ্বাস করেন যে তিনি গণপ্রজাতন্ত্রী চীনে শৈশবকালীন শিক্ষাগ্রহণ করেন। এটি হয়েছে মূলতঃ কোরীয় যুদ্ধ থেকে তাঁকে নিরাপদ রাখার স্বার্থে।[৩]

বিদ্যালয় চলাকালীন সময়েই তিনি রাজনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়েন। তিনি চিলড্রেনস্‌ ইউনিয়নের সক্রীয় কর্মী ছিলেন।[৪] এছাড়াও, স্টাডি গ্রুপে মার্কসবাদ এবং অন্যান্য সাহিত্যের সাথে জড়িত ডেমোক্রেটিক ইয়ুথ লীগের সমর্থক ছিলেন তিনি। সেপ্টেম্বর, ১৯৫৭ সালে তিনি ডেমোক্রেটিক ইয়ুথ লীগের সহঃ সভাপতি নির্বাচিত হন।

১৯৭০-এর দশকের শুরুতে কিম ইউনিভার্সিটি অব মাল্টা থেকে ইংরেজি ভাষায় শিক্ষাগ্রহণ করেন।[৫] মাল্টায় অবস্থানের সময় স্বল্প মেয়াদের ছুটির দিনগুলোতে তিনি প্রধানমন্ত্রী ডোম মিনটোফের আতিথ্য গ্রহণ করেছিলেন।[৬]

রাজনৈতিক জীবন[সম্পাদনা]

পিতার ঘনিষ্ঠ সান্নিধ্যে থেকে তিনি হাতে-কলমে রাজনীতি শিখে নিয়েছিলেন। পিতা কিম ইল সাং ১৯৪৮ খ্রিস্টাব্দের ৯ সেপ্টেম্বর ওয়ার্কার্স পার্টি নামক রাজনৈতিক দল প্রতিষ্ঠা করেন। তিনি শুধু উত্তর কোরিয়ার জন্য এই দল গঠন করেন। সে সময়ই তিনি উত্তর কোরিয়াকে একটি স্বাধীন রাষ্ট্র হিসেবে ঘোষণা করেন। ১৯৫০ খ্রিস্টাব্দের ২৫ জুন উত্তর কোরিয়া পৃথক হওয়ার জন্য দক্ষিণ কোরিয়ার ওপর আক্রমণ চালায়। ১৯৫৩ খ্রিস্টাব্দের ২৭ জুলাই সাময়িক যুদ্ধবিরতি ঘোষণা করা হয়। এরপর থেকেই উত্তর কোরিয়া ও দক্ষিণ কোরিয়া পৃথক দেশ হিসেবে বিশ্বে পরিচিত হয়ে আসছে। শুরু থেকেই উত্তর কোরিয়া সমাজতান্ত্রিক দেশ হিসেবে পরিচালিত হচ্ছে। ১৯৭৩ খ্রিস্টাব্দের সেপ্টেম্বর মাসে আনুষ্ঠানিকভাবে রাজনীতিতে আসেন কিম জং ইল। ১৯৭৪ খ্রিস্টাব্দে ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটির নেতা হিসেবে নির্বাচিত হন তিনি। এর মাধ্যমে উত্তর কোরিয়ার ভবিষ্যৎ নেতা হিসাবে তাঁর আসনটি পাকাপোক্ত হয়ে যায়। তিনি উত্তর কোরিয়ায় সমাজতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থাকে আরও সুদৃঢ় অবস্থানে নিয়ে যেতে সক্ষম হন। সেই সময় থেকেই তিনি উত্তর কোরিয়ার নেতৃত্ব দিয়ে এসেছেন। ১৯৮৩ খ্রিস্টাব্দের ৮ জানুয়ারি কিম জং তৃতীয়বারের মতো পিতা হন। এই পুত্র সন্তানের নাম কিম জং উন। ১৯৯১ খ্রিস্টাব্দের ২৪ ডিসেম্বর কিম জং ইল উত্তর কোরিয়ার সেনাবাহিনীর নামকরণ করেন সুপ্রিম কমান্ডার অফ দ্য কোরিয়ান পিপিলস্‌ আর্মি। ঐ সময় জাতিসংঘও দ্বি-খণ্ডিত কোরিয়াকে পৃথক দুটি দেশ হিসেবে স্বীকৃতি দেয়। ১৯৯৩ খ্রিস্টাব্দের এপ্রিল মাসে কিম দেশের জাতীয় প্রতিরক্ষা কমিশনের চেয়ারম্যান নিযুক্ত হন। ১৯৯৪ খ্রিস্টাব্দের ৮ জুলাই পিতা কিম ইল সাং মারা গেলে তাঁর উত্তরসূরি হিসেবে ক্ষমতাসীন হন কিম জং ইল। এরপর থেকে উত্তর কোরিয়ার শাসক হিসেবে দেশ পরিচালনা করেছেন। দেশ পরিচালনা করতে গিয়ে নানা বাধা-বিপত্তি সবসময় সাহস ও ধৈর্য্যের সঙ্গে মোকাবেলা করতে হয়েছে তাঁকে।[৭]

পদবী ধারণ[সম্পাদনা]

  • সদস্য, পার্টি সেন্টার, কোরিয়ার ওয়ার্কার্স পার্টি (১৯৭০-এর দশকে)
  • সহঃ-সভাপতি, কোরিয়ার ওয়ার্কার্স পার্টির কেন্দ্রীয় কমিটি (১৯৭২ - ১৯৮০)
  • প্রিয় নেতা (Chinaehaneun Jidoja) (১৯৭০ দশকের শেষদিক - ১৯৯৪)
  • সদস্য, প্রেসিডিয়াম কমিটি, সুপ্রিম পিপিলস্‌ এ্যাসেম্বলী
  • সম্পাদক, কোরিয়ার ওয়ার্কার্স পার্টি, (১৯৮০ - ১৯৯৪)
  • সুপ্রিম কমান্ডার, কোরিয়ান পিপিলস্‌ আর্মি (২৫ ডিসেম্বর, ১৯৯১ – ১৭ ডিসেম্বর, ২০১১)
  • মার্শাল, উত্তর কোরিয়া (১৯৯৩ - ২০১১)
  • সভাপতি, জাতীয় প্রতিরক্ষা কমিশন (১৯৯৩ - ২০১১)
  • মহান নেতা (Widehan Ryongdoja) (জুলাই, ১৯৯৪ – ডিসেম্বর, ২০১১)
  • মহাসচিব, কোরিয়ার ওয়ার্কার্স পার্টি (অক্টোবর, ১৯৯৭ – ডিসেম্বর, ২০১১)
  • সভাপতি, সেন্ট্রাল মিলিটারী কমিশন (অক্টোবর, ১৯৯৭ – ডিসেম্বর, ২০১১)

মূল্যায়ন[সম্পাদনা]

বিশ্বখ্যাত ফোর্বস ম্যাগাজিন ২০১০ খ্রিস্টাব্দে কিম জং ইল-কে বিশ্বের অন্যতম ক্ষমতাধর ব্যক্তি হিসেবে ঘোষণা করে। সাময়িকী কর্তৃপক্ষের তালিকায় বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর ব্যক্তি হিসেবে ৩১তম স্থান দখল করেছিলেন তিনি।[৮]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

১৭ ডিসেম্বর, ২০১১ শনিবার হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তাঁর মৃত্যু হয়। মৃত্যুর দু'দিন পর উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় টেলিভিশন ও বার্তা সংস্থা কেসিএনএ সোমবার এই মৃত্যুসংবাদ প্রথম প্রচার করে। সরকারী বিবৃতিতে বলা হয়, মাত্রাতিরিক্ত শারীরিক ও মানসিক চাপের কারণেই তাঁর মৃত্যু হয়েছে। ঐদিন রাজধানী পিয়ং ইয়ংয়ের বাইরে ট্রেনে সফরকালে তাঁর হার্ট এটাক হয়। মৃত্যুকালে তাঁর বয়স হয়েছিল ৬০ বৎসর। কিম জং ইলের মৃত্যুতে ১৭ থেকে ২৯ ডিসেম্বর, ২০১১ পর্যন্ত ১৩ দিনের রাষ্ট্রীয় শোক ঘোষণা করা হয়েছে। ২৮ ডিসেম্বর, ২০১১ তারিখে রাজধানী পিয়ংইয়ংয়ে শেষকৃত্য অনুষ্ঠিত হবে। তাঁর তৃতীয় পুত্র কিম জং উনকে উত্তরসূরি হিসেবে ঘোষণা করা হয়েছে।[৯] মৃত্যুর আগে দীর্ঘদিন যাবৎ তাঁর শারীরিক অসুস্থতা নিয়ে গুঞ্জন ছিল। তাঁর মৃত্যু হয়েছে এরকম গুজব বিভিন্ন সময়ে ছড়িয়েছে। তিনি ডায়াবেটিসে ভুগছিলেন। এছাড়া কয়েকবার তিনি পক্ষাঘাতেও আক্রান্ত হয়েছেন বলে শোনা গেছে। সর্বশেষ উইকিলিকসে প্রকাশিত মার্কিন গোপন নথি অনুযায়ী তিনি ইপিলিপ্সিতে ভুগছিলেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "North Korea backs son after Kim Jong-Il death"। Agence France-Presse। সংগৃহীত 19 December 2011 
  2. Kim Jong Il biography
  3. Martin, Bradley K. (2004). Under the Loving Care of the Fatherly Leader, New York: St. Martin's Press. ISBN 0-312-32221-6.
  4. Kim Jong Il – Short Biography. Pyongyang: Foreign Languages Press, 1998, p. 4.
  5. Calleja, Stephen (7 February 2010)। "1982 Labour government "secret" agreement with North Korea – 'Times change' – Alex Sceberras Trigona"The Malta Independent। সংগৃহীত 15 September 2010 
  6. "Kim is a baby rattling the sides of a cot", Guardian Unlimited, 30 December 2002.
  7. কিম জং ২য় জীবনী
  8. The 100 Most Powerful People in the World, Forbes Magazine
  9. North Korean leader Kim Jong Il dead at 69

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]

কিম জং ইল সম্পর্কে আরও তথ্য পেতে হলে উইকিপিডিয়ার সহপ্রকল্পগুলোতে অনুসন্ধান করে দেখতে পারেন:

Wiktionary-logo-en.svg সংজ্ঞা, উইকিঅভিধান হতে
Wikibooks-logo.svg পাঠ্যবই, উইকিবই হতে
Wikiquote-logo.svg উক্তি, উইকিউক্তি হতে
Wikisource-logo.svg রচনা সংকলন, উইকিউৎস হতে
Commons-logo.svg ছবি ও অন্যান্য মিডিয়া, কমন্স হতে
Wikivoyage-Logo-v3-icon.svg ভ্রমণ নির্দেশিকা, উইকিভয়েজ হতে
Wikinews-logo.png সংবাদ, উইকিসংবাদ হতে

পার্টির রাজনৈতিক কার্যালয়
পূর্বসূরী
কিম উং-জু
হেড অব দি অর্গানাইজেশন এন্ড গাইডেন্স ডিপার্টম্যান্ট
১৯৭৪-২০১১


উত্তরসূরী
নির্ধারিত হয়নি
কোরিয়ার ওয়ার্কার্স পার্টির মহাসচিব
১৯৭৭-২০১১


সেন্ট্রাল মিলিটারী কমিশনের সভাপতি
১৯৯৭-২০১১


রাজনৈতিক দফতর
পূর্বসূরী
জাতীয় প্রতিরক্ষা কমিশনের ১ম সহ-সভাপতি
১৯৯০-১৯৯৩


উত্তরসূরী
জো মাইয়ং-রোক
নতুন অফিস জাতীয় প্রতিরক্ষা কমিশনের সভাপতি
১৯৯৩-২০১১


উত্তরসূরী
নির্ধারিত হয়নি
পূর্বসূরী
কিম ইং-সাং
কোরিয়ান পিপিলস্‌ আর্মির সুপ্রিম কমান্ডার
১৯৯১-২০১১


উত্তরসূরী
নির্ধারিত হয়নি