ইমাম সমুদ্র

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
(Imam Samudra থেকে পুনর্নির্দেশিত)
ইমাম সমুদ্র
ইমাম সমুদ্র.jpeg
ইমাম সমুদ্র
জন্ম
আবদুল আজিজ

১৪ জানুয়ারি, ১৯৭০
সেরাং, বান্তেন, ইন্দোনেশিয়া
মৃত্যু৯ নভেম্বর,২০০৮
জাতীয়তাইন্দোনেশিয়ান
অন্যান্য নামকুদামা, ফাতিহ, আবু উমর, হ্যারি
পরিচিতির কারণক্রিস্টমাস ইভ ইন্দোনেশিয়া ২০০০ বোমা হামলা এবং ২০০২ বালি বোমা হামলা
সহযোগীহুদা বিন আবদুল হক, আমরোজি বিন নুর হাসিম

ইমাম সমুদ্র ( আরবি: الإمام سامودرة‎, প্রতিবর্ণী. al-Imām Sāmūdirah‎ , ১৪ জানুয়ারী ১৯৭০ - ৯ নভেম্বর ২০০৮), আব্দুল আজিজ নামেও পরিচিত, [১] কুদামা/কুদামা, ফাতিহ/ফাত, আবু উমর বা হেরি, [২] একজন ইন্দোনেশিয়ান ছিলেন যিনি এক হত্যাকাণ্ড পরিচালনায় তার ভূমিকার জন্য দোষী সাব্যস্ত এবং মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত হন। বড়দিনের প্রাক্কালে ২০০২ সালে ইন্দোনেশিয়ায় ২০০২ সালে বালি বোমা হামলাসন্ত্রাসবাদ, উভয়ই সবচেয়ে বড় এবং মারাত্মক ঘটনা ছিল। [৩] সমুদ্র, হুদা বিন আব্দুল হক (মুক্লাস নামে পরিচিত) এবং আমরোজি বিন নুরহাসিম (আমরোজি নামে পরিচিত) একসাথে বালি বোমা হামলার সমন্বয় ও পরিচালনার জন্য তাদের মৃত্যুদন্ড কার্যকর করা হয়েছিল। [৪]

জীবনের প্রথমার্ধ[সম্পাদনা]

সমুদ্রের জন্ম আব্দুল আজিজ নামে সেরাং, বান্তেনে (তখন পশ্চিম জাভা প্রদেশের অংশ), তিনি ১২ সন্তানের একজন হিসাবে একক মায়ের কাছে বেড়ে ওঠেন। সমুদ্র একটি ইসলামিক স্কুল থেকে স্নাতক। তার মায়ের মতে, তিনি ১৯৯০ সালে বাড়ি ছেড়েছিলেন এবং এক দশকের জন্য ফিরে আসেননি - এবং তারপরে আবার নিখোঁজ হওয়ার আগে কয়েক ঘন্টার জন্য তিনি ফিরেন। তিনি মালয়েশিয়া যান এবং ১৯৯০ দশকের গোড়ার দিকে দেশের দক্ষিণে একটি ধর্মীয় বিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন। ইন্দোনেশিয়ান কর্তৃপক্ষ বলেছে যে, স্কুলটি জঙ্গি জেমাহ ইসলামিয়া দলের সন্দেহভাজন নেতাদের দ্বারা পরিচালিত হয়েছিল - আবু বকর বায়েসির, গ্রুপের আধ্যাত্মিক নেতা এবং রিদুয়ান ইসামুদ্দিন, যিনি হাম্বালি নামেও পরিচিত। [১]

বালি বোমা হামলা[সম্পাদনা]

ইন্দোনেশিয়ার বালির একটি ইন্দোনেশিয়ান দ্বীপে কুতা ট্যুরিস্ট স্ট্রিপে ২০০২ সালের ১২ অক্টোবর দুটি বোমা বিস্ফোরিত হয়৷ একটি বোমা প্যাডিসের আইরিশ বারে আঘাত হানে এবং দ্বিতীয়টি সারি ক্লাবের কাছে একটি ভ্যানে আঘাত হানে। এর ফলে সর্বমোট ২০২ জন নিহত হন৷


বালির মার্কিন কনস্যুলেটের কাছে তৃতীয় একটি বোমা বিস্ফোরিত হয়, তবে কেউ হতাহত হয়নি। [৪] সমুদ্র সুমাত্রার উদ্দেশ্যে ফেরিতে চড়তে যাচ্ছি,, তখন ২০০২ সালের ২১ নভেম্বর তিনি গ্রেপ্তার হন৷ পুলিশের ধারণা তিনিই বালি অভিযানের পরিকল্পনাকারী বা ‘ফিল্ড কমান্ডার’ ছিলেন। [৪] [৫]

কারাগার থেকে সমুদ্র তার বোমা হামলার উদ্দেশ্য ব্যাখ্যা করে ডকুমেন্টেরিয়ান ড্যানিয়েল রুদি হ্যার‍্যান্তর কাছে বলেছেনঃ [৬]

কখনো কখনো, ইহুদি এবং খ্রিষ্টানরা কোরান দ্বারা বেশি মুসলিমদের থেকে বেশি প্রভাবিত হয়৷ তারা ইসলামিক রাষ্ট্রগুলোকে আক্রমণ করে কারণ তারা ভীত যে কোরানের মধ্যকার কথাগুলো বাস্তবে পরিণত হতে পারে৷ তাই, এটা মোটেও তেল বা নিউক্লিয়ার ইস্যু না৷ আমি মানব বিশ্লেষণের চেয়ে কোরানের দ্বারাই বেশি প্রভাবিত৷ তাই এটা হচ্ছে আকীদার একটা ব্যাপার৷ বিচারের দিনের আগে কখনোই শান্তি আসবে না যদি না ইসলাম বিজয়ী হয়।


বিচার[সম্পাদনা]

সমুদ্র ২ জুন ২০০৩-এ বিচারে যান এবং ১৬ জুলাই ২০০৩-এ সাক্ষ্য দেন: [৪]

সাজা এবং মৃত্যুদন্ড[সম্পাদনা]

১০ সেপ্টেম্বর ২০০৩, তিনি বালি বোমা হামলায় তাঁর ভূমিকার জন্য দোষী সাব্যস্ত হন এবং ফায়ারিং স্কোয়াড দ্বারা মৃত্যুদণ্ডে দণ্ডিত হন। তিনি মূলত দেনপাসার এর কেরোবোকান কারাগারে বন্দি ছিলেন, পরবর্তীতে তাকে নুসকাম্বান গান এর উচ্চ সুরক্ষিত কারাগারে স্থানান্তরিত করা হয় । ২০ নভেম্বর তিনি তার সাজার বিরুদ্ধে আপিল করেন। [৪]

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত অন্য দু'জন বোমারু হামলাকারীর সাথে তিনি ফায়ারিং স্কোয়াড ব্যবহারের বিরুদ্ধে একটি সাংবিধানিক চ্যালেঞ্জ শুরু করেছিলেন। সমুদ্র এবং অন্য দু'জন বোমারু শিরশ্ছেদ করাটাকে পছন্দ করেছিলেেন, বলেছিলেন যে এটি মৃত্যুদণ্ডের আরও একটি ইসলামিক রূপ। [৭] মুকলাস, আমরোজি এবং ইমাম সমুদ্র কর্তৃক রাষ্ট্রপতির ক্ষমা না চাওয়ার প্রাথমিক সিদ্ধান্ত সত্ত্বেও, ২১শে আগস্ট ২০০৬-এ, মুকলাস এবং তার সহ-ষড়যন্ত্রকারীরা তাদের আইনজীবীদের একটি শেষ আপিল দায়ের করার অনুমতি দেয় যা পূর্ববর্তী আইনের ভিত্তিতে ৭ ডিসেম্বর দায়ের করা হয়েছিল। ২৫ সেপ্টেম্বর ২০০৮, ইন্দোনেশিয়ার সুপ্রিম কোর্ট ইমাম সমুদ্র এবং মুখলাসের চূড়ান্ত আপিল প্রত্যাখ্যান করে; সেই মাসের শুরুতে আমরোজির আপিল খারিজ করে দেওয়া হয়। [৪] ২০০৮ সালের অক্টোবর মাসে , তিনি অনুশোচনাহীন ছিলেন এবং দাবি করেন যে তার মৃত্যুর প্রতিশোধ নেওয়া হবে। [৮] সেই মাসে, তার চূড়ান্ত আপিল প্রত্যাখ্যান করা হয় এবং অ্যাটর্নি জেনারেলের অফিস ঘোষণা করে যে তাকে ২০০৮ সালের নভেম্বরের শুরুতে ফায়ারিং স্কোয়াডের মাধ্যমে মৃত্যুদণ্ড দেওয়া হবে। [৪] [৭]

ইন্দোনেশিয়ার অ্যাটর্নি জেনারেল অফিসের একটি সূত্রের মতে, ৯ নভেম্বর,২০০৮, রবিবার শেষ হওয়ার আগে মৃত্যুদণ্ড কার্যকর করার কথা ছিল। পরিবারের একজন প্রতিনিধিকে মৃত্যুদণ্ডের পর মৃতদেহ শনাক্ত করার অনুমতি দেওয়ায় মূল পরিকল্পনা থেকে এটি বিলম্বিত হয়েছিল বলে জানা গেছে। তবে সমুদ্রের পরিবারের কোনো প্রতিনিধি উপস্থিত ছিলেন না। [৯] [১০]

সমুদ্র, আমরোজি এবং হুদা বিন আবদুল হকের ৯ নভেম্বর ২০০৮ সালে ০০.১৫ এ স্থানীয় সময় এ ফায়ারিং স্কোয়াডের মাধ্যমে ফাঁসি দেয়া হয়। [১১]

প্রকাশিত কাজ[সম্পাদনা]

কারাগারে থেকে, তিনি আই ফাইট টেরোরিস্ট ( ইন্দোনেশিয়ায় আকু মেলাওয়ান টেরোরিস ) শিরোনামে একটি আত্মজীবনী লিখেছেন, যেখানে "সন্ত্রাসী" ছিলেন আমেরিকানরা। এটি ৩ মার্কিন ডলার করে,৫০০০ কপি বিক্রি হয়েছিল। [১২] ২০০৪ সালে, সিএনএন বইটিকে "ইন্দোনেশিয়ার বেস্ট সেলার" হিসাবে বর্ণনা করেছে। [১৩]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

  • ইন্দোনেশিয়ায় সন্ত্রাসী ঘটনার তালিকা
  • ইন্দোনেশিয়ায় সন্ত্রাস

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "The Bali bomb 'commander'"BBC News। ৮ নভেম্বর ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০ জানুয়ারি ২০১৫ 
  2. "Imam Samudra profile"CNN। ১১ অক্টোবর ২০০৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৮ নভেম্বর ২০০৮ 
  3. "The 12 October 2002 Bali bombing plot"BBC News AsiaBBC। ১১ অক্টোবর ২০১২। সংগ্রহের তারিখ ২০ জানুয়ারি ২০১৫ 
  4. "Timeline: Bali bomb trials"BBC News। ৮ নভেম্বর ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০ জানুয়ারি ২০১৫ 
  5. "Police to quiz Bali 'mastermind'"BBC News। BBC। ২৫ নভেম্বর ২০০২। সংগ্রহের তারিখ ২০ জানুয়ারি ২০১৫ 
  6. Haryanto, Daniel Rudi (২০১০)। Prison and ParadiseHonolulu: Asia Pacific Films। 22:15 minutes in। ওসিএলসি 865004487  ইন্টারনেট মুভি ডেটাবেজে Prison and Paradise (ইংরেজি).
  7. "Bali bombers' execution date set"BBC News। BBC। ২৪ অক্টোবর ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২৪ অক্টোবর ২০০৮ 
  8. Thompson, Geoff (১ অক্টোবর ২০০৮)। "'Bali bombers threaten revenge over executions'"ABC News। Australia। ২ অক্টোবর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ১ অক্টোবর ২০০৮ 
  9. "Negosiasi Dini Hari dan Pilihan yang Sulit"Detik.com (ইন্দোনেশীয় ভাষায়)। ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ৮ নভেম্বর ২০০৮ 
  10. "Three Bali Bombers May Be Executed Tonight, Indonesia Says"। Bloomberg। ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ৮ নভেম্বর ২০০৮ 
  11. "Bali bomb burials stoke tensions"BBC News। BBC। ২০০৮। ১৬ ডিসেম্বর ২০০৮ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৯ নভেম্বর ২০০৮ 
  12. "Bali bomber autobiography exposes mind of terrorist. Book reveals how Imam Samudra took the path that led him to kill 202 people"The Telegraph-Herald। ১৮ সেপ্টেম্বর ২০০৪। পৃষ্ঠা 6A। 
  13. Ressa, Maria (১২ অক্টোবর ২০০৪)। "Bali bomber to best selling author"CNN 

বাহ্যিক লিঙ্ক[সম্পাদনা]