হোসে মুজিকা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
এই নামের ক্ষেত্রে স্প্যানিশ নামকরণের রীতিনীতি ব্যবহার করা হয়েছে; প্রথম বা পৈতৃক পদবী হচ্ছে Mujica এবং দ্বিতীয় বা মাতৃক পদবী হচ্ছে Cordano.
হোসে মুজিকা
Pepemujica2.jpg
40th President of Uruguay
অধিকৃত অফিস
১ মার্চ ২০১০
উপরাষ্ট্রপতি ডানিলো আস্তোরি
পূর্বসূরী তাবারে ভাযকুয়েজ
ব্যক্তিগত বিবরণ
জন্ম হোসে আলবার্তো "পেপে" মুজিকা কর্ডানো
(১৯৩৫-০৫-২০) ২০ মে ১৯৩৫ (বয়স ৮০)
মোন্তেবিদেও, উরুগুয়ে
রাজনৈতিক দল বোর্ড ফ্রন্ট
দাম্পত্য সঙ্গী Lucía Topolansky
ধর্ম Irreligious (নাস্তিকতাবাদী)
স্বাক্ষর

হোসে আলবার্তো "পেপে" মুজিকা কর্ডানো (স্পেনীয় উচ্চারণ: [xoˈse muˈxika]; জন্ম ২০ মে ১৯৩৫) হচ্ছেন একজন উরুগুয়ের রাজনীতিবিদ এবং ২০১০ সাল থেকে উরুগুয়ের প্রেসিডেন্ট। একজন সাবেক বামপন্থী গেরিলা যোদ্ধা এবং বামপন্থী যুক্ত সরকারের বোর্ড ফ্রন্টের সদস্য। মুহিকা ২০০৫ - ২০০৮ সাল পর্যন্ত পশুসম্পদ, কৃষি ও মৎস্য মন্ত্রীর দায়িত্ব এবং পরে সিনেটর ছিলেন। বোর্ড ফ্রন্টের প্রার্থী হিসেবে তিনি ২০০৯ সালের প্রেসিডেন্ট নির্বাচনে জেতেন এবং ১ মার্চ ২০১০ সালে কার্যভার গ্রহণ করেন।

রাষ্ট্রপ্রধান হিসেবে প্রাপ্ত বেতনের ৯০ ভাগই তিনি গরিবদের সহায়তা এবং ছোট বিনিয়োগের উদ্দেশ্যে দেশের সামাজিক সেবামূলক বিভিন্ন কার্যক্রমে দান করার কারণে তাকে বিশ্বের সবচেয়ে গরিব রাষ্ট্রনায়ক হিসেবে বর্ণনা করা হয়।[১]

জীবন[সম্পাদনা]

ষাট ও সত্তরের দশকে কিউবার বিপ্লবে অনুপ্রাণিত বামপন্থী গেরিলা দলের নেতা হিসেবে উরুগুয়ের বনে জঙ্গলে ঘুরে বেরিয়েছেন তিনি। এর মাঝে গুলিবিদ্ধ হন ছয়বার। তবে শেষ পর্যন্ত সরকারি বাহিনীর হাতে ধরা পড়ে উরুগুয়ের স্বৈরশাসনামলে ৭৩ থেকে ৮৫ পর্যন্ত একটানা ১৪ বছর কারাগারে ছিলেন তিনি। এর পর গণতন্ত্র ফিরে আসলে জেল থেকে ছাড়া পেয়ে গণতান্ত্রিক রাজনীতির ধারায় ফিরে আসেন মুজিকা।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Hernandez, Vladimir (১৪ নভেম্বর ২০১২)। "Jose Mujica: The World's 'Poorest' President"BBC News Magazine 

অতিরিক্ত পাঠ[সম্পাদনা]