হেন্ড আল-মনসুর

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
হেন্ড আল-মনসুর
জন্ম১৯৫৬

হেন্ড আল-মনসুর (জন্ম ১৯৫৬) একজন সৌদি- মার্কিন ভিজ্যুয়াল আর্টিস্ট এবং একজন চিকিৎসক। তাঁর মুদ্রিত সিল্কস্ক্রিন, প্রতিস্থাপন শিল্প এবং মুসলিম মহিলাদের প্রতিকৃতি, আরব সম্প্রদায়ের ধর্মীয় এবং সামাজিক বিশ্বাস পদ্ধতিকে অন্বেষণ করেছে। কার্ডিওলজি (হৃদবিজ্ঞান) এবং অভ্যন্তরীণ মেডিসিন ডিগ্রি অর্জন করে ২০ বছর ধরে চিকিৎসা চর্চা করেছেন। মিনেসোটার মেয়ো ক্লিনিকে ফেলোশিপ পাওয়ার পরে ১৯৯৭ সালে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে পাড়ি জমান। এরপর তিনি সেন্ট ক্যাথরিন বিশ্ববিদ্যালয়ের মহিলা শিল্প প্রতিষ্ঠানে পড়াশোনা করে শিল্পী জীবন বেছে নেন এবং মিনিয়াপলিস কলেজ অফ আর্ট অ্যান্ড ডিজাইন থেকে এমএফএ ডিগ্রী অর্জন করেছিলেন। [১]

জীবনী[সম্পাদনা]

হেন্ড আল-মনসুর ১৯৫৬ সালে সৌদি আরবের হাফুফে জন্মগ্রহণ করেছিলেন। তিনি ১৯৮১ সালে কায়রো বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মেডিসিনের ডিগ্রি অর্জন করেছিলেন। ২০ বছর ধরে, আল-মনসুর একজন আরব মহিলা চিকিৎসক হিসাবে কাজ করেছিলেন। তাঁর এই পেশা তাঁকে আরো "ব্যক্তিগত স্বাধীনতা এবং স্ব-মূল্যবান" করেছিল। [২] তিনি ১৯৯৭ সাল পর্যন্ত সৌদি আরবে হাফুফ এবং রিয়াদে মেডিসিন নিয়ে চর্চা করেছিলেন। এরপর মিনেসোটার রোচেস্টারের মেয়ো ক্লিনিকে ফেলোশিপ পেয়ে তিনি আমেরিকাতে পাড়ি জমান। চিকিৎসা চালানোর সঙ্গে সঙ্গে তিনি ইন্টারনাল মেডিসিন এবং কার্ডিওলজিতে ডিগ্রি অর্জন করেছিলেন।

২০০০ সালে তিনি পেশাদার ভাবে মেডিসিন থেকে শিল্পে স্থানান্তরিত হয়ে যান। তিনি সেন্ট ক্যাথরিন বিশ্ববিদ্যালয়ের মহিলা আর্ট ইনস্টিটিউটে যোগ দেন। পরের বছর তিনি এই প্রোগ্রামের সহকারী শিক্ষক হয়েছিলেন। তিনি ২০০২ সালে মিনিয়াপলিস কলেজ অফ আর্ট অ্যান্ড ডিজাইন (এমসিএডি) থেকে ফাইন আর্টে স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন । আল-মনসুর হলেন একটি প্রতিস্থাপন শিল্পী, সিলস্ক্রিন প্রিন্টার এবং একজন বক্তা। তিনি ইসলামী বিশ্বের নারীদের নিয়ে কাজ করেছেন। তিনি রেশম স্ক্রিন কাপড়ে মহিলাদের ব্যক্তিগত জীবনের ছবি তৈরি করেন। তিনি মিনেসোটা এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের অন্যান্য রাজ্যের পাশাপাশি সৌদি আরব এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতেও এটা দেখিয়েছেন। [২] তিনি ধর্মতত্ত্ব অধ্যাপক ও লেখক ডঃ ডেভিড পেনচ্যানস্কির সাথে বিবাহবন্ধনে আবদ্ধ হয়েছেন এবং তাঁরা সেন্ট পল মিনেসোটায় থাকেন।

বিষয়বস্তু, মিডিয়া এবং ধরন[সম্পাদনা]

আল-মনসুরের কাজ আরব সম্প্রদায়ের ধর্মীয় এবং সামাজিক বিশ্বাসের ধরন বিশ্লেষণ করা, বিশেষত নারী, যৌনতা এবং অন্যদের বোঝায় সাহায্য করা তাঁর কাজ। তিনি আরবি ক্যালিগ্রাফি, আরব মানুষের চিত্র, ইসলামী অলঙ্করণ এবং স্থাপত্য ব্যবহার করেন। তিনি সমসাময়িক আরব শিল্পের অবস্থা নিয়ে পর্যালোচনা করেছেন এবং পশ্চিমী শিল্পের প্রভাব থেকে এই শিল্পকে মুক্ত করার চর্চা চালিয়ে গেছেন। অন্যান্য মধ্য প্রাচ্য এবং ইসলামী শিল্পগুলির থেকে এর বিশেষত্বকে আলাদা করে তুলে ধরেছেন। তিনি তাঁর শ্রোতাদের সর্বদাই সৌদি আরবের লোকজন এবং মধ্য প্রাচ্যের লোকজন হিসাবে সজ্ঞায়িত করেন। এর ফলে তারা তাঁর কাজের জন্য তাঁকে খুব সহজেই শনাক্ত করতে পারেন যে তিনি তাদেরই একজন। একজন আমেরিকান অভিবাসী হিসাবে তিনি যুক্তরাষ্ট্রে স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করেন। তবে তিনি ব্যাখ্যা করেছেন যে, তিনি সাধারণত অ সৌদি বা আরব মহিলা এবং শ্রোতাদের কাছে, তাঁর ধর্মীয় এবং নারীবাদী রীতিমূলক প্রতীকগুলির ব্যবহার নিয়ে, দীর্ঘ পরিচিতির প্রয়োজন অনুভব করেন।[২]

আল-মনসুর প্রায়শই সিল্কের স্ক্রিনযুক্ত, রঙ্গিন বা হেনা কাপড়ের তৈরি উপকরণ ব্যবহার করে স্থাপত্যীয় জায়গাগুলিতে মুসলিম মহিলাদের প্রতিকৃতি চিত্রিত করেছেন। তাঁর মূর্ত চিত্রগুলিতে বিশিষ্টভাবে শৈল্পিক মূর্তি এবং মুখ রয়েছে। সেগুলি পুনরাবৃত, নমুনাযুক্ত আকার ব্যবহার করে রচিত, ইসলামিক অলঙ্করণের সাথে মিশে গেছে। উদাহরণস্বরূপ, ২০১৩ সালের ফেসবুক ১ শিরোনামের একটি স্ক্রিন প্রিন্টে দুইজন মহিলাকে চাদর গায়ে দিয়ে গাঢ় নীল রঙের নকশা করা গালিচার ওপর বসে থাকতে দেখা যায়। অগ্রভাগের মহিলাটি দর্শকের দিকে তাকানোর সাথে সাথে, সাদা পৃষ্ঠা সহ একটি বৃহত উন্মুক্ত বইয়ের উপর ডান হাত দিয়ে আরবীতে শব্দ লেখেন, বইটি চিত্রের পটভূমিতে অনেকটা জায়গা জুড়ে রয়েছে।[৩] পেছনের মহিলা মাথা নিচু করে আছেন, এটিকে শিল্পী একপ্রকার স্ব-প্রতিকৃতি হিসাবে চিহ্নিত করেছেন: "এই প্রতীক আমার জন্য, যা চলছে তা এই মহিলা তা গ্রহণ করে নিয়েছেন কোন প্রকার বিরোধিতা করা ছাড়াই। এটি আমার একটি দিককে দেখায় যে দিকটি অতীতে এইভাবে গ্রহণ করেছে" [৩]

নির্বাচিত প্রদর্শনী[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Tundel, Nikki (ফেব্রুয়ারি ৫, ২০১৪)। "Hend Al-Mansour creates art to question women's roles"MPR News 
  2. Erickson, Elizabeth; Olson, Patricia (২০১৪)। How To Be a Feminist Artist: Investigations From the Women's Art Institute The Interviews। St. Catherine University। পৃষ্ঠা 12–15। 
  3. Olson, Norma Smith। "Art across Cultures"Minnesota Women's Press। ৭ ডিসেম্বর ২০১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০ ফেব্রুয়ারি ২০২০ 

বাহ্যিক লিঙ্কগুলি[সম্পাদনা]