হাইপারলুপ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
হাইপারলুপ কনসেপ্ট আর্ট

টেসলা এবং স্পেসএক্স এর একটি যৌথ দল দ্বারা প্রকাশিত হাইপারলুপ হ'ল যাত্রী এবং মালামাল পরিবহনের জন্য প্রস্তাবিত দ্রুতগতির পরিবহন ব্যবস্থা।হাইপারলুপ মূলত বায়ুরোধী সিল করা টিউব বা টিউব সংযুক্ত সিস্টেম যার মধ্য দিয়ে ঘর্ষণ মুক্ত অবস্থায় একটি পোড/ক্যাপসুল খুব উচ্চ গতিতে মানুষ বা বস্তুকে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে বহন করতে পারবে।

ইলন মাস্ক হাইপারলুপ সম্পর্কে তার ধারণার প্রথম প্রকাশ করেন ২০১২ সালে , বায়ুরোধী টিউব এর মধ্য নিম্নচাপে ঘর্ষণ মুক্ত অবস্থায় পোড/ক্যাপসুলকে লিনিয়ার ইন্ডাকশন মোটর ও কমপ্রেশর ব্যবহার করে খুব উচ্চ গতিতে চালানোর প্রস্তাব দেন তিনি।

এছাড়া, আগস্ট ২০১৩ সালে, 'হাইপারলুপ আলফা' নামক একটি প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়, এটি লস অ্যাঞ্জেলেস থেকে সান ফ্রান্সিসকো বে এরিয়া পর্যন্ত প্রায় ৩৫০ মাইল দীর্ঘ হাইপারলুপ প্রকল্প।হাইপারলুপ জেনেসিস পেপার অনুযায়ী এ ব্যবস্থায় ৩৫০ মাইল (৫৬০ কিলোমিটার) দীর্ঘ রুটে যাত্রীসমেত মাত্র ৩৫ মিনিটের অতিক্রম করা যাবে।ঘন্টায় ৭৬০মাইল বেগে ছুটে চলা এ ব্যবস্থা প্রচলিত রেল বা বিমান ভ্রমণের চেয়েও দ্রুত।

প্রস্তাবিত রুটের প্রাথমিক ব্যয় ধরা হয়েছে, শুধু মাত্র যাত্রীবাহী সংস্করণের জন্য প্রায় ৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং কিছুটা বড় ব্যাসের যাত্রী ও যানবাহন পরিবহনের জন্য ৭.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

পরিচ্ছেদসমূহ

ইতিহাস[সম্পাদনা]

ইলন মাস্ক

বায়ুরোধী টিউবের মধ্য দিয়ে ট্রেন বা অন্যান্য পরিবহন যাতায়তের সাধারণ ধারণা এক শতাব্দীরও বেশি পুরানো, যদিও বায়ুমণ্ডলীয় রেলপথ কখনও বাণিজ্যিক ভাবে সফল হয় নি।

ইলন মাস্ক প্রথম উল্লেখ করেছিলেন যে তিনি ক্যালিফোর্নিয়ার সান্তা মনিকার একটি পান্ডোডাইলি ইভেন্টে জুলাই ২০১২ সালে হাইপারলুপ নামে একটি "পরিবহণের পঞ্চম মোডের" ধারণার কথা ভাবছিলেন। পরিবহনের এই হাই-স্পিড মোডে নিম্নলিখিত বৈশিষ্ট্যগুলি থাকবে: আবহাওয়ার প্রতিরোধ ক্ষমতা, সংঘর্ষ মুক্ত, বিমানের গতির দ্বিগুণ, কম বিদ্যুতের খরচ এবং 24 ঘন্টা অপারেশনের জন্য শক্তি সঞ্চয়। হাইপারলুপ নামটি বেছে নেওয়া হয়েছিল কারণ এটি লুপে যাবে। মাস্ক কল্পনা করে যে আরও উন্নত সংস্করণ হাইপারসোনিক গতিতে যেতে সক্ষম হবে। ২০১৩ সালের মে মাসে, মাস্ক হাইপারলুপকে "একটি কনকর্ড এবং একটি রেলগান এবং একটি এয়ার হকি টেবিলের মধ্যে ক্রস" এর সাথে তুলনা করেছিলেন।

২০১২ সালের শেষ থেকে অগস্ট ২০১৩পর্যন্ত , টেসলা এবং স্পেসএক্স উভয়েরই একদল প্রকৌশলী হাইপারলুপের মডেলিং এর কাজ করেছেন। টেসলা এবং স্পেসএক্স এর একটি ব্লগে প্রাথমিক সিস্টেম ডিজাইন প্রকাশিত হয়েছিল যা একটি হাইপারলুপ সিস্টেমের একটি সম্ভাব্য নকশা, ফাংশন, পাথওয়ে এবং ব্যয় বর্ণনা করে। আলফা নকশা অনুসারে, পোড গ্রেড ক্রসিংয়ের ঝুঁকি এড়াতে ধীরে ধীরে লিনিয়ার বৈদ্যুতিক মোটর ব্যবহার করে ক্রমান্বিত গতিতে ত্বরান্বিত হবে এবং গ্রেড ক্রসিংয়ের ঝুঁকিগুলি এড়ানোর জন্য স্থলভাগের উপরের নলগুলির মাধ্যমে মাটির উপরের নলগুলির মাধ্যমে এয়ার বিয়ারিংগুলিতে তাদের ট্র্যাকের ওপরে গ্লাইডটি গতিতে পারে। একটি আদর্শ হাইপারলুপ সিস্টেম গণ পরিবহনের বিদ্যমান মোডের চেয়ে আরও শক্তি-দক্ষ, শান্ত এবং স্বায়ত্তশাসিত হবে।


কার্যপদ্ধতি[সম্পাদনা]

হাইপারলুপ

ঘর্ষণ এবং বায়ু প্রবাহ ব্যবস্থাপনায় অসুবিধা দ্বারা -তিহাসিকভাবে হাই-স্পিড রেলের উন্নয়ন বাধাগ্রস্থ হয়েছে, যানবাহন উচ্চ গতিতে পৌঁছালে উভয়ই যথেষ্ট হয়ে ওঠে। ভ্যাকট্রেন ধারণা তাত্ত্বিকভাবে খালি (বায়ুবিহীন) বা আংশিকভাবে সরিয়ে নেওয়া টিউবগুলিতে চৌম্বকীয়ভাবে উত্তোলন ট্রেন চালিয়ে এই প্রতিবন্ধকতাগুলি দূর করে, যা প্রতি ঘন্টায় কয়েক হাজার মাইল গতিবেগের সম্ভাবনা রাখে। ম্যাগলেভের উচ্চ ব্যয় এবং বড় দূরত্বে শূন্যতা বজায় রাখতে অসুবিধা এই ধরনের সিস্টেমটিকে তৈরি হতে বাধা দিয়েছে। হাইপারলুপটি একটি ভ্যাকট্রিন সিস্টেমের সাথে সাদৃশ্যযুক্ত তবে প্রায় এক মিলিবার চাপে কাজ করে।

Hyperloop

প্রাথমিক নকশা ধারণা[সম্পাদনা]

হাইপারলুপ ধারণাটি আংশিক শূন্যতায় ( ইস্পাত) নলের মধ্য দিয়ে "ক্যাপসুল" প্রেরণে পরিচালিত।পরিবহনের এই হাই-স্পিড মোডে নিম্নলিখিত বৈশিষ্ট্যগুলি থাকবে: আবহাওয়ার প্রতিরোধ ক্ষমতা, সংঘর্ষ মুক্ত, বিমানের গতির দ্বিগুণ, কম বিদ্যুতের খরচ এবং 24 ঘন্টা অপারেশনের জন্য শক্তি সঞ্চয়। হাইপারলুপ নামটি বেছে নেওয়া হয়েছিল কারণ এটি লুপে যাবে। মাস্ক কল্পনা করে যে আরও উন্নত সংস্করণ হাইপারসোনিক গতিতে যেতে সক্ষম হবে। ২০১৩ সালের মে মাসে, ইলন মাস্ক হাইপারলুপকে "একটি কনকর্ড এবং একটি রেলগান এবং একটি এয়ার হকি টেবিলের মধ্যে ক্রস" এর সাথে তুলনা করেছিলেন।

প্রস্তাবিত রুট[সম্পাদনা]

যুক্তরাষ্ট্র[সম্পাদনা]

আগস্ট ২০১৩ সালে, 'হাইপারলুপ আলফা' নামক একটি প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়, এটি লস অ্যাঞ্জেলেস থেকে সান ফ্রান্সিসকো বে এরিয়া পর্যন্ত প্রায় ৩৫০ মাইল দীর্ঘ হাইপারলুপ প্রকল্প।হাইপারলুপ জেনেসিস পেপার অনুযায়ী এ ব্যবস্থায় ৩৫০ মাইল (৫৬০ কিলোমিটার) দীর্ঘ রুটে যাত্রীসমেত মাত্র ৩৫ মিনিটের অতিক্রম করা যাবে।ঘন্টায় ৭৬০মাইল বেগে ছুটে চলা এ ব্যবস্থা প্রচলিত রেল বা বিমান ভ্রমণের চেয়েও দ্রুত।

প্রস্তাবিত রুটের প্রাথমিক ব্যয় ধরা হয়েছে, শুধু মাত্র যাত্রীবাহী সংস্করণের জন্য প্রায় ৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং কিছুটা বড় ব্যাসের যাত্রী ও যানবাহন পরিবহনের জন্য ৭.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

ভারত[সম্পাদনা]

হাইপারলুপ ট্রান্সপোর্টেশন টেকনোলজি চেন্নাই ও বেঙ্গালুরুর মধ্যে প্রস্তাবিত রুটের জন্য ভারত সরকারের সাথে একটি চিঠি স্বাক্ষরের প্রক্রিয়াধীন রয়েছে। যদি পরিকল্পনা অনুযায়ী চলে , তবে ৩৪৫ কি মি দূরত্ব ৩০ মিনিটের মধ্যেই অতিক্রম করা যাবে।

ওপেন সোর্স ডিজাইনের বিবর্তন[সম্পাদনা]

মঙ্গল[সম্পাদনা]

মাস্কের মতে, হাইপারলুপ মঙ্গল গ্রহে বেশ কার্যকরী হবে মঙ্গল গ্রহের বায়ুমণ্ডল সমুদ্রপৃষ্ঠে পৃথিবীর ঘনত্ব প্রায় ১%। হাইপারলুপ ধারণাটি পৃথিবীতে কাজ করার জন্য, বায়ু প্রতিরোধের হ্রাস করতে নিম্ন-চাপ টিউবগুলি প্রয়োজন। তবে, যদি সেগুলি মঙ্গল গ্রহে নির্মিত হয় তবে কেবল একটি ট্র্যাক হলেই একটি হাইপারলুপ তৈরি করা যাবে।

হাইপারলুপ সংস্থা[সম্পাদনা]


ভার্জিন হাইপারলুপ ওয়ান (Virgin Hyperloop One)[সম্পাদনা]

ভার্জিন হাইপারলুপ ওয়ান (যা পূর্বে হাইপারলুপ ওয়ান এবং তার আগে হাইপারলুপ টেকনোলজিস নামে পরিচিত ছিল) ২০১৪ গঠিত এবং এটি ইঞ্জিনিয়ার, টেকনিশিয়ান, ওয়েল্ডার এবং মেশিনিস্ট সহ ২৮০ এরও অধিক সদস্যের একটি দল ।এটি ডিপি ওয়ার্ল্ড, শেরপা ক্যাপিটাল, ফর্মেশন ৮, ১৩৭ ভেঞ্চারস, ক্যাস্পিয়ান ভেঞ্চার ক্যাপিটাল, ফাস্ট ডিজিটাল, জিই ভেঞ্চারস, এবং এসএনসিএফ সহ বিনিয়োগকারীদের কাছ থেকে ১৬০ মিলিয়ন মার্কিন ডলারের বেশি মূলধন সংগ্রহ করেছে।

হাইপারলুপ পরিবহন প্রযুক্তি (Hyperloop Transportation Technologies)[সম্পাদনা]

হাইপারলুপ ট্রান্সপোর্টেশন টেকনোলজিস (এইচটিটি) বিশ্বব্যাপী 800 এরও বেশি প্রকৌশলী এবং পেশাদারদের সমন্বয়ে তৈরি , প্রথম হাইপারলুপ সংস্থা (2013 সালে প্রতিষ্ঠিত)।এদের কেউ কেউ খণ্ডকালীন সহযোগিতা করে; অন্যরা হ'ল ফুলটাইম কর্মচারী।কিছু সদস্য পুরো সময়ের বেতনভোগী কর্মচারী; অন্যরা বেতন এবং স্টক বিকল্পের বিনিময়ে কাজ করে।২০১২ সালে মাস্কের হাইপারলুপ ধারণার প্রস্তাব পাওয়ার পরে, জম্পস্টার্টার ইনক প্রতিষ্ঠানের প্রতিষ্ঠাতা ডার্ক আহলবোন তার জম্পস্টার্টার প্ল্যাটফর্মে একটি 'কল টু অ্যাকশন' রেখেছিলেন।

ট্রান্স পড (TransPod)[সম্পাদনা]

এটি একটি কানাডিয়ান সংস্থা,ট্রান্সপড ইনক। একটি কানাডিয়ান সংস্থা যা অতি-গতির ট্রান্সপোর্ট প্রযুক্তি এবং যানবাহনের নকশা তৈরি করে। ট্রান্সপড যানবাহনগুলি শহরের মধ্যে ১০০০ কিলোমিটার / ঘন্টা (৬২০ মাইল / ঘন্টা) এর বেশি ভ্রমণ করার জন্য ডিজাইন করা হচ্ছে, যাত্রী এবং পণ্যসম্ভার বহন করার জন্য সম্পূর্ণ বৈদ্যুতিক চালচলন ব্যবহার করে । প্রস্তাবিত সিস্টেমটি জেট এবং অটোমোবাইলগুলির একটি দ্রুত এবং কার্বন মুক্ত বিকল্প তৈরি করবে। ট্রান্সপড পোডগুলি একটি নল গাইডওয়ে দিয়ে ভ্রমণ করার জন্য ডিজাইন করা হয়েছে যা হাইপারলুপ পদ্ধতির অনুরূপ, যানবাহনের স্থিতিশীলতা বৃদ্ধির জন্য এয়ার বিয়ারিংয়ের পরিবর্তে চৌম্বকীয় লেভিগেশনের উপর ভিত্তি করে তৈরী করা।

ডি জি ডব্লিউ হাইপারলুপ (DGWHyperloop)[সম্পাদনা]

ডিজিডাব্লুহাইপারলুপ হ'ল একমাত্র ভারতীয় সংস্থা যা সারা দেশে হাইপারলুপ সিস্টেমটি কার্যকর করতে কাজ করে যাচ্ছে।২০১৫ সালে প্রতিষ্ঠিত, ডি জি ডাব্লু হাইপারলুপ হ'ল ডিনক্লিক্স গ্রাউন্ড ওয়ার্কস এর অংশ ।এটি ভারতের ইন্দোর ভিত্তিক একটি ইঞ্জিনিয়ারিং সংস্থা ।ডি জি ডব্লু হাইপারলুপের প্রাথমিক প্রস্তাবগুলিতে দিল্লি ও মুম্বইয়ের মধ্যে হাইপারলুপ ভিত্তিক করিডোর অন্তর্ভুক্ত যা দিল্লি মুম্বই হাইপারলুপ করিডোর (ডিএমএইচসি) নামে পরিচিত । হাইপারলুপ সম্পর্কিত গবেষণার জন্য সংস্থাটি অনেকগুলি সরকারী সংস্থা, বেসরকারী সংস্থাগুলি এবং প্রতিষ্ঠানের সাথে অংশীদারত্ব করেছে।

আরিভো (Arrivo)[সম্পাদনা]

অ্যারিভো 2016 সালে, লস অ্যাঞ্জেলেসে প্রতিষ্ঠিত একটি আর্কিটেকচার এবং ইঞ্জিনিয়ারিং সংস্থা । "ব্যবহারের জন্য হাইপারলুপগুলি সস্তা এবং পরিচালনা করতে লাভজনক", করার লক্ষ্যে এটি যাত্রা শুরু করে। নভেম্বর 2017 সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। এটি ২০২১ সালের মধ্যে ম্যালেগ ট্রেন প্রযুক্তি ব্যবহার করে ডেনভার আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অটোমোবাইলগুলির জন্য ২০০ মাইল (৩২০ কিমি / ঘন্টা) লিঙ্ক তৈরির পরিকল্পনা প্রকাশ করেছিল। তবে,১৪ ই ডিসেম্বর ২০১৮ প্রযুক্তি নিউজ সাইট 'দ্য ভার্জ' জানিয়েছে যে, সিরিজ 'A' এর তহবিল সুরক্ষিত করতে না পারার কারণে অ্যারিভো বন্ধ হয়ে যাচ্ছে।

হারডট গ্লোবাল মবিলিটি (Hardt Global Mobility)[সম্পাদনা]

হার্ডট গ্লোবাল মোবিলিটি ২০১৬ সালে ডেলফটে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল, টিইউ ডেলফ্ট হাইপারলুপ দলের একটি, যারা স্পেসএক্স পড প্রতিযোগিতায় জয়ী হয়েছিল। ডাচ দলটি ডেলফ্টে হাইপারলুপ প্রযুক্তির জন্য একটি পূর্ণ-স্কেল টেস্টিং সেন্টার স্থাপন করছে।

হাইপার চেরিয়ট (Hyper Chariot)[সম্পাদনা]

হাইপার চ্যারিয়ট হ'ল যুক্তরাষ্ট্রের সান্তা মনিকাতে অবস্থিত একটি স্টার্টআপ সংস্থা।সংস্থাটি ২০১৭ সালে আত্নপ্রকাশ করে।

জিলিরস (Zeleros)[সম্পাদনা]

জিলিরস,২০১৬ সালে ভ্যালেন্সিয়া (স্পেন) এ প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল।নভেম্বর ২০১৬ সালে ড্যানিয়েল ওরিয়েন্ট (সিটিও), ডেভিড পিস্তনি (সিইও) এবং হুয়ান ভিসান (সিএমও), ইউনিভার্সিটিট পলিটিকানিকা ডি ভালানসিয়ার হাইপারলুপ ইউপিভি দলের প্রাক্তন নেতৃবৃন্দ দ্বারা এটি গঠিত হয়।দলটিকে স্পেসএক্সের হাইপারলুপ ডিজাইন উইকএন্ড এ "টপ ডিজাইন কনসেপ্ট" এবং "প্রোপালশন / কম্প্রেশন সাবসিস্টেম টেকনিক্যাল এক্সিলেন্স" দেওয়া হয়। সংস্থাটি নভেম্বর ২০১৭ সালে আন্তর্জাতিক এভারিস ফাউন্ডেশন পুরষ্কারে ভূষিত হয়।

হাইপার পোল্যান্ড (Hyper Poland)[সম্পাদনা]

হাইপার পোল্যান্ড হ'ল একটি পোলিশ প্রতিষ্ঠান , যা একদল ওয়ার্সা ইউনিভার্সিটি অব টেকনোলজির ইঞ্জিনিয়ার দ্বারা পরিচালিত।হাইপার পোল্যান্ড ২০১৭ সালে প্রতিষ্ঠিত হয়। ২০১৭ সালে হাইপার পোল্যান্ড বিশ্ববিদ্যালয় দল হিসাবে তারা হাইপারলুপ মডেল তৈরি করেছিলেন যা ক্যালিফোর্নিয়ায় স্পেসএক্স পড প্রতিযোগিতা ২ তে অংশ নিয়েছিল।  মার্চ ২০১৮ এ, প্রতিষ্ঠানটি ইউরোপের অন্যতম সেরা স্টার্টআপ হিসাবে স্বীকৃতি পায়।

প্রতিযোগিতা (হাইপারলুপ পড)[সম্পাদনা]

হাইপারলুপ পড প্রতিযোগিতা

২০১৫-১৬ সালে শিক্ষার্থী এবং অ-শিক্ষার্থী দল হাইপারলুপ পড প্রতিযোগিতায় অংশ নিয়েছিল এবং তাদের মধ্যে কমপক্ষে ২২ জন স্পনসরড হাইপারলুপ টেস্ট ট্র্যাকের প্রতিযোগিতায় অংশ গ্রহণ করার জন্য হার্ডওয়্যার তৈরি করেছিলেন।

২০১৫ সালের জুনে স্পেসএক্স ঘোষণা করে, তারা হাইপারলুপ পড ডিজাইন প্রতিযোগিতা স্পনসর করবে এবং ২০১৬ সালে প্রতিযোগিতামূলক ইভেন্টের জন্য ক্যালিফোর্নিয়ার স্পেস এক্সের সদর দফতরের কাছে ১ মাইল দীর্ঘ (১.6 কিমি) সাবস্কেল টেস্ট ট্র্যাক তৈরি করা হয়।স্পেস এক্স পরবর্তীতে এক বিবৃতিতে জানায়, "স্পেসএক্স বা এলন মাস্ক উভয়ই কোনও হাইপারলুপ সংস্থার সাথে জড়িত নয়। আমরা নিজেরা বাণিজ্যিক হাইপারলুপ বিকাশ করছি না, তবে আমরা একটি কার্যকরী হাইপারলুপ প্রোটোটাইপের বিকাশকে ত্বরান্বিত করতে সহায়তা করতে আগ্রহী।"জুলাইয়ের মধ্যে ৭০০টিরও বেশি দল প্রাথমিক আবেদন জমা দিয়েছিল ।ম্যাসাচুসেটস ইনস্টিটিউট অফ টেকনোলজির ইঞ্জিনিয়াররা এই প্রতিযোগিতার বিজয়ী হয়েছিলেন ।

সমালোচনা[সম্পাদনা]

হাইপারলুপের ক্ষেত্রে যাত্রীদের অভিজ্ঞতা,দুর্ঘটনা ও জরুরী সুরক্ষা ,নিরাপত্তা নিয়ে অনেকে সমালোচনা করেছেন। একটি রুদ্ধ স্টিল টানেলের অভ্যন্তরে সংকীর্ণ, বদ্ধ, জানালা বিহীন ক্যাপসুলে চড়ার অভিজ্ঞতাকে - অপ্রীতিকর এবং ভীতিজনক হিসেবে অভিহিত করেছেন অনেকে।এছাড়া ভূমিকম্পের কারণে যদি নলটির আকৃতি পরিবর্তিত হয়,তবে দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে । উচ্চ গতিতে গতি পথের সামান্য পরিবর্তন বড় সমস্যার সৃষ্টি করতে পারে ।যান্ত্রিক গোলযোগ, দুর্ঘটনা এবং জরুরী সরিয়ে নেওয়ার মতো সমস্যা মোকাবেলা ব্যবহারিক এবং যৌক্তিক প্রশ্ন রয়েছে । টিউব সিস্টেমে ডিজাইন প্রযুক্তিগুলির সমালোচনাও রয়েছে।দ্রুতগতির মেগলেভ ট্রেনের সাথে তুলনা করে অনেকে হাইপারলুপ কে অর্থের অপচয় হিসেবেও দেখছেন।

রাজনৈতিক এবং অর্থনৈতিক বিবেচনা[সম্পাদনা]

হাইপারলুপ সম্পর্কিত প্রকল্প সমূহ[সম্পাদনা]

Interstate5

আগস্ট ২০১৩ সালে, 'হাইপারলুপ আলফা' নামক একটি প্রস্তাব উত্থাপন করা হয়, এটি লস অ্যাঞ্জেলেস থেকে সান ফ্রান্সিসকো বে এরিয়া পর্যন্ত প্রায় ৩৫০ মাইল দীর্ঘ হাইপারলুপ প্রকল্প।হাইপারলুপ জেনেসিস পেপার অনুযায়ী এ ব্যবস্থায় ৩৫০ মাইল (৫৬০ কিলোমিটার) দীর্ঘ রুটে যাত্রীসমেত মাত্র ৩৫ মিনিটের অতিক্রম করা যাবে।ঘন্টায় ৭৬০মাইল বেগে ছুটে চলা এ ব্যবস্থা প্রচলিত রেল বা বিমান ভ্রমণের চেয়েও দ্রুত।

প্রস্তাবিত রুটের প্রাথমিক ব্যয় ধরা হয়েছে, শুধু মাত্র যাত্রীবাহী সংস্করণের জন্য প্রায় ৬ বিলিয়ন মার্কিন ডলার এবং কিছুটা বড় ব্যাসের যাত্রী ও যানবাহন পরিবহনের জন্য ৭.৫ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।

এছাড়াও দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

বাহ্যিক লিঙ্ক[সম্পাদনা]