স্থল পরিবহন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

আরও দেখুন: পরিবহন

স্থল পরিবহন, যা ভূমি পরিবহন হিসেবেও পরিচিত, হচ্ছে মানুষ, পশুপাখি এবং পণ্যের স্থলপথে এক স্থাণ হতে অন্য স্থাণে পরিবহন করা। স্থল পরিবহনের প্রধান দুটি মাধ্যম হল সড়ক পরিবহন এবং রেল পরিবহন

পদ্ধতিসমূহ[সম্পাদনা]

মানুষ কর্তৃক জিনিস পরিবহনের সবচেয়ে মৌলিক ব্যাবস্থা থেকে শুরু করে বিভিন্ন ধরনের যানবাহন এবং অবকাঠামো ব্যবহার করে বাস্তবধর্মী স্থল ভিত্তিক পরিবহন ব্যাবস্থার মত ভূমি পরিবহনের বেশ কিছু পদ্ধতি তৈরি করা হয়েছে।এগুলো তিন ধরনের-মানব চালিত, পশু চালিত এবং যন্ত্র চালিত

মানব চালিত পরিবহন[সম্পাদনা]

উন্নয়নশীল দেশগুলিতে মানব চালিত পরিবহন স্বাভাবিক।

মানব চালিত পরিবহন, টেকসই পরিবহনের একটি রূপ হচ্ছে মানুষের পেশী শক্তি ব্যবহার করে মানুষ এবং/বা পণ্য পরিবহন, হাঁটা, দৌড় এবং সাঁতার এর রূপে। আধুনিক প্রযুক্তির মাধ্যমে যন্ত্রগুলি মানুষের শক্তি বৃদ্ধি করতে সক্ষম হয়েছে। খরচ-সঞ্চয়, অবসর, শারীরিক ব্যায়াম, এবং পরিবেশগত কারণে মানব চালিত পরিবহন জনপ্রিয়। এটি কখনও কখনও উপলভ্য একমাত্র ধরণ, বিশেষত অনুন্নত বা অগম্য অঞ্চলে।

যদিও মানুষ অবকাঠামো ছাড়া হাঁটতে সক্ষম, রাস্তা ব্যবহারের মাধ্যমে পরিবহন বাড়ানো যায়, বিশেষ করে যখন বাইসাইকেল এবং ইনলাইন স্কেটগুলির মতো যানবাহনের সাথে মানুষের শক্তি ব্যবহার করা হয়।প্রতিকুল পরিবেশের জন্য মানুষের চালিত গাড়িও উন্নত করা হয়েছে, যেমন জলযান নৌচালন এবং স্কিইং দ্বারা বরফ ও পানিতে পরিবহন; এমনকি মানুষের চালিত বিমান দিয়ে বায়ু মাধমেও পরিবহন সম্ভব।

পশু চালিত পরিবহন[সম্পাদনা]

পশু চালিত পরিবহন হচ্ছে মানুষ এবং পণ্য পরিবহনের কাজে পশুদের ব্যবহার করা। মানুষ কিছু পশু সরাসরি চালাতে পারে, বস্তু বহন করার জন্য তাদের ব্যবহার করতে পারে, অথবা তাদের একা বা দলগতভাবে স্লেজ বা চাকার গাড়ি টানাতে পারে।

সড়ক পরিবহন[সম্পাদনা]

লস এঞ্জেলেস শহরের ডাউনটাউনে হারবার ফ্রীওয়ে প্রায়ই ভীড়াক্রান্ত হয়।

একটি রাস্তা একটি সনাক্তকরণযোগ্য রুট, রাস্তা বা দুই বা ততোধিক স্থাণের মধ্যে পথ[১]। রাস্তাগুলি মসৃণ, বাঁধানো, অন্যথায় সহজ ভ্রমণের উদ্দেশ্যে প্রস্তুত করা হয়[২]; যদিও তাদের প্রয়োজন নেই এবং ঐতিহাসিকভাবে অনেক রাস্তাই কোনও আনুষ্ঠানিক নির্মাণ বা রক্ষণাবেক্ষণ ছাড়াই সহজভাবে স্বীকৃত পথ[৩]। শহুরে এলাকায় রাস্তাগুলি একটি শহর বা গ্রামের মধ্য দিয়ে যেতে পারে এবং রাস্তা নামে নামকরণ করা যায়, যা শহরে স্থান প্রশস্তকরণ এবং রুট হিসাবে দ্বৈত কার্য সম্পাদন করে[৪]

রাস্তার সবচেয়ে সাধারণ বাহন অটোমোবাইল; একটি চাকাযুক্ত গাড়ি, যে নিজস্ব চালকযন্ত্র বহন করে। অন্যান্য সড়ক ব্যবহারকারীরা বাস, ট্রাক, মোটরসাইকেল, বাইসাইকেল এবং পথচারীদের অন্তর্ভুক্ত। ২০০২ সালের হিসাবে, বিশ্বব্যাপী ৫৯ কোটি অটোমোবাইল ছিল। অটোমোবাইল দ্বারা বায়ু দূষণের ফলে মানুষের হাঁপানি দেখা দেয়। সড়ক পরিবহনের সাহায্যে সড়ক ব্যবহারকারীদের প্রয়োজনীয়তা ও সুবিধার ভিত্তিতে গাড়ি এক লেন থেকে অন্য লেন এবং এক রাস্তা থেকে অন্য রাস্তায় স্থানান্তর করা যায়। স্থান, দিক, গতি এবং ভ্রমণের সময় পরিবর্তনের এই নমনীয়তা পরিবহনের অন্যান্য রীতিতে উপলব্ধ নয়। শুধুমাত্র সড়ক পরিবহন দ্বারা দ্বার থেকে দ্বারে পরিসেবা প্রদান করা সম্ভব।

অটোমোবাইল উচ্চ নমনীয়তা এবং কম ক্ষমতাসম্পন্ন, কিন্তু নগরের শব্দ এবং বায়ু দূষণ এর প্রধান উৎস; সংক্ষিপ্ত নমনীয়তার বিনিময়ে বাসগুলি আরও কার্যকর ভ্রমণের সুবিধা দেয়[৫]। প্রায়ই ট্রাক দ্বারা সড়ক পরিবহনে মালবাহী পরিবহন প্রাথমিক এবং চূড়ান্ত পর্যায়ে হয়।

রেল পরিবহন[সম্পাদনা]

ইন্টারসিটিএক্সপ্রেস, একটি জার্মান উচ্চ গতির যাত্রীবাহী ট্রেন

রেল পরিবহন হচ্ছে যেখানে একটি ট্রেন দুটি সমান্তরাল ইস্পাতের রেল এর উপর দিয়ে চলে, যা রেলওয়ে বা রেলপথ হিসাবে পরিচিত। রেলগুলি লম্বা, কাঠ,কংক্রিট বা ইস্পাত এর বন্ধন দ্বারা আবদ্ধ যা একটি সুসংগত দূরত্ব বজায় রাখে।রেল এবং লম্বভাবে অবস্থিত বিমগুলি কংক্রিট বা সংকুচিত মাটি এবং নুড়ি গঠিত একটি ভিত্তিতে স্থাপন করা হয়। বিকল্প পদ্ধতিগুলি হচ্ছে মোনোরেল এবং ম্যাগলেভ

একটি ট্রেন এক বা একাধিক সংযুক্ত বাহন দ্বারা গঠিত যা রেল এর উপর চলে। চালনশক্তি সাধারণত একটি ইঞ্জিন দ্বারা সরবরাহ করা হয়, যা শক্তিহীন বগীর একটি শ্রেণী টেনে নিয়ে যায়, যা যাত্রী বা মাল বহন করতে পারে। ইঞ্জিন চালিত করা হয় বাষ্প ,ডিজেল বা লাইনসংলগ্ন সিস্টেম কর্তৃক সরবরাহিত বিদ্যুত দ্বারা। বিকল্পভাবে, কিছু বা সমস্ত বগী চালিত হতে পারে, যা বহুইউনিট হিসাবে পরিচিত। এছাড়াও, একটি ট্রেন ঘোড়া, তার, মাধ্যাকর্ষণ, নিউম্যাটিক্স এবং গ্যাস টারবাইন দ্বারা চালিত হতে পারে। রেলপথে চালিত যানবাহন রাস্তাঘাটের উপর চালিত রবারের টায়ারের তুলনায় অনেক কম ঘর্ষণে চলে, ফলে ট্রেনগুলি আরও শক্তি-সাশ্রয়ী হয়ে ওঠে, যদিও জাহাজগুলির মতো অতটা নয়।

আন্ত:নগর ট্রেন হল শহরগুলিকে সংযুক্তকারী দীর্ঘ রেল সংযোগ;[৬] আধুনিক উচ্চ গতির রেল ৩৫০ কিলোমিটার/ঘণ্টা (২২০ মাইল/ঘণ্টা) গতিতে চলতে সক্ষম, তবে এতে বিশেষভাবে নির্মিত ট্র্যাকের প্রয়োজন। আঞ্চলিক এবং কমিউটার ট্রেন শহরের উপকূলে এবং পার্শ্ববর্তী এলাকার শহরগুলিতে চলাচল করে অন্যদিকে নগর-অভ্যন্তর পরিবহন উচ্চ-ধারণক্ষমতাসম্পন্ন ট্রাম এবং র‍্যাপিড ট্রানযিট দ্বারা সঞ্চালিত হয়, যা প্রায়ই একটি শহরের জনসাধারণের পরিবহনের মেরুদণ্ড তৈরি করে। মালবাহী ট্রেনগুলিতে ঐতিহ্যগতভাবে বক্স কার ব্যাবহার করা হয়, হস্তসাধিত লোডিং এবং আনলোডের প্রয়োজেনে। ১৯৬০ সাল থেকে, কন্টেনার ট্রেন সাধারণ মাল বহনের জন্য সুলভ সমাধান হয়ে ওঠে, যখন অধিক-পরিমাণের পণ্য নিবেদিত ট্রেন দ্বারা পরিবহিত হয়।

অন্যান্য পদ্ধতি[সম্পাদনা]

অশোধিত তেলের জন্য ট্রান্স-আলাস্কা পাইপলাইনl

পাইপলাইন পরিবহনে একটি পাইপ এর মাধ্যমে পণ্য পাঠানো হয়; সাধারণত তরল এবং গ্যাসীয় পণ্য পাঠানো হয়, কিন্তু নিউম্যাটিক টিউব সংকুচিত হাওয়া ব্যবহার করে কঠিন ক্যাপসুল পাঠাতে পারে। তরল/গ্যাসের জন্য, যেকোনো রাসায়নিকভাবে স্থিতিশীল তরল বা গ্যাস একটি পাইপলাইনের মাধ্যমে পাঠানো যেতে পারে। পয়ঃনিষ্কাশন, সিমেন্টের কাই, পানি এবং বিয়ারের জন্য স্বল্প দূরত্ব সিস্টেম রয়েছে, আবার দীর্ঘদূরত্বের নেটওয়ার্কগুলি পেট্রোলিয়াম এবং প্রাকৃতিক গ্যাসের জন্য ব্যবহার করা হয়।

কেবল পরিবহন একটি বিস্তৃত পদ্ধতি যেখানে গাড়ির একটি অভ্যন্তরীণ শক্তি উৎসের পরিবর্তে তার দ্বারা বাহন টানা হয়। এটি সাধারণত খাড়া ঢাল এ ব্যবহৃত হয়। প্রতিরূপ সমাধানগুলি হল এরিয়াল ট্রামওয়ে, লিফট, চলন্ত সিঁড়ি এবং স্কি লিফ্টস; এদের মধ্যে কিছুকে কনভেয়ার ট্রান্সপোর্ট হিসাবে শ্রেণীকরণ করা হয়।

অন্যান্য পদ্ধতির সাথে সংযোগ[সম্পাদনা]

বিমানবন্দর[সম্পাদনা]

বিমানবন্দর বিমান পরিবহন কার্যক্রমের জন্য একটি টার্মিনাস হিসাবে কাজ করে, কিন্তু বায়ু দ্বারা পরিবাহিত অধিকাংশ মানুষ এবং পণ্যসম্ভার তাদের চূড়ান্ত গন্তব্যে পৌঁছানোর জন্য স্থল পরিবহন ব্যবহার করতে বাধ্য হয়। বিমানবন্দর-ভিত্তিক পরিসেবাগুলি কখনো কখনো সংযোগকারী ফ্লাইটের জন্য রাতে থাকার প্রয়োজন হলে লোকেদের নিকটস্থ হোটেল বা মোটেলে পাঠিয়ে থাকে। কোম্পানিগুলি ভাড়া গাড়ি, প্রাইভেট বাস এবং ট্যাক্সি পরিসেবা প্রদান করে, যখন গণপরিবহন পৌরসভা বা সরকারী তহবিলের অন্যান্য উৎস দ্বারা সরবরাহ করা হয়।

ডেনভার ইন্টারন্যাশনাল এবং জেএফকে ইন্টারন্যাশনালসহ বেশ কয়েকটি প্রধান বিমানবন্দর, বিভিন্ন ধরণের সড়ক পরিবহনসেবা প্রদান করে থাকে, বিভিন্ন কোম্পানী এবং অনুরূপ ব্যবসাগুলির সাথে কাজ কোরে। ছোট বিমানবন্দরগুলিতে শুধুমাত্র কয়েকটি ব্যক্তিগত ভাড়া কোম্পানী এবং একটি বাস সার্ভিস থাকতে পারে। বড় বিমানবন্দরে বিভিন্ন পরিবহন বিকল্পের প্রস্তাব দিয়ে থাকে। বেশিরভাগ বিমানবন্দরে সামান্য রেল এবং/অথবা রাস্তা থাকে, যেগুলি একাধিক টার্মিনালে প্রবেশের জন্য বিমানবন্দরের কাছাকাছি লুপ অবস্থায় থাকে।

সমুদ্রবন্দর[সম্পাদনা]

বিমান পরিবহনের অনুরূপ, নৌ পরিবহনেও সাধারণত মানুষ এবং পণ্য তাদের গন্তব্যস্থলে পৌঁছানোর জন্য ভ্রমণের শেষে স্থল পরিবহন ব্যবহার করতে বাধ্য হয়। সমুদ্র ও ভূমি ব্যবস্থার মধ্যে মানুষ এবং পণ্য স্থানান্তরের জন্য বন্দরগুলিতে গুরুত্বপূর্ণ অবকাঠামো ব্যবহৃত হয়।

উপাদানসমূহ[সম্পাদনা]

অবকাঠামো[সম্পাদনা]

গোল্ডেন গেট সেতুর মত সেতুগুলো, সড়ক ও রেলপথকে পানি অতিক্রম করার ক্ষমতা দেয়।

অবকাঠামো হচ্ছে একটি নির্দিষ্ট ইনস্টলেশন যা একটি গাড়িকে পরিচালিত হতে দেয়। এটি একটি পথ, একটি টার্মিনাল, পার্কিং এবং রক্ষণাবেক্ষণের সুবিধা দ্বারা গঠিত। রেল, পাইপলাইন, সড়ক ও তার পরিবহনের জন্য, গাড়ি চলাচলের পুরো পথটি অবশ্যই গড়ে তুলতে হবে।

টার্মিনাল, যেমন স্টেশন হল এমন স্থান যেখানে যাত্রী ও মাল এক বাহন বা পদ্ধতি থেকে অন্যটিতে স্থানান্তর করা যায়। যাত্রী পরিবহনের জন্য, টার্মিনালে বিভিন্ন পদ্ধতি সমন্বিত হয় যাতে যাত্রী প্রতিটি পদ্ধতির সুবিধা গ্রহণ করতে পারে। উদাহরণস্বরূপ, বিমানবন্দরের রেল সংযোগগুলি বিমানবন্দরকে শহরের কেন্দ্র ও উপশহরগুলিতে সংযুক্ত করে। অটোমোবাইলের জন্য টার্মিনাল হল পার্কিং লট, বাস এবং কোচ সাধারণ বাস স্টপ থেকেই কাজ করতে পারে[৭]। মালবাহনের জন্য, টার্মিনাল ট্রান্সশিপমেন্ট কেন্দ্র হিসাবে কাজ করে, যদিও কিছু পণ্য উৎপাদনের কেন্দ্র থেকে সরাসরি ব্যবহারের স্থান পর্যন্ত পরিবহন করা হয়।

অবকাঠামো অর্থায়ন সরকারি বা ব্যাক্তিগত হতে পারে। পরিবহন একটি প্রাকৃতিক একাধিকার এবং জনসাধারণের জন্য অপরিহার্য; সড়ক ও কিছু দেশে রেলপথ এবং বিমানবন্দর কর এর মাধ্যমে অর্থায়ন করা হয়। নতুন অবকাঠামো প্রকল্পগুলি উচ্চ খরচ বহন করতে পারে, এবং প্রায়ই ঋণের মাধ্যমে এর অর্থায়ন করা হয়। তাই অনেক অবকাঠামোগত সামগ্রীর ওপর ব্যবহার ফি আরোপ করা হয়, যেমন বিমানবন্দরে অবতরণ ফি বা রাস্তায় টোল প্লাজা। এই স্বাধীনতার কারণে কর্তৃপক্ষ গাড়ির ক্রয় বা ব্যবহারে কর আরোপ করতে পারে। পরিকল্পনাকারীদের দ্বারা যাত্রী সংখ্যার ত্রুটিপূর্ণ পূর্বাভাস এবং অতিমানতার কারণে, প্রায়ই পরিবহন অবকাঠামো প্রকল্পগুলির জন্য লাভ এর পরিমাণ হ্রাস পায়[৮]

যানবাহন[সম্পাদনা]

২00৮ সালে একটি ফিয়াত উনো

একটি যানবাহন মানুষ এবং পণ্য স্থানান্তরে ব্যবহৃত হয়। এটি অবকাঠামো থেকে ভিন্ন, তার যাত্রী এবং পণ্য বহন করে। কেবল বা পেশী শক্তি ব্যাবহার করা না হলে, গাড়ির নিজস্ব চালনশক্তি প্রদান করা আবশ্যক; এটি সাধারণত একটি বাষ্প ইঞ্জিন, দহন ইঞ্জিন, বা বৈদ্যুতিক মোটর এর মাধ্যমে করা হয়, যদিও অন্যান্য উপায়ও বিদ্যমান। শক্তিকে চলাচলে রূপান্তর করার জন্যও যানবাহনগুলির একটি প্রণালী প্রয়োজন; এটি সাধারণত চাকা, চালকযন্ত্র এবং চাপের মাধ্যমে হয়।

সাধারণত যানবাহন এর কর্মী একজন চালক। যাইহোক, কিছু সিস্টেম, যেমন এপিএম এবং কিছু দ্রুত ট্রানজিট, সম্পূর্ণ স্বয়ংক্রিয় হয়। যাত্রীদের পরিবহনের জন্য, শুধুমাত্র যাত্রীদের জন্য একটি কুঠরি থাকতে হয়। সাধারণ যানবাহন, যেমন অটোমোবাইল, বাইসাইকেল বা সাধারণ উড়োজাহাজে, চালক হিসেবে যাত্রীদের মধ্যে একজন হতে পারে।

ব্যবহারকারীগণ[সম্পাদনা]

সরকারি[সম্পাদনা]

সরকারি স্থল পরিবহনের মাধ্যমে সরকারি ও বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠানগুলির মানুষ ও পণ্য বহন করা বোঝায় যা জনগণের কাছে অর্থনৈতিকসামাজিক সেবা প্রদানের লক্ষ্যে ব্যাপকভাবে উপলব্ধ হয়। বেশিরভাগ অবকাঠামো এবং বৃহৎ যানবাহন এই পদ্ধতিতে পরিচালিত হয়। এই ধরনের পরিবহনের জন্য অর্থ কর, চাঁদা, প্রত্যক্ষ ব্যাবহারকারী ফিস বা কিছু সমন্বয় থেকে আসতে পারে। সরকারি পরিবহনের বিশাল অংশ ভূমি ভিত্তিক, যেখানে পরিবহন ও ডাক সরবরাহ প্রধান উদ্দেশ্য।

বাণিজ্যিক[সম্পাদনা]

বাণিজ্যিক স্থল পরিবহন এর ক্ষেত্রে ব্যক্তি, ব্যবসা এবং ভ্রমণ সংস্থাগুলি লাভ করার উদ্দেশ্যে সরকারকে প্রদেয় বাণিজ্যিক সম্পত্তির দ্বারা যাত্রী ও পণ্য বহন করে। সর্বাধিক ব্যবহৃত অবকাঠামো হয় সরকারি মালিকানাধীন, এবং যানবাহনগুলি সর্বাধিক মুনাফা অর্জনের জন্য দক্ষতা অর্জনের জন্য বড় ও আরামদায়ক হয়ে থাকে। মালবাহী জাহাজ এবং দীর্ঘ দূরত্ব ভ্রমণ বাণিজ্যিক স্থল পরিবহনের একটি সাধারণ ব্যবহার।

সামরিক[সম্পাদনা]

সামরিক স্থল পরিবহন, সামরিক অপারেশন সমর্থন এর জন্য সামরিক এবং অন্যান্য পরিচালকদের দ্বারা মানুষ ও পণ্যের পরিবহন বোঝায়, শান্তির সময় এবং যুদ্ধক্ষেত্র উভয় ক্ষেত্রেই। এই ধরনের কার্যকলাপ জনসাধারণের অবকাঠামো এবং সামরিক-ভিত্তিক অবকাঠামোর সংমিশ্রণ ব্যবহার করতে পারে এবং অনেক ক্ষেত্রে প্রয়োজন হলে সামান্য বা বিনা অবকাঠামোর সাথে কাজ করার জন্য তৈরি করা হয়। যানবাহনগুলো বেসামরিক, বাণিজ্যিক, এমনকি ব্যক্তিগত যানবাহন থেকে বিশেষ সামরিক ব্যবহারের জন্য তৈরিকৃত হতে পারে।

ব্যাক্তিগত[সম্পাদনা]

ব্যাক্তিগত স্থল পরিবহন এর ক্ষেত্রে ব্যক্তি ও সংস্থাগুলি নিজের এবং নিজের লোকেদের এবং তাদের নিজস্ব বিবেচনার ভিত্তিতে পণ্য পরিবহন করে। ব্যবহৃত যানবাহন সাধারণত ছোট হয়, যদিও সরকারি মালিকানাধীন অবকাঠামো প্রায়ই ভ্রমণের জন্য ব্যবহৃত হয়।

ক্রিয়া[সম্পাদনা]

ভ্রমণকারী এবং পণ্যসম্ভার পুনর্বাসন করা পরিবহনের সাধারণ ব্যবহার। যাইহোক, অন্যান্য ব্যবহার বিদ্যমান, যেমন যুদ্ধক্ষেত্রের সময় সশস্ত্র বাহিনীর কৌশলগত স্থানান্তর, বা বেসামরিক গতিবিধি নির্মাণ বা জরুরী সরঞ্জাম পরিবহন।

যাত্রী[সম্পাদনা]

অস্ট্রেলিয়ার ক্যানবেরাতে অ্যাকশন দ্বারা পরিচালিত একটি স্থানীয় ট্রানজিট বাস।

যাত্রী পরিবহন বা ভ্রমণ, পাবলিক এবং প্রাইভেট এই দুই ভাগ এ ভাগ করা হয়। পাবলিক ট্রান্সপোর্ট নির্ধারিত রুটগুলিতে পরিসেবা দিয়ে থাকে, তবে বেসরকারি যানবাহনগুলি যাত্রীর ইচ্ছা অনুযায়ী অ্যাড-হক সেবা প্রদান করে। পরেরটি ভাল নমনীয়তা প্রদান করে, কিন্তু এর ক্ষমতা সামান্য এবং উচ্চতর পরিবেশগত প্রভাব রয়েছে। ভ্রমণ, ব্যবসা, অবসর বা দেশান্তরে গমনের অংশ হিসাবে হতে পারে।

স্বল্পস্থল পরিবহন অটোমোবাইল এবং ব্যাপক ট্রানজিট দ্বারা প্রভাবিত হয়। পরেরটি গ্রামাঞ্চলে এবং ছোট ছোট শহরে বাসগুলির মধ্যে রয়েছে, যাতায়াত রেল, ট্রাম এবং বৃহত্তর নগরগুলিতে দ্রুত ট্রানজিট সহ। দীর্ঘ-ভ্রমন পরিবহনের মধ্যে রয়েছে অটোমোবাইল, ট্রেন, কোচ এবং বিমানের ব্যবহার, যা শেষ পর্যন্ত আন্তঃমহাদেশীয় ভ্রমণের জন্য ব্যবহৃত হয়ে থাকে। আন্তঃমোডাল যাত্রী পরিবহন হল যেখানে একটি যাত্রা পরিবহন বিভিন্ন পদ্ধতি ব্যবহারের মাধ্যমে সঞ্চালিত হয়; যেহেতু সব মানব পরিবহন স্বাভাবিকভাবেই হাঁটা থেকে শুরু করে এবং শেষ হয়, সব যাত্রী পরিবহন আন্তঃমোডাল বলে বিবেচিত হতে পারে। সরকারি পরিবহনের মধ্যে পরিবহনের কেন্দ্রস্থল, যেমন বাস বা রেলওয়ে স্টেশন ইত্যাদির মধ্যে যানবাহনগুলির পরিবর্তনের মাধ্যমেও হতে পারে।

সরকারি পরিবহন স্পেকট্রামের উভয় প্রান্তে ট্যাক্সি ও বাস পাওয়া যাবে। বাসগুলি পরিবহনের সস্তা পদ্ধতি কিন্তু এটি নমনীয় নয়, এবং ট্যাক্সিগুলি খুবই নমনীয় কিন্তু প্রচুর ব্যয়বহুল। মাঝখানে আছে চাহিদা-প্রতিক্রিয়াশীল পরিবহন, সাশ্রয়ী মূল্যের সাথে যা নমনীয়তা দিয়ে থাকে।

আইন এবং ভিসা-সংক্রান্ত কারণে কিছু ব্যক্তির জন্য আন্তর্জাতিক ভ্রমণ সীমিত করা হতে পারে।

মাল[সম্পাদনা]

যুক্তরাজ্যে শিপিং কন্টেইনারের সাথে মালবাহী ট্রেন

মালবাহী পরিবহন, বা শিপিং, উৎপাদন শৃঙ্খল মানের শিকল[৯]।বর্ধিত বিশেষত্ব এবং বিশ্বায়নের সঙ্গে, উৎপাদন খরচ ভোগ থেকে আরও দূরে অবস্থিত, দ্রুত পরিবহণের চাহিদা বৃদ্ধি করে[১০]। পরিবহনের সব পদ্ধতি পণ্য পরিবহনের জন্য ব্যবহার করা হয়, কোন পদ্ধতি নির্বাচন করা হয় তার উপর ভিত্তি করে পণ্যসম্ভার পরিবহন প্রকৃতির মধ্যে অনেক পার্থক্য আছে[১১]। লজিস্টিক বলতে তথ্য সংগ্রহের সাথে সাথে পণ্য, পণ্য পরিবহন, ট্রান্সশিপমেন্ট, গুদামজাতকরণ, উপাদান-হ্যান্ডলিং এবং প্যাকেজিং সহ উৎপাদক থেকে ভোক্তা পর্যন্ত পণ্য স্থানান্তর করার সম্পূর্ণ প্রক্রিয়া বোঝায়[১২]ইঙ্কোটার্ম পরিবহনের সময় অর্থ প্রদান নিয়ন্ত্রণ এবং ঝুঁকির দায়বদ্ধতার সাথে জড়িত[১৩]

কনটেইনারাইজেশন, সমস্ত যানবাহন এবং সমস্ত বন্দরের আই এস এ কনটেইনারের মানদণ্ডের সাথে, আন্তর্জাতিক এবং গার্হস্থ্য বাণিজ্যকে আমূলে পরিবর্তন করেছে, যা ট্রান্সশিপমেন্টের খরচ বিপুল পরিমাণ হ্রাস করে। ঐতিহ্যগতভাবে, সমস্ত কার্গো নিজে নিজে লোড করা হতো এবং কোনও গাড়িতে আনলোড করা হতো; কনটেইনারাইজেশন, স্বয়ংক্রিয়ভাবে পরিচালনার জন্য এবং মোডগুলির মধ্যে স্থানান্তর করতে সাহায্য করে, এবং প্রমিত আকারের স্কেল অর্থনীতিতে লাভের জন্য অনুমতি দেয়। এটি ১৯৫০-এর দশকের পর থেকে আন্তর্জাতিক বাণিজ্য ও বিশ্বায়নের মূল চালিকা শক্তিগুলির একটি[১৪]

বাল্ক পরিবহন যে পণ্যসম্ভার সঙ্গে প্রায় সাধারণভাবে ক্ষয় ছাড়া পরিচালনা করা যেতে পারে; সাধারণ উদাহরণ হল আকরিক, কয়লা, সিরিয়াল এবং পেট্রোলিয়াম। পণ্যের এককত্বের কারণে, যান্ত্রিক হ্যান্ডলিং ব্যাপক পরিমাণে দ্রুত এবং দক্ষতার সাথে পরিচালনা করতে পারে। উচ্চ ভলিউমের সঙ্গে মিলিত পণ্যসম্ভার এছাড়াও বোঝায় পরিবহনে স্কেল অর্থনীতির অপরিহার্য, এবং সমগ্র ট্রেন সাধারণত বাল্ক পরিবহনের জন্য ব্যবহৃত হয়। পর্যাপ্ত পরিমাণে তরল পণ্যগুলিও পাইপলাইন দ্বারা পরিবাহিত হতে পারে।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

অস্ট্রেলিয়ায় বলদের দল উল বহন করছে

মানুষের প্রথম স্থল পরিবহন মানে ছিল হাঁটা। গবাদি পশুপাখি আরও শক্তিশালী প্রাণীর উপর পরিবহনের বোঝা রাখার জন্য একটি নতুন উপায় প্রবর্তন করে, ভারী লোডগুলি সঞ্চারিত করার পদ্ধতি বের করে বা মানুষ উচ্চতর গতি এবং সময়কালের জন্য প্রাণীদেরকে চালনা করতে পারে। যেমন চাকা এবং স্লেড উদ্ভাবন যানবাহন প্রবর্তনের মাধ্যমে পশু পরিবহন আরো উন্নত করতে সাহায্য করে। যাইহোক, শিল্প বিপ্লবের পূর্বে বৃহত পরিমাণে বা বৃহত দূরত্ব অতিক্রম করার জন্য একমাত্র কার্যকর উপায় ছিল বাহিত ও পাল-ওয়ালা জাহাজ অর্থাৎ জলপথে পরিবহন।

সড়ক পরিবহণের প্রথম রূপ ছিল ঘোড়া, গরু বা এমনকি মানুষ যারা ট্র্যাকের মাধ্যমে পণ্য বহন করে যা প্রায়ই খেলা পথ অনুসরণ করে। বাঁধানো রাস্তাগুলি অনেক প্রাথমিক সভ্যতার দ্বারা নির্মিত হয়েছিল, যেমন মেসোপটেমিয়া এবং সিন্ধু উপত্যকা সভ্যতা। পারস্য ও রোমান সাম্রাজ্যরা পাথর-পাকা রাস্তা নির্মাণ করে যাতে সেনাবাহিনী দ্রুত ভ্রমণ করতে পারে। রাস্তাগুলি শুকনো রাখার জন্য নীচে খচিত পাথর ব্যাবহার করা হয়। মধ্যযুগীয় খিলাফত পরে আলকাতরা-বাঁধানো রাস্তা তৈরি করে। শিল্প বিপ্লব পর্যন্ত, পরিবহন ধীর এবং ব্যয়বহুল ছিল, এবং উৎপাদন এবং ভোগ সম্ভাব্য হিসাবে একে অপরের কাছাকাছি অবস্থিত ছিল।

১৯ শতকের শিল্পায়নের বিপ্লব বেশ কয়েকটি আবিষ্কারকে পরিবহনের মৌলিক পরিবর্তন ঘটাতে দেখে। টেলিগ্রাফির সাথে, যোগাযোগ তাৎক্ষণিক এবং পরিবহণের স্বাধীন হয়ে ওঠে। বাষ্প ইঞ্জিনের আবিষ্কার, যাকে রেল পরিবহনে বাষ্প ইঞ্জিনের প্রয়োগ অনুসরণ করে, এর ফলে স্থল পরিবহন মানুষ বা পশুর পেশি শক্তির স্বাধীন হয়ে ওঠে । গতি এবং ক্ষমতা উভয়ই দ্রুত বৃদ্ধি পেয়েছে, যা প্রাকৃতিক সম্পদ থেকে উৎপাদিত শিল্পের মাধ্যমে বিশেষত্ব বজায় রাখতে সক্ষম।

বিংশ শতাব্দীতে ঘূর্ণায়মান ইঞ্জিন এবং অটোমোবাইলের বিকাশের ফলে সড়ক পরিবহন আরও কার্যকর হয়ে ওঠে, যা যান্ত্রিক ব্যাক্তিগত পরিবহনের প্রবর্তন করে। ১৯ শতকের প্রথম দিকে ম্যাকডামের সাথে প্রথম হাইওয়ে নির্মাণ করা হয়েছিল। পরে, টার্মাক এবং কংক্রিট প্রভাবশালী পেভিং উপাদান হয়ে ওঠে।

দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর, অটোমোবাইল এবং এয়ারলাইনগুলি পরিবহনের বেশি শেয়ার গ্রহণ করে এবং রেলগাড়িকে মালবাহী ও স্বল্প যাত্রী পরিবাহীতে রুপান্তর করে[১৫]। ১৯৫০-এর দশকে, কনটেইনারীকরণের প্রবর্তন মালবাহী পরিবহণে ব্যাপক কার্যকারিতা লাভ করে, বিশ্বায়ন অনুমোদন করে[১৪]। আন্তর্জাতিক বিমান ভ্রমণ ১৯৬০-এর দশকে জেট ইঞ্জিনের বাণিজ্যিকীকরণের সাথে আরও বেশি প্রবেশযোগ্য হয়ে ওঠে। অটোমোবাইল এবং মটরের প্রবৃদ্ধি সহ, এটি রেল পরিবহনের জন্য একটি পতন প্রবর্তন করে। ১৯৬৪ সালে শিঙ্কানসেন বা বুলেট ট্রেনের প্রবর্তনের পরে, এশিয়া ও ইউরোপের উচ্চ গতির রেল এয়ারলাইন থেকে দীর্ঘযাত্রা শুরু করে[১৫]

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের ইতিহাসের প্রথম দিকে, অধিকাংশ জলাভূমি, সেতু, খাল, রেলপথ, রাস্তাঘাট, এবং টানেলগুলি বেসরকারি যৌথ স্টক কর্পোরেশনের মালিকানাধীন ছিল। এ ধরণের পরিবহন অবকাঠামো ১৯ শতকের শেষভাগে এবং ২০ শতকের প্রথমার্ধে এমট্রাক তৈরির সাথে আন্তঃনগর পর্যায়ক্রমে রেল পরিসেবা জাতীয়করণের ফলে পরিগণিত হয়। সম্প্রতি সড়ক ও অন্যান্য অবকাঠামোর ব্যক্তিগতকরণের জন্য একটি আন্দোলন কিছু ভূমিকা ও অনুসারী লাভ করেছে[১৬]

প্রভাব[সম্পাদনা]

অর্থনৈতিক[সম্পাদনা]

পরিবহন, বৃদ্ধি এবং বিশ্বায়নের একটি মূল উপাদান, যেমন সিয়াটেল, ওয়াশিংটন, মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র

বিশেষীকরণের জন্য পরিবহন গুরুত্বপূর্ণ মূলনীতি - বিভিন্ন স্থানে পণ্য উৎপাদনে এবং ব্যবহারে সাহায্য করে। ইতিহাস জুড়ে পরিবহন সম্প্রসারণ এর জন্য প্রেরণা দিয়েছে; ভাল পরিবহন আরো বাণিজ্য এবং মানুষের বৃহত্তর বিস্তৃতিতে সাহায্য করে। পরিবহনের ক্ষমতা এবং যুক্তিসঙ্গততা বৃদ্ধির উপর অর্থনৈতিক বৃদ্ধি সবসময় নির্ভরশীল ছিল[১৭]। কিন্তু পরিবহনের অবকাঠামো জমির ওপর একটি বড় প্রভাব ফেলে এবং এটিই সবচেয়ে বড় শক্তি নিষ্কাশনকারী, ফলে পরিবহন ধারণক্ষমতা একটি প্রধান সমস্যা হিসেবে দেখা দেয়।

আধুনিক সমাজ ঘর এবং কাজের মধ্যে একটি পার্থক্য নির্দেশ করে, মানুষকে নিজেদের কাজের স্থান বা অধ্যয়নে স্থানান্তর করার পাশাপাশি অস্থায়ীভাবে অন্যান্য দৈনন্দিন কার্যক্রমের জন্য স্থানান্তর করতে বাধ্য করে। যাত্রী পরিবহন পর্যটন সারাংশ, বিনোদনমূলক পরিবহনের একটি বড় অংশ। বাণিজ্যিকভাবে ব্যবসা পরিচালনা করার জন্য জনসাধারণের পরিবহনের প্রয়োজন হয়, গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তের জন্য মুখোমুখি যোগাযোগ করা বা তাদের নিয়মিত স্থান থেকে বিশেষজ্ঞদের যেখানে প্রয়োজন হয় সেসব স্থানে স্থানান্তর করা।

পরিকল্পনা[সম্পাদনা]

যুক্তরাজ্যের ব্রিস্টল এর এই প্রকৌশল, ট্র্যাফিককে বাধাহীনভাবে চালাতে চেষ্টা করে।

পরিবহন পরিকল্পনা উচ্চতর ব্যবহার এবং নতুন অবকাঠামো সম্পর্কে কম প্রভাব বিস্তারে সাহায্য করে। পরিবহন পূর্বাভাসের মডেল ব্যবহার করে, পরিকল্পনাকারীরা ভবিষ্যতের পরিবহন নিদর্শনগুলির ভবিষ্যদ্বাণী করতে সক্ষম। অপারেটিভ পর্যায়ে লজিস্টিক্স সাপ্লাই চেইনের অংশ হিসাবে মাল পরিবহন করতে মালিকদের সাহায্য করে। পরিবহন একটি ক্ষেত্র হিসাবে পরিবহন অর্থনীতির মাধ্যমে অধ্যয়ন করা হয়, যা কর্তৃপক্ষ কর্তৃক প্রবিধান নীতি তৈরির মূল কেন্দ্র। পরিবহন প্রকৌশল, সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং এর একটি উপ-শাখা,অ্যাকাউন্ট ট্রিপ প্রজন্ম, ট্রিপ বিতরণ, মোড পছন্দ এবং রুট নিয়োগের বিষয়গুলো নিয়ে কাজ করে থাকে, যখন অপারেশন স্তরের বিষয় ট্রাফিক প্রকৌশল দ্বারা পরিচালিত হয় ।

নেতিবাচক প্রভাব তৈরির কারণে, পরিবহন প্রায়ই পরিবহনের পদ্ধতির ভিত্তিতে এমনকি ধারণক্ষমতা বৃদ্ধিকে কেন্দ্র করেও বিতর্কের কারণ হয়ে দাড়ায়। স্বয়ংক্রিয় পরিবহনকে "ট্র্যাজেডি অফ দ্যা কমন্স" হিসেবে দেখা যেতে পারে, যেখানে স্বতন্ত্র নমনীয়তা এবং স্বাচ্ছন্দ্য সকলের জন্য প্রাকৃতিক এবং শহুরে পরিবেশের ক্ষতি করে। উন্নয়নের ঘনত্ব পরিবহন ব্যবস্থার উপর নির্ভর করে, যা সরকারী পরিবহনের জন্য ভাল স্থানীয় ব্যবহারে সহায়ক। ভাল জমি ব্যাবস্থাপনা সাধারণ কর্মকাণ্ড লোকজনদের ঘরের কাছাকাছি এবং উচ্চ মাত্রার উন্নয়ন পরিবহন লাইন ও হাব পরিবহনের কাছাকাছি নিয়ে আসে, পরিবহনের প্রয়োজন কমানোর জন্য। সংঘাতের অর্থনীতি আছে। চলাচল ছাড়াই কিছু জমি ব্যবহার আরও দক্ষ হয় যখন তা গুচ্ছবদ্ধ করা হয়। পরিবহন সুবিধা ভূমি ব্যবহার করে এবং শহরগুলিতে, পাকা রাস্তা (রাস্তাঘাট ও পার্কিংয়ে নিবেদিত) মোট জমি ব্যবহারের ২0 শতাংশের বেশি ধারণ করতে পারে। একটি দক্ষ পরিবহন ব্যবস্থা ভূমি বর্জ্যকে কমাতে পারে।

মাত্রাতিরিক্ত যানবাহনের অবকাঠামো এবং সর্বাধিক যান চলাচলের জন্য মাত্রাতিরিক্ত মসৃণকরণের অর্থ হল অনেক শহরে প্রচুর ট্র্যাফিক আছে এবং এটির সাথে আসা বহু-যদি সব নাও হয়- নেতিবাচক প্রভাব। এটা শুধুমাত্র সাম্প্রতিক বছরগুলিতে হচ্ছে যে প্রচলিত পদ্ধতিগুলি অনেক জায়গায় প্রশ্ন করা শুরু হয়েছে, এবং নতুন ধরনের বিশ্লেষণের ফলে, যা প্রচলিত পদ্ধতির তুলনায় অনেক বিস্তৃত পরিসরে দক্ষতা নিয়ে আসে, জনস্বাস্থ্য, সমাজবিজ্ঞানী এবং অর্থনীতিবিদসহ বিভিন্ন ক্ষেত্র প্রসারিত হয় এবং পুরানো গতিশীল সমাধানগুলির সম্ভাব্যতা ক্রমবর্ধমানভাবে প্রশ্নবিদ্ধ হচ্ছে। ইউরোপীয় শহরগুলি এই রূপান্তরটির নেতৃত্ব দিচ্ছে।

পরিবেশ[সম্পাদনা]

লাইসেন্স সংখ্যাগুলির উপর ভিত্তি করে ড্রাইভের দিন সত্ত্বেও ব্রাজিলের সাও পাওলোতে যানজট অটল আছে।

পরিবহন শক্তির অধিকাংশ ব্যবহার করে এবং বিশ্বের অধিকাংশ পেট্রোলিয়াম পোড়াচ্ছে। এটি বায়ু দূষণ করে, নাইট্রাস অক্সাইড এবং বস্তুকণা তৈরি সহ, কার্বন ডাই অক্সাইড নির্গমনের মাধ্যমে বৈশ্বিক উষ্ণায়নের জন্য একটি উল্লেখযোগ্য অবদানকারী হিসেবে কাজ করে[১৮], যার জন্য পরিবহন হল দ্রুততম ক্রমবর্ধমান নির্গমন ক্ষেত্র[১৯]। সহবিভাগ হিসেবে, সড়ক পরিবহন বৈশ্বিক উষ্ণায়ন এর বৃহত্তম অবদানকারী[২০]। উন্নত দেশগুলিতে পরিবেশগত বিধিনিষেধগুলির কারণে স্বতন্ত্র গাড়িগুলির নির্গমন কমেছে; যদিও, এটি যানবাহন সংখ্যা বৃদ্ধি এবং প্রতিটি গাড়ির ব্যবহার বৃদ্ধি দ্বারা ভারসাম্য করা হয়েছে। যানবাহনের কার্বন নির্গমন কমাতে কিছু উপায় নিয়ে যথেষ্ট গবেষণা করা হয়েছে[২১][২২]। পরিবহন পদ্ধতির ভিত্তিতে শক্তি ব্যবহার এবং নির্গমনে বিরাট পার্থক্য রয়েছে, যার ফলে পরিবেশবাদীরা সড়ক থেকে রেল ও মানব-চালিত পরিবহনে রূপান্তরের পাশাপাশি বাড়তি পরিবহন বিদ্যুতায়ন এবং শক্তি দক্ষতা আহরণ করার ডাক দিচ্ছেন।

পরিবহন ব্যবস্থার অন্য পরিবেশগত প্রভাবগুলির মধ্যে রয়েছে যানজট এবং অটোমোবাইল ভিত্তিক শহুরে পল্লী, যা প্রাকৃতিক আবাসস্থল ও কৃষি জমির গ্রাস করতে পারে। বিশ্বব্যাপী পরিবহন নির্গমন কমানোর মাধ্যমে, এই পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে যে পৃথিবীর বাতাসের গুণমান, এসিড বৃষ্টি, ধোঁয়া এবং জলবায়ু পরিবর্তনের উপর উল্লেখযোগ্য ইতিবাচক প্রভাব থাকবে[২৩]

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Major Roads of the United States"। United States Department of the Interior। ২০০৬-০৩-১৩। ১৩ এপ্রিল ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০০৭ 
  2. "Road Infrastructure Strategic Framework for South Africa"। National Department of Transport (South Africa)। ২৭ সেপ্টেম্বর ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০০৭ 
  3. Lay, 1992: 6–7
  4. "What is the difference between a road and a street?"Word FAQ। Lexico Publishing Group। ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ২৪ মার্চ ২০০৭ 
  5. Cooper et al., 1998: 278
  6. Cooper et al., 1998: 279
  7. Cooper et al., 1998: 275–76
  8. Bent Flyvbjerg, Mette K. Skamris Holm, and Søren L. Buhl, "How (In)Accurate Are Demand Forecasts in Public Works Projects", Journal of the American Planning Association 71:2, pp. 131–146.
  9. Chopra and Meindl, 2007: 3
  10. Chopra and Meindl, 2007: 63–64
  11. Chopra and Meindl, 2007: 54
  12. Bardi, Coyle and Novack, 2006: 4
  13. Bardi, Coyle and Novack, 2006: 473
  14. Bardi, Coyle and Novack, 2006: 211–14
  15. Cooper et al., 1998: 277
  16. Clifford Winston, Last Exit: Privatization and Deregulation of the U.S. Transportation System (Washington, D.C.: Brookings Institution, 2010).
  17. Stopford, 1997: 2
  18. Fuglestvet; Center for International Climate and Environmental Research (২০০৭)। "Climate forcing from the transport sectors" (PDF) 
  19. Worldwatch Institute (১৬ জানুয়ারি ২০০৮)। "Analysis: Nano Hypocrisy?"। ১৩ অক্টোবর ২০১৩ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২১ ফেব্রুয়ারি ২০১৮ 
  20. Climate forcing from the transport sectors, Jan Fuglestvedt, Terje Berntsen, Gunnar Myhre, Kristin Rypdal, and Ragnhild Bieltvedt Skeie, January 15, 2008, vol. 105, no. 2, PNAS.org
  21. "Claverton-Energy.com"। Claverton-Energy.com। ২০০৯-০২-১৭। সংগ্রহের তারিখ ২০১০-০৫-২৩ 
  22. Data on the barriers and motivators to more sustainable transport behaviour is available in the UK Department for Transport study "Climate Change and Transport Choices ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ৩০ মে ২০১১ তারিখে" published in December 2010.
  23. Environment Canada"Transportation"। জুলাই ১৩, ২০০৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ৩০ জুলাই ২০০৮ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]