স্কিপি (চলচ্চিত্র)

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
স্কিপি
স্কিপি চলচ্চিত্রের পোস্টার.jpg
স্কিপি চলচ্চিত্রের পোস্টার
পরিচালকনরমান টাউরগ
প্রযোজকঅ্যাডল্ফ জুকোর
জেসি এল. ল্যাস্কি
বি. পি. শুলবার্গ
রচয়িতানরমান জেড. ম্যাকলিয়ড
জোসেফ এল. মানকিউইজ
ডন মার্কুইস
স্যাম মিন্টজ
শ্রেষ্ঠাংশেজ্যাকি কুপার
রবার্ট কুগান
মিতজি গ্রীন
জ্যাকি সার্ল
সুরকারজন লেইপল্ড
চিত্রগ্রাহককার্ল স্ট্রাস
পরিবেশকপ্যারামাউন্ট পিকচার্স
মুক্তি
  • ৫ এপ্রিল ১৯৩১ (1931-04-05)
দৈর্ঘ্য৮৫ মিনিট
দেশযুক্তরাষ্ট্র
ভাষাইংরেজি

স্কিপি ১৯৩১ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত আমেরিকান প্রাক-কোড হাস্যরসাত্মক চলচ্চিত্র। জোসেফ এল. মানকিউইজ, ডন মার্কুইস, নরম্যান জেড. ম্যাকলিয়ড এবং স্যাম মিন্টজের চিত্রনাট্য এবং পার্সি ক্রসবির কমিক স্ট্রিপ স্কিপ্পির উপর ভিত্তি করে তৈরি হয়েছিল।

ছবিটিতে অভিনয় করেছেন জ্যাকি কুপার, রবার্ট কুগান, মিতজি গ্রীন এবং জ্যাকি সার্ল। পরিচালক নরমান টাউরগ শ্রেষ্ঠ পরিচালনা বিভাগে একাডেমি পুরস্কার জিতেন (৩২ বছর বয়সে এই পুরস্কার জিতে তিনি এই বিভাগে সবচেয়ে কম বয়সী বিজয়ী হয়ে রেকর্ড করেন পরে ড্যামিয়েন শ্যাজেল ২০১৬/১৭ সালে ''লা লা ল্যান্ড'' ছবির জন্য এই পুরস্কার জিতে নতুন রেকর্ড করেন)। ছবিটি ''সুকি'' (১৯৩১) নামে একটি সিক্যুয়াল তৈরিতে যথেষ্ট অনুপ্রেরণা জোগায়। ১৯৩১ সালের ৫ এপ্রিল প্যারামাউন্ট পিকচার্স ছবিটি মুক্তি দেয়।[১][২] তার অভিনয়ের জন্য নয় বছর বয়সে কুপার শ্রেষ্ঠ অভিনেতা বিভাগে একাডেমি পুরস্কার বিভাগে সবচেয়ে কম বয়সী ব্যক্তি হিসাবে একাডেমি পুরস্কারের জন্য মনোনয়ন পেয়েছিলেন। চলচ্চিত্রটি শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্র বিভাগে একাডেমি পুরস্কারের জন্যও মনোনীত হয়েছিল।[৩]

কাহিনী সংক্ষেপ[সম্পাদনা]

স্কিপি চলচ্চিত্রে জ্যাকি কুপার এবং রবার্ট কুগান

স্কিপি (জ্যাকি কুপার) হলো কঠোর প্রকৃতির ড. হারবার্ট স্কিনার (উইলার্ড রবার্টসন) এবং তাঁর স্ত্রী এলেন (এনিড বেনেট) এর প্রথম পুত্র। স্কিনার তার ছেলে স্কিপিকে সেখানকার অস্বাস্থ্যকর ও অপরাধমূলক পারিবেশের কারণে দারিদ্র্যপীড়িত শ্যানটাইটাউনে খেলতে নিষেধ করেন। কিন্তু স্কিপি এবং তাঁর বন্ধু সিডনি (জ্যাকি সার্ল) এরপরও শ্যানটাইটাউনে যায়, সেখানে স্কিপি সুকি (রবার্ট কুগান, জ্যাকি কুপারের ছোট ভাই) নামের এক নতুন ছেলের সাথে দেখা করে। সে ছোট্ট ছেলে সুকিকে তাদের থেকে অনেক বড় গুণ্ডা ধরনের হার্লি নুবিন্স (ডোনাল্ড হেইনেস) এর হাত থেকে বাঁচায়। স্কিপি এবং সুকি বন্ধু হয়ে যায়। একদিন হার্লি দুর্ঘটনাক্রমে স্কিপির ইয়ো-ইয়ো দিয়ে তার বাবার গাড়ির উইন্ডশীল্ড ভেঙে ফেলে। হার্লি পিতা খুবই মারমুখো এবং বর্বর, তাই সে স্কিপি এবং সুকির উপর দোষ চাপায়। মিঃ নুবিন্স (জ্যাক রুবে ক্লিফোর্ড) কুকুর ধরার কাজ করে, সে সুকির কুকুরটি ধরে নিয়ে যায় এবং দাবি করে যে তারা যদি তাদের কুকুরটি ফিরে পেতে চায় তবে তাদের ক্ষতিপূরণ দিতে হবে। ছেলেরা স্কিপির মাটির ব্যাঙ্ক ভেঙে তিন ডলার জোগাড় করে, কিন্তু মি. নুবিন্স এটি কেবল তার উইন্ডশীল্ডের জন্য গ্রহণ করেন। কুকুরের লাইসেন্সের জন্য আরও তিন ডলার পাওয়ার জন্য সে তাদের তিন দিন সময় দেয় এবং হুমকি দেয় যে তারা টাকা না দিলে সে তাদের কুকুরটিকে মেরে ফেলবে।

সুকি এবং স্কিপি পরের দু'দিন বোতল, লেমনেড এবং কাঠ বিক্রি করে অর্থ উপার্জনের জন্য চেষ্টা করে কাটায়। স্কিপির বাবা তাদের বাকি ত্রিশ সেন্ট ধার দিতে রাজি হয় না। এরপর মি. নুবিন্স তাদের কুকুরকে মেরে ফেলে এবং স্কিপি তার বাবাকে এর জন্য দায়ি করে। পরদিন সকালে স্কিপি তার বাবার কাছ থেকে একটি নতুন সাইকেল নিয়ে আসে। তবে সে সাইকেলটি তার নতুন কুকুর কেনার জন্য তার বন্ধু এলোয়িজ (মিতজি গ্রীন) এর কাছে বিক্রি করে। স্কিপি কুকুরটিকে সুকির কাছে নিয়ে যায়। ড. স্কিনারের মনে পরিবর্তন আসে এবং সুকিকে একটি লাইসেন্সযুক্ত কুকুর কিনে দেয়, তার মাকে একটি চাকরি খুঁজে দেয় এবং শ্যানটাইটাউন ধ্বংস করার আদেশ দেওয়ার পরিবর্তে নাগরিকদের সহায়তা প্রদানের প্রতিশ্রুতি দেয়। প্রথমবারের মতো ড. স্কিনার শ্যানটাইটাউনে স্কিপির সাথে খেলে। সেখানে তারা দুর্ঘটনাক্রমে মিঃ নুবিন্সের নতুন উইন্ডশীল্ডটি ভেঙে দেয়। ড. স্কিনার মিঃ নুবিন্সের বিরুদ্ধে লড়াইয়ে জয়লাভ করে এবং প্রমাণ করে যে সে একজন ভাল বাবা।

পটভূমি[সম্পাদনা]

যে দৃশ্যে কুকুরটি মারা যায় সেই দৃশ্যে পরিচালক নরমান টাউরগকে তার ভাতিজা জ্যাকি কুপারকে কাঁদাতে হবে, তাই তিনি অল্পবয়সী জ্যাকিকে বলেন যে তিনি তার কুকুরকে হত্যা করতে চলেছেন। জ্যাকি দৃশ্যটি শেষ করেই তার কুকুর যে অক্ষত আছে তা জানার জন্য বের হয়ে যায়। এদিক থেকে জ্যাকি কুপার তার চাচার প্রতি প্রায় ঘৃণার পর্যায়ে মিশ্র অনুভূতি তৈরি হয় এবং খুব কমই আবার তাঁর সাথে কথা বলেছিলেন।

অভিনয়ে[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Skippy (1931) - Overview"। TCM.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-০৯ 
  2. Hall, Mordaunt (১৯৩১-০৪-০৪)। "Movie Review - Skippy - THE SCREEN; Two Boys and a Dog. Mr. Keaton's New Farce. Beauty's Power. A Russian Film. "The Stolen Jools.""NYTimes.com। সংগ্রহের তারিখ ২০১৫-০৮-০৯ 
  3. "The 4th Academy Awards (1931) Nominees and Winners"। Oscars.org। সংগ্রহের তারিখ মে ২৪, ২০১৯ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]