সেফটিপিন

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সেফটিপিন

সেফটি পিন (ইংরেজি: Safety pin)(সমার্থক শব্দ: আবদ্ধক, সুরক্ষা আবদ্ধক) হচ্ছে একটি বা দুটি দন্ডের তৈরী একটি লুপ যার একপাশে লুপ স্প্রিংয়ে দু'টি দন্ড সংযুক্ত এবং অন্য পাশের একটি দন্ড সূচালো যা অন্য দন্ডের সুরক্ষা আবরণে প্রয়োজনমাফিক আবৃত বা আবদ্ধ রাখা যায়। এটি দুই বা ততোধিক কাপড়,কাগজ, চামড়া প্রভৃতির অংশকে আবদ্ধ রাখতে ব্যবহার করা হয়। [১]

পূর্বসূরী[সম্পাদনা]

ফিবুলা
ব্রোচ(রূপককাঠি)

খ্রিস্টপূর্ব ১৩০০-১৪০০ শতকের দিকে মাইসেনিয়ান গ্রীসের পেলোপন্নিয়াসরা ফিবুলা নামের এক ধরনের ব্রোচ বা রূপককাঠি ব্যবহার করতো‌।যেটিকে সেফটিপিন এর পূর্বসূরী ইতিহাস স্বীকৃত।গ্রীকরা কাপড়ের এটি ব্যবহার করতো।[২]

আবিষ্কার[সম্পাদনা]

ওয়াল্টার হান্টের নকশা, ১৮৪৯
সিলভারের তৈরী সেফটিপিন

আমেরিকান মিস্ত্রি ওয়াল্টার হান্ট আধুনিক সেফটি পিনের আবিষ্কাকর্তা‌। লুপের মত স্প্রিং যুক্ত এবং সূচালো দন্ড ও তা থেকে সুরক্ষিত রাখতে অপর দন্ড আবদ্ধকারী আবরণের যে সেফটিপিন গুলো আমরা দেখি সেগুলো তাঁর সৃষ্টি।[৩] চার্লস রোউলি ১৮৪৯ সালে এটিকে বাণিজ্যিকভাবে উৎপাদনে পেটেন্ট করেন।[৪] ওয়াল্টার হান্ট তার বন্ধুর ১৫ ডলার দেনা পরিশোধে তাকে সর্ব প্রথম তৈরী সেফটিপিনটি উপহার দেন‌। এটি ৮ ইঞ্চি লম্বা ছিল যার একপাশে দন্ড দুটিতে তারের কয়েল লাগিয়েছিলেন যেটি স্প্রিংয়ের ভূমিকা পালন করেছিল এবং অন্যপাশে একটি দন্ড সূচালো ছিল যেটি আবদ্ধ রাখতে (বারবার আবদ্ধ-অনাবদ্ধ যোগ্য) অপর দন্ড একটি সিলভারের আবরণ লাগিয়েছিলেন। [৫]

ব্যবহার[সম্পাদনা]

এটির সূচালো অংশ লক্ষ্য (কাপড়,কাগজ, চামড়ার পাতলা অংশ) ভেদ করে অনেক গুলো অংশকে এক করে এবং অংশ গুলো লুপের ভেতর আবদ্ধ থাকে বলে চাহিদা মাফিক সজ্জা করা যায়, সূচালো মাথাটা অন্য দন্ডে থাকা সিলভার,টিন, সোনার তৈরী আবদ্ধক আবরণে আটকে থাকে। সেফটিপিনের অপর পাশে একটি স্প্রিং থাকে যেটি আবদ্ধক থেকে সূচালো দন্ডটি আলাদা করলে সমগ্র লুপ বা সেফটিপিনকে প্রসারিত করে।[৬] প্রাচীনকাল থেকে এটি কাপড়ের সাজসজ্জার অন্যতম সহায়ক উপকরণ ‌।

Gaza students eager to answer - Flickr - Al Jazeera English.jpg

আরব দেশগুলো বোরকা ও হিজাবের স্তরগুলো সুসজ্জিত বা মার্জিত রাখতে এটি বহুল ব্যবহৃত ‌‌ ।

Women in sari Ahmedabad.jpg

ভারতীয় শাড়ির বিভিন্ন ধরনের পরিধান শৈলীতে এটি ব্যবহার করা হয়।[৭]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. Türkyilmaz Z, Karabulut R, Sönmez K, Basaklar AC, Kale N (2007). "A new method for the removal of safety pins ingested by children" (PDF). Annals of the Academy of Medicine, Singapore. 36 (3): 206–7. PMID 17450267.
  2. "Brooches and Pins | LoveToKnow". LoveToKnow. Retrieved 2018-05-06.
  3. "Walter Hunt". National Inventors Hall of Fame. Archived from the original on 2007-07-14.
  4. Charles Rowley". Charles Rowley. Archived from the original on 2009-10-26.
  5. Walter Hunt". United States Patent and Trademark Office
  6. Safety Pin facts, information, pictures | Encyclopedia.com articles about Safety Pin". www.encyclopedia.com. Retrieved 2018-05-05.
  7. Caballar, Rina. "Three Millennia of Safety Pins". The Atlantic. Retrieved 2018-05-05