সেডলেক ওসারি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

স্থানাঙ্ক: ৪৯°৫৭′৪৩.০৪″ উত্তর ১৫°১৭′১৭.৮৫″ পূর্ব / ৪৯.৯৬১৯৫৫৬° উত্তর ১৫.২৮৮২৯১৭° পূর্ব / 49.9619556; 15.2882917

চ্যাপেলের অন্তর্দেশ

'সেডলেক ওসারি (কঙ্কালের গির্জা নামেও পরিচিত) একটি ছোট রোমান ক্যাথোলিক গির্জা যা চেক প্রজাতন্ত্রেরে সেডলেকে অবস্থিত। গির্জাটি মৃত মানুষের কঙ্কাল দিয়ে সাজানো। এখানে প্রায় ৪০,০০০ থেকে ৭০,০০০ মানুষের কঙ্কাল দিয়ে শৈল্পীকভাবে সাজানো হয়েছে গির্জাটি। এই গির্জাটি চেক প্রজাতন্ত্রের অন্যতম পর্যটকদের আকর্ষনীয় স্থান। প্রতি বছর প্রায় ২০০,০০০ পর্যটক গির্জাটি দেখতে আসেন।[১]

গির্জাটির অন্যতম আকর্ষন হলো এর কেন্দ্রে একটি বড় কঙ্কালের ঝাড়বাতি। আরো একটি আকর্ষনীয় কাজ হলো সোয়র্জনেবার্গের পরিবারের এর কুলচিহ্ন। এটিও কঙ্কাল দিয়ে নির্মীত।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

Chapel Exterior

১২৭৮ সালে হেনরি নামে একজন মঠাধ্যক্ষকে বোহেমিয়ার রাজা আটাকোরা ২ জেরুজালেম পাঠান। তিনি সেখান থেকে ফিরে আসার সময় গলগোথার কিছু মাটি সঙ্গে করে নিয়ে এসে মঠের গোরস্তানের চারপাশে ছড়িয়ে দেন। এই খবর যখন লোকজন জেনে যায় তখন পুণ্য লাভের জন্য সবাই মরে যাওয়ার পর এখানে সমাহিত হওয়ার ইচ্ছা পোষণ করে এবং কিছুদিনের মধ্যেই ইউরোপজুড়ে সেলডেক হয়ে ওঠে একটি আকাক্সিক্ষত সমাধিক্ষেত্র। ১৪ শতাব্দীতে ব্ল্যাক ডেথের সময় এবং ১৫ শতাব্দীর প্রথম দিকে হাজাইট যুদ্ধের সময় হাজার হাজার লোককে এখানে সমাহিত করা হয়।

১৪০০ সালের দিকে এই গির্জার ভিতরে একটি গোথিক গির্জা নির্মাণ করা হয় যেখানে অনেক লোককে সমাহিত করা হয়। তাই এটির পরিধি অত্যন্ত বেড়ে যায়। ১৭০৩ থেকে ১৭১০ সালের এর মধ্যে, একটি নতুন প্রবেশদ্বার তৈরি করা হয় যা সামনের প্রাচীরের বাহ্যিক সাপোর্ট হিসেবে কাজ করে। উপরের চার্চটি পুনঃনির্মিত হয়। চেক বারোক স্টাইলে এই চার্চের স্থাপতি ও ডিজাইনার ছিলেন জ্যান সান্তিনি আইচেল। ১৮৭০ সালে ফ্রান্তি অ্যাক রিন্ত একজন কাঠমিস্ত্রি যিনি এই হাড়গুলো সাজিয়ে রাখার দায়িত্ব পান।

স্থিরচিত্র[সম্পাদনা]

The Sedlec Ossuary
Signature of F. Rint written with bones 
A close up of a decoration 
Schwarzenberg coat-of-arms made with bones 
Chandelier made of bones and skulls 
Coins left as offering 

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "NIPOS: Statistika kultury 2009 - I. díl - kulturní dědictví (muzea, galerie a památkové objekty)" (PDF)। ৩০ মার্চ ২০১২ তারিখে মূল (PDF) থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৫ মে ২০১৩ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]