সুহৃদ চাকমা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

সুহৃদ চাক্‌মা ( ২০ জুন ১৯৫৮- ০৮ আগস্ট ১৯৮৮ খ্রীস্টাব্দ)[১] একজন বাংলাদেশি আদিবাসী কবি ও সাহিত্যিক ছিলেন। তিনি চাক্‌মা আধুনিক কবিতার গতানুগতিক ধারাকে পাল্টে দিয়ে নতুন ধারার সৃষ্টি করেন। চাক্‌মা সাহিত্যের কবিতা, গল্প, প্রবন্ধ ও সমালোচনা নিয়ে কাজ করলেও মূলতঃ চাক্‌মা ভাষার গবেষণা নিয়েই তার কৌতূহল ছিল সবচেয়ে বেশি। চাক্‌মা ভাষা, সাহিত্য ও ঐতিহ্য নিয়ে তার অনেক প্রবন্ধ বাংলাদেশে এবং ভারতের কলকাতায় ও ত্রিপুরা রাজ্যের বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় ও সাময়িকীতে প্রকাশিত হয়। ১৯৮৭ সালে ‘বার্গী’ নামে তাঁর একটি কাব্যগ্রন্থ প্রকাশিত হয়। [২]

জীবন[সম্পাদনা]

প্রাথমিক জীবন[সম্পাদনা]

সুহৃদ চাকমা ২০ জুন ১৯৫৮ সালে বর্তমান খাগড়াছড়ি জেলার দীঘিনালা থানার অন্তর্গত বাঘেইছড়ি দোর নামক স্থানে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতার নাম প্রফুল্ল কুমার চাকমা এবং মাতা দেনি চাকমা। পিতা-মাতার সাত সন্তানের মধ্যে তিনি দ্বিতীয়।

শিক্ষা জীবন[সম্পাদনা]

সুহৃদ চাকমা জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলা ভাষা ও সাহিত্যে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জ করেন।

কর্মজীবন[সম্পাদনা]

কর্মজীবনে প্রথমে তিনি বোয়ালখালী অনাথাশ্রমে এবং রাঙ্গামাটি মোনঘর আবাসিক উচ্চবিদ্যালয়ে শিক্ষকতা করেন। পরে শিক্ষকতা ছেড়ে দিয়ে একই প্রতিষ্ঠানে 'জেনারেল ম্যানেজার' হিসেবে কাজ করতে থাকেন।

সাহিত্যকর্ম[সম্পাদনা]

চাকমা সাহিত্যে সুহৃদ চাকমা একটি পরিচিত নাম। সাহিত্যের প্রতিটি শাখায় তার সরব উপস্থিতি। ভারতের কলকাতা ও ত্রিপুরা রাজ্যের বিভিন্ন পত্র-পত্রিকায় তার লেখা গল্প, কবিতা ও প্রবন্ধ প্রকাশিত হয় এবং "বার্গী" নামে তার একটি কাব্যগ্রন্থ ও প্রকাশিত হয়।

তার প্রবন্ধগুলোর মধ্যে অন্যতম হলো চাকমা ভাষা, চাকমা সাহিত্যের উদ্ভব ও ক্রমবিকাশ, কবিতা ও আধুনিক কবিতার পটভূমি। এছাড়াও জিংকানি ও কোচাপানার নাঙ পত্তাপোত্তি গল্প রচনা করেন।

ব্যক্তিগত জীবন[সম্পাদনা]

১৯৮২ সালের ৩১ শে জানুয়ারি ২৪ বছর বয়সে অর্চনা তালুকদারের সাথে তার বিয়ে হয় এবং তাদের এক পুত্র সুভদ্র চাকমা ও এক কন্যা সূচনা চাকমা।

মৃত্যু[সম্পাদনা]

তিনি ১৯৮৮ সালের ৮ আগস্ট মৃত্যুবরণ করেন।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. সুহৃদ চাকমার স্মারকগ্রন্থ। জুম ঈসথেটিকস কাউন্সিল (জাক)। ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০০৫। পৃষ্ঠা ৪২–৪৩। 
  2. সুহৃদ চাকমার স্মারকগ্রন্থ। জুম ঈসথেটিকস কাউন্সিল (জাক)। ২০০৫। পৃষ্ঠা ১৯। 
  1. সুহৃদ চাকমার স্মারকগ্রন্থ, পৃষ্ঠা ৩৬।
  2. কবি ও কবিতা : পার্বত্য চট্টগ্রাম। samakal.com।
  3. নানান বরণ ভাষা। prothomalo.com।