সিলভিয়া রাতোনেল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সিলভিয়া রাতোনেল
জন্ম নামসিলভিয়া অ্যান রাতোনেল
জন্ম (1988-06-14) ১৪ জুন ১৯৮৮ (বয়স ৩১)
উদ্ভবসিঙ্গাপুর
পেশাগায়িকা, শিল্পী, মডেল
কার্যকাল২০০৯–বর্তমান
লেবেলইউনিভার্সাল মিউজিক
ওয়েবসাইটপ্রাতিষ্ঠানিক ফেসবুক পাতা

সিলভিয়া অ্যান রাতোনেল (জন্ম: ১৪ জুন, ১৯৮৮) হলেন সিঙ্গাপুরের একজন গায়িকা এবং ইউরো-ফিলিপিনো বংশোদ্ভূত মুখপাত্র। তিনি সিঙ্গাপুর আইডলের ইতিহাসে প্রথম মহিলা চূড়ান্ত প্রতিযোগী হিসেবে পরিচিত এবং তিনি উক্ত প্রতিযোগিতার তৃতীয় আসরে রানার আপ হন। এই অনুষ্ঠানটি তাকে সঙ্গীত এবং বিনোদন জগতে তার কর্মজীবন শুরু করতে সাহায্য করে। ২০১০ সালের জানুয়ারি মাসে, প্রতিযোগিতাটি সম্পন্ন হওয়ার একমাসেরও কম সময়ের মধ্যে, তিনি জাতীয় সম্প্রচার মাধ্যম মিডিয়াকর্পের সাথে একটি পূর্ণসময়ের চুক্তিতে স্বাক্ষর করেন এবং একই বছরের মার্চ মাসে ইউনিভার্সাল মিউজিক সিঙ্গাপুরের সাথে একটি রেকর্ডিং চুক্তি স্বাক্ষর করেন। সিলভিয়া রাতোনেল প্রসাধনী ব্র্যান্ড মেবেলিন নিউ ইয়র্কের জন্য প্রথম সিঙ্গাপুরের সেলিব্রিটি হিসেবে রাষ্ট্রদূত নিযুক্ত হন। ২০১০ সালে, এফএইচএম ম্যাগাজিন কর্তৃক "বিশ্বের শীর্ষ ১০০ সর্বাধিক যৌন আবেদনময়ী মহিলা"দের মধ্যে তিনি স্থান পেয়েছিলেন। এছাড়াও তিনি বছরের সেরা এলে পুরস্কার ২০১০-এ "ব্রেকআউট স্টার" বিভাগে পুরস্কার জয়লাভ করেন।

তার নামধারী প্রথম অ্যালবাম, সিলভিয়া রাতোনেল ২০১০ সালের ২৭শে অক্টোবর মুক্তি পায়, তিনি মিয়া লিওলিন্ডা চোরের অ্যালবাম প্রকাশের পর তৃতীয় মহিলা সিঙ্গাপুর আইডল হিসেবে একটি অ্যালবাম প্রকাশ করেন। এই অ্যালবামের চারটি একক গান মুক্তি পায়, এর মধ্যে তিনটি সিঙ্গাপুর রেডিও চার্টের শীর্ষ ১০-এ অন্তর্ভুক্ত হয়েছিল। উক্ত প্রতিযোগিতার পরে তার ক্যারিয়ারের তাকে সিঙ্গাপুর আইডল থেকে উত্থাপিত সবচেয়ে সফল গায়িকা হিসেবে অভিহিত করা হয়।

জীবনী[সম্পাদনা]

প্রারম্ভিক জীবন[সম্পাদনা]

রাতোনেল ১৯৮৮ সালের ১৪ই জুন তারিখে পাঁচ সদস্যের একটি পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার দুই ভাই ব্রায়ান এবং টিমোথি। তার পরিবার তার প্রারম্ভিক বছরগুলোতে আর্থিক সংগ্রামের সম্মুখীন হয়েছিল। তিনি যখন মাত্র ১০ বছর বয়সী ছিলেন তখন তার পরিবার একটি ছোট ফ্ল্যাটে স্থানান্তরিত হয়, যেখানে কেবল একটি লিভিং রুমে এবং কোন শয়নকক্ষ ছিল না। রাতোনেল পরবর্তীতে একটি সাক্ষাত্কারে বলেন যে তারা একটি রুমে একসাথে ঘুমাতো এবং সেখানে কোন গদি বা জাজিম ছিল না।[১] সেই জীবন তার পরিবারের জন্য সহজ ছিল না, মাঝে মাঝে তাদের গির্জার খাদ্যের ওপর নির্ভর করতে হতো এবং প্রত্যেক রবিবারে তাদের খাদ্য গ্রহণের জন্য গির্জার যেতে হতো[২][২] কিন্তু বর্তমানে তার পরিবার এখন একটি দুই শয্যাবিশিষ্ট এইচডিবি ফ্ল্যাটের মধ্যে বসবাস করে।

রাতোনেল ফেঙ্গেশনের প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ভর্তি হন এবং বেদোক ভিউ মাধ্যমিক বিদ্যালয় হয়ে স্নাতক সম্পন্ন করেন যেখানে তিনি সাধারণ (একাডেমিক) ধারা থেকে এক্সপ্রেস ধারায় স্থানান্তরিত হন।[২] তিনি তার ক্যারিয়ার শুরু করার পূর্বে তেমাসেক পলিটেকনিক নামক একটি পলিটেকনিক শিক্ষাঙ্গন হতে শিক্ষা করেন। অবশেষে তিনি হসপিটালিটি অ্যান্ড ট্যুরিজম ম্যানেজমেন্টে হতে ডিপ্লোমা নিয়ে স্নাতক সম্পন্ন করেন। তিনি তেমাসেক পলিটেকনিকে পড়ার সময়কালে তার পারিবারিক আয়ের পরিপূরক হওয়ার জন্য পার্টটাইম কাজ করেছিলেন।[১] স্নাতক হওয়ার পর, তিনি তার বাবা-মাকে বিভিন্ন সমস্যার থেকে বিরত রাখার জন্য ডিগ্রি অর্জনের জন্য তার পরিকল্পনা স্থগিত রাখেন, এর পরিবর্তে তিনি কনরাড সেন্টেনীয় হোটেলের সচিব হিসেবে কাজ করতে গিয়েছিলেন।[৩]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. 8 Days magazine, 24 December 2009. MediaCorp Pte Ltd
  2. CLEO Magazine, November 2010
  3. Video, Sylvia Ratonel launches Motorola Dext phone and announces MediaCorp contract [১]

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]