সালার দে ইউনি

স্থানাঙ্ক: ২০°০৮′০১.৫৯″ দক্ষিণ ৬৭°২৯′২০.৮৮″ পশ্চিম / ২০.১৩৩৭৭৫০° দক্ষিণ ৬৭.৪৮৯১৩৩৩° পশ্চিম / -20.1337750; -67.4891333
উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
সালার দে ইউনি
Salar Uyuni au01.jpg
বাষ্পীভূত জল থেকে লবণ স্ফটিককরণের ফলে সালার দে ইউনির পৃষ্ঠে ষড়ভুজ গঠন
মানচিত্র সালার দে ইউনির অবস্থান দেখাচ্ছে
মানচিত্র সালার দে ইউনির অবস্থান দেখাচ্ছে
বলিভিয়ার মধ্যে অবস্থান
অবস্থানড্যানিয়েল ক্যাম্পোস প্রদেশ, পোটোস বিভাগ
স্থানাঙ্ক২০°০৮′০১.৫৯″ দক্ষিণ ৬৭°২৯′২০.৮৮″ পশ্চিম / ২০.১৩৩৭৭৫০° দক্ষিণ ৬৭.৪৮৯১৩৩৩° পশ্চিম / -20.1337750; -67.4891333
উচ্চতা৩,৬৬৩ মিটার (১২,০১৮ ফু)
এলাকা১০,৫৮২ বর্গকিলোমিটার (১০,৫৮,২০০ হেক্টর)
গভীরতা১৩০ মিটার (৪৩০ ফু)
গঠিতবাষ্পীভবন
ভূতত্ত্বলবণ প্যান, শুষ্ক হ্রদ

সালার দে ইউনি (বা সালার দে তুনুপা)[১] বিশ্বের বৃহত্তম লবণাক্ত সমতল ভূমি, যা ১০,৫৮২ বর্গকিলোমিটার (৪,০৮৬ মা)। বিশাল আয়নার মতো দেখতে এই সমভূমির দক্ষিণ পশ্চিম বলিভিয়ার পোটোসের ড্যানিয়েল ক্যাম্পোস প্রদেশের, আন্দিজের ভূত্বকের কাছে এবং সমুদ্রপৃষ্ঠ থেকে ৩৬,৫৬৫ মিটার (১,১৯,৯৬৪ ফু) উচ্চতায় রয়েছে।[২]

বেশ কয়েকটি প্রাগৈতিহাসিক হ্রদের মধ্যে রূপান্তরের ফলস্বরূপ সালার গঠিত হয়েছিল। এটি কয়েক মিটার লবণের ক্রাস্ট দ্বারা আচ্ছাদিত, যা সালারের পুরো এলাকা জুড়ে এক মিটারের মধ্যে গড় উচ্চতা পরিবর্তনের সাথে একটি অসাধারণ সমতলতা রয়েছে। ভূত্বক লবণের উৎস হিসাবে কাজ করে এবং একটি ব্রাইনের হ্রদেকে ঢেকে দেয়, যা ব্যতিক্রমীভাবে লিথিয়াম সমৃদ্ধ। এতে বিশ্বের পরিচিত লিথিয়াম মজুদগুলির ৫০% থেকে ৭০% রয়েছে।[৩] বৃহত্তর অঞ্চল, পরিষ্কার আকাশ এবং পৃষ্ঠের ব্যতিক্রমী চ্যাপ্টা সালারকে পৃথিবীর পর্যবেক্ষণের উপগ্রহের আলটিমিটারগুলি ক্যালিব্রেট করার জন্য আদর্শ করে তোলে।[৪][৫][৬][৭][৮] বৃষ্টিপাতের পরে, মৃত শান্ত জলের একটি পাতলা স্তর সমতল ভূমিটিকে ১২৯ কিলোমিটার (৮০ মা) জুড়ে বিশ্বের বৃহত্তম আয়নাতে রূপান্তরিত করে।

সালার বলিভিয় আলতিপ্লানো জুড়ে প্রধান পরিবহন রুট হিসাবে কাজ করে এবং বিভিন্ন প্রজাতির কানঠুটির একটি প্রধান প্রজনন ক্ষেত্র। গ্রীষ্মকালে লবণের সমতলটির পূর্ব অংশে গঠনকারী গ্রীষ্মমণ্ডলীয় ক্রমবর্ধমান কমুলাস কনজেস্টাস এবং কমুলোনিম্বাস ইনকাস মেঘগুলি চিলির সীমান্ত এবং আতাকামা মরুভূমির নিকটবর্তী অঞ্চলে শুকনো পশ্চিম প্রান্ত পেরিয়ে প্রবাহিত হতে পারে না বলে সালার দে ইউনি একটি জলবায়ুগত স্থানান্তর অঞ্চল।

গঠন, ভূতত্ত্ব এবং জলবায়ু[সম্পাদনা]

সালার দে ইউনি দক্ষিণ আমেরিকার বলিভিয়ার আলতিপ্লানোর অংশ। আলতিপ্লানো একটি উঁচু মালভূমি, যা আন্দিজ পর্বতমালার উত্থানের সময় গঠিত হয়েছিল। মালভূমিতে টাটকা এবং লবণাক্ত জলের হ্রদগুলির পাশাপাশি লবনাক্ত সমতল ভূমি রয়েছে এবং এটি নিকাশীর আউটলেট বিহীন পর্বত দ্বারা বেষ্টিত।[৯]

সালারের ভূতাত্ত্বিক ইতিহাস বিভিন্ন বিস্তৃত হ্রদগুলির মধ্যে ক্রমান্বয়ে রূপান্তরের সাথে জড়িত। প্রায় ৩০,০০০ থেকে ৪২,০০০ বছর আগে, অঞ্চলটি একটি বিশাল প্রাগৈতিহাসিক হ্রদ, মিনচিন হ্রদের অংশ ছিল। এর বয়স অনুমান করা হয়েছিল উদ্গত স্তরের পলল থেকে রেডিওকার্বন ডেটিং শাঁস এবং কার্বনেট রিফগুলি থেকে।

উদ্ভিদ এবং প্রাণিকুল[সম্পাদনা]

ভ্রমণব্যবস্থা[সম্পাদনা]

এখানে ঘুরতে চাইলে নিকটবর্তী শহর থেকে পর্যটকদের জন্য নির্ধারিত গাড়ি ভাড়া নিয়ে আসতে হয়। প্রতিদিন এ ধরনের প্রায় দুইশ টি গাড়িভর্তি পর্যটক এখানে ঘুরতে আসে। সালার দি ইউনি এর মাঝে কয়েকটি ছোট দ্বীপ রয়েছে। এসব দ্বীপের উপর থেকে মন ভরে উপভোগ করা যায় বিস্ময়কর এই আয়না ভুমি। দ্বীপগুলোতে রয়েছে প্রায় কয়েকশ বছরের পুরোনো ক্যাকটাস। সালার দি ইউনি র সূর্যদয় ও সূর্যাস্ত নিস্বঃন্দেহে পৃথিবীর অপার সব সৌন্দর্য্য গুলোর মধ্যে অন্যতম। এই প্রাকৃতিক সৌন্দর্য্য উপভোগ করার জন্য রয়েছে বিশেষ ব্যবস্থা। বিশ্বের সকল প্রান্ত থেকে আসা পর্যটকদের থাকার জন্য এখানে বহু হোটেল রয়েছে। সেগুলোর মধ্যে সবচেয়ে ব্যতিক্রম হলো প্যালাসিও দে স্যাল। যার অর্থ লবণের প্রাসাদ। ২০০৭ সালে গড়ে তোলা এই হোটেলটি আক্ষরিক অর্থেই লবণের প্রাসাদ। কারণ হোটিলটির মেঝে, দেওয়াল, সাদ এমনকি খাট, চেয়ার, টেবিলসহ সকল আসবাবপত্রই তৈরী করা হয়েছে লবণ এর খন্ড দিয়ে। ভবনটি নির্মান করতে ১৪ ইঞ্চি দৈর্ঘ্যের প্রায় দশ লক্ষ লবণের ইট ব্যবহার করা হয়েছে। সালার দি ইউনি শুধু পর্যটকদের লীলাভূমিই নয়, এইটি মুলত উন্মক্ত খনি। স্থানীয় আয়মারা জনগোষ্ঠী এখনকার লবণ সংগ্রহ করে জীবিকা নির্বাহ করে। ধারণা করা হয়, সালার দি ইউনিতে এগারো কোটি টন লবণ আছে। সালার দি ইউনি এর প্রবেশ পথে রয়েছে একটি রেলগাড়ির সমাধি। অতীতে এসব ট্রেনের মাধ্যমে এখান থেকে লবণ পরিবহন করা হতো। স্থানীয় আদিবাসীদের আপত্তির কারণে ট্রেনের সাহায্যে এখন থেকে লবণ সরবরাহের কাজ বন্ধ করা হয়েছে।

ট্রেন সমাধি[সম্পাদনা]

ইউনি শহরের কাছে ট্রেন সমাধি।

চিত্রশালা[সম্পাদনা]

সালারের পরিদৃশ্য।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Salar de Tunupa"Iris en Tore op reis। ২৯ জুলাই ২০১১। ১৯ জানুয়ারি ২০১৬ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৬-০২-২৬ 
  2. "Uyuni Salt Flat"। Encyclopædia Britannica। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১২-০১ [স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ]
  3. Keating, Joshua (২০০৯-১০-২১)। "Bolivia's Lithium-Powered Future: What the global battery boom means for the future of South America's poorest country."Foreign Policy। ২০১৪-০৯-১৭ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১০-২৩ 
  4. Borsa, A. A; ও অন্যান্য (২০০২)। "GPS Survey of the salar de Uyuni, Bolivia, for Satellite Altimeter Calibration"। American Geophysical Union, Fall Meeting। বিবকোড:2002AGUFMOS52A0193B 
  5. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; nature2 নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  6. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; geo নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  7. উদ্ধৃতি ত্রুটি: <ref> ট্যাগ বৈধ নয়; refl নামের সূত্রটির জন্য কোন লেখা প্রদান করা হয়নি
  8. Lamparelli, R. A. C.; ও অন্যান্য (২০০৩)। "Characterization of the Salar de Uyuni for in-orbit satellite calibration"। IEEE Trans. Geosci. Remote Sens.41 (6): 1461–1468। ডিওআই:10.1109/TGRS.2003.810713বিবকোড:2003ITGRS..41.1461C 
  9. "Salar de Uyuni, Bolivia"NASA Earth Observatory। ২০০৮-০৯-২২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০০৭-১২-০১ 

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]