সামিহা খলিল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

সামিহা আল-কুবাজ সালামেহ খলিল (Arabic: سميحة خليل) জন্ম আনাবতা, তুলকার্ম জেলা ১৯২৩ – ফেব্রুয়ারি ২৬, ১৯৯৯ রামাল্লা), আরো পরিচিত উমম খলিল নামে, ফিলিস্তিনের দাতব্য কর্মী ও ফিলিস্তিনি রাজনীতিতে বিশিষ্ট ব্যক্তিত্ব ছিলেন।

গ্রামে জন্মগ্রহণ করা, সালামেহ খলিল ১৭ বছর বয়সে উচ্চ বিদ্যালয়ের পড়ালেখা বন্ধ করে সলিম খলিলের সাথে বিয়েতে আবদ্ধ হন। ১৯৪৮ আরব-ইসরায়েলি যুদ্ধ এর পরে, দম্পতিটি পালিয়ে গাজা চলে যায়, যেখানে তারা তাদের পাঁচ সন্তানের পরিবারকে লালন পালন করে, এবং ১৯৬৪ সালে সামিহা শেষ পর্যন্ত স্কুলে ফিরে পড়েন এবং পড়ালেখা সম্পূর্ণ করেন।

১৯৬৫-এ, তার গ্যারেজে আল-ইনাশ আল-উসরা সোসাইটি প্রতিষ্ঠা করার মাধ্যমে সামিহা খলিল জনসাধারণের নজরে আসেন - এটি পরে বৃহত্তম এবং সবচেয়ে কার্যকর ফিলিস্তিনি কল্যাণ সংস্থা হয়ে উঠে। ১৯৭৭ সালে তিনি জাতীয় ফ্রন্ট কমিটির প্রথম ও একমাত্র মহিলা সদস্য হন।

১৯৮০ এর দশকে খালিল ডেমোক্রেটিক ফ্রন্ট ফর দ্য লিবারেশন অফ প্যালেস্টাইন-এর সাথে যুক্ত ছিলেন এবং আইডিএফ কর্তৃক ছয়বার আটক ছিলেন; তিনি তার দুই সন্তানকে ইসরাইস হহতে নির্বাসিত হতে দেখেন এবং অন্য তিনজনকে (যারা সেই সময় দেশের বাহিরে ছিলো) দেশে পুনরায় প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা দেওয়া হয়। অবশেষে তাকে আল-বীরহে শহরে তাকে শহর-বন্দী করা হয়েছিল।

১৯৯৬ সালে তিনি ফিলিস্তিনি কর্তৃপক্ষ এর প্রেসিডেন্ট পদের জন্য লড়েছিলেন, কিন্তু তিনি ইয়াসির আরাফাত-এর কাছে হেরে যান। তিনি ১১.৫% ভোট পান।

১৩ নাতী-নাতনীর দাদী খলিল ১৯৯৯ সালে তার মৃত্যু পর্যন্ত ফিলিস্তিনি জাতীয় কাউন্সিল -এ সেবা প্রদানের ক্ষেত্রে রাজনৈতিক দৃশ্যের একজন সক্রিয় সদস্য ছিলেন।

বহিঃসংযোগ[সম্পাদনা]