সামরিক প্রযুক্তি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

সামরিক প্রযুক্তি হচ্ছে প্রযুক্তির এমন একটি শাখা যা যুদ্ধক্ষেএে ব্যবহার করা হয় । এই প্রযুক্তি শুধু সামরিক বাহিনীর জন্য তৈরী করা হয়,বেসামরিক লোক এগুলো ব্যবহার করতে পারে না ৷ কারন সাধারন নাগরিক জীবনে এগুলোর কোনো প্রয়োজনীয়তা নেই ,তাছাড়া যথাযথ সামরিক প্রশিক্ষণ ব্যতীত এটি বিপজ্জনক ৷

তবে কিছু কিছু ক্ষেএে সামরিক প্রযুক্তির সামান্য পরিবতনের মাধ্যমে বেসামরিক ক্ষেএে ব্যবহারের জন্য উপযুক্ত করে তোলা হয়েছে ,এমনকি বেসামরিক প্রযুক্তিগত উদ্ভাবনও সামরিক ক্ষেএেও ব্যবহার করা হয় ৷

বিশেষভাবে সশস্ত্র বাহিনীর যুদ্ধে ব্যবহারের জন্য সামরিক প্রযুক্তি প্রায়শই প্রকৌশলী এবং বিজ্ঞানীদের দ্বারা গবেষণা এবং উন্নত করা হয় । গবেষনাক্ষেএে সামরিক তহবিেরল ফলে অনেক নতুন নতুন প্রযুক্তি তৈরী হচ্ছে ৷

অস্ত্র প্রকৌশল হচ্ছে সামরিক অস্ত্র ও সিস্টেমের নকশা, উন্নয়ন, পরীক্ষা এবং সামরিক অস্ত্র ও সিস্টেমের ব্যবস্থাপনা। এটি যান্ত্রিক প্রকৌশল, ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং, মেকাট্রনিক্স, ইলেক্ট্রো-অপটিক্স, মহাকাশ প্রকৌশল, উপকরণ প্রকৌশল এবং রাসায়নিক প্রকৌশল সহ বিভিন্ন প্রথাগত প্রকৌশল বিভাগের জ্ঞান নিয়ে সৃষ্ট প্রকৌশল শাখা।

ইতিহাস[সম্পাদনা]

এই বিভাগটি সামরিক প্রযুক্তিকে প্রভাবিত করেছে এমন সব বিস্তৃত প্রযুক্তিগত উন্নয়ন নিয়ে আলোচনা করা হয়েছে ( প্রাচীনকাল থেকে ) ।

প্রাচীন প্রযুক্তি[সম্পাদনা]

সম্ভবত প্যালিওথেলিক যুগ থেকে সবপ্রথম পাথরের তৈরী অস্এ ব্যবহার শুরু হয়েছিল ৷ প্রাচীনতম পাথর সরঞ্জাম 3.3 মিলিয়ন বছর আগে ডেটিং, তুর্কানা, লোমেকভি অঞ্চল থেকে হয় ৷পাথরের তৈরী সরঞ্জামাদীর ব্যাপক পরিবতন হয়েছিল প্যালিস্টোসেন যুগে (যা ১২০০০ বছর আগে শেষ হয়েছে ) ৷ দুটি গোষ্ঠীর মধ্যে যুদ্ধের প্রাচীনতম প্রমাণ পাওয়া যায় , তুর্কানার নাইটুকু অঞ্চলে (যা কেনিয়ায় অবস্থিত ),যেখানে মারাত্নক আঘাত প্রাপ্ত মাথা,ঘাড়,পাজড়,হাটু,হাত এমনকি মাথার খুলির মধ্যে এমবিডেড অবসিডিয়ান ফলক পাওয়া গেছে,যা ১০০০০ বছর আগে শিকারীদের মধ্যে আন্ত-গোষ্ঠীয় সংঘষের প্রমাণ ৷

Humans entered the Bronze Age as they learned to smelt copper into an alloy with tin to make weapons. In Asia where copper-tin ores are rare, this development was delayed until trading in bronze began in the third millennium BCE. In the Middle East and Southern European regions, the Bronze Age follows the Neolithic period, but in other parts of the world, the Copper Age is a transition from Neolithic to the Bronze Age. Although the Iron Age generally follows the Bronze Age, in some areas the Iron Age intrudes directly on the Neolithic from outside the region, with the exception of Sub-Saharan Africa where it was developed independently.

মানুষ ব্রোঞ্জ যুগে প্রবেশ করেছে ,যখন তারা তামা গলিয়ে তার সাথে টিন মিশ্রিত করে অস্এ বানানো শিখেছিল ৷

The first large-scale use of iron weapons began in Asia Minor around the 14th century BCE and in Central Europe around the 11th century BCE followed by the Middle East (about 1000 BCE) and India and China.

The Assyrians are credited with the introduction of horse cavalry in warfare and the extensive use of iron weapons by 1100 BCE. Assyrians were also the first to use iron-tipped arrows.

পোস্ট ক্ল্যাসিকেল প্রযুক্তি[সম্পাদনা]

The Wujing Zongyao (Essentials of the Military Arts), written by Zeng Gongliang, Ding Du, and others at the order of Emperor Renzong around 1043 during the Song dynasty illustrate the eras focus on advancing intellectual issues and military technology due to the significance of warfare between the Song and the Liao, Jin, and Yuan to their north. The book covers topics of military strategy, training, and the production and employment of advanced weaponry.

Advances in military technology aided the Song dynasty in its defense against hostile neighbors to the north. The flamethrower found its origins in Byzantineera Greece, employing Greek fire (a chemically complex, highly flammable petrol fluid) in a device with a siphon hose by the 7th century.[6]:77 The earliest reference to Greek Fire in China was made in 917, written by Wu Renchen in his Spring and Autumn Annals of the Ten Kingdoms.[6]:80 In 919, the siphon projector-pump was used to spread the 'fierce fire oil' that could not be doused with water, as recorded by Lin Yu in his Wuyue Beishi, hence the first credible Chinese reference to the flamethrower employing the chemical solution of Greek fire (see also Pen Huo Qi).[6]:81 Lin Yu mentioned also that the 'fierce fire oil' derived ultimately from one of China's maritime contacts in the 'southern seas', Arabia Dashiguo.[6]:82 In the Battle of Langshan Jiang in 919, the naval fleet of the Wenmu King from Wuyue defeated a Huainan army from the Wu state; Wenmu's success was facilitated by the use of 'fire oil' ('huoyou') to burn their fleet, signifying the first Chinese use of gunpowder in a battle.[6]:81–83 The Chinese applied the use of double-piston bellows to pump petrol out of a single cylinder (with an upstroke and downstroke), lit at the end by a slow-burning gunpowder match to fire a continuous stream of flame.[6]:82 This device was featured in description and illustration of the Wujing Zongyao military manuscript of 1044.[6]:82 In the suppression of the Southern Tang state by 976, early Song naval forces confronted them on the Yangtze River in 975. Southern Tang forces attempted to use flamethrowers against the Song navy, but were accidentally consumed by their own fire when violent winds swept in their direction.

Although the destructive effects of gunpowder were described in the earlier Tang dynasty by a Daoist alchemist, The earliest developments of the gun barrel and the projectile-fire cannon were found in late Song China. The first art depiction of the Chinese 'fire lance' (a combination of a temporary-fire flamethrower and gun) was from a Buddhist mural painting of Dunhuang, dated circa 950.[7] These 'fire-lances' were widespread in use by the early 12th century, featuring hollowed bamboo poles as tubes to fire sand particles (to blind and choke), lead pellets, bits of sharp metal and pottery shards, and finally large gunpowder-propelled arrows and rocket weaponry.[6]:220–221 Eventually, perishable bamboo was replaced with hollow tubes of cast iron, and so too did the terminology of this new weapon change, from 'fire-spear' huo qiang to 'fire-tube' huo tong.[6]:221 This ancestor to the gun was complemented by the ancestor to the cannon, what the Chinese referred to since the 13th century as the 'multiple bullets magazine erupter' bai zu lian zhu pao, a tube of bronze or cast iron that was filled with about 100 lead balls

The earliest known depiction of a gun is a sculpture from a cave in Sichuan, dating to 1128, that portrays a figure carrying a vase-shaped bombard, firing flames and a cannonball.[8] However, the oldest existent archaeological discovery of a metal barrel handgun is from the Chinese Heilongjiang excavation, dated to 1288.[6]:293 The Chinese also discovered the explosive potential of packing hollowed cannonball shells with gunpowder. Written later by Jiao Yu in his Huolongjing (mid-14th century), this manuscript recorded an earlier Song-era cast iron cannon known as the 'flying-cloud thunderclap eruptor' (fei yun pi-li pao). The manuscript stated that

As noted before, the change in terminology for these new weapons during the Song period were gradual. The early Song cannons were at first termed the same way as the Chinese trebuchet catapult. A later Ming dynasty scholar known as Mao Yuanyi would explain this use of terminology and true origins of the cannon in his text of the Wubei Zhi, written in 1628:

The 14th-century Huolongjing was also one of the first Chinese texts to carefully describe to the use of explosive land mines, which had been used by the late Song Chinese against the Mongols in 1277, and employed by the Yuan dynasty afterwards. The innovation of the detonated land mine was accredited to one Luo Qianxia in the campaign of defense against the Mongol invasion by Kublai Khan,[6]:192 Later Chinese texts revealed that the Chinese land mine employed either a rip cord or a motion booby trap of a pin releasing falling weights that rotated a steel flint wheel, which in turn created sparks that ignited the train of fuses for the land mines.[6]:199 Furthermore, the Song employed the earliest known gunpowder-propelled rockets in warfare during the late 13th century,[6]:477 its earliest form being the archaic Fire Arrow. When the Northern Song capital of Kaifeng fell to the Jurchens in 1126, it was written by Xia Shaozeng that 20,000 fire arrows were handed over to the Jurchens in their conquest. An even earlier Chinese text of the Wujing Zongyao ("Collection of the Most Important Military Techniques"), written in 1044 by the Song scholars Zeng Kongliang and Yang Weide, described the use of three spring or triple bow arcuballista that fired arrow bolts holding gunpowder packets near the head of the arrow.[6]:154 Going back yet even farther, the Wu Li Xiao Shi (1630, second edition 1664) of Fang Yizhi stated that fire arrows were presented to Emperor Taizu of Song (r. 960–976) in 960.

আধুনিক প্রযুক্তি[সম্পাদনা]

সৈন্যবাহিনী[সম্পাদনা]

দ্য ইসলামিক গানপাউডার এম্প্যায়র অসংখ্য উন্নত আগ্নেয়াস্ত ,কামান,ছোট আগ্নেয়াস্ত তৈরী করেছিল ৷প্রোটো -শিল্পায়নের যুগে নতুন আবিস্কৃত অস্এ গুলোর ব্যবহার দেখা গিয়েছিল মোঘলে (ভারতীয় উপ-মহাদেশে ) ৷

Rapid development in military technology had a dramatic impact on armies and navies in the industrialized world in 1740-1914.[11] For land warfare, cavalry faded in importance, while infantry became transformed by the use of highly accurate more rapidly loading rifles, and the use of smokeless powder. Machine guns were developed in the 1860s in Europe. Rocket artillery and the Mysorean rockets, both pioneered by Indian Muslim Tipu Sultan, became more powerful as new high explosives (based on nitroglycerin) arrived during the Anglo-Mysore Wars, and the French introduced much more accurate rapid-fire field artillery. Logistics and communications support for land warfare dramatically improved with use of railways and telegraphs. Industrialization provided a base of factories that could be converted to produce munitions, as well as uniforms, tents, wagons and essential supplies. Medical facilities were enlarged and reorganized based on improved hospitals and the creation of modern nursing, typified by Florence Nightingale in Britain during the Crimean War of 1854-56.

নৌবাহিনী[সম্পাদনা]

Naval warfare was transformed by many innovations,[13] most notably the coal-based steam engine, highly accurate long-range naval guns, heavy steel armour for battleships, mines, and the introduction of the torpedo, followed by the torpedo boat and the destroyer. Coal after 1900 was eventually displaced by more efficient oil, but meanwhile navies with an international scope had to depend on a network of coaling stations to refuel. The British Empire provided them in abundance, as did the French Empire to a lesser extent. War colleges developed, as military theory became a specialty; cadets and senior commanders were taught the theories of Jomini, Clausewitz and Mahan, And engaged in tabletop war games. Around 1900, entirely new innovations such as submarines and airplanes appeared, and were quickly adapted to warfare by 1914. The British HMS Dreadnought (1906) incorporated so much of the latest technology in weapons, propulsion and armour that it at a stroke made all other battleships obsolescen

নৌ-যুদ্ধগুলি অনেক উদ্ভাবন দ্বারা রূপান্তরিত হয়েছিল, [13] বিশেষত কয়লাভিত্তিক বাষ্প ইঞ্জিন, অত্যন্ত সঠিক দীর্ঘ-পরিসর নৌবাহিনীর বন্দুক, যুদ্ধের জন্য ভারী ইস্পাত অস্ত্রশস্ত্র, খনি এবং টর্পেডোর ভূমিকা, তারপরে টর্পেডো নৌকা এবং ধ্বংসকারী। 1900 সালের পর কয়লা অবশেষে আরো কার্যকর তেল দ্বারা বিতাড়িত হয়েছিল, তবে এদিকে আন্তর্জাতিক পর্যায়ে নৌবাহিনীকে জ্বালানি সরবরাহের জন্য কোলিং স্টেশনগুলির একটি নেটওয়ার্কে নির্ভর করতে হয়েছিল। ব্রিটিশ সাম্রাজ্য তাদের প্রচুর পরিমাণে সরবরাহ করেছিল, যেমনটা সাম্রাজ্য সামান্য পরিমাণে করেছিল। যুদ্ধ কলেজ উন্নত, সামরিক তত্ত্ব একটি বিশেষত্ব হয়ে ওঠে; ক্যাডেট এবং সিনিয়র কমান্ডার জমিনি, ক্লাউসভিটস এবং মহানের তত্ত্বগুলি শিখিয়েছিলেন এবং টেবিলটপ যুদ্ধ গেমগুলিতে জড়িত ছিলেন। 1900-এর দশকে পুরোপুরি নতুন উদ্ভাবন যেমন সাবমেরিন এবং এ্যারোপ্লেনগুলি আবির্ভূত হয়েছিল এবং 1914 সাল নাগাদ যুদ্ধের সাথে দ্রুতভাবে অভিযোজিত হয়েছিল। ব্রিটিশ এইচএমএস ড্রেডনট (1906) অস্ত্র, প্রম্পলন এবং বর্মের সর্বশেষ প্রযুক্তিকে যুক্ত করেছে যা এটি অন্য স্ট্রোকে তৈরি যুদ্ধবিগ্রহ obsolescen

অথায়ন এবং সংস্থা[সম্পাদনা]

New financial tools were developed to fund the rapidly increasing costs of warfare, such as popular bond sales and income taxes, and the funding of permanent research centers.[15][16] Many 19th century innovations were largely invented and promoted by lone individuals with small teams of assistants, such as David Bushnell and the submarine, John Ericsson and the battleship, Hiram Maxim and the machine gun, Ernest Swinton and the tank, and Alfred Nobel and high explosives. By 1900 the military began to realize that they needed to rely much more heavily on large-scale research centers, which needed government funding.[17] They brought in leaders of organized innovation such as Thomas Edison in the U.S. and chemist Fritz Haber of the Kaiser Wilhelm Institute in Germany.

আধুনিকোত্তর প্রযুক্তি[সম্পাদনা]

The postmodern stage of military technology emerged in the 1940s, And one with recognition thanks to the high priority given during the war to scientific and engineering research and development regarding nuclear weapons, radar, jet engines, proximity fuses, advanced submarines, aircraft carriers, and other weapons. The high-priority continues into the 21st century.[20] It involves the military application of advanced scientific research regarding nuclear weapons, jet engines, ballistic and guided missiles, radar, biological warfare, and the use of electronics, computers and softwar

মহাকাশ[সম্পাদনা]

যুদ্ধের সময় ,পৃথিবীর দুই পরাশক্তিধর দেশ ( সোভিয়েত ইউনিয়ন এবং ইউনাইটেড স্টেটস অব আমেরিকা  ) তাদের জিডিপির অনেক বড় অংশ সামরিক প্রযুক্তির উন্নয়নে খরচ করেছিল ৷তারা পৃথিবীর কক্ষপথে কৃএিম উপগ্রহ স্থাপনের জন্য তোড়জোড় গবেষনা শুরু করেছিল ৷ 1957 সালে, ইউএসএসআর প্রথম কৃত্রিম উপগ্রহ ( স্পুটনিক 1 )উৎক্ষেপন করেছিল।

By the end of the 1960s, both countries regularly deployed satellites. Spy satellites were used by militaries to take accurate pictures of their rivals' military installations. As time passed the resolution and accuracy of orbital reconnaissance alarmed both sides of the iron curtain. Both the United States and the Soviet Union began to develop anti-satellite weapons to blind or destroy each other's satellites. Laser weapons, kamikaze style satellites, as well as orbital nuclear explosion were researched with varying levels of success. Spy satellites were, and continue to be, used to monitor the dismantling of military assets in accordance with arms control treaties signed between the two superpowers. To use spy satellites in such a manner is often referred to in treaties as "national technical means of verification".

1960 এর দশকের শেষ নাগাদ থেকে, উভয় দেশই নিয়মিত উপগ্রহ স্থাপন করছে। স্পাই স্যাটেলাইটগুলি তাদের প্রতিদ্বন্দ্বীর সামরিক স্থাপনার সঠিক ছবি নিতে সামরিক বাহিনী দ্বারা ব্যবহৃত হয়। সময় পাস পাশাপাশি কক্ষপথে reconnaissance রেজল্যুশন এবং সঠিকতা লোহার পর্দা উভয় পক্ষের alarmed। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র এবং সোভিয়েত ইউনিয়ন উভয়ই একে অপরের উপগ্রহকে ধ্বংস বা ধ্বংস করার জন্য এন্টি স্যাটেলাইট অস্ত্র তৈরী করছে। লেজার অস্ত্র, কামিকাযা স্টাইল উপগ্রহ, পাশাপাশি কক্ষপথ পারমাণবিক বিস্ফোরণের সাফল্যের বিভিন্ন স্তরের সাথে গবেষণা করা হয়। স্পাই উপগ্রহগুলি দুটি মহাপরিচালকদের মধ্যে স্বাক্ষরিত অস্ত্র নিয়ন্ত্রণ চুক্তি অনুযায়ী সামরিক সম্পদ ভাঙার নিরীক্ষণের জন্য ব্যবহৃত হয় এবং অবিরত থাকে। এই ধরনের উপায়ে গুপ্তচর উপগ্রহ ব্যবহার করার জন্য প্রায়ই "জাতীয় যাচাইয়ের জাতীয় প্রযুক্তিগত মাধ্যম" হিসাবে স্বীকৃত হয়।

The superpowers developed ballistic missiles to enable them to use nuclear weaponry across great distances. As rocket science developed, the range of missiles increased and intercontinental ballistic missiles (ICBM) were created, which could strike virtually any target on Earth in a timeframe measured in minutes rather than hours or days. In order to cover large distances ballistic missiles are usually launched into sub-orbital spaceflight.

মহাশক্তিধররা ব্যালাস্টিক ক্ষেপণাস্ত্রগুলি বিকশিত করেছেন যাতে তারা মহান পার্শ্ব জুড়ে পরমাণু অস্ত্রোপচার ব্যবহার করতে সক্ষম হয়। রকেট বিজ্ঞান উন্নত হিসাবে, ক্ষেপণাস্ত্র পরিসীমা বৃদ্ধি এবং আন্তঃমহাদেশীয় ব্যালিস্টিক মিসাইল (ICBM) তৈরি করা হয়েছিল, যা ঘন্টা বা দিনের পরিবর্তে কয়েক মিনিটের মধ্যে মাপা একটি সময়সীমার মধ্যে কার্যত কোন লক্ষ্য আঘাত করতে পারে। বৃহত্তর দূরত্ব আবরণ করার জন্য ব্যালিস্টিক মিসাইলগুলি সাধারণত উপ-কক্ষপথের মহাকাশযানগুলিতে চালু হয়।

যখন থেকে আন্তঃমহাদেশীয় ক্ষেপণাস্ত্র বিকশিত হচ্ছে, তখন থেকে সামরিক পরিকল্পনাকারীরা তাদের কার্যকারিতা মোকাবেলা করার জন্য প্রোগ্রাম এবং কৌশল শুরু করেছে।

মোভিলাইজেশন[সম্পাদনা]

প্রতিরক্ষা[সম্পাদনা]

ফরটিফিকেশন হচ্ছে যুদ্ধক্ষেএে প্রতিরক্ষার জন্য ভবনের নকশা তৈরী এবং নিমাণ করা । এগুলো আকৃতিতে এবং স্থায়িত্বে গ্রেট ওয়াল অব চায়না থেকে সাংগারের মতো হতে পারে ৷

সেন্সরস এবং কমিউনিকেশন্স[সম্পাদনা]

সেন্সর এবং যোগাযোগ ব্যবস্থা শত্রুদের সনাক্ত করা, সশস্ত্র বাহিনীর অপারেশনের সমন্বয় সাধন এবং অস্ত্র একজায়গা থেকে আরেকজায়গায় নেওয়ার জন্য ব্যবহৃত হয়। প্রারম্ভিক সিস্টেম পতাকা সংকেত, টেলিগ্রাফ এবং হিলিওগ্রাফ সিস্টেম অন্তর্ভুক্ত ছিল।

ভবীষৎ প্রযুক্তি[সম্পাদনা]

ডিফেন্স অ্যাডভান্সড রিসার্চ প্রজেক্টস এজেন্সি হচ্ছে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের প্রতিরক্ষা বিভাগের  একটি সংস্থা, যেটি সামরিক বাহিনীর ব্যবহারের জন্য নতুন প্রযুক্তির তৈরী করে। DARPA যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক প্রযুক্তির উন্নয়নে নেতৃত্ব দেয় এবং তাদের বতমানে কয়েকটি চলমান প্রকল্প রয়েছে,যেগুলো হচ্ছ humanoid রোবট তৈরী করা ,   বুলেট তৈরী করা যে তাদের লক্ষ্য পৌঁছানোর আগে পথ পরিবর্তন করতে পারবে। চীনেও একটি অনুরূপ সংস্থা আছে।

বহিগমন অঞল[সম্পাদনা]

সাইবারস্পেস[সম্পাদনা]

2011 সালে মার্কিন প্রতিরক্ষা বিভাগ সাইবারস্পেসকে যুদ্ধের একটি নতুন ডোমেন ঘহিসেবে ঘোষণা করেছিল; তারপরে থেকে DARPA নতুন প্রযুক্তি তৈরির লক্ষ্যে "Project X" নামে পরিচিত একটি গবেষণা প্রকল্প শুরু করেছে যা সরকারকে সাইবার অঞ্চলকে আরও ভালভাবে বুঝতে এবং কতৃত্ব নিতে সক্ষম করবে। প্রতিরক্ষা বিভাগকে গতিশীল নেটওয়ার্কের পরিবেশে বড় আকারের সাইবার মিশন পরিকল্পনা এবং পরিচালনা করার ক্ষমতা প্রদান করাই হচ্ছে সাইবারস্পেস সম্পকিত প্রযুক্তির মূল লক্ষ্য ৷

আরো দেখুন[সম্পাদনা]

তথ্য সূএ্য[সম্পাদনা]

  1. Wescott, David (1999). Primitive Technology: A Book of Earth Skills. Layton, UT: Society of Primitive Technology, Gibbs Smith. p. 60. ISBN 978-0-87905-911-8
  2. . Lahr, M. Mirazón; Rivera, F.; Power, R. K.; Mounier, A.; Copsey, B.; Crivellaro, F.; Edung, J. E.; Fernandez, J. M. Maillo; Kiarie, C. (2016). "Inter-group violence among early Holocene hunter-gatherers of West Turkana, Kenya". Nature. 529 (7586): 394–398. doi:10.1038/nature16477 (https://doi.org/10.1038%2Fnature16 477). PMID 26791728 (https://www.ncbi.nlm.nih.gov/pubmed/26791728).
  3. . Iron In Africa: Revising The History : Unesco (http://portal.unesco.org/en/ev.phpURL_ID=3432&URL_DO=DO_PRINTPAGE&URL_SECTION=201.html). Portal.unesco.org. Retrieved on 2014-11-20.
  4. Tucker, Spencer (2010). A Global Chronology of Conflict. Santa Barbara, CA: ABC-CLIO, LLC. pp. 6–7. ISBN 978-1-85109-672-5.
  5. "Teachers' Guide for Military Technology" (http://depts.washington.edu/chinaciv/t[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ] g/tmiltech.pdf) (PDF). 2001-11-26: 1. Retrieved 2014-11-20.
  6. . Ping-Yü, with the collaboration of Ho; Gwei-Djen, Lu; Ling, Wang (1986). Science and Civilization in China. The Gunpowder Epic (https://books.google.com/books/ about/Science_and_Civilisation_in_China_Volume.html?id=hNcZJ35dIyUC) (1. publ. ed.). Cambridge: Cambridge U.P . ISBN 9780521303583. Retrieved 20 November 2014.
  7. . Needham, Volume 5, Part 7, 224–225.
  8. Gwei-Djen, Lu; Joseph Needham; Phan Chi-Hsing (July 1988). "The Oldest Representation of a Bombard". Technology and Culture. 29 (3): 594–605. doi:10.2307/3105275 (https://doi.org/10.2307%2F3105275). JSTOR 3105275 (ht tps://www.jstor.org/stable/3105275).
  9. Partington, J.R. (1960). A History of Greek Fire and gunpowder (https://books.go[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ] ogle.com/books/about/The_Cambridge_Illustrated_History_of_Chi.html?id=sHGd q4rLSTEC) (Johns Hopkins paperback ed.). Cambridge: Heffer. p. 211. ISBN 9780801859540. Retrieved 20 November 2014.
  10. "Missiles mainstay of Pak's N-arsenal" (http://articles.timesofindia.indiatimes.co[স্থায়ীভাবে অকার্যকর সংযোগ] m/2008-04-21/india/27784965_1_cruise-missile-missile-program-hatf-viii). The Times of India. 21 April 2008. Retrieved 2011-08-30.
  11. Max Boot, War made new: technology, warfare, and the course of history, 1500 to today (Penguin, 2006).
  12. B.H. Liddell Hart, "Armed Forces in the Art of War: Armies", in J.P .T. Bury, ed., The New Cambridge Modern History: volume X: The Zenith of European Power 1830-70 (1967), 302-330
  13. Michael Lewis, "Armed Forces in the Art of War: Navies", in J.P .T. Bury, ed., The New Cambridge Modern History: Volume X: The Zenith of European Power 1830-70 (1967), 274-301.
  14. David K. Brown, Warrior to Dreadnought: Warship Development 1860– 1905(2003).
  15. Michael Howard, "The armed forces." In F.H. Hinsley, ed. ‘’The new Cambridge modern history: volume XI: 1870-1898" (1962) pp 204–42.
  16. John Sumida, In Defence of Naval Supremacy: Finance, Technology, and British Naval Policy 1889-1914 Naval Institute Press, 2014.
  17. McBride, William M. (1992). "'The Greatest Patron of Science'?: The NavyAcademia Alliance and US Naval Research, 1896-1923". Journal of Military History. 56 (1): 7. doi:10.2307/1985709 (https://doi.org/10.2307%2F1985709). JSTOR 1985709 (https://www.jstor.org/stable/1985709).
  18. Jeffrey, Thomas E. (2016). "'Commodore' Edison Joins the Navy: Thomas Alva Edison and the Naval Consulting Board". Journal of Military History. 80 (2): 411– 46.
  19. L.F. Haber, The poisonous cloud: chemical warfare in the First World War (Oxford UP ,1986 ).
  20. Harry Bondy, "Postmodernism and the source of military strength in the Anglo West." Armed Forces & Society 31#1 (2004): 31-61.
  21. Richard S. Friedman and Bill Gunston, Advanced Technology Warfare: A Detailed Study of the Latest Weapons and Techniques for Warfare Today and into the 21st Century (1985).
  22. Everett Mendelsohn, Merritt Roe Smith, and Peter Weingart, eds. Science, technology and the military (Springer Science & Business Media, 2013).
  23. Pellerin, Cheryl. "DARPA's Plan X Uses New Technologies to 'See' Cyber Effects" (http://www.defense.gov/news/newsarticle.aspx?id=122455). America Forces Press Service. US Department of Defense. Retrieved 21 November 2014.

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

  • Andrade, Tonio. The Gunpowder Age: China, military innovation, and the rise of the West in world history (Princeton UP,2016).
  • Boot, Max. War made new: technology, warfare, and the course of history, 1500 to today (Penguin, 2006).
  • Dupuy, Trevor N. The evolution of weapons and warfare (1984), 350pp, cover 2000 BC to late 20th century.
  • Ellis, John. The Social History of the Machine Gun (1986).
  • Gabriel, Richard A., and Karen S. Metz. From Sumer to Rome: The Military capabilities of ancient armies (ABCCLIO, 1991).
  • Hacker, Barton (2005). "The Machines of War: Western Military Technology 1850–2000". History & Technology. 21 (3): 255–300. doi:10.1080/07341510500198669 (https://doi.org/10.1080%2F07341510500198669).
  • Levy, Jack S (1984). "The offensive/defensive balance of military technology: A theoretical and historical analysis". International Studies Quarterly. 28 (2): 219–238. doi:10.2307/2600696 (https://doi.org/10.2307%2F260 0696). JSTOR 2600696 (https://www.jstor.org/stable/2600696).
  • McNeill, William H. The Pursuit of Power: Technology, Armed Force, and Society since A.D. 1000 (1984).
  • Parker, Geoffrey. The Military Revolution: Military Innovation and the Rise of the West (1988).
  • Steele, Brett D. and Tamara Dorland. Heirs of Archimedes: Science & the Art of War through the Age of Enlightenment (2005) 397 pp.