সন ২০০০ সমস্যা

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
সন ২০০০ সমস্যার একটি উদাহরণ

"সন ২০০০ সমস্যা" বা ওয়াইটুকে বা মিলেনিয়াম ত্রুটি বা ওয়াইটুকে ত্রুটি, এমন এক ধরনের ত্রুটি বা গ্লিচ যা কম্পিউটার যন্ত্রের 'তারিখ এবং সময়' এর একটি বিন্যাস জনিত সমস্যা। ওয়াইটুকে এর পূর্ণরূপ বাংলায় ২০০০ সাল। ২০০০ সালের পূর্বের কম্পিউটারগুলোতে কিংবা বিভিন্ন সফটওয়্যারে সাল গণনার জন্য শুধু শেষের দুটি সংখ্যা নেয়া হত।

যেমনঃ ১৯৯৩'র জন্য নেয়া হত ৯৩, ১৯৯৪'র জন্য নেয়া হত ৯৪। এর ধারাবাহিকতায় ৯৭, ৯৮, ৯৯ সনের পরে সয়ংক্রিয় ভাবে বসে যাবে ০০। যা আদতে ১৯০০ বোঝাবে। বিভিন্ন সফটওয়্যারের ডাটাবেইস এ সংখ্যাটিকে কিভাবে নিবে এবং ঘটনা বা তথ্য কিভাবে, কোন তারিখে সংরক্ষণ করবে তা নিয়ে ব্যপক সংশয় দেখা দিয়েছিল।

তারিখের ফরম্যাট লেখার জন্য দদ/মম/বব বা মম/দদ/বব দুটোই আগে বহুল ব্যবহৃত ছিল। এখন সব জায়গায় দদ/মম/বববব এর ব্যবহার বেশি। বর্তমানে যে কোন কম্পিউটার বা মোবাইলে দেখা যায় ২০১৯ বা ১৯৯৪ সাল সম্পূর্ণ লেখা। তবে ২০০০ সালের আগে শুধু শেষের দুটি সংখ্যা লেখা হত। যেমন, ০৭/০২/৯৩। কিন্তু বছরের ঘরে ৯০ লিখলেই সেইটা ১৯৯০ সাল নাকি তা সম্পূর্ণ ভাবে বোঝা সম্ভব না। বিষয়টি প্রথম নজরে আসে ব্রিটিশ আদর্শ ইন্সটিটিউট (বিএসআই)-এর, ১৯৯৭ সালে। মাত্রই ৩ বছর পর নতুন শতাব্দীর শুরু। ২০০০ সালের শুরুতে ১/১/০০ লিখলে সেটা ২০০০ সাল নাকি ১৯০০ সাল সেটাও বোঝা সম্ভব না। দ্বিতীয়ত, বছরের ঘরে দুটি সংখ্যা থাকলে সেইটা লিপ-ইয়ার নাকি তা বোঝাও কারো দ্বারা সম্ভব না। যেমন ২৯/০২/০০, এখানে ২০০০ সাল লিপ-ইয়ার হলেও ১৯০০ সাল লিপ-ইয়ার নয়। ফলে পরবর্তীতে যেকোনো প্রোগ্রাম বা হিসাব এ মারাত্মক ভুল হওয়ার সম্ভবনা অনেক বেশি। এই সমস্যাটাই 'ওয়াইটুকে' বা 'সন ২০০০ সমস্যা' নামে পরিচিত।

ওয়াইটুকে সমস্যার ব্যাপ্তি ও ছিল অনেক। আমেরিকাতে ১৫৪ জন গর্ভবতী মহিলার কাছে ভুল রিপোর্ট চলে যায়। অস্ট্রেলিয়ার দুটো স্টেট-এ বাসের টিকেট সিস্টেম ক্রাশ করে। জাপানের নিউক্লিয়ার পাওয়ার প্ল্যান্ট-এ ভুল অ্যালার্ম চালু হয়ে যায়। ফ্রান্স-এর আবহাওয়া অফিসে ভুল তারিখ দেখাতে থাকে। এ ছাড়াও বিভিন্ন দেশ ও কোম্পানি নানা ধরনের সমস্যার মুখে পরে।[১]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]