শান্তিগিরি আশ্রম

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
Parnasala.jpg

শান্তিগিরি আশ্রম কেরলের তিরুবনন্তপুরম জেলার পথেনকোড়ে অবস্থিত।[১] এই আশ্রমটি নবজ্যোতিশ্রী করুণাকর গুরু প্রতিষ্ঠা করেছেন।[২] এই আশ্রমটি সামাজিক ও বিজ্ঞান গবেষণা প্রতিষ্ঠান হিসেবে ভারত সরকার কর্তৃক স্বীকৃতি পেয়েছে। [৩]

লক্ষ্য[সম্পাদনা]

নবজ্যোতিশ্রী করুণাকর গুরুর স্বপ্ন আধ্যাত্মিকতা, সামাজিকতা, অর্থনৈতিক উন্নতি ও কৃষ্টির মিশেলে তৈরি নবজীবন। এই আদর্শ বাস্তবায়নের লক্ষ্যে শান্তিগিরি আশ্রম কাজ করে যাচ্ছে।[৪]

অবস্থান[সম্পাদনা]

পথেনকোড়ের মূল কেন্দ্র ছাড়াও আশ্রমেরও শাখা রয়েছে ইদুক্কি জেলা, ত্রিশূর, কণ্ণুর প্রভৃতি জায়গায়। এছাড়া নয়াদিল্লি ও ব্যাঙ্গালোরেও আশ্রমের শাখা প্রতিষ্ঠা হয়েছে।

কার্যক্রম[সম্পাদনা]

বিনামূল্যে খাদ্য বিতরণ[সম্পাদনা]

গুরুর একটি লক্ষ্য ছিল দরিদ্রদের খাওয়ানো এবং এই ফলস্বরূপ আশ্রমটি তাদের বিভিন্ন কেন্দ্রে, সমস্ত দর্শনার্থী এবং বন্দীদের অন্নদান বা খাবার উপহার দেয়।[২][৫]

স্বাস্থ্যসেবা[সম্পাদনা]

অথুরাসেবানাম অথবা অসুস্থদের যত্ন নেয়া একটি সেবামূলক কার্যক্রম। আয়ুর্বেদ এবং সিদ্ধ রিচার্স সেন্টার, [২][৬] হাসপাতাল,[৭]অনসাইট-অফসাইট বিভিন্ন স্বাস্থ্যসেবা[৮]এবং সামাজিক গবেষণার মাধ্যমে আশ্রমটি এই কার্যক্রম পরিচালনা করে। [৩]

আত্মাবোধনম[সম্পাদনা]

আশ্রমের জন্য গুরুর দৃষ্টিভঙ্গির একটি অংশ হ'ল আত্মাবোধনম বা আধ্যাত্মিক জাগরণ।[৯] জাগরণ দুটি স্তরে - যৌক্তিক এবং ট্রান্সসেন্ডেন্টাল; পূর্ববর্তীটি অজ্ঞতা দূরীকরণের দিকে মনোনিবেশ করে এবং পরবর্তীটি বাস্তবতার জ্ঞানকে কেন্দ্র করে ।[১০]

অর্থনৈতিক বিকাশ[সম্পাদনা]

একটি পুনরুজ্জীবিত জীবনের দৃষ্টিভঙ্গির অংশ হিসাবে, আশ্রম অর্থনৈতিক বিকাশের দিকে দৃষ্টি নিবদ্ধ করে, মহিলাদের জন্য বাণিজ্য দক্ষতা এবং সহায়তার উপর জোর দিয়ে থাকে[১১] এবং কুটির শিল্প কার্যক্রমও তারা চালিয়ে থাকে।[১২]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "Advani hails contributions of spiritual leaders"The Hindu। ২৮ এপ্রিল ২০০৮। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৭-১৪ 
  2. "Prime Minister to inaugurate ashram's research centre"The Hindu। ২৪ নভেম্বর ২০০৪। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৭-১৪ 
  3. "Directory of Scientific and Industrial Research Organization"। Ministry of Science and Technology, Govt of India। নভেম্বর ২০০৭। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৭-১৪ 
  4. Tankha, Upendra (১১ মার্চ ২০০২)। "Between religion and spirituality"The Hindu। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৭-১৪ 
  5. "Santhigiri Ashram"। India9.com। ১৪ জুলাই ২০০৫। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৭-১৫ 
  6. Devraj, Ranjit (২ জুলাই ২০০৫)। "Herbs and hysteria"। Asia Times। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৭-১৫ 
  7. "Bulgarian princess visits ashram"The Hindu। ৩ নভেম্বর ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৭-১৫ 
  8. "Santhigiri Ashram to organise free medical camp"The Hindu। ৫ এপ্রিল ২০০৬। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৭-১৫ 
  9. "International conference on health in Kottayam"The Hindu। ১৪ ডিসেম্বর ২০০৪। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৭-১৫ 
  10. "Blind man's buff - Interview with Rajeev Anchal"Rediff.com। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৭-১৫ 
  11. "Study materials, uniforms distributed"The Hindu। ৭ মে ২০০৯। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৭-১৫ 
  12. "Santhigiri Ashram for an all-round health"The Tribune। ২৩ মার্চ ২০০২। সংগ্রহের তারিখ ২০০৯-০৭-১৫