শাঁখামুঠি

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

Common Krait
Bungarus caeruleus ewart.jpg
বৈজ্ঞানিক শ্রেণীবিন্যাস
জগৎ: প্রাণী জগৎ
পর্ব: কর্ডাটা
শ্রেণী: Reptilia
বর্গ: Squamata
পরিবার: Elapidae
গণ: Bungarus
প্রজাতি: B. caeruleus
দ্বিপদী নাম
Bungarus caeruleus
Schneider, 1801

কালাচ বা পাতি কাল কেউটে (ইংরেজি: Common Krait) (বৈজ্ঞানিক নাম :Bungarus caeruleus) এলাপিডি পরিবারভুক্ত এক প্রকার বিষধর এবং বাংলাদেশ ও ভারতের সবচেয়ে বিষাক্তসাপ

বাংলাদেশের ২০১২ সালের বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনে এ প্রজাতিটি সংরক্ষিত।[১]

চিহ্ন ও আচরণ[সম্পাদনা]

নীলচে(সেরুলিয়াস=নীল) ছাইরঙা গায়ে কালো ডোরা কাটা। এমনি শান্ত তবে ক্ষিপ্ত গতি (পাখীদেরও ধরতে পারে)। ঠাণ্ডা জায়গা পছন্দ করে। এদের খাদ্য অন্য ছোট সাপ।

বিষ[সম্পাদনা]

কালাচ বা পাতি কাল কেউটে বিষ মারাত্মক। বাংলাদেশ ও ভারতে প্রাপ্ত সাপ গুলোর মধ্যে এর বিষয় সবচেয়ে তীব্র। এর বিষের তীব্রতা কিং কোবরার তুলনায় প্রায় ৩ গুন এবং ভারতীয় কোবরার তুলনায় ২ গুন বেশি। এর লিথাল ডোজ ভ্যালু টেমপ্লেট:LD50 এর মান হচ্ছে ০.৩৬৫ মি.গ্রা/কেজি। কালাচ সাপের কামড়ে চিকিৎসা না করালে ৭০-৮০ শতাংশ রোগীই মারা যায়। এর মধ্য বাঙ্গারোটক্সিন বলে কতগুলি সক্রিয় পদার্থ আছে। স্নায়ুতন্ত্রে এই বিষক্রিয়া দ্রুত মৃত্য ঘটায় তাই এরা নিউরোটক্সিনেদের মধ্য গণ্য। আলফা বাঙ্গারোটক্সিন নিকোটিনিক অ্যাসিটাইলকোলিন রিসেপ্টারের উপর কাজ করে। এর বিষ সাধারণত কামড় দেয়ার ৫-৬ ঘন্টা পর কাজ করা শুরু করে এবং রোগী কিছু বুঝে উঠার আগেই মারা যায়

বিষদাঁত[সম্পাদনা]

কেউটের মতই কালাচ বা পাতি কাল কেউটেবিষদাঁত দুটি সামনে থাকে (Proglyphous)।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. বাংলাদেশ গেজেট, অতিরিক্ত, জুলাই ১০, ২০১২, গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকার, পৃষ্ঠা-১১৮৫০৭