শরৎসুন্দরী দেবী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
মহারাণী শরৎসুন্দরী দেবী
নাগরিকত্ব বাংলাদেশ
পরিচিতির কারণপুঠিয়ার জমিদার
দাম্পত্য সঙ্গীযোগেন্দ্র নারায়ণ

মহারানী শরৎসুন্দরী দেবী পুঠিয়া রাজবংশের অন্যতম জমিদার ছিলেন।[১]

জন্ম পরিবার[সম্পাদনা]

রাজশাহীর বিখ্যাত পুঠিয়া রাজ পরিবারের তরুন জমিদান যোগেন্দ্র নারায়ণের স্ত্রী ছিলেন শরৎসুন্দরী। মাত্র ১৩ বছর বয়সে তিনি বিধবা হন।[২]

পুঠিয়া প্যালেস এর নামফলকে শরৎসুন্দরী দেবী এর নাম

অবদান[সম্পাদনা]

পুঠিয়া রাজ এর পাঁচাআনি এস্টেটের জমিদার হিসেবে তিনি ১৮৬৫ সালে দায়িত্ব্গ্রহণ করেন। শিক্ষা ও জনহিতকর কাজের পৃষ্ঠপোষক হিসেবে অসাধারণ অবদানের স্বীকৃতি স্বরূপ ১৮৭৪ সালে তৎকালীন সরকার তাঁকে রানী এবং ১৮৭৭ সালে মহারানী উপাধিতে ভূষিত করেন।[৩]

মৃত্যু[সম্পাদনা]

মাত্র ৩৭ বছর বয়সে শরৎসুন্দরী কাশীতে মৃত্যুবরণ করেন।

আরো পড়ুন[সম্পাদনা]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. রহমান, কাজী মোস্তাফিজুর। "দেবী, শরৎসুন্দরী মহারানী"বাংলাপিডিয়া। বাংলাপিডিয়া। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০২০ 
  2. "রাজশাহীতে বিখ্যাত যারা"বাংলাদেশ জার্নাল। ৩০ সেপ্টেম্বর ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০২০ 
  3. "রাজশাহীর প্রখ্যাত ব্যক্তিত্ব"রাজশাহী ই আর্কাইভ। রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন। সংগ্রহের তারিখ ৩ মার্চ ২০২০