বিষয়বস্তুতে চলুন

শর্মিলা ভট্টাচার্য

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
শর্মিলা ভট্টাচার্য
জন্ম
মাতৃশিক্ষায়তনলা মার্টিনিয়ার ফর গার্লস, লরেটো হাউস, প্রেসিডেন্সি কলেজ, ওয়েলেসলি কলেজ, প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়
পেশানাসা বিজ্ঞানী
পিতা-মাতাসুখদেব ভট্টাচার্য (বাবা)

শর্মিলা ভট্টাচার্য হলেন একজন ভারতীয়-আমেরিকান বিজ্ঞানী যিনি অ্যাস্ট্রোবায়োনিক্সের প্রধান বিজ্ঞানী এবং নাসা এমেস গবেষণা কেন্দ্রের বায়োমডেল পারফরম্যান্স অ্যাণ্ড বিহেভিয়ার গবেষণাগারের প্রধান হিসেবে কাজ করেন।[১] তিনি বাণিজ্য, বিজ্ঞান ও পরিবহন সংক্রান্ত মার্কিন সিনেট কমিটির বিষয় বিশেষজ্ঞ এবং নাসা এমেস গবেষণা কেন্দ্রের স্পেস বায়োসায়েন্সেস বিভাগের বায়োমডেল পারফরম্যান্স ল্যাবরেটরির প্রধান গবেষক।[২][৩] তিনি এমন একটি প্রকল্পের অংশ ছিলেন যেটি মানুষের অসুস্থতা এবং মহাকাশ বিকিরণের প্রভাবগুলি অধ্যয়ন করতে মহাকাশে ফলের মাছি পাঠিয়েছিল। দুটি অধ্যয়নই মহাকাশ অনুসন্ধানকারীদের সাহায্য করার উদ্দেশ্যে করা হয়েছিল।[৪] তিনি এমেস অনার পুরস্কার এমভিপি-ফ্লাই-০১ পরীক্ষা, ২০১৮ -এর সফল প্রবর্তন; নাসা ব্যতিক্রমী বৈজ্ঞানিক অর্জন পদক, ২০১৮ ইত্যাদি পেয়েছেন।[৩]

প্রাথমিক জীবন এবং শিক্ষা

[সম্পাদনা]

শর্মিলা ভট্টাচার্য নাইজেরিয়ার লাগোসে ভারতীয় পিতামাতার কাছে জন্মগ্রহণ করেন এবং বড় হয়েছেন কলকাতায়[১] তিনি পার্ক স্ট্রিটে থাকতেন। তাঁর বাবা সুখদেব ভট্টাচার্য ছিলেন ইণ্ডিয়ান এয়ারলাইন্সের একজন পাইলট।[৫]

শর্মিলা ভট্টাচার্য লা মার্টিনিয়ার ফর গার্লস এবং লরেটো হাউস থেকে তাঁর বিদ্যালয় শিক্ষা করেছেন।[৫] কলকাতার প্রেসিডেন্সি কলেজ[৩] থেকে মানব দেহতত্বে (হিউম্যান ফিজিওলজি) স্নাতক ডিগ্রি এবং ওয়েলেসলি কলেজ থেকে জৈব রসায়নে স্নাতক ডিগ্রি অর্জনের পর, তিনি প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ের জৈব রসায়ন গবেষণাগারে স্নাতক গবেষণা সহকারী হিসেবে নিজের কর্মজীবন শুরু করেন।[৬] এর পরে তিনি তাঁর স্নাতকোত্তর ডিগ্রি অর্জন করেন। প্রিন্সটন বিশ্ববিদ্যালয়ে তাঁর আণবিক জীববিজ্ঞানের গবেষণার জন্য তিনি পিএইচডি পান। সেখানে তিনি স্যাকারোমাইসেস সেরেভিসিয়াতে (সুরা-প্রস্তুতকারী খামির) ক্যান্সার-উৎপাদক বংশাণুর জন্য সিগন্যাল ট্রান্সডাকশন (কোষের মাধ্যমে একটি রাসায়নিক বা শারীরিক সংকেত প্রেরণ করা হয়, আণবিক ঘটনাগুলির একটি সিরিজ হিসাবে) পাথওয়ে অধ্যয়ন করেন। এরপর তিনি স্ট্যানফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ে স্নায়ুবিজ্ঞানে (নিউরোবায়োলজি) পোস্ট-ডক্টরাল গবেষণা করতে যান।

কর্মজীবন

[সম্পাদনা]

স্ট্যানফোর্ডে তাঁর গবেষণা শেষ করার পরপরই, লকহিড মার্টিন তাঁকে নাসা এমেস গবেষণা কেন্দ্রে কাজ করার জন্য একটি চাকরি প্রদান করে। তিনি স্পেস শাটল ফ্লাইট পরীক্ষা, ছত্রাক প্যাথোজেনেসিস (যার দ্বারা একটি রোগ বা ব্যাধি বিকাশ পায়), টিউমারিজেনেসিস এবং মহাশূন্যে হোস্ট অনাক্রম্যতা প্রভাব (এফআইটি) এর প্রধান পরীক্ষক ছিলেন।[৭] এই মহাকাশ যানটি ২০০৬ সালের ৪ঠা জুলাই এসটিএস-১২১-এ (স্পেস শাটল) উড়েছিল।

পরে তাঁকে নাসা আমেস গবেষণা কেন্দ্রে অ্যাস্ট্রোবায়োনিক্সের প্রধান বিজ্ঞানী পদে উন্নীত করা হয়।[৬] নাসা-তে তাঁর গবেষণায় স্পেসফ্লাইটের সময় রোগ প্রতিরোধক ব্যবস্থাপনার (ইমিউন সিস্টেম) পরিবর্তন এবং জীবন্ত সিস্টেমের উপর বিকিরণের প্রভাব ও পরিবর্তিত মাধ্যাকর্ষণ অধ্যয়ন জড়িত।[৭]

শর্মিলা ১৯৯৮ সালে সান্তা ক্রুজের ক্যালিফোর্নিয়া বিশ্ববিদ্যালয়ে নিউরোবায়োলজির প্রভাষকও ছিলেন। তিনি নাসা আমেস গবেষণা কেন্দ্রের বিভিন্ন প্রকল্পের প্রধান বিজ্ঞানী ছিলেন।

নির্বাচিত গবেষণাপত্র

[সম্পাদনা]
  • এস. ভট্টাচার্য, হেভনার মি, রামরূপ জে, গুয়েগুয়েন জি, রামরতন জি, ডলিওস জি, স্কারপাটি এম, কোয়াট জে, ওয়াং আর, সিং এস, গোবিন্দ এস (২০১৭)। ব্যাকটেরিয়া এবং ইউক্যারিওটিক সিক্রেশন সিস্টেমের উপাদানগুলির সাথে নভেল অর্গানেলগুলি ড্রোসোফিলার পরজীবীকে অস্ত্র দেয়। বর্তমান জীববিজ্ঞান। ২০১৭ সেপ্টেম্বর ৭।
  • স্ট্রাম টি, স্লাবা টি, ভট্টাচার্য এস, ব্রাবি এলএ। নিম্ন আর্থ অরবিট (২০১৭) এর বাইরে জৈবিক পরীক্ষা-নিরীক্ষার অনবোর্ড মিশন ডিজাইন এবং ব্যাখ্যা করার জন্য বিকিরণ তথ্য।
  • হোসামনি আর, লেইব আর, ভরদ্বাজ এসআর, অ্যাডামস সিএম, ভট্টাচার্য এস (২০১৬)। "গ্র্যাভোম" ব্যাখ্যা করা: ড্রোসোফিলায় দীর্ঘস্থায়ী হাইপারগ্রাভিটির প্রতিক্রিয়ার পরিমাণগত প্রোটোমিক প্রোফাইলিং। প্রোটিওম গবেষণা জার্নাল। ২০১৬ অক্টোবর ১০;১৫(১২):৪১৬৫-৭৫।
  • আন্তর্জাতিক মহাকাশ স্টেশনে লাইফ সায়েন্স এক্সপেরিমেন্টের জন্য নতুন আবাসস্থল তৈরি করা[৮]
  • টি.ফাহলেন, এম. সানচেজ, এম. লেরা, ই ব্লাজেভিক, জে.চ্যাং, এবং এস ভট্টাচার্য (২০০৬)। ড্রোসোফিলা মেলানোগাস্টারে ইমিউন রেসপন্সের উপর স্পেসফ্লাইটের প্রভাবগুলির একটি অধ্যয়ন। মহাকর্ষীয় এবং স্পেস বায়োল। ১৯(২):১৩৩
  • এস. ভট্টাচার্য, বিএ স্টুয়ার্ট, বিএ নিমেয়ার, আরডব্লিউ বার্গেস, বিডিএমক্যাবে, পি.লিন, জি বুলিয়ান, সিজে ও'কেন, এবং টিএল শোয়ার্জ (২০০২)। ড্রোসোফিলার সিনাপটোব্রেভিন/ভিএএমপি পরিবারের সদস্যরা নিউরোট্রান্সমিটার রিলিজ এবং কোষের কার্যকারিতার জন্য ভিভোতে কার্যকরীভাবে বিনিময়যোগ্য। ন্যাশনাল একাডেমি অফ সায়েন্সেসের কার্যধারা। ৯৯(২১):১৩৮৬৭-১৩৮৭২।
  • এস. ভট্টাচার্য, আর. বোম্যান, এফ. ডোনোভান, বি. গার্টেন, ই. হিল, এম. কিরভেন-ব্রুকস, ও. সান্তোস (২০০১)। স্পেস স্টেশন জৈবিক গবেষণা প্রকল্প: বাসস্থান উন্নয়ন এবং ক্ষমতা। আমেরিকান ইনস্টিটিউট অফ অ্যারোনটিক্স অ্যান্ড অ্যাস্ট্রোনটিক্সের প্রকাশনা, #২০০১-৪৯৮৪: ১-১১।
  • এফএস নিউম্যান-সিলবারবার্গ, এস. ভট্টাচার্য এবং জেআর ব্রোচ (১৯৯৫)। পুষ্টির প্রাপ্যতা এবং আরএএস/সিএএমপি উভয়ই স্যাকারোমাইসিসে রাইবোসোমাল প্রোটিন জিনের অভিব্যক্তিকে প্ররোচিত করে কিন্তু বিভিন্ন প্রক্রিয়া দ্বারা। মলিকুলার এবং সেলুলার বায়োলজি, ১৫: ৩১৮৭-৩১৯৬।
  • এস. ভট্টাচার্য, এল. চেন, জেআর ব্রোচ, এবং এস. পাওয়ারস (১৯৯৫)। রাস মেমব্রেন টার্গেটিং গ্লুকোজ সিগন্যালিংয়ের জন্য অপরিহার্য কিন্তু খামিরের কার্যকারিতার জন্য নয়। ন্যাশনাল একাডেমি অফ সায়েন্সেসের কার্যপ্রণালী, ৯২: ২৯৮৪-২৯৮৮

তথ্যসূত্র

[সম্পাদনা]
  1. "Top five Indian American women in NASA"। The American Bazar। ২৬ নভেম্বর ২০১৭। 
  2. "Top 5 Scientists Of Indian Origin At NASA"। Business Insider। ৭ নভেম্বর ২০১৪। 
  3. Kovo, Yael (২০১৫-১২-১৫)। "Sharmila Bhattacharya"NASA। ২০২০-১২-০২ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৮ 
  4. "Sharmila Bhattacharya, Scientist"Open The Magazine (ইংরেজি ভাষায়)। ২০১৮-০৫-২৪। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৮ 
  5. Niyogi, Subhro (ফেব্রুয়ারি ৮, ২০১৪)। "Before Tesla, SpaceX took Kolkata scientis's to space .."The Times of India (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-১২-০৮ 
  6. Meet:Sharmila Bhattacharya ওয়েব্যাক মেশিনে আর্কাইভকৃত ২০০৬-০৯-৩০ তারিখে NASA
  7. "NASA - Fungal Pathogenesis, Tumorigenesis, and Effects of Host Immunity in Space"www.nasa.gov (ইংরেজি ভাষায়)। সংগ্রহের তারিখ ২০১৯-০২-১৬ 
  8. Directory Stanford University