রৌপ যুক্তিদোষ

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

দর্শনশাস্ত্রে রৌপ যুক্তিদোষ বা গাঠনিক যুক্তিদোষ (ইংরেজি: Formal fallacy) বলতে এমন এক ধরনের যুক্তিদোষকে বোঝায় যখন যুক্তিগঠন করতে গিয়ে ত্রুটির কারণে যুক্তিটির রূপ বা গঠন ত্রুটিপূর্ণ হয়ে যায়। এগুলিকে আকারগত যুক্তিদোষ, অবরোহী যুক্তিদোষ (deductive fallacy), যৌক্তিক যুক্তিদোষ (logical fallacy) বা অবয়ববিরুদ্ধ যুক্তিদোষ-ও (non sequitur) বলা হয়। যুক্তির কাঠামোতে ত্রুটির কারণে রৌপ যুক্তিদোষ ঘটে। এই যুক্তিদোষের সাথে প্রতিজ্ঞার অর্থের কোনও সম্পর্ক নেই।

উদাহরণস্বরূপ নিচের যুক্তিটি দেখুন। এখানে সম্পূর্ণ কাল্পনিক প্রাণীদের নাম ব্যবহার করা হয়েছে।

প্রতিজ্ঞা: সব ল্যাংরাথেরিয়াম কালো রঙের।

প্রতিজ্ঞা: সব গোমড়াথেরিয়াম কালো রঙের।

সিদ্ধান্ত: সব ল্যাংরাথেরিয়ামই গোমড়াথেরিয়াম।

উপরের যুক্তিটিতে রৌপ যুক্তিদোষ ঘটেছে। প্রতিজ্ঞা দুইটি যদি সম্পূর্ণ সত্যও হয়, তারপরেও একটিমাত্র সাধারণ বৈশিষ্ট্যের ভিত্তিতে দুইটি প্রাণীর মধ্যে আর কোনোই পার্থক্য থাকবে না, প্রাণী দুইটিকে একই হতে যাবে, এই সিদ্ধান্তটিতে কোনও অবরোহী যৌক্তিক প্রক্রিয়াতে উপনীত হওয়া সম্ভব নয়। অর্থাৎ উপরের প্রতিজ্ঞা দুইটির মধ্যে এমন কোনও যৌক্তিক সম্পর্ক নেই, যার দ্বারা সিদ্ধান্তটির সত্যতা নিশ্চিতভাবে প্রমাণিত হয়। সিদ্ধান্তটি সত্য হতেও পারে, না-ও হতে পারে। সিদ্ধান্তটি যদি সত্যও হয়, তারপরেও এটি কোনও বৈধ যুক্তি নয়, কেননা এটির সত্যতার সাথে প্রতিজ্ঞা দুইটির কোনও যৌক্তিক সম্পর্ক নেই। রৌপ যুক্তিবিজ্ঞানে সত্যতা ও বৈধতা দুইটি স্বতন্ত্র ধারণা।

আবার উপরের যুক্তিটি যে ত্রুটিপূর্ণ, সেটা বোঝার জন্য ল্যাংরাথেরিয়াম আর গোমড়াথেরিয়াম আসলে কী, তা জানার কোনোই দরকার নেই। কাঠামোজনিত কারণেই এটি ত্রুটিপূর্ণ।

রৌপ যুক্তিদোষের সাথে অরৌপ যুক্তিদোষের পার্থক্য করা হয়। অরৌপ যুক্তিদোষের একটি বৈধ যৌক্তিক রূপ বা কাঠামো থাকতে পারে, কিন্তু এটির এক বা একাধিক প্রতিজ্ঞা মিথ্যা হবার কারণে এটির সিদ্ধান্ত ত্রুটিপূর্ণ হয়। অন্যদিকে একটি রৌপ যুক্তিদোষের প্রতিজ্ঞাগুলি সত্য হতে পারে, কিন্তু তারপরেও রূপগত বা কাঠামোগত কারণে এটির সিদ্ধান্ত ত্রুটিপূর্ণ হয়।


তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]