রেওয়ামিল

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন

রেওয়ামিল হচ্ছে এমন একটি তালিকা যেখানে আয়,ব্যয়,সম্পওি ও দায় জাতীয় হিসাবগুলোর জেরগুলোকে ডেবিট এবং ক্রেডিট অনুযায়ী সাজিয়ে হিসাবের শুদ্ধতা যাচাই করা হয়। সকল ব্যক্তিবাচক,সম্পওিবাচক এবং নামিক হিসাব রেওয়ামিলে অন্তর্ভুক্ত হয়। জাবেদা এবং খতিয়ানের লেনদেনগুলো সঠিকভাবে লিপবদ্ধ হয়ছে কিনা তা রেওয়ামিলের মাধ্যমে জানা যায়।

সীমাবদ্ধতা[সম্পাদনা]

হিসাবরক্ষণ পদ্ধতিতে কিছু ভুল রেওয়ামিলে মাধ্যমে ধরা পরে না,এসব ভুল গুলোকে দুভাবে ভাগ করা যায়:-

  1. নীতিগত ভুল
  2. করণিক ভুল

নীতিগত ভুল[সম্পাদনা]

হিসাবরক্ষণের নীতিমালা না মেনে লেনদেন লিপিবদ্ধ করা হলে তাকে নীতিগত ভুল বলে। যেমন- বিলম্বিত বিজ্ঞাপনকে সম্পওি হিসাবে না দেখিয়ে ব্যয় হিসাবে দেখানো হলে। কারণ, বিলম্বিত বিজ্ঞাপনের প্রভাব একাদিক হিসাবকালের উপর বন্টিত হয়। কিন্তু ব্যয় হিসাবে দেখানো হলে তা শুধুমাএ একটি বছরের উপর দেখানো হয়।

করণিক ভুল[সম্পাদনা]

একজন হিসাববিদ হিসাবরক্ষণ প্রক্রিয়ায় অসাবধনতাবশত যে ভুলগুলো করেন তাকে করণিক ভুল বলা হয়। করণিক ভুল ৪ প্রকার :-

  1. বাদ পড়ার ভুল,
  2. লেখার ভুল,
  3. পরিপূরক ভুল এবং
  4. বে-দাখিলার ভুল।
  • বাদ পড়ার ভুল:-

লিপিবদ্ধকরণের সময় কোন লেনদেন সম্পূর্ণরূপে বাদ পড়লে তাকে বাদ পড়ার ভুল বলে। যেমন, ৫,০০০ টাকার পণ্য ক্রয় লিপিবদ্ধকরা হলো না। যার ফলে এখানে, ৫,০০০ টাকার পণ্য কম দেখানো হয়েছে।

  • লেখার ভুল:-

লেনদেন লিপিবদ্ধকরনের সময় টাকার অঙ্ক ভুল হলে তাকে লেখার ভুল বলে। যেমন,৫০০০ টাকার ক্রয়কে ৫০০ টাকায় লিপিবদ্ধ করা হলে।

  • পরিপূরক ভুল:-

লেনদেন লিপিবদ্ধকরনের সময় একাধিক ভুল হলে,এবং তাদের একটির দ্বারা অপরটি সংশোধিত হলে তাকে পরিপূরক ভুল বলে। যেমন- বেতন ৫,০০০ টাকার বদলে ৪,০০০ টাকা চার্জ করা হয়ছে। অন্যদিকে, ক্রয় ৪,০০০ টাকার বদলে ৫,০০০ টাকা চার্জ করা হয়েছে।

  • বে-দাখিলার ভুল:-

লেনদেন লিপিবদ্ধকরনের সময় কোন নির্দিষ্ট হিসাবকে ডেবিট বা ক্রেডিট করার বদলে সমজাতীয় অন্য হিসাবকে ডেবিট বা ক্রেডিট করলে তাকে বে-দাখিলার ভুল বলে। যেমন- ৫,০০০ টাকার বেতনকে ৫,০০০ টাকায় ভাড়া হিসাবে লিপিবদ্ধ করা হলে।

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]