রুশ-ইউক্রেনীয় যুদ্ধের ঐতিহাসিক প্রেক্ষাপট

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে

বিভিন্ন সামাজিক, সাংস্কৃতিক, জাতিগত ও ভাষাগত কারণ পূর্ব ও দক্ষিণ ইউক্রেনে অস্থিরতার স্ফুলিঙ্গ ও প্রারম্ভিক মর্যাদার বিপ্লবের পরে রুশ-ইউক্রেনীয় যুদ্ধের পরবর্তী সংঘাতে অবদান রাখে। সোভিয়েত ইউনিয়ন থেকে ১৯৯১ সালে ইউক্রেনের স্বাধীনতার পর, ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক বিভাজন এবং একটি দুর্বল রাষ্ট্র কাঠামো ঐক্যবদ্ধ ইউক্রেনীয় জাতীয় পরিচয়ের বিকাশকে বাধাগ্রস্ত করেছিল।[১] পূর্বদক্ষিণ ইউক্রেনে, রুশ শাসনের শতাব্দীব্যাপী সময়ে রুশকরণ ও জাতিগত রুশ বসতি রুশ ভাষাকে প্রাধান্য দিয়েছিল, এমনকি জাতিগত ইউক্রেনীয়দের মধ্যেও রুশ ভাষাকে প্রাধান্য দিয়েছিল। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের পর সোভিয়েত সাধারণ সম্পাদক জোসেফ স্তালিন কর্তৃক স্থানীয় ক্রিমীয় তাতারদের নির্বাসনের পর থেকে ক্রিমিয়াতে জাতিগত রুশরা সংখ্যাগরিষ্ঠ জনসংখ্যা গঠন করে। এটি পশ্চিম ও মধ্য ইউক্রেনের সাথে বৈপরীত্য সৃষ্টি করে, যা ঐতিহাসিকভাবে বিভিন্ন শক্তি দ্বারা শাসিত ছিল, যেমন পোলিশ–লিথুয়ানীয় কমনওয়েলথঅস্ট্রীয় সাম্রাজ্য[২] এই অঞ্চলগুলিতে, ইউক্রেনীয় জাতিগত, জাতীয় ও ভাষাগত পরিচয় অটুট ছিল।

এই দুই প্রতিযোগিতামূলক ঐতিহাসিক ও সাংস্কৃতিক ঐতিহ্যের মধ্যেকার উত্তেজনা ইউরোমাইদানের সময় রাজনৈতিক ও সামাজিক সংঘাতে পরিণত হয়, যেটি শুরু হয় যখন ইউক্রেনের রাষ্ট্রপতি ভিক্টর ইয়ানুকোভিচ ২০১৩ সালের ২১শে নভেম্বর ইউরোপীয় ইউনিয়নের সঙ্গে একটি অ্যাসোসিয়েশন চুক্তি স্বাক্ষর করতে অস্বীকার করেন।[৩] ঘনিষ্ঠ সম্পর্কের জন্য পশ্চিম ও মধ্য ইউক্রেনে ইউরোপের পক্ষে সমর্থন শক্তিশালী ছিল, যেখানে পূর্ব ও দক্ষিণ ইউক্রেনের অনেকেই ঐতিহ্যগতভাবে রাশিয়ার সঙ্গেকার শক্তিশালী সম্পর্ককে সমর্থন করে। রাষ্ট্রপতি ইয়ানুকোভিচ, যিনি তার বেশিরভাগ সমর্থন পূর্বাঞ্চল থেকে পেয়েছিলেন, তাকে তার দপ্তর থেকে সরে যেতে ২০১৪ সালের ফেব্রুয়ারিতে বাধ্য করা হয়েছিল। তার ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পরে পূর্বদক্ষিণ ইউক্রেনে বিক্ষোভ হয়েছিল, যা রাশিয়ার সঙ্গে ঐতিহাসিক সম্পর্কের গুরুত্ব, রুশ ভাষাইউরোমাইদান আন্দোলনের প্রতি বিদ্বেষের উপর জোর দেয়।[৪]ন্যাটোতে যোগদানকে কেন্দ্র করে ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০২২ রাশিয়া ইউক্রেনে আক্রমণ শুরু করে।শুরু হয় ইউক্রেন-রুশ যুদ্ধ।


তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "What you should know about the Ukraine crisis"PBS Newshour। ৭ মার্চ ২০১৪। ২ এপ্রিল ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২২ 
  2. "History and Geography Help Explain Ukraine Crisis"National Geographic। ২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৪। ১৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৫ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২২ 
  3. "A Ukraine City Spins Beyond the Government's Reach"The New York Times। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৪। ১১ জানুয়ারি ২০২১ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২২ 
  4. Richard Sakwa (২০১৪)। Frontline Ukraine: Crisis in the Borderlands। I.B.Tauris। পৃষ্ঠা 155। আইএসবিএন 978-0857738042। ২০ ডিসেম্বর ২০১৯ তারিখে মূল থেকে আর্কাইভ করা। সংগ্রহের তারিখ ২৬ ফেব্রুয়ারি ২০২২