রাশেদ সোহরাওয়ার্দী

উইকিপিডিয়া, মুক্ত বিশ্বকোষ থেকে
পরিভ্রমণে ঝাঁপ দিন অনুসন্ধানে ঝাঁপ দিন
রাশেদ সোহরাওয়ার্দী
জন্ম১৯৩৯/৪০
মৃত্যু৭ ফেব্রুয়ারি ২০১৯
জাতীয়তাব্রিটিশ
যেখানের শিক্ষার্থীলন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়
পেশালেখক
অভিনেতা
পিতা-মাতাহোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী (বাবা)
ভেরা আলেক্সান্দ্রভনা ট্রিসেঙ্কো (মা)

রাশেদ সোহরাওয়ার্দী একজন ব্রিটিশ অভিনেতা ও লেখক ছিলেন যিনি ডক্টর হু (১৯৬৮), জিন্নাহ (১৯৯৮) ও লিজেন্ড (২০১৫) চলচ্চিত্রে অভিনয়ের জন্য পরিচিত।[১][২] তিনি রবার্ট অ্যাশবি নামেও পরিচিত ছিলেন।[৩][৪][৫]

রাশেদ সোহরাওয়ার্দী ছিলেন হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দী ও ভেরা আলেক্সান্দ্রভনা ট্রিসেঙ্কোর সন্তান।[৬] তিনি পড়াশোনা করেছেন চার্টার হাউস অক্সফোর্ড এবং লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ে[৩] তিনি রয়েল একাডেমি অব ড্রামাটিক আর্ট থেকে পড়াশোনা করে অভিনয় পেশায় যোগ দেন।[৩] তিনি মুক্তিযুদ্ধের সময় বাংলাদেশের স্বাধীনতার পক্ষে ছিলেন। তিনি ১৯৭১ সালের ৭ অক্টোবর বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধের প্রতি তার সমর্থনের কথা জানিয়ে অস্থায়ী সরকারের প্রধানমন্ত্রী তাজউদ্দীন আহমদের নিকট একটি পত্র লেখেন যা পরবর্তীতে সংবাদপত্রে প্রকাশিত হয়।[৭]

রাশেদ সোহরাওয়ার্দী ২০১৯ সালের ৭ ফেব্রুয়ারি ৭৯ বছর বয়সে মৃত্যুবরণ করেন।[৪][৫][৮]

তথ্যসূত্র[সম্পাদনা]

  1. "চলে গেলেন রাশেদ সোহরাওয়ার্দী"কালের কণ্ঠ। ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৯ 
  2. "সোহরাওয়ার্দীর ছেলে রাশেদ সোহরাওয়ার্দী আর নেই"যুগান্তর। ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৯ 
  3. "শ্রদ্ধাঞ্জলি: রাশেদ সোহরাওয়ার্দী"সমকাল। ১৫ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৯ 
  4. "হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ছেলে রাশেদ সোহরাওয়ার্দীর মৃত্যু"বাংলাদেশ প্রতিদিন। ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৯ 
  5. "রাশেদ সোহরাওয়ার্দী আর নেই"একুশে টেলিভিশন। ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৯ 
  6. "হোসেন শহীদ সোহরাওয়ার্দীর ছেলে রাশেদ সোহরাওয়ার্দী আর নেই"ইত্তেফাক। ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৯ 
  7. "বাংলাদেশের স্বাধীনতা সংগ্রামে ॥ রাশেদ সোহরাওয়ার্দী"জনকণ্ঠ। ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৯ 
  8. "Rashid Suhrawardy dies in London"Dhaka Tribune। ৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৯। সংগ্রহের তারিখ ২৭ আগস্ট ২০১৯